ঢাকা, সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ১২:০৬:৪১

বিবাহবার্ষিকীতে স্ত্রীর প্রশংসায় মুশফিক

বিবাহবার্ষিকীতে স্ত্রীর প্রশংসায় মুশফিক

আজ টিম টাইগারের অন্যতম সেরা খেলোয়াড় মুশফিকুর রহিমের চতুর্থ বিবাহবার্ষিকী। ২০১৪ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর তারিখে সতীর্থ মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের শ্যালিকা জান্নাতুল কিফায়াত মন্ডির সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন তিনি। চলতি বছরের ৫ ফেব্রুয়ারি এ দম্পতির কোলজুড়ে পৃথিবীতে এসেছে তাদের প্রথম সন্তান শাহরুজ রহিম মায়ান। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নিজের বিবাহবার্ষিকী উপলক্ষে স্ত্রীর উদ্দেশ্যে বিশদ এক স্ট্যাটাস দিয়েছেন মুশফিকুর রহিম। একুশে টিভি অনলাইনের পাঠকদের জন্য তা তুলে ধরা হলো - মুশফিক লিখেছে- ‘সত্যিকার অর্থে আমি অনেক বেশি ভাগ্যবান, এই জন্য যে তোমাকে আমার অর্ধাঙ্গিনী হিসেবে পেয়েছি। তবে আমি তোমার জন্যে যথেষ্ট করতে পারিনি। তবে সর্বশক্তিমানের প্রতি কৃতজ্ঞতা। সবাই হয়তো বলবে তুমি আমাকে স্বামী হিসেবে পেয়ে ধন্য হয়েছো, তবে সত্যটা পুরোপুরি উল্টো। আমি অনেক বেশি সৌভাগ্যবান যে তোমাকে আমার স্ত্রী হিসেবে পেয়েছি।’ তিনি আরও লিখেন- ‘সৃষ্টিকর্তা তোমার মাধ্যমে আমাদেরকে শ্রেষ্ঠ উপহার, আমাদের সন্তান, আমাদের নয়নের মণি মায়ানকে দিয়েছেন। তুমি শুধুমাত্র একজন স্ত্রী নও, তুমি সত্যিকারের একজন চ্যাম্পিয়ন। আমি তোমার কাছ থেকে অনেক কিছু শিখেছি, কিভাবে কিছু গুছিয়ে নিতে হয়, ত্যাগ স্বীকার করতে হয়। গত কয়েক বছর ধরে আমার সঙ্গে থাকার জন্য ও আমাকে সহ্য করার জন্য অনেক অনেক ধন্যবাদ। আমি সৃষ্টিকর্তার কাছে দোয়া করি, আমরা যেন মৃত্যুর পরে জান্নাতেও একসঙ্গেই থাকতে পারি। বিবাহবার্ষিকীর অনেক অনেক শুভেচ্ছা প্রিয়তমা। তুমি জানো আমি তোমাকে কতোটা মিস করছি।’ উল্লেখ্য, যে মুহুর্তে আজ মুশফিকুর রহিমের চতুর্থ বিবাহবার্ষিকী ঠিক সেই দিনে এশিয়া কাপের খেলার জন্য তিনি রয়েছেন মরুর দেশে। তবে গতকাল গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে আফগানিস্তানকে তিন রানের ব্যবধানে হারিয়েছে পুরো টিম টাইগার আনন্দে ভাসছে। জয়ের সেই আনন্দের সঙ্গে আরও যুক্ত হলো মুশফিকের আজকের দিনটি। তাই সেখানেই হয়তো সতীর্থদের শুভেচ্ছায় আরও রঙিন হয়ে উঠছেন লাজুক ছেলেটি। এমএইচ/  
বাংলাদেশকে ব্রেক থ্রো এনে দিলেন মোস্তাফিজ

সুপার ফোরে ঠিকে থাকতে আফগানিস্তানকে হারানো ছাড়া জয়ভিন্ন কিছু ভাবছে না টাইগাররা। আর জয়ের জন্য প্রয়োজন আফগানিস্তানের ১০টি উইকেট। এরইলক্ষ্যে প্রথম আঘাত হেনেছেন কাটার বয় মুস্তাফিজুর রহমান। খেলার পঞ্চম ওভারে আফগান ব্যাটসম্যান ইহসানুল্লাহকে ফিরিয়ে দলকে ব্রেক থ্রো এনে দেন মুস্তাফিজুর রহমান। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত বাংলাদেশের আফগানিস্তানের সংগ্রহ দাঁড়ায় ৬ ওভারে ২৪ রান। হাতে রয়েছে আরও ৯ উইকেট। এর আগে ব্যাটস করতে নেমে মাহমুদুল্লাহ ও ইমরুল কায়েসের জোড়া হাফ সেঞ্চুরিতে আফগানদের ২৫০ রানের টার্গেট দেয় বাংলাদেশ।এশিয়া কাপে টিকে থাকতে হলে বাংলাদেশকে আজ জিততেই হবে, এমন সমীকরণে কাবুলিদের বধে মাঠে নেমেছে টাইগাররা। অন্যদিকে বাংলাদেশকে হারিয়ে আফগানিস্তানও চায় টুর্নামেন্টে টিকে থাকতে। এমজে/

শোয়েব মালিকের হাফ সেঞ্চুরিতে এগিয়ে পাকিস্তান

এশিয়া কাপের সুপার ফোরে ভারতের বিপক্ষে হাফ সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন পাকিস্তানের অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান শোয়েব মালিক। সুপার ফোরের প্রথম ম্যাচে হাফ সেঞ্চুরির সুবাদে পাকিস্তানকে জয় এনে দেন পাক এই ব্যাটসম্যান। আজকের ম্যাচেও প্রাথমিক বিপর্যয় সামলানোর চেষ্টা করছেন অভিজ্ঞ এই ব্যাটসম্যান। এর আগে টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে বিপর্যয়ে পড়ে পাকিস্তান। ইনিংসের শুরুতেই ফিরে যান ওপেনিং ব্যাটসম্যান ইমামুল হক। দলীয় ২৪ রানে ইমামুলের বিদায়ের পর হাল ধরেন ফখর জামান। তবে তিনিও বেশিদূর এগোতে পারেনি। তার সংগ্রহ ৩১ রান। এর আগে বাবর আজম ব্যক্তিগত ৯ রানে আউট হলে বিপর্যয়ে পড়ে পাকিস্তান। তবে প্রাথমিক সে বিপর্যয় সামলে দলকে এগিয়ে নিচ্ছেন শোয়েব মালিক ও সরফরাজ আহমেদ। শোয়েব মালিক ব্যক্তিগত ৬০ রান ও সরফরাজ আহমেদ ব্যক্তিগত ৩৯ রানে অপরাজিত আছেন। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত পাকিস্তানের সংগ্রহ ১৫৯ রান। হাতে আছে ৭ উইকেট এবং ৭২ বল। এমজে/

সাকিব-মুশফিকের রান আউটে বিপর্যয়ে বাংলাদেশ

শুরুটা হয়েছিল বিপর্যয় দিয়ে। নাজমুল হোসেন শান্ত ও মোহাম্মদ মিঠুনের দলীয় ১৮ রানে বিদায়ের পর ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে টিম বাংলাদেশ। সে চাপ কিছুটা সামলে উঠার চেষ্টা করলেও শেষ পর্যন্ত সাকিব আল হাসান ও মুশফিকুর রহিমের রান আউটে ফের বিপর্যয়ে পড়ে বাংলাদেশ। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত টাইগারদের সংগ্রহ ৫ উইকেটে ৮৭ রান। এর আগে টস জিতে ব্যাটিংয়ে নামার সিদ্ধান্ত নেয় বাংলাদেশি অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। দলীয় ১৬ রানেই ব্যক্তিগত ছয় রানি করে বিদায় নেন শান্ত। এর দুই রান পরই বিদায় নেন মোহাম্মদ মিঠুন। এদিন লিটন কিছুটা চেষ্টা করলেও শেষ পর্যন্ত ব্যক্তিগত ৪১ রানে বিদায় প্রথম তিন ম্যাচে ফ্লপ এই ব্যাটসম্যান। সে চাপ আর সামলে উঠতে পারেনি মুশফিক-সাকিবরা। এজন্যই তাড়াহুড়ো করে রান নিতে গিয়ে বিদায় নেন সাকিব। শেনওয়ারির ডাইরেক্ট হিট আনেন উইকেটে। এতেই বিদায় নেন সাকিব। এর ঠিক এক ওভার পরেই একই কায়দায় বিদায় নেন মুশফিক। সাকিব কোনো রান না করতে পারলেও শেষ পর্যন্ত মুশফিকের সংগ্রহ ৩৩ রান।এমজে/

আফগানিস্তানের সাফল্যের চার কারণ 

বাংলাদেশ ও আফগানিস্তান এখন পর্যন্ত ৬টি ম্যাচ খেলেছে। যার মধ্যে দু দলের সমান তিনটি করে জয়। আফগানিস্তান প্রথম ওয়ানডে ম্যাচ খেলে ২০০৯ সালে। আর বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হয় ১৯৮৬ সালে।    এশিয়া কাপের সুপার ফোরের খেলা চলছে। আফগানিস্তান প্রথম ম্যাচে পাকিস্তানের কাছে শেষ ওভারে হারে। তবে এর আগে শ্রীলঙ্কা ও বাংলাদেশকে বড় ব্যবধানে হারিয়ে সেরা চারে জায়গা করে নেয় আফগানিস্তান। কীভাবে এশিয়া কাপ জয়ের সম্ভাব্য একটি দল হয়ে উঠলো? রশিদ খান ও স্পিনাররা  বাংলাদেশের ঘরোয়া ক্রিকেটের অন্যতম সফল একজন কোচ মোহাম্মদ সালাউদ্দিনের মতে আফগানিস্তানের স্পিন আক্রমণ অনেক বড় একটা হাতিয়ার। তিনি বলেন, আফগানিস্তান নতুন একটা দেশ হলেও বেশ কজন প্রতিভাবান বোলার আছে যারা প্রভাব রাখছে দলের পারফরম্যান্সে। রশিদ খান ওয়ানডে বোলিং র‍্যাঙ্কিংয়ে দুই নম্বরে আছেন। এছাড়া মুজিব উর রহমান ও মোহাম্মদ নবী ভালো বোলিং করছেন। তিনজন স্পিনারের কেউই ৩.৫০ এর বেশি রান দিচ্ছেন না ওভার প্রতি। বিপর্যয় সামলে ওঠার ক্ষমতা শুরুটা ধীরে হলেও আফগান ব্যাটসম্যানরা বিপর্যয় সামলে উঠছে নিয়মিত। আফগানিস্তানের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ নবী তেমন ভালো না করলেও, হাসমতউল্লাহ শহীদি ৩ ম্যাচে ১৯২ রান করেছেন। রহমত শাহ ৩ ম্যাচে ১১৮ রান করেছেন। মোহাম্মদ শাহজাদ ও ইহসানুল্লাহের শুরুটা স্লথ গতির হলেও মাঝপথে ইনিংস সামলে শেষদিকে আফগানিস্তানের ব্যাটম্যানরা রান তুলছে দ্রুত। এশিয়া কাপে সুপার ফোরের বাংলাদেশ বনাম আফগানিস্তান ম্যাচ পর্যন্ত সবগুলো ম্যাচে ২৫০ বা তার কাছাকাছি রান তুলেছে একমাত্র আফগানিস্তান। বাংলাদেশের বিপক্ষে শেষ ১০ ওভারে ৯৭ ও পাকিস্তানের বিপক্ষে শেষ ১০ ওভারে ৮৭ রান তুলেছে আফগান ব্যাটসম্যানরা। বিভিন্ন দেশে লিগ খেলার অভিজ্ঞতা   রশিদ খান কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের হয়ে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে খেলেছেন। সেই দলের কোচ ছিলেন মোহাম্মদ সালাউদ্দিন। তার মতে, বিভিন্ন দেশের লিগগুলোতে খেলা আফগানিস্তানের ক্রিকেটারদের এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। তিনি বলেন, "রশিদ খান, মোহাম্মদ নবী, মুজিব উর রহমান আন্তর্জাতিক ক্রিকেটারদের সাথে ড্রেসিংরুম শেয়ার করে থাকেন। যা তাদের ক্রিকেটীয় চিন্তা-ভাবনাকে আরো ক্ষুরধার করে তোলে।" "এতোগুলো প্লেয়ার এতো বড় বড় লিগে খেলার কারণে দলের মানসিকতায় পরিবর্তন আসে।" সূত্র: বিবিসি বাংলা এসি  

টস জিতে ব্যাটিংয়ে পাকিস্তান

এশিয়া কাপের সুপার ফোরে ভারতের বিপক্ষে টস জিতে ব্যাটিংয়ে নামার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন পাক অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ।  আফগানিস্তানের বিপক্ষে কষ্টের জয় নিয়ে পাকিস্তান সুপার ফোরের যাত্রা শুরু করলেও ভারতের যাত্রা হয়েছে খুব সুখকর। শক্তিশালী বাংলাদেশকে বড় ব্যবধানে হারিয়ে দ্বিতীয় রাউন্ড শুরু করে দলটি। তাই আজকের ম্যাচ জিতে ফাইনাল নিশ্চিত করতে চায় দুই দলের অধিনায়কই। এরই লক্ষ্যে মাঠে নামছে পাকিস্তান-ভারতের ক্রিকেটাররা। এদিকে দুই দলের প্রথম লড়াইয়ে পাকিস্তানকে বড় ব্যবধানে হারায় ভারত। ভারতের একাদশ: রোহিত শর্মা, শিখর ধাওয়ান, আম্বাতি রাইডু,ধোনি, দিনেশ কার্ত্তিক, কেদার যাদব, রবীন্দ্র জাদেজা, ভুবনেশ্বর কুমার, কুলদ্বীপ যাদব, যাসপ্রিট বুমরাহ এবং যুভেন্দ্রা চাহাল।পাকিস্তানের একাদশ: ফখর জামান, ইমামুল হক, বাবর আজম, শোয়েব মালিক, সরফরাজ আহমেদ, আসিফ আলী, শাদব কান, মোহাম্মদ নওয়াজ, হাসান আলী, মোহাম্মদ আমির এবং শাহীন আফ্রিদি। এমজে/

এশিয়া কাপে বাংলাদেশ পিছিয়ে পড়ছে কেন?

বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল শেষ দুই ম্যাচে আফগানিস্তান ও ভারতের বিপক্ষে যথাক্রমে ১১৯ ও ১৭৩ রানে অলআউট হয়ে যায়। মূলত তামিম ইকবাল আঘাত পেয়ে টুর্নামেন্ট থেকে চলে যাওয়ার পর এই ব্যাটিংয়ে এই সংকট দেখা দিয়েছে। তবে বাংলাদেশ প্রায়শই এমন সংকটে ভুগছে, যে সিনিয়র ক্রিকেটাররা ভালো না খেললে সমষ্টিগতভাবে দল খারাপ করছে।প্রথম ম্যাচে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জয়ের পর কী কারণে বাংলাদেশ এশিয়া কাপে হঠাৎ পিছিয়ে পড়লো? বিবিসি বাংলা জানতে চায় বাংলাদেশের ঘরোয়া ক্রিকেটের সফল একজন কোচ মোহাম্মদ সালাউদ্দিনের কাছে। তার মতে, বাংলাদেশের ঘরোয়া ক্রিকেট আন্তর্জাতিক মানের ক্রিকেটার তৈরিতে ব্যর্থ হচ্ছে। তিনি বলেন, "তামিম ইকবাল না থাকার ফলে পুরো ব্যাটিং ধ্বসে যাবে এটা মানা যায় না। সাকিব, মুশফিক ও রিয়াদের ওপর শুধু তাকালে হবে না।"মি. সালাউদ্দিনের মতে, "আবার নতুনরা যেভাবে উঠে আসছে তাতে বড় মঞ্চের জন্য যে প্রস্তুত না সেটা বোঝা যায়। ঘরোয়া ক্রিকেটে দুই এক ম্যাচ দেখে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নামানো বুমেরাং হয়ে পড়ে।"`এ` দলের কার্যক্রম কম:চলতি বছর বাংলাদেশে `এ` দল পুনরায় খেলা শুরু করেছে। তবে দীর্ঘ বিরতি থাকায় কারা আসলে দলে সুযোগ পাওয়ার মতো আছে সেটা বিবেচনা করা কঠিন হয়ে যায়।মোহাম্মদ সালাউদ্দিন বলছেন, "দলে অতিরিক্ত পরিবর্তন ইতিবাচক না। এতে ক্রিকেটার ও দল উভয়ের মধ্যে আস্থা থাকে না। কেউই ভবিষ্যৎ নিয়ে সুস্পষ্ট ভাবনা ছাড়াই ক্রিকেট খেলে ফলে চাপ থাকে।"স্পিন বলে ভালো করছে না বাংলাদেশ:ভারত ও আফগানিস্তানের বিপক্ষে বাংলাদেশ মোট ১০টি উইকেট স্পিনারদের বিপক্ষে হারিয়েছে। রশিদ খানের ৯ ওভারে ১৩ রান, মোহাম্মদ নবীর ১০ ওভারে ২৪, মুজিব উর রহমানের ৮ ওভার এক বলে ২২ রান নেয় বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা। এর কারণ হিসেবে মোহাম্মদ সালাউদ্দিন মনে করেন বাংলাদেশের ঘরোয়া ক্রিকেটে খুব ভালো মানের স্পিনারের বিপক্ষে খেলে না ব্যাটসম্যানরা। যথাযথ বল বিবেচনা, শট সিলেকশনে এখনো পিছিয়ে আছে তাই।তিনি বলেন, "ঘরোয়া ক্রিকেটে যেসব উইকেট বল করা হয়, সেখানে বল নিচু হয়ে আসে, যথেষ্ট বাউন্স থাকে না। আর যারা বল করছেন তারা স্বভাবতই উইকেটের সুবিধা পান। কিন্তু আন্তর্জাতিক ক্রিকেট তো অধিকাংশ সময়ই স্পোর্টিং উইকেটে হয়, সেখানে বল করার মতো বাংলাদেশে খুব কম স্পিনারই সক্ষম। যার প্রভাব ব্যাটিং এ পড়ছে।"সিনিয়র ক্রিকেটারদের ব্যাক আপ না থাকাপ্রতিটা ক্রিকেটারের ব্যাক আপ হিসেবে যারা আছেন তারা খুব একটা ভালো করছেন না। জাতীয় দলে যারা পুনরায় বিবেচনায় আসছেন তারা ভালো ক্রিকেট খেলে দলে ফিরছেন না। অন্যকেউ খারাপ করলে সেক্ষেত্রে ডাক পাচ্ছেন দলে।ভারতের বিপক্ষে ৩৩তম ওভারের মধ্যে সাকিব, মুশফিক ও রিয়াদ প্যাভিলিয়নে ফেরেন। এর পরিবর্তে মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত নিজেকে প্রমাণের মঞ্চ পেয়েও ব্যর্থ হন। রবীন্দ্র জাদেজার বলে স্লগ সুইপ খেলতে গিয়ে এমএস ধোনির হাতে `কট বিহাইন্ড` হন সৈকত। তামিম ইনজুরিতে থাকায় যে দুজনের প্রমাণ করার সুযোগ ছিল সেই লিটন দাস ও নাজমুল হোসেন শান্তও বাজে শট খেলে আউট হন। এছাড়া সাকিব জাদেজার দু বলে দুটি বাউন্ডারি মারার পর স্কয়ার লেগে ক্যাচ তুলে দিয়ে আউট হন।আর মুশফিক ৪৪ বল খেলে ২১ রান করার পর রিভার্স সুইপ খেলতে গিয়ে আউট হন যা কিনা খেলার গতিপথের বিপরীতে। এমজে/

বাংলাদেশকে হুমকি দিয়ে রাখলেন রশিদ খান

এশিয়া কাপের প্রথম রাউন্ডে বাংলাদেশকে হারিয়ে নিজের ২০তম জন্মদিনকে সব ফুল আর রঙ দিয়ে রাঙিয়ে দিয়েছেন আফগান অলরাউন্ডার রশিদ খান। ব্যাট হাতে অপরাজিত ৫৭ রান করার পর বল হাতে ৯ ওভারে মাত্র ১৩ রান দিয়ে নিয়েছিলেন ২ উইকেট। ১.৪৪ ইকনোমি রেটে রান দিয়ে একাই বাংলাদেশের রানকে আটকে দিয়েছিলেন তিনি। পরের ম্যাচে পাকিস্তানের বিপক্ষে নিয়েছেন ৩ উইকেট। শেষ মুহূর্তে শোয়েব মালিক যদি না দাঁড়াতেন, তাহলে পাকিস্তানকেও হারিয়ে দিতেন রশিদ খানরা। এশিয়া কাপের গ্রুপ পর্বের দ্বিতীয় ম্যাচে আবারও বাংলাদেশের মুখোমুখি হচ্ছে রশিদ খানের দল আফগানিস্তান। আর এ ম্যাচকে সামনে রেখে রশিদ খান বলেন, আফগান ক্রিকেটাররা এখন বিশ্বাস করেন, এশিয়া কাপটা ঘরে নিয়ে যেতে পারবেন। তাই ম্যাচ জিতে নয়, ট্রফি জিতেই উৎসব করতে চান তারা। বাংলাদেশের বিপক্ষে নামার আগে রশিদ খান বলেন, ‘আমাদের কাছে যথেষ্ট অস্ত্র আছে, যা দিয়ে বাংলাদেশকে ফের বিধ্বস্ত করতে পারবো।’ এমজে/

খুলনায় ব্যর্থ আশরাফুল

আন্তর্জাতিক ও ঘরোয়া ক্রিকেটে পাঁচ বছরের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের দলে খেলেছিলেন আশরাফুল। কিন্তু খুলনায় নিজেকে প্রমাণ করতে পারেননি আশরাফুল। খুলনার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে বিসিবির ‘এ’ দলের প্রস্তুতি ম্যাচে লাল দলের হয়ে খেলছেন সাবেক এই টাইগার অধিনায়ক। সবুজ দলের বিপক্ষে প্রথম ইনিংসে তাইজুল ইসলামের বলে জাকির হোসেনের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন ১০ বলে মাত্র ১ রান করে। আশরাফুল ভক্তদের আশা ছিল দ্বিতীয় ইনিংসে হয়তো ঠিকই ঘুরে দাঁড়াবে বাংলাদেশ ক্রিকেটের প্রথম সুপারস্টার। কিন্তু দ্বিতীয় ইনিংসেও একই অবস্থা। শুরুতে চার-ছয়ের ঝলক দেখালেও পার হতে পারেননি ২০ রানের কোঠা। ১৩ রানের মাথায় পেসার এবাদত হোসেনের বলে ফজলে রাব্বিকে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন প্যাভিলিয়নে। এমজে/

ক্রিকেট উত্তেজনা: রশিদ, নবী, হাসান আলীকে জরিমানা

টানটান উত্তেজনাপূর্ণ ম্যাচ আর খেলোয়াড়রা বাকবিতণ্ডায় জড়াবেন না, এটা কি হয়? আফগানিস্তান-পাকিস্তান ম্যাচেও ঘটলো এমন কাণ্ড। আর এতেই দুই দলের তিন খেলোয়াড়কে জরিমানা করেছে ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইসিসি। এশিয়া কাপের সুপার ফোরের খেলায় গতকাল শুক্রবার মুখোমুখি হয়েছিল পাকিস্তান ও আফগানিস্তান। আইসিসির ডিমেরিট ও জরিমানার শিকার ক্রিকেটাররা হলেন- পাকিস্তানি পেসার হাসান আলী, আফগান স্পিনার রশিদ খান ও মোহাম্মদ নবী। আফগানিস্তানের ইনিংসে ৩৩তম ওভারের সময় স্ট্রাইকে থাকা হাশমতউল্লাহর দিকে বল ছুড়ে মারার ইঙ্গিত করেন পাকিস্তানি পেসার হাসান আলী। এরপর ৩৭ ওভারের সময় রান নিতে গিয়ে হাসান আলীকে ধাক্কা দেন আসগর আফগান। এছাড়াও ম্যাচ চলাকালীন সময়ে অশালীন ভাষা ব্যবহার করেন রশিদ খান। পরে পাকিস্তানের ইনিংসের ৪৭তম ওভারের সময় আসিফ আলীকে প্যাভিলিয়নে ফেরার ইঙ্গিত করেন আফগান স্পিনার মোহাম্মদ নবী। ম্যাচ চলাকালীন এমন বিদ্রূপ আচরণের জন্য ম্যাচ রেফারি প্রত্যেককে এক ডিমেরিট পয়েন্ট ঘোষণা করেন সঙ্গে ম্যাচ ফি’র ১৫ শতাংশ কেটে নেয়ার আদেশ দেন। এমজে/

© ২০১৮ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি