ঢাকা, সোমবার   ২৬ জুলাই ২০২১,   শ্রাবণ ১১ ১৪২৮

ইতালিতে বৈধতা পাচ্ছেন ১২ হাজার বাংলাদেশি অভিবাসী

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১০:৫৭ এএম, ২৫ এপ্রিল ২০২০ শনিবার | আপডেট: ১১:৩৩ এএম, ২৫ এপ্রিল ২০২০ শনিবার

ইতালির একটি শহরের মধ্যে বয়ে যাওয়া খাল- ম্যাটাডোর নেটওর্য়াক

ইতালির একটি শহরের মধ্যে বয়ে যাওয়া খাল- ম্যাটাডোর নেটওর্য়াক

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ এবার ইতালিতে অবৈধ হয়ে পড়া প্রায় লাখ ছয়েক অভিবাসীর জন্য সুখবর আনতে যাচ্ছে। কোভিড-১৯ মোকাবিলা করতে গিয়ে জনস্বাস্থ্য সুরক্ষার পাশাপাশি কৃষি খাতে উৎপাদন ধরে রেখে খাদ্যসংকট যাতে না হয়, সে জন্য দেশের রাজনীতিবিদেরা অবৈধ অভিবাসীদের বৈধতা দিতে যাচ্ছেন। মূলত কৃষি খাতে শ্রমিকের সংকট হওয়ায় ইতালি সরকার কয়েক সপ্তাহ ধরে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে। দীর্ঘ আট বছর পর ইতালি সরকার এ ঘোষণা দিয়েছে। ইতোমধ্যে এ ব্যাপারে একটি খসড়া আইন প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে গেছে। তবে সবকিছু নির্ভর করছে দেশটির পার্লামেন্টের সিদ্ধান্তের ওপর। ইতালিতে অবৈধ অভিবাসীদের মধ্যে ১২ হাজার বাংলাদেশি রয়েছেন। 

কয়েক দিন ধরে ইতালির প্রখ্যাত লা রিপাবলিকাসহ বেশ কয়েকটি দৈনিক এ নিয়ে প্রতিবেদন ও সাক্ষাৎকার প্রকাশ করেছে। মিলান থেকে প্রকাশিত কোরিয়েরে দেলা সেরা ও ইল জিওনার্ল পত্রিকার প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে, শেষ পর্যন্ত ইতালি সরকার অবৈধ অভিবাসীদের এক বছরের জন্য বৈধতা দিলে দুই থেকে ছয় লাখ পর্যন্ত বিদেশি কর্মী ইতালিতে এ সুবিধা পাবেন। এ মুহুর্তে ইতালিতে অবস্থানরত বিভিন্ন দেশের কর্মীরাই শুধু এ সুযোগ পাবেন।

রোমের সামাজিক ব্যক্তিত্ব এবং অভিবাসন বিশেষজ্ঞ লুৎফুর রহমান জানান, এখনও নির্দিষ্ট করে জানানো হয়নি সংখ্যায় কতজনকে বৈধতা দেয়া হবে। তবে একটি খড়সা আইন প্রণয়ন করা হয়েছে। তবে সেটি পার্লামেন্টে পাস করার ওপর নির্ভর করছে আইনটি কোন দিকে যায়।

জানা গেছে, ইউরোপের মধ্যে সবচেয়ে বেশি অবৈধ অভিবাসী রয়েছে ইতালিতে। ভূমধ্যসাগর পথে ইতালিতে প্রবেশ অনেকটা সহজ হওয়ায় হাজার হাজার অভিবাসী সাগর পথে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এদেশটিতে অনুপ্রবেশ করে। এছাড়া প্রতিবছর সিজনাল ভিসায় বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে স্বল্পমেয়াদে বৈধ উপায়ে কয়েক কয়েক হাজার শ্রমিক ইতালি আসে। কিন্তু ভিসার মেয়াদ শেষে এসব শ্রমিকদের একটি বড় অংশ নিজ দেশে ফেরত যায় না। এভাবে লাখ লাখ অভিবাসী দেশটিতে অবৈধভাবে বসবাস করছে যেটি সরকারও অবগত আছে। 

করোনা ভাইরাসে ইতালি আর্থিকভাবে বেশ ক্ষতির মুখে পড়েছে। মুখ থুবড়ে পড়েছে কৃষিখাতসহ সকল উৎপাদন ব্যবস্থায়। তাছাড়া অবৈধ অভিবাসীদের বৈধতা দিয়ে সরকার আর্থিকভাবেও লাভবান হবে। সবশেষ ইতালীতে ২০১২ সালের সেপ্টেম্বরে অবৈধ অভিবাসীদের বৈধকরণের ঘোষণা দেয়া হয়েছিল। 

ইতালিতে বাংলাদেশ দূতাবাস সূত্রে জানা গেছে, দেশটিতে এ মুহূর্তে প্রায় ৫০ হাজারের মতো বাংলাদেশি কর্মী অনিয়মিত হয়ে পড়েছেন। শেষ পর্যন্ত অবৈধ অভিবাসীদের বৈধতা দেওয়া হলে বাংলাদেশের কর্মীদের বড় অংশই এ সুবিধা পেতে যাচ্ছে।

অবৈধ অভিবাসীদের ইতালিতে বৈধতার বিষয়ে জানতে চাইলে রোমে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আবদুস সোবহান শিকদার একটি দৈনিককে বলেন, কয়েক সপ্তাহ ধরে এ বিষয়টি নিয়ে ইতালি সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ে গুরুত্বের সঙ্গে আলোচনা হচ্ছে। পার্লামেন্টেও এ নিয়ে গত সপ্তাহে দীর্ঘ আলোচনা হয়েছে। পার্লামেন্টে আলোচনা শেষে একটি আইন হবে বলে শুনেছি। শেষ পর্যন্ত এ নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হলে বাংলাদেশের অনিয়মিত হয়ে পড়া কর্মীরাও এর সুফল পাবেন।

এমএস/