ঢাকা, সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ৪:১৯:২৪

মার্কিন বিমান হামলায় সোমালিয়ায় নিহত ১৮

মার্কিন বিমান হামলায় সোমালিয়ায় নিহত ১৮

সোমালিয়ায় মার্কিন বিমান হামলায় আল-শাবাবের ১৮ জন যোদ্ধা নিহত হয়েছেন। যুক্তরাষ্ট্রের আফ্রিকা কমান্ড ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। গত শুক্রবার সোমালিয়ার লোয়ার জুবা প্রদেশে মার্কিন ও সোমালি সরকারি সৈন্যদের সঙ্গে আল শাবাব জঙ্গিদের সংঘর্ষের সময় মার্কিন বাহিনীর ডাকে বিমান হামলাটি চালানো হয় বলে জানানো হয়েছে। কমান্ডের এক বিবৃতিতে জানায়, ‘যুক্তরাষ্ট্র ও অংশীদার বাহিনীগুলো আক্রমণের মুখে পড়ার পর জঙ্গিদের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের বিমান হামলাটি চালানো হয়। আমাদের বর্তমান মূল্যায়ন হচ্ছে এ ঘটনায় কোনো বেসামরিক নিহত বা আহত হয়নি।’ এদিকে সোমালিয়ায় অবস্থানরত মার্কিন বাহিনীগুলো জঙ্গিগোষ্ঠী আল শাবাবের বিরুদ্ধে দেশটির জাতিসংঘ সমর্থিত সরকারকে সমর্থন দিচ্ছে। আল শাবাব ২০১১ সালে রাজধানী মোগাদিশু থেকে সরে যাওয়ার পর থেকে দখলকৃত অধিকাংশ এলাকার নিয়ন্ত্রণ হারিয়েছে দলটি। সূত্র: আল-জাজিরা এমএইচ/  
তানজানিয়ায় দুর্ঘটনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ২০৯

পূর্ব আফ্রিকার দেশ তানজানিয়ায় ফেরি ডুবিতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দায়িয়েছে ২০৯ জনে। মৃতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এদিকে তানজানিয়ায় প্রেসিডেন্ট জন মাগুফলি এ ঘটনার নিন্দা জানিয়ে ফেরির সব চালককে গ্রেফতারের নির্দেশ দিয়েছেন। ফেরির ক্যাপ্টেনকে আটক করে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর হেফাজতে রাখা হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার (২০ সেপ্টেম্বর) অতিরিক্ত যাত্রীসহ লেক ভিক্টোরিয়ার তানজানিয়া অংশের ইউক্রেওয়ি দ্বীপের কাছে নেইরিরে নামের ফেরিটি ডুবে যায়। পরে ফেরিটিকে উকোরা ও বুগোলোরা দ্বীপের মধ্যবর্তী উপকূলের কাছাকাছি উল্টানো অবস্থায় পাওয়া যায়। ফেরি দুর্ঘটনায় ইতোমধ্যে তানজানিয়ায় চারদিনের রাষ্ট্রীয় শোক ঘোষণা করা হয়েছে। দুর্ঘটনার সঠিক কারণ অনুসন্ধানে তদন্ত চলছে বলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। দেশটির রাষ্ট্রিয় টেলিভিশন বলছে, ফেরিটিতে ধারণক্ষমতা একশ জন থাকলেও এতে চারশো’র বেশি যাত্রী ছিল।   সূত্র: সিএনএন এমএইচ/

নাইজেরিয়াতে কলেরায় ৯৭ জনের মৃত্যু

নাইজেরিয়ার ইয়োব এবং বর্নো রাজ্যে গত দু’সপ্তাহে তিন হাজারের বেশি কলেরা সংক্রমণের রেকর্ড লিপিবদ্ধ করা হয়েছে। এগুলোর মধ্যে ৯৭ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানানো হয়েছে। গতাকাল শনিবার জাতিসংঘের কো-অর্ডিনেশন অব হিউম্যানিটারিয়ান অ্যাফেয়ার্স (ওসিএইচএ) এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। প্রতিষ্ঠানটির তথ্য মতে, নাইজেরিয়ার ইয়োব এবং বর্নো রাজ্যে গত দু’সপ্তাহে ৩ হাজার ১২৬ জন কলেরায় আক্রান্ত হয়েছে।  এর মধ্যে গত শনিবার পর্ন্ত ৯৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর আগে গত বুধবার জাতিসংঘের এক প্রতিবেদনে বলা হয়,  নাইজেরিয়ার লেক শাদ এলাকায় ২০১৮ সালে ৫০০-এরও বেশি মানুষ কলেরা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। গত চার বছরের মধ্যে এটাই অঞ্চলটিতে কলেরার সবচেয়ে বড় সংক্রমণ। সূত্র: আল-জাজিরা এমএইচ/

তাঞ্জানিয়ায় ফেরি ডুবে ৪২জনের প্রাণহানি

তাঞ্জানিয়ায় একটি যাত্রীবাহী ফেরি ডুবে ৪২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় উদ্ধার কর্মীরা শতাধিক যাত্রীকে জীবিত এবং ৩২ জনতে মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করেন। নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার বিকালে দেশটির ভিক্টোরিয়া হ্রদে তিন শতাধিক যাত্রী নিয়ে এমভি নায়রেরে নামে ওই ফেরিটি ওকরা ও বুগলরা নামে দুটি দ্বিপের মাঝামাঝি স্থানে উল্টে যায়। ধারণা করা হচ্ছে, অতিরিক্ত যাত্রী বোঝাই করার কারণে ওই ফেরিডুবির ঘটনাটি ঘটে। প্রত্যক্ষদর্শী অনেকের দাবি, ডুবে যাওয়া যাত্রীর সংখ্যা দুই শতাধিক। উল্লেখ্য, ১৯৯৬ সালে ভিক্টোরিয়া হ্রদের একই এলাকায় ফেরি দুর্ঘটনায় অন্তত ৫০০জনের মৃত্যু হয়। সূত্র: রয়টার্স একে//

রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সমাহিত কফি আনান

রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সমাহিত হলেন জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব কফি আনান। নিজ দেশ ঘানার আক্রার সামরিক সমাধি ক্ষেত্রে তাকে সমাহিত করা হয়। স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার ছিল তার শেষকৃত্য অনুষ্ঠান। অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ায় যোগ দেন জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস, দেশটির প্রধানমন্ত্রী, আফ্রিকার বিভিন্ন দেশের নেতা ও আন্তর্জাতিক কূটনীতিকরা। পরিবার-স্বজন ও আমন্ত্রিত অতিথিসহ প্রায় ছয় হাজার মানুষ ছিলেন শেষ বিদায়ে। উল্লেখ্য, ১৮ আগস্ট সুইজারল্যান্ডের একটি হাসপাতালে ৮০ বছর বয়সে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন এই নোবেল জয়ী। কফি আনান ছিলেন জাতিসংঘ মহাসচিবের দ্বায়িত্ব পালনকারী প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ আফ্রিকান। ১৯৯৭ সাল থেকে ২০০৬ পর্যন্ত দুই মেয়াদে দ্বায়িত্ব পালন করেন তিনি। পরবর্তীতে সিরিয়ায় জাতিসংঘের বিশেষ দূত হিসেবেও দ্বায়িত্ব পালন করেন তিনি। জড়িত ছিলেন মিয়ানমারে রোহিঙ্গা নিধনসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সমস্যার সমধান প্রক্রিয়ায়। একে//

কেনিয়া পুলিশের ভয়ংকর কাণ্ড!

কেনিয়ায় দিনের বেলায় এক পুলিশ কর্মকর্তার ভয়ংকর তাণ্ডব সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে।  কেনিয়ার এ পুলিশ কর্মকর্তা দুজন সন্দেহভাজন অপরাধীকে গুলি করে হত্যা করছে। মোবাইল ফোনে ধারণ করা এ ভিডিও ভাইরাল হবার পর লাখ-লাখ মানুষ সেটি দেখছে। ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, মাটিতে উপুর হয়ে শুয়ে থাকা এক ব্যক্তির পিঠের উপর পা দিয়ে চেপে ধরে আছে সাধারণ পোশাক পরা এক পুলিশ কর্মকর্তা। আরেকজন ব্যক্তি এসে একটি পিস্তল দিয়ে গেলে একের পর এক গুলি চালায় সে পুলিশ কর্মকর্তা। মৃত্যু নিশ্চয় করার জন্য যাবার সময় আরো কয়েক রাউন্ড গুলি চালানো হয়। ২০১৭ সালের মার্চ মাসে এ ভিডিওটি ধারণ করা হয়। সাদা পোশাকে যে পুলিশ কর্মকর্তা একের পর এক গুলি চালিয়ে দুজন সন্দেহভাজন অপরাধীকে হত্যা করেছে তাঁর নাম আহমাদ রশিদ। কেনিয়ার রাজধানী নাইরোবির শহরতলীর একটি এলাকায় অপরাধ নির্মূলের দায়িত্ব তার কাঁধে। মি: রশিদ বলেন, " আমাদের কিছু লক্ষ্য অর্জন করতে হবে। এখানে অপরাধীদের যত নেতা আছে তাদের পাকড়াও করতে হবে যাতে এ এলাকায় কোন অপরাধ না ঘটে। সেটা তাদের জীবিত রেখে হোক, আর মৃতই হোক। কাজটা করতেই হবে। এখানে কোন ছাড় দেয়া যাবে না।" স্থানীয় বাসিন্দাদের অনেকেই মি: রশিদকে ভালোবাসেন। নাইরোবির এক বাসিন্দা বলেন, "এ মানুষটি অপরাধীদের খুঁজে বের করে ধরছে এবং হত্যা করছে। সে কোন ঘুষ নেয় না।" "আমরা তার জন্য মসজিদে বসে দোয়া করি। আল্লাহ তাদের মঙ্গল করুক। আমি তাদেরকে শতভাগ সমর্থন করি। তারা আমাদের এখানে শান্তি প্রতিষ্ঠা করেছে," বলেন আরেকজন বাসিন্দা। তবে অনেকে মি: রশিদ এবং তাঁর দলের নিন্দা করছে। কেনিয়ার হিউম্যান রাইটস কমিশনের জর্জ মোরারা মনে করেন, বুলেট এবং বন্দুক দিয়ে বিচার করা যায়না। যতক্ষণ পর্যন্ত একজন ব্যক্তির অপরাধ প্রমাণিত হবেনা ততক্ষণ পর্যন্ত সে নির্দোষ। মি: মোরারার মতে, "সমস্যা সমাধানের জন্য আমরা সংক্ষিপ্ত রাস্তা ব্যবহার করছি। কিন্তু আমি এটাকে খুব ভালোভাবে দেখছিনা। কারণ একটা সময় এ ধরণের কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে পুরো আইনশৃঙ্খলা ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়ে।" নাইরোবির রাস্তায় পুলিশের দ্বারা বিচার-বহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের বিরুদ্ধে রাস্তায় মিছিল করেছে একদল মানুষ। এখানে যোগ দিয়েছিলেন লুসি, যার স্বামীকে পুলিশ কর্মকর্তা আহমেদ রশিদ গুলি করে হত্যা করেছে বলে অভিযোগ রয়েছে। স্বামীর কথা বলতে গিয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন লুসি। মিস লুসি বলেন, " দুজন পুলিশ কর্মকর্তা একদিন বাড়িতে এসে আমার স্বামীকে বললো চলো। তারপর তাকে নিয়ে গেল। আমরা এখনো জানিনা তাঁর অপরাধ কী ছিল। আমার স্বামীর অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার পর আমরা সন্তানের জন্ম হয়। তার বয়স এখন ১৫ মাস। জীবন অনেক কঠিন" পুলিশ বলছে এখন পুলিশ যখন গুলি করে তখন তার যুক্তিসংগত কারণ থাকে। সে ধরণের পরিস্থিতিতে পুলিশকে গুলি করার অনুমতি দেয়া হয়। সূত্র: বিবিসি বাংলাএমজে/

লিবিয়া উপকূলে নৌকা ডুবিতে শতাধিক যাত্রীর মৃত্যু

লিবিয়া উপকূলে একটি রাবারের নৌকা ডুবে ২০ শিশুসহ শতাধিক যাত্রী নিহত হয়েছেন। ত্রাণ সংস্থা ডক্টরস উইদাউট বর্ডার্স এর বরাত দিয়ে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরার এক প্রতিবেদনে এমনটা জানানো হয়েছে। গত ১লা সেপ্টেম্বর লিবিয়া উপকূল থেকে যাত্রা শুরু করে নৌকা দুটি। হঠাৎ একটি নৌকার ইঞ্জিনে ত্রুটি ধরা পড়ার পর আরেকটি ভাঙতে শুরু করে। এতেই ঘটে ভয়াবহ এই দুর্ঘটনা। এতে ভাঙ্গা নৌকার কিছু অবশিষ্টাংশ আঁকড়ে ধরে কয়েকজন যাত্রী বেঁচে গেছেন বলেও জানা গেছে। এমএসএফ নামে পরিচিত ডক্টরস উইদাউট বর্ডার্স জানায়, নৌকা ডুবে যাচ্ছে, এমন খবরে ইতালিয়ান কোস্টগার্ড তাদের সাহায্যের চেষ্টা করে। কিন্তু তারা পৌঁছানোর পূর্বেই নৌকাটি ডুবে যায়। বেঁচে যাওয়া একজন এমএসএফকে বলেন, ইঞ্জিন নষ্ট হয়ে গেলে এলোপাতাড়ি ঘুরতে থাকে নৌকাটি। সেসময় ১৬৫ জন প্রাপ্তবয়স্ক ও ২০ জন শিশু ছিলো নৌকায়। তিনি বলেন, ঘটনার সময় তিনি মোবাইল নেভিগেশনে দেখতে পান যে মালটা উপকূল বেশি দূরে না। তিনি বলেন, আমরা সাঁতার কাঁটতে পারছিলাম না। অল্প কয়েকজনের কাছে লাইফ জ্যাকেট ছিলো। যারা নৌকা কিংবা ভাঙা অংশ ধরে রাখতে পেরেছিলেন তারাই বেঁচে গেছেন। এমজে/

নাইজেরিয়ায় বিস্ফোরণে নিহত ৩৫

উত্তর নাইজেরিয়ায় ভয়াবহ বিস্ফোরণে ৩৫ জনের মৃত হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন শতাধিক। সোমবার দেশটির নাসারাওয়া রাজ্যে একটি গ্যাস ট্যাঙ্কার ফেটে গিয়ে এই ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটে। নাইজেরিয়ার এসইএমএ তরফে জানানো হয়েছে, একটি পেট্রোল-স্টেশনে এই ভয়াবহ দুর্ঘটনাটি ঘটেছে। রাজধানী শহর আবুজার সঙ্গে উত্তর এবং দক্ষিণ নাইজেরিয়ার যোগযোগ রক্ষা করে লাফিয়া মাকুরাডি রোডো। আর এই রোডেই একটি পেট্রোল স্টেশনে গাড়িটি বিষ্ফোরণ করেছে। এসইএমএ-তে কর্মরত পরিচালক বলেন, গ্যাস বেরোনোর ফলেই এ বিস্ফোরণ ঘটেছে। আমরা সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছি ৩৫ জন এই দুঘটনায় মারা গেছে। যাদের মধ্যে অনেকে ঘটনাস্থলেই মারা যান। সূত্র: দ্য নিউইয়র্ক টাইমস একে//

দক্ষিণ সুদানে বিমান বিধ্বস্ত, নিহত ১৯

দক্ষিণ সুদানে যাত্রীবাহী বিমান বিধ্বস্তের ঘটনায় কমপক্ষে ১৯ জন নিহত হয়েছেন। রোববার বিমানটি জুবা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ইরোল শহরের উদ্দেশে যাত্রা করার পর বিধ্বস্ত হয়। দুর্ঘটনার সময় বিমানটিতে ২২ জন যাত্রী ছিল। বিমানটি ১৯ আসনের। বিমানটি বিধ্বস্ত হওয়ার পর তিনজনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে। এদের মধ্যে একজন শিশু এবং একজন কো-পাইলট। রাজ্যের তথ্যমন্ত্রী তাবান আবেল আগুয়েক গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।কর্তৃপক্ষ দুর্ঘটনার কারণ খুঁজে বের করতে তদন্ত করছে বলেও জানান তিনি। এদিকে দুর্ঘটনা সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যায়নি বলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন। বিমান কর্তৃপক্ষ জানান, বিমান বিধ্বস্তের সময় আবহাওয়া ভালো ছিল না।কুয়াশার কারণে এ দুর্ঘটনা ঘটতে পারে বলে ধারণা করছেন তারা। এর আগে ২০১৫ সালে একটি বিমান দুর্ঘটনায় ৩৬ জন নিহত হয়। এছাড়াও গত কয়েক বছরে যুদ্ধ-বিধ্বস্ত দেশটিতে বেশ কয়েকবার বিমান বিধ্বস্তের ঘটনা ঘটে। সূত্র : আনাদোলু এমএইচ/  

© ২০১৮ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি