ঢাকা, শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০:২১:৪১

জিয়া অরফানেজ মামলায় রায়ের কপি সোমবার

জিয়া অরফানেজ মামলায় রায়ের কপি সোমবার

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াসহ ছয় আসামির বিরুদ্ধে ঘোষিত জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায়ের সত্যায়িত কপি আগামীকাল সোমবার দেওয়া হবে। আজ রোববার খালেদা জিয়ার আইনজীবীদের এ কথা জানিয়েছেন আদালত। রোববার সকালে রায়ের কপির জন্য খালেদা জিয়ার পক্ষে তার আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া আদালতে আবেদন করেন। এর পর আদালতে আবেদনের বিষয়ে শুনানি হয়। এতে সানাউল্লাহ মিয়াসহ ১০ জনেরও বেশি আইনজীবী অংশ নেন। শুনানি শেষে বিচারক ড. মো. আখতারুজ্জামান খালেদা জিয়ার আইনজীবীদের বলেন, আজ রায় দেয়া যাবে না, সোমবার দেয়া হবে। ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছর কারাদণ্ডের সাজা দেন আদালত। রায়ের পর তাঁকে কারাগারে নেওয়া হয়। তখন রায়ের কপি তুলে যত দ্রুত সম্ভব আপিল ও জামিনের জন্য উচ্চ আদালতে আবেদন করতে আইনজীবীদের নির্দেশ দিয়েছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। এ মামলায় অন্য ৫ জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড দেন আদালত। একে// এআর
কয়লাখনি মামলায় খালেদাকে হাজিরের নির্দেশ

বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি সংক্রান্ত দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াসহ ১১ আসামিকে ২৫ মার্চ আদালতে উপস্থিত থাকার নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক। আজ রোববার রাজধানীর বকশিবাজারে অবস্থিত ঢাকার ২ নম্বর বিশেষ জজ আদালতের বিচারক হোসনে আরা খালেদা জিয়াসহ অন্য আসামিদের সময়ের আবেদন মঞ্জুর করে এ দিন ধার্য করেন। আজ এ মামলার অভিযোগ গঠন শুনানির দিন ধার্য ছিল। বিএনপি চেয়ারপারসন এই মুহূর্তে কারাগারে থাকায় হাজির হতে পারেননি। তাই তার আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া সময়ের আবেদন দাখিল করেন। আদালত সময়ের আবেদন মঞ্জুর করে সকল আসামিকে আগামী ২৫ মার্চ আদালতে উপস্থিত হতে নির্দেশ দেন। মামলার নথি থেকে জানা যায়, দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি উত্তোলন, ব্যবস্থাপনা ও রক্ষণাবেক্ষণে ঠিকাদার নিয়োগে অনিয়ম এবং রাষ্ট্রের ১৫৮ কোটি ৭১ লাখ টাকা ক্ষতি ও আত্মসাতের অভিযোগে ২০০৮ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি শাহবাগ থানায় মামলাটি দায়ের করা হয়। দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) ওই বছর ৫ অক্টোবর ১৬ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করে। এর আগে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় গত ৮ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছর কারাদণ্ড দেন ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৫ এর বিচারক ড. আখতারুজ্জামান। এরপর থেকে তাকে পুরান ঢাকার নাজিমুদ্দিন রোডের কারাগারে রাখা হয়েছে। এই মামলায় অন্য আসামি খালেদার বড় ছেলে তারেক রহমানকে ১০ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়। একে// এআর

‘রোববার আদালতে হাজির করা হচ্ছে না খালেদা জিয়াকে’

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া বলেছেন, `বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি–সংক্রান্ত দুর্নীতি মামলায় রোববার আদালতে হাজির হওয়ার দিন ধার্য থাকলেও তাকে হাজির করা হবে না।` শনিবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে কারা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে দেখা করে এ তথ্য জানান তিনি।   সানাউল্লাহ মিয়া জানান, বিডিআর বিদ্রোহ মামলার এই দিন শুনানি থাকায় আইনজীবীর মাধ্যমে তিনি আদালতে হাজিরা দেবেন। তিনি আরও জানান, `বড় পুকুরিয়া দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়া জামিনে রয়েছেন। এ মামলায় রোববার বিশেষ জজ আদালত-২-এ শুনানি হওয়ার কথা রয়েছে। এর আগে এ মামলায় খালেদা জিয়াকে হাজির করার জন্য কারা কর্তৃপক্ষের কাছে প্রোডাকশন ওয়ারেন্ট (কারাগার থেকে আদালতে হাজির করানোর জন্য পরোয়ানা) পাঠান।` বড়পুকুরিয়া কয়লাখনিতে উৎপাদন, ব্যবস্থাপনা ও রক্ষণাবেক্ষণের জন্য ঠিকাদার নিয়োগে দুর্নীতির অভিযোগে ২০০৮ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়াসহ ১৬ জনের বিরুদ্ধে শাহবাগ থানায় দুদক এ মামলাটি করে। অভিযোগপত্র দেওয়া হয় ২০০৮ সালের ৫ অক্টোবর। এসি/

খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা মিথ্যা বলছেন: আইনমন্ত্রী

খালেদা জিয়ার দুর্নীতি মামলার রায়ের কপি পাওয়া নিয়ে তার আইনজীবীরা যে অভিযোগ তুলেছেন তা প্রত্যাখান করেছেন আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক। শুক্রবার সকালে আখাউড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ওবায়দুল হক অফাইয়ের মরদেহ দেখতে তার গ্রামের বাড়ি হীরাপুরে গেলে স্থানীয় সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী এ কথা বলেন। এসময় তিনি আরও বলেন, ‘রায়ের কপি ইচ্ছে করে দেরিতে দেওয়া হচ্ছে বলে যে দাবি করা হচ্ছে তা সঠিক নয়। বেগম খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা মিথ্যা বলছেন। ৬৩২ পৃষ্ঠার রায়ের কপি টাইপ করতে যুক্তিসংগত যতটুকু সময় লাগে ততটুকু সময়েই কপি পাবেন তারা। এর এক মিনিটও দেরি হবে না। এতে সরকার কোনো হস্তক্ষেপ করবে না।’ এর আগে তিনি আখাউড়া উপজেলা যুবলীগ আয়োজিত আনন্দ র‌্যালিতে অংশ নেন। যুবলীগের নতুন কমিটি গঠন উপলক্ষে এ র‌্যালির আয়োজন করা হয়। র‌্যালি রেলওয়ে স্টেশন থেকে শুরু হয়ে উপজেলা পরিষদ কমপেক্স এলাকায় গিয়ে শেষ হয়। আখাউড়া পৌরসভার মেয়র তাকজিল খলিফা কাজল, জেলা পরিষদ সদস্য আবুল কাসেম ভূঁইয়া, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-আহবায়ক মো. সেলিম ভূঁইয়া, পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি অ্যাডভোকেট আব্দুল্লাহ ভূঁইয়া বাদল প্রমুখ এ সময় উপস্থিত ছিলেন। এমএইচ/টিকে

‘প্রশ্নফাঁস রোধে নিষ্ক্রিয়তা কেন অবৈধ নয়’

এসএসসি ও এইচএসসিসহ বিভিন্ন পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁস রোধে সরকারের নিষ্ক্রিয়তা কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট। বৃহস্পতিবার এক রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি শেষে বিচারপতি জুবায়ের রহামন চৌধুরী ও বিচারপতি ইকবাল কবিরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। বুধবার রিটটি করেছিলেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী আইনুন্নাহার সিদ্দিকাসহ তিন আইনজীবী। একইসঙ্গে প্রশ্নফাঁস রোধে সংশ্লিষ্টদের নিষ্ক্রিয়তা কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না তা জানতে চেয়ে একটি রুল জারি করা হয়েছে। সেই সঙ্গে এ ঘটনায় কোনও তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে কিনা- সে বিষয়ে আজ বেলা ২টার পর আদেশ দেবেন আদালত। বৃহস্পতিবার সকালে রিটকারী আইনজীবী আইনুন্নাহার সিদ্দিকা সাংবাদিকদের বলেন, ‘রিট আবেদনে প্রশ্ন ফাঁসের কারণে অনুষ্ঠিত হওয়া এসএসসি পরীক্ষা বাতিল করে নতুন করে পরীক্ষা নেওয়ার নির্দেশনা জারির আবেদন করেছি। এছাড়া প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনা তদন্ত এবং এ ফাঁস রোধে একটি আইন প্রণয়নে আইন মন্ত্রণালয়কে নির্দেশনা দেওয়ারও আবেদন করেছি।’ উল্লেখ্য, প্রশ্নফাঁস রোধের ব্যাপক তর্জনি-গর্জনির মধ্যে ১ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হয় চলতি বছরের এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা। এরইমধ্যে পরীক্ষা শুরুর পর প্রতিটি পরীক্ষার প্রশ্নই ফেসবুকে ফাঁস হয়। কিন্তু মন্ত্রণালয় তা মানতে নারাজ। অনুষ্ঠিত এসএসসি পরীক্ষায় প্রশ্ন ফাঁসকে কেন্দ্র করে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছে। এমনকি প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগে ছাত্র-শিক্ষকসহ অনেককে গ্রেফতারও করা হয়েছে। একে// এআর

খালেদার সাথে থাকার অনুমতি পেল ফাতেমা

আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে তার গৃহপরিচারিকা ফাতেমাকে থাকার অনুমতি দিয়েছে কারা কর্তৃপক্ষ। বুধবার কারা অধিদফতরের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা গণমাধ্যমকে এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। ওই কর্মকর্তা বলেন, ‘আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী কারাবিধির আলোকে ফাতেমাকে পরিচারিকা হিসেবে খালেদা জিয়ার সঙ্গে থাকার অনুমতি দিয়েছে কারা কতৃপক্ষ।’ এর আগে গত রোববার ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৫ এর বিচারক ড. আখতারুজ্জামান সেবিকা ফাতেমার বিষয়ে জেলকোডের বিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য কারা কর্তৃপক্ষকে আদেশ দেন। খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে রায়ের পর গত ৮ ফেব্রুয়ারি খালেদার সঙ্গে কারাগারে একজন পরিচারিকা (সেবিকা) নেওয়ার আবেদন করেন তার আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া। এই আবেদনে তিনি  উল্লেখ করেন, বেগম খালেদা জিয়া একজন বয়স্ক মানুষ। তিনি একা চলাফেরা করতে পারেন না। তাই তার জন্য একজন পরিচারিকা প্রয়োজন। আর তার পরিচারিকা হিসেবে থাকার জন্য মোছা. ফাতেমা প্রস্তুত আছেন। উল্লেখ, গত ৮ ফেব্রুয়ারি দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দায়ের করা জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসনকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেন ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৫ এর বিচারক ড. আখতারুজ্জামান। কেআই/টিকে

একরাম হত্যার রায় জানা যাবে ১৩ মার্চ

ফেনীর বহুল আলোচিত ফুলগাজী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান একরামুল হক হত্যা মামলার রায় আগামী ১৩ মার্চ নির্ধারণ করেছেন আদালত।  দুই পক্ষের যুক্তি-তর্ক শুনানি শেষে মঙ্গলবার ফেনীর জেলা ও দায়রা জজ আমিনুল হক রায়ের এ দিন নির্ধারণ করেন। এ সময় বিচারক জামিনে থাকা ২২ আসামির জামিন বাতিল করে দিয়ে তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। ফেনীর পাবলিক প্রসিকিউটর হাফেজ আহম্মদ জানান, এ মামলায় বিভিন্ন সময় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী ৪৪ জনকে গ্রেফতার করেছে। তাদের মধ্যে হত্যার দায় স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছে ১৫ জন। উল্লেখ্য, ২০১৪ সালের ২০ মে ফেনীর বিলাসী সিনেমা হলের সামনে ফুলগাজী উপজেলা পরিষদের তৎকালীন চেয়ারম্যান একরামুল হককে প্রকাশ্যে গাড়িসহ পুড়িয়ে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় তার বড় ভাই রেজাউল হক জসিম ৫৬ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় বিএনপি নেতা মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী ওরফে মিনার চৌধুরীসহ ৩৫ জন ফেনী কারাগারে রয়েছেন। জামিনে বেরিয়ে পালাতক রয়েছেন পাঁচজন। আর সোহেল ওরফে রুটি সোহেল নামে এক আসামি র‌্যাবের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে মারা গেছেন। এ ছাড়া আজ মঙ্গলবার চারজনের জামিন বহাল রেখেছে আদালত। একে// এআর

খালেদাকে ২ মামলায় আদালতে হাজির করার নির্দেশ

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় সাজাপ্রাপ্ত বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে দুই মামলায় হাজির করাতে আদালতের নির্দেশনা কারা কর্তৃপক্ষের কাছে পৌঁছেছে। ২০০৮ সালে রাজধানীর শাহবাগ ও তেজগাঁও থানায় করা ওই দুই মামলার  নির্দেশনা সোমবার কারা কর্তৃপক্ষের কাছে পৌঁছে। কারা অধিদফতরের ডিআইজি (ঢাকা বিভাগ) তৌহিদুল ইসলাম গণমাধ্যমকে জানান, শাহবাগ থানার একটি মামলায় আগামী ১৮ ফেব্রুয়ারি এবং তেজগাঁও থানার আরেক মামলায় ৪ মার্চ খালেদা জিয়াকে আদালতে হাজির করাতে আদালত থেকে চিঠি এসেছে। উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় পাঁচ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড হওয়ার পর থেকে খালেদা জিয়া নাজিমউদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে রয়েছেন। প্রথমে তাকে কারাগারের সাবেক জেল সুপারের কার্যালয়ে রাখা হয়েছিল। পরে শনিবার রাতে খালেদা জিয়াকে কারাগারের নারী সেলের দোতলায় ডে-কেয়ার সেন্টারে স্থানান্তর করা হয়। আদালতের আদেশে রোববার থেকে তিনি কারাগারে প্রথম শ্রেণির বন্দির মর্যাদা (ডিভিশন) পাচ্ছেন। অপরদিকে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় এরই মধ্যে খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা আপিল ও তার জামিন আবেদনের প্রস্তুতি শুরু করেছেন। তবে এখনও রায়ের অনুলিপি (সার্টিফায়েড কপি) পাননি তারা। আইন অনুযায়ী, খালেদা জিয়া রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করলে সার্টিফায়েড কপি পাওয়ার ৩০ দিনের মধ্যেই করতে হবে। তবে সার্টিফায়েড কপি পাওয়ার পর থেকে এ ক্ষণ গণনা শুরু হবে। বিএনপি চেয়ারপাসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দেশের বিভিন্ন আদালতে হত্যা, দুর্নীতি, ভুয়া জন্মদিন, নাশকতা, মানহানিসহ ৩৬টি মামলা রয়েছে। এর মধ্যে দুর্নীতির চারটি মামলা হলো- গ্যাটকো দুর্নীতি, নাইকো, জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট ও বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি দুর্নীতি।   আর/টিকে

খালেদা জিয়াকে নির্বাচনের বাইরে রাখার কোনো ইচ্ছা নেই: আইনমন্ত্রী

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, ‘খালেদা জিয়াকে নির্বাচনের বাইরে রাখার কোনো ইচ্ছে আমাদের নেই। আইন তার নিজস্ব গতিতে চলবে। আদালত ও বিচারব্যবস্থা স্বাধীন। নিরপেক্ষভাবেই আদালত এই রায় দিয়েছেন। এখন বিএনপির উচিত আইনগতভাবে এই মামলার মোকাবিলা করা।’ রোববার (১১ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে বিচার প্রশাসন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে বিচারকদের একটি প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এ কথা বলেন। তিনি বলেন, ‘আইনি কারণে কেউ নির্বাচনের বাইরে থাকলে সরকারের করার কিছু নেই। হুমকি ধমকিতে আইনের ব্যত্যয় ঘটবে না। খালেদা জিয়ার ব্যাপারে স্বাধীন আদালত স্বাধীনভাবেই সিদ্ধান্ত নেবেন। পুরো বিষয়টাই এখন আদালতের এখতিয়ারে। আমাদের কিছু করার নেই। তাঁকে নির্বাচনের বাইরে রাখার ইচ্ছে আমাদের নেই। নির্বাচন একটি সাংবিধানিক প্রসেস (প্রক্রিয়া)। সাংবিধানিক প্রক্রিয়াই নির্বাচন কমিশন নির্বাচনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন।’ বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) আইনে মামলা হলেও আদালত দণ্ডবিধির ৪০৯ ধারায় রায় দিয়েছেন দাবি করে এই মামলা বাতিলের দাবি জানিয়েছে বিএনপি। এ ক্ষেত্রে আইনি প্রক্রিয়া কী হবে জানতে চাইলে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘আমি যতটুকু মনে করি, বিএনপি এখন রায়ের কপি নিয়ে উচ্চ আদালতে আপিল করতে পারে। আপিলের পর জামিন চাইতে পারে। আপিলের পর আদালত জামিনের বিষয়টি বিবেচনা করবেন। আদালত স্বাধীনভাবেই বিষয়টি বিবেচনা করবেন বলে আমি মনে করি।’ এসি/

জেল কোড অনুযায়ী খালেদাকে ডিভিশন দেওয়ার নির্দেশ

জেলকোড অনুযায়ী খালেদা জিয়াকে কারাগারে ডিভিশন দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। রোববার বেলা সোয়া ১১টার দিকে পুরান ঢাকার বকশীবাজারে স্থাপিত বিশেষ আদালতে এ বিষয়ে শুনানি শেষে বিচারক আখতারুজ্জামান জিয়া এ আদেশ দেন। খালেদা জিয়ার আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। খালেদা জিয়ার জন্য ডিভিশন চেয়ে আদালতে আবেদন করেন তার আইনজীবী আমিনুল ইসলাম। পরে এ বিষয়ে সোয়া ১১টার দিকে শুনানি হয়। উল্লেখ্য, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় গত ৮ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়ার পাঁচ বছরের জেলের রায় ঘোষণা করেন আদালত। পরে রাজধানীর নাজিম উদ্দিন রোডের পুরনো ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের প্রশাসনিক ভবনটিকে ‘সাবজেল’ ঘোষণা করে সেখানে রাখা হয়েছে তাকে। পরে গতকাল শনিবার খালেদা জিয়ার সঙ্গে কারাগারে দেখা করতে যান ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ। তিনি জানান, খালেদা জিয়াকে নির্জন কারাবাসে রাখা হয়েছে। সেখানে অন্য কোনও কারাবন্দি নেই। চেয়ারপারসনকে ডিভিশন দেওয়া হয়নি। তাই এটা সংবিধান পরিপন্থী। একে// এআর

© ২০১৮ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি