ঢাকা, সোমবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৮ ১২:৩৭:৫০

ঢাবি উপাচার্যের সঙ্গে চীনা প্রতিনিধি দলের সাক্ষাৎ  

ঢাবি উপাচার্যের সঙ্গে চীনা প্রতিনিধি দলের সাক্ষাৎ  

চীনের শীর্ষ স্থানীয় সংগীত প্রতিষ্ঠান সেন্ট্রাল কনজারভেটরি অব মিউজিক এর ভাইস-চেয়ারপার্সন অধ্যাপক জিয়ান হুয়া মিয়াও’র নেতৃতে একটি দল আজ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামানের সঙ্গে তার কার্যালয়ে সাক্ষাৎ করেছেন।   ৪ সদস্য বিশিষ্ট প্রতিনিধিদলের অন্য সদস্যরা হলেন- অধ্যাপক ড. জ্যাং বোউ, লিন কিয়াওফুং এবং লিউ চ্যাং।    এসময় ঢাবির সংগীত বিভাগের চেয়ারপার্সন মিসেস টুম্পা সমদ্দার, ড. মহসিনা আক্তার খানম সহ কয়েকজন শিক্ষক উপস্থিত ছিলেন। সাক্ষাৎকালে তারা পারস্পরিক স্বার্থ-সংশ্লিষ্ট বিষয়ে বিশেষ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং চীনের সংগীত প্রতিষ্ঠান সেন্ট্রাল কনজারভেটরি অব মিউজিক-এর মধ্যে সঙ্গীত, নৃত্য, থিয়েটার ও চারুকলা বিষয়ে যৌথ শিক্ষা ও গবেষণা কার্যক্রম চালুর সম্ভাব্যতা নিয়ে আলোচনা করেন। এ সময় উভয় প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শিক্ষক ও শিক্ষার্থী বিনিময় নিয়েও বৈঠকে মত বিনিময় করা হয়। এছাড়া, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং সেন্ট্রাল কনজারভেটরি অব মিউজিক-এর যৌথ উদ্যোগে চীনে একটি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজনের ব্যাপারে তারা আলোচনা করেন। এসব বিষয়ে শিগ্গিরই একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরের ব্যাপারেও তারা ঐকমত্যে পৌঁছেন। উপাচার্য ঢাবির সংক্ষিপ্ত ইতিহাস এবং এর শিক্ষা ও গবেষণা কার্যক্রম সম্পর্কে চীনা প্রতিনিধি দলকে অবহিত করেন। বাসস এসি    
জাবি পরিবহন কার্যালয়ের বিরুদ্ধে গাড়ি ব্যবহার ও নিয়োগের অভিযোগ

‘নিয়ম লঙ্ঘন’ করে ব্যক্তিগত কাজে বিশ্ববিদ্যালয়ের গাড়ি ব্যবহার এবং নিয়োগে স্বজনপ্রীতিসহ নানা অভিযোগ উঠেছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) পবিরহবন কার্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত শিক্ষক অধ্যাপক আলী আজম তালুকদারের বিরুদ্ধে। ব্যক্তিগত কাজে ব্যবহৃত গাড়ির জ্বালানি ও মেরামত খাতের অর্থ বিশ্ববিদ্যালয় তহবিল হতে পরিশোধ করা হচ্ছে। এসব অনিয়ম করা সত্তেও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন তার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না  বলে অভিযোগ উঠেছে।      নিয়ম অনুযায়ী, সার্বক্ষণিক গাড়ি ব্যবহারে প্রাধিকার প্রাপ্ত হলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, উপ-উপাচার্যদ্বয় ও কোষাধ্যক্ষ। কারণ তাদের গাড়ি ব্যবহারের বার্ষিক জ্বালানি ও মেরামত খরচের অর্থ বিশ্ববিদ্যালয়ের বাজেট বইয়ে নির্ধারণ করা আছে। কিন্তু পরিবহন কার্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত শিক্ষক সার্বক্ষণিক গাড়ি ব্যবহারে প্রাধিকার প্রাপ্ত নন। তাই তিনি পরিবহনের কোন গাড়ি ব্যক্তিগতকাজে সার্বক্ষণিক ব্যবহার করতে পারেন না। এ নিয়মের তোয়াক্কা না করেই অধ্যাপক আজম দুটি গাড়ি সার্বক্ষণিক ব্যক্তিগত কাজে ব্যবহার করছেন। তার ব্যবহৃত গাড়িগুলোর জ্বালানি ও মেরামত খরচের অর্থ বিশ্ববিদ্যালয় তহবিল হতে পরিশোধ করা হচ্ছে!   খোঁজ নিয়ে জানা যায়, পরিবহন অফিসের ভারপ্রাপ্ত শিক্ষকের দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে তিনি ঢাকা মেট্রো গ- ৩১-০০৫৫ এবং ঢাকা মেট্রো চ-৫৬-৩৩১৬ নম্বরের গাড়ি দুটি নিয়মিত ব্যবহার করে যাচ্ছেন। এর মধ্যে চ-৫৬-৩৩১৬ গাড়িটি কেনার পরে পরিবহন পুলে যুক্ত না করেই তিনি ব্যক্তিগত কাজে ব্যবহার করছেন। অধ্যাপক আজম ক্যাম্পাসে সার্বক্ষণিক এসব গাড়ি দিয়ে ঘুরাফেরা করছেন। রাত দুইটা পর্যন্ত তার বাসার সামনে গাড়ি দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়।    পরিবহন কার্যালয় সূত্র জানায়, গাড়ি দুটি রিকুইজিশনের ভিত্তিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের ব্যবহার করার কথা। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা রিকুইজিশন দিয়েও পরিবহন সংকটের কারনে গাড়ি ব্যবহার করতে পারেন না। সেখানে এই গাড়ি দুটি এখন পর্যন্ত কোন শিক্ষককে রিকুইজিশন দেওয়া হয়নি। অথচ অধ্যাপক আজম এই দুটি গাড়ি সার্বক্ষণিক ব্যক্তিগত কাজে ব্যবহার করছেন। এছাড়া এই দুটি গাড়ি চালাতে মেকানিক হেলপার আশরাফুল ইসলাম রাসেলকে ড্রাইভার হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। এতে পরিবহনের মেকানিক্যাল কাজে সংকটের সৃষ্টি হয়েছে।   কয়েকটি ফিলিং স্টেশনের বিল সূত্রে জানা যায়, জুন মাসে ০০৫৫ নম্বর গাড়িতে জ্বালানিখাতে ২১ হাজার ৬৫৫ টাকা বিল আসে। একইভাবে জ্বালানিখাতে জুলাই মাসে ০০৫৫ নম্বর গাড়িতে ২১ হাজার ৪৮২ টাকা, আগস্টে ০০৫৫ নম্বর গাড়িতে ১৬ হাজার ৯৮২ টাকা এবং ৩৩১৬ নম্বর গাড়িতে ৪ হাজার ২৭২ টাকা,  সেপ্টেম্বরে ০০৫৫ নম্বর গাড়িতে ২২ হাজার ৮৪৯ টাকা এবং ৩৩১৬ নম্বর গাড়িতে ৪ হাজার ৯৮৪ টাকা, অক্টোবর মাসে ০০৫৫ নম্বর গাড়িতে  ৫ হাজার ৯০৭ টাকা বিল আসে।  সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, পরিবহন কার্যালয়ে প্রথমে ৩টি ড্রাইভার পদে নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। ওই তিনটি পদে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্নের অপেক্ষায়। পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন গাড়ি ক্রয় করায় নভেম্বরে তিনটি ড্রাইভার পদে নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে।    বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী, ১০ ডিসেম্বর আবেদন গ্রহণের শেষ তারিখ। অথচ বিজ্ঞাপন অনুযায়ী নিয়োগ সম্পন্ন না করেই মাস্টাররোলে ড্রাইভার পদে সুজন কুমার সরকার ও মো. উজ্জ্বল আলীকে নিয়োগ দেন অধ্যাপক আলী আজম। নিয়ম অনুযায়ী, নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পর সংশ্লিষ্ট পদে বিজ্ঞপ্তি অনুসারে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন না করে মাস্টার রোলে নিয়োগ প্রদান করা অবৈধ। কিন্তু সেই নিয়মের তোয়াক্কা না করেই মাস্টাররোলে নিয়ম দিচ্ছেন তিনি।    এদিকে একটি শূন্য মেকানিক পদকে স্টোর কিপার পদে রুপান্তর করে মাস্টার রোলে মাসুল বিল্লাকে ওই পদে নিয়োগ দেওয়া হয়। পরিবহনের মেকানিক সংকট থাকা সত্তে¡ও মেকানিক হেলপার আশরাফুল ইসলাম রাসেলকে সার্বক্ষণিক ব্যক্তিকাজে ড্রাইভার হিসেবে ব্যবহার করছেন অধ্যাপক আলী আজম। পরিবহন কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, গত ১৬ এপ্রিল সকালে রাজধানীর শ্যামলী হতে ক্যাম্পাসমুখী শিক্ষকদের বাস ট্রিপ ফেল করায় একটি মাইক্রোবাস ভাড়া করে ক্যাম্পাসে আসেন তিনি। পরে পরিবহন কার্যালয় হতে নগদ ২ হাজার ৬০০ টাকা পরিশোধ করেন। যা নিয়ম বহির্ভূত। কেননা কোন বাস ট্রিপ ফেল করলে তার ব্যক্তিগতভাবে অর্থ পরিশোধ করার কথা।   অভিযোগের বিষয়ে অধ্যাপক আলী আজম তালুকদার বলেন, ‘গাড়ি দুইটার মধ্য একটা আমি রেগুলার বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজে ব্যবহার করছি আর অন্যটা এখনো পরিবহনপুলে যুক্ত করা হয়নি। তবে যাতে নষ্ট না হয়ে যায় এই জন্য এবং মাঝে মাঝে বিশ্ববিদ্যালয়ের ও রাষ্ট্রীয় কাজে চালানো হয়।’   পরিবহন কার্যালয় থেকে নগদ টাকা নেওয়ার ব্যাপারে তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়ম অনুযায়ী গাড়ির ট্রিপ মিস করলে বাইরের গাড়িতে আসা যায় এর জন্য বিশ্ববিদ্যালয় তিন হাজার টাকা ভাড়া বাবদ দিয়ে থাকে। আমিতো এক্ষেত্রে আরও চারশত টাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে বাচিয়ে দিয়েছি।’ এ ছাড়া মাস্টার রোলে নিয়োগের ব্যাপারে বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহনপুলে লোকবলের অভাব থাকার কারণে ৬টি পদের জন্য নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়েছে। এছাড়া সম্পূর্ণ বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়ম মেনেই ২জনকে মাস্টার রোলে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।’ এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক মো. আমির হোসেন বলেন,‘আমি জানি না তিনি এভাবে গাড়ি ব্যাবহার করছেন কিনা। তবে এভাবে বিশ্ববিদ্যালয়ের গাড়ি ব্যক্তিগতভাবে ব্যবহার করার কোন নীতিমালা নেই। তিনি আরও বলেন, ‘কোন শিক্ষক গাড়ির ট্রিপ মিস করলে তার জন্য বিশ্ববিদ্যালয় তহবিল থেকে টাকা দেওয়ার কোন নিয়ম নেই। কেউ যদি ক্ষমতা ব্যবহার করে টাকা নিয়ে থাকে তাহলে তিনি নিয়ম লঙ্খন করেছেন।’  কেআই/এসি      

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের জন্য নতুন বাস সংযোজন 

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের চলাচলের জন্য পরিবহন পুলে নতুন গাড়ি (মিনিবাস) সংযোজিত হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুর ২টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান নতুন গাড়িটি উদ্বোধন করেন এবং গাড়িটির চাবি পরিবহণ প্রশাসক আব্দুল্লাহ আল্-মাসুদ এর নিকট হস্তান্তর করেন।    এ সময় উপাচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান জানান, সাধারণ শিক্ষার্থীদের যাতায়াতের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজ অর্থায়নে ৫টি দোতলা বাসের জন্য ছয় কোটি টাকা অনুমোদন হয়েছে।   এছাড়া কলা অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. আতিয়ার রহমান, বাসটির ক্রয় কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ড. মো. জাকারিয়া মিয়া, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. অরুণ কুমার গোস্বামী এবং জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ড. মোহাম্মদ আব্দুল বাকী, বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষকবৃন্দ, কর্মকর্তাবৃন্দ ও সাংবাদিক প্রতিনিধিবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।   উল্লেখ্য, টাটা কোম্পানি নির্মিত মার্কোপোলো মডেলের শীতাতাপ নিয়ন্ত্রীত এই গাড়িটি (মিনিবাস) বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের চলাচলের জন্য ব্যবহৃত হবে। কেআই/এসি    

জবির শিক্ষার্থীদের অবৈতনিক বৃত্তি প্রদান

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) শিক্ষার্থীদের প্রণোদনা প্রদানে ৯৭২ জন মেধাবী শিক্ষার্থীকে মেধা ও অবৈতনিক বৃত্তি প্রদান করা হবে। মঙ্গলবার জনসংযোগ, তথ্য ও প্রকাশনা দপ্তর থেকে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানা যায়। গত ২৭ নভেম্বর বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্যের সভাপতিত্বে অধ্যায়নরত ছাত্র-ছাত্রীদের মেধা ও অবৈতনিক বৃত্তি প্রদান সংক্রান্ত কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। জানা যায়, এবার বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের অধ্যায়নরত বিভিন্ন শিক্ষাবর্ষের আবেদনকৃত  এক হাজার দুই’শ জন শিক্ষার্থীদের আবেদন যাচাই-বাছাইপূর্বক ৯৭২ জন শিক্ষার্থীকে বৃত্তি প্রদান করা হবে। এর ফলে মেধাবৃত্তি প্রাপ্ত শিক্ষার্থীরা বিনা বেতনে অধ্যায়নসহ বাৎসরিক চার হাজার আট’শ টাকা করে এক শিক্ষাবর্ষের জন্য বৃত্তি পাবে। এছাড়াও মেধা ও অবৈতনিক বৃত্তিপ্রাপ্ত সব শিক্ষার্থী শুধুমাত্র বৃত্তিপ্রাপ্ত শিক্ষাবর্ষের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ে বিনা বেতনে অধ্যায়নের সুযোগ পাবে। এর আগে গত বছরের ৯ অক্টোবর জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যায়নরত শিক্ষার্থীদের বৃত্তি দ্বিগুণ করা হয়েছিল। ২০১৩-১৪ থেকে ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষ পর্যন্ত মোট ৩৫৫৩ জন শিক্ষার্থীদের মাঝে বৃত্তি প্রদান করা হয়েছে। ২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষে স্নাতক পর্যায়ে ৫০ জনকে মেধাবৃত্তি, ১২৪ জনকে অবৈতনিক বৃত্তি, স্নাতকোত্তর পর্যায়ে ৪৩ জনকে মেধা বৃত্তি ও ২৫ জনকে অবৈতনিক বৃত্তি, ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষে স্নাতক পর্যায়ে ১৮০ জনকে মেধাবৃত্তি, ৪৫৩ জনকে অবৈতনিক বৃত্তি, স্নাতকোত্তর পর্যায়ে ৪২ জনকে মেধা বৃত্তি, ৫৬ জনকে অবৈতনিক বৃত্তি ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষে স্নাতক পর্যায়ে ১৬১ জনকে মেধাবৃত্তি, ৫৩২ জনকে অবৈতনিক বৃত্তি, স্নাতকোত্তর পর্যায়ে ৩৩ জনকে মেধা বৃত্তি, ৪৮ জনকে অবৈতনিক বৃত্তি, ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষে স্নাতক পর্যায়ে ১৯৫ জনকে মেধাবৃত্তি, ৫৮২ জনকে অবৈতনিক বৃত্তি, স্নাতকোত্তর পর্যায়ে ২১ জনকে মেধা বৃত্তি এবং ৩৬ জনকে শিক্ষার্থীকে অবৈতনিক বৃত্তি বৃত্তি প্রদান করা হয়েছে। এবার ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষে স্নাতক পর্যায়ে ২৩১ জনকে মেধাবৃত্তি, ৬৫১ জনকে অবৈতনিক বৃত্তি, স্নাতকোত্তর পর্যায়ে ৩৫ জনকে মেধা বৃত্তি এবং ৫৫ জনকে শিক্ষার্থীকে অবৈতনিক বৃত্তি প্রদান করা হয়েছে। কেআই/ এসএইচ/

চুয়েটে ‘উচ্চশিক্ষা ও গবেষণা’ কমিটির ২৯তম সভা অনুষ্ঠিত  

চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট)-এর গবেষণা ও সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের আয়োজনে ‘উচ্চশিক্ষা ও গবেষণা কমিটি’ (Committee for Higher Studies & Research-CHSR)- এর ২৯তম সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।       মঙ্গলবার (৪ ডিসেম্বর) বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের কনফারেন্স কক্ষে আয়োজিত উক্ত সভায় সভাপতিত্ব করেন সিএইচএসআর’র চেয়ারম্যান ও চুয়েটের ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম। উক্ত সভায় কমিটির সদস্য সচিব এবং গবেষণা ও সম্প্রসারণ দপ্তরের পরিচালক অধ্যাপক ড. মো. সাইফুল ইসলামসহ বিভিন্ন অনুষদের ডীন, বিভাগীয় প্রধান, ইনস্টিটিউট পরিচালক এবং বিভিন্ন বহিঃপ্রতিনিধিগণ উপস্থিত ছিলেন। সভায় চুয়েটের চলমান উচ্চশিক্ষা ও গবেষণা বিষয়ে নানাবিধ আলোচনা শেষে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। কেআই/এসি             

ক্ষমা চাইলেন ভিকারুননিসা প্রধান শিক্ষক

স্কুলে ডেকে নিয়ে বাবা-মাকে অপমান করায় ছাত্রী অরিত্রি অধিকারী (১৫) আত্মহত্যার বিষয়ে দুঃখ প্রকাশ করে দেশবাসী ও ছাত্রীর বাবা-মায়ের প্রতি ক্ষমা চেয়েছেন ভিকারুননিসা স্কুল অ্যান্ড কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস। আজ মঙ্গলবার সকালে গণমাধ্যম কর্মীরা বেইলি রোডের স্কুল প্রাঙ্গনে তার কার্যালয়ে গেলে সবার সামনে হাত জোর করে ক্ষমা চান তিনি। নাজনীন ফেরদৌস বলেন,বিষয়টি অনাকাক্ষিত। ঘটনাটি এতদূর গড়াবে তা অনুধাবন করতে পারিনি। এরই মধ্যে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। রিপোর্ট হাতে পাওয়ার পর কি ব্যবস্থা নেওয়া হবে তা মন্ত্রণালয় নির্ধারণ করে দেবে। আত্মহত্যার ঘটনায় আমি সবার কাছে ক্ষমা চাচ্ছি। এর আগে সকালে স্কুল পরিদর্শনে গিয়ে শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সঙ্গে কথা বলেন শিক্ষামন্ত্রী। আগামী তিনদিনের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিবে। প্রতিবেদন পাওয়ার পর স্কুল কর্তৃপক্ষের কোনো ত্রুটি পেলে,স্কুল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।   টিআর/

ঢাবি’র প্রথম নারী সহকারী প্রক্টর সীমা ইসলাম

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসে প্রথম নারী সহকারী প্রক্টর নিয়োগ পেয়েছেন গ্রাফিক ডিজাইন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সীমা ইসলাম। গতকাল সোমবার তিনি সহকারী প্রক্টর হিসেবে কাজ শুরু করছেন।বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক গোলাম রব্বানী এতথ্য নিশ্চিত করছেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ১৯২১ সালে প্রতিষ্ঠা হলেও বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসে কোনো নারী সহকারী প্রক্টর ছিলেন না। এবিষয় জানতে চাইলে সীমা ইসলাম গণমাধ্যমকে বলেন,‘আমার কাছে মনে হয়েছে প্রাপ্তির থেকে দায়িত্ব অনেক বেশি। আমরা যখন ছাত্রী ছিলাম তখন বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হতাম। পুরুষ প্রক্টরের কাছে স্বাভাবিকভাবে সব কথা বলা যেত না। এখন যুগান্তরকারী একটি কাজ হয়েছে। এজন্য বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্যকে ধন্যবাদ জানাই। মেয়েরা কোনো সমস্যার সম্মুখীন হলে খুব স্বাভাবিকভাবে সমাধান করা যাবে। আমি খুবই আনন্দিত। সীমা ইসলামের গ্রামের বাড়ি টাঙ্গাইলে। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও রোকেয়া হল ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। টিআর/

যেকোন মূল্যে নৌকার প্রার্থীকে বিজয়ী করতে হবে: ছাত্রলীগ সভাপতি   

যেকোন মূল্যে নৌকার মনোনীত প্রার্থীকে বিজয়ী করার আহ্বান জানিয়েছেন ছাত্রলীগ সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন। তিনি বলেন, বিজয় অর্জনের জন্য ছাত্রলীগের প্রতিটি নেতাকর্মীকে কঠোর পরিশ্রম করতে হবে। তোমরা মানুষের কাছে ভোট চাওয়ার পাশাপাশি অনলাইনে এক ঘন্টা করে সময় দিবে। জামায়াত-বিএনপির অপপ্রচারের দাতভাঙ্গা জবাব দিতে হবে।     আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকার প্রার্থীকে বিজয় করতে সোমবার বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের জহির রায়হান মিলনায়তনের সেমিনার কক্ষে ছাত্র সমাবেশ ও কর্মীসভার আয়োজন করে জাবি শাখা ছাত্রলীগ। সেখানে তিনি এসব কথা বলেন। প্রধান অতিথির বক্তব্যে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন নৌকা মার্কাকে বিপুল ভোটে জেতানোর জন্য প্রত্যেক নেতাকর্মীকে তিন দফা কাজের শপথ করান। দিনে অন্তত ১ ঘণ্টা অনলাইনে সময় দেয়া, মোবাইলের মাধ্যমে নিজ এলাকার ভোটারদের সঙ্গে যোগাযোগ করা এবং নির্বাচনের আগের ৫ দিন নৌকার পক্ষে কাজ করার জন্য উপস্থিত নেতাকর্মীদের অঙ্গীকার করান তিনি। ছাত্রলীগ সভাপতির বক্তব্যকালে জাবি শাখা ছাত্রলীগের ঝিমিয়ে পড়া কর্মকাণ্ড, কম উপস্থিতি, মেয়েদের কম অংশগ্রহণ ও হল কমিটি না হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন। হল কমিটি সম্পর্কে তিনি বলেন, আমি অন্তত এক মাস আগেই হল কমিটি দেয়ার নির্দেশ দিয়েছিলাম। কিন্তু কেন হল কমিটি হয়নি তা আমার বোধগম্য নয়। শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. জুয়েল রানার সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক এসএম আবু সুফিয়ান চঞ্চলের সঞ্চালনায় কর্মিসভায় সাবেক কেন্দ্রীয় কমিটির নেতারাসহ শাখা ছাত্রলীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা বক্তব্য দেন। এসি    

অপমান সইতে না পেরে ভিকারুননিসার শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা

পরীক্ষায় নকলের অভিযোগে অপমানের জের ধরে ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী অরিত্রি অধিকারী (১৫) আত্মহত্যা করেছে। আজ সোমবার রাজধানীর শান্তিনগরে এই ঘটনা ঘটে। জানা গেছে, দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ঘরের দরজা বন্ধ করে ফ্যানের সঙ্গে ওড়না বেঁধে গলায় ফাঁস দেয় অরিত্রী। পরিবারের লোকজন দরজা ভেঙে তাকে উদ্ধার করে প্রথমে তাকে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যায়। পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে বিকেল ৪টার দিকে ডাক্তাররা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। অরিত্রির বাবা দিলীপ অধিকারী  বলেন, আজ (সোমবার ) আমি ও  আমার স্ত্রী অরিত্রিকে নিয়ে স্কুলে যাই। প্রথমে ভাইস প্রিন্সিপালের কক্ষে গেলে তিনি আমাদের ‘অপমান’ করে কক্ষ থেকে বের হয়ে যেতে বলেন। আগামীকাল মেয়ের টিসি (ছাড়পত্র) নিয়ে যেতে বলেন । এরপর আমরা প্রিন্সিপালের কক্ষে যায়, তিনিও একই আচরণ করলেন। যেখানে স্কুল পরিচালনা পর্ষদের একজন সদস্যও উপস্থিত ছিল।’ তিনি আরও বলেন, ‘এ সময় অরিত্রি দ্রুত প্রিন্সিপালের কক্ষ থেকে বের হয়ে যায়। পরে আমরা বাড়ি গিয়ে দেখি অরিত্রি তার কক্ষে সিলিং ফ্যানের সঙ্গে ওড়নায় ফাঁস দেওয়া অবস্থায় ঝুলছে।’ এই সম্পর্কে পল্টন থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আতাউর রহমান বলেন, সুরতহাল করে অরিত্রির লাশ ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের মর্গে রাখা হয়েছে। ময়নাতদন্তের পর তার মৃত্যু কারণ জানা যাবে।   ময়নাতদন্ত শেষে ঢামেকের ফরেনসিক বিভাগের চিকিৎসক সোহেল মাহমুদ জানান, প্রাথমিকভাবে মনে হয়েছে মেয়েটি গলায় ফাঁস দিয়েছে। তার গলায় দাগ ছিল। তার ‘নেক টিস্যু’ সংগ্রহ করা হয়েছে, তা পরীক্ষার জন্য পাঠানো হবে। অরিত্রির মৃত্যুর সংবাদ শুনে সন্ধ্যা পৌনে সাতটার দিকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে যান ভিকারুননিসার প্রিন্সিপাল নাসরিন ফেরদৌস। সেখানে তিনি অরিত্রির স্বজনদের তোপের মুখে পড়েন। জানা গেছে, পরীক্ষায় নকলের অপরাধে শিক্ষক অপমান করায় আত্মহননের পথ বেছে নিয়েছে ভিকারুন্নিসা নুন স্কুলের নবম শ্রেণির ছাত্রী অরিত্রি। সন্তানকে হারিয়ে বাকরুদ্ধ মা, তবে প্রতিবাদের সরব সহপাঠীরা। প্রশ্ন তুলেছেন স্কুল কর্তৃপক্ষের নৈতিকতা ও গভর্নিং বডির ভূমিকা নিয়ে। এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবিতে আগামীকাল থেকে পরীক্ষা বর্জনেরও ঘোষণা দিয়েছে অরিত্রির সহপাঠীরা। অরিত্রীর বিরুদ্ধে স্কুল কর্তৃপক্ষের অভিযোগ ছিল সে মোবাইল ফোন নিয়ে পরীক্ষার হলে প্রবেশ করেছিল। এ জন্যে আজকের পরীক্ষা থেকে বহিষ্কার করে অভিভাবকদের ডেকে নিয়ে তাদের সামনেই অরিত্রীকে অপমান করা হয়। অভিভাবকদের বলা হয়, পরীক্ষায় নকল করার জন্য মোবাইল ফোন নিয়ে পরীক্ষা দিতে গিয়েছিল সে। এ কারণে তাকে স্কুল থেকে বদলির সার্টিফিকেট (ট্রান্সফার সার্টিফিকেট) দেওয়া হবে। সেই সঙ্গে বাকি পরীক্ষাগুলো দিতে পারবে না। তিনি বলেন, স্কুল থেকে তাদের ডেকে নিয়ে মেয়েকে ট্রান্সফার সার্টিফিকেট ধরিয়ে দেওয়ার হুমকি দেওয়া হয়েছিল। মেয়েকে ক্ষমা করার জন্য চেষ্টা করেও তারা ব্যর্থ হন। এই ঘটনার পর সে বিমর্ষ হয়ে আত্মহত্যা করে। এ ব্যাপারে ভিকারুননিসা স্কুল ও কলেজের অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস বলেন, অরিত্রী ক্লাস নাইনের বার্ষিক পরীক্ষা দিচ্ছিল। মোবাইল ফোন দিয়ে সে অসদুপায় অবলম্বন করছিল। এই অবস্থায় শিক্ষকরা তাকে হাতেনাতে ধরে সোমবারের পরীক্ষা থেকে বহিষ্কার করেন।   কেআই/এসএইচ/

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে পি.এইচ.ডি সেমিনার  

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে  ‘রাসূল (স.) এর শিক্ষা পদ্ধতি: একটি বিশ্লেষণমূলক আলোচনা’ শীর্ষক পি.এইচ.ডি সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে।     সোমবার (০৩ ডিসেম্বর) অনুষদ ভবনের সভা কক্ষে আল কুরআন এ্যান্ড ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের আয়োজনে সেমিনারটি অনুষ্ঠিত হয়।   জানা যায়, আল কুরআন এ্যান্ড ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের প্রফেসর এ.এইচ.এম ইয়াহইয়ার রহমাসের তত্ত্বাবধায়নে আব্দুল্যাহ আল আমীন ‘আল কুরআনের আলোকে রাসুল (স.) এর শিক্ষাদান পদ্ধতি : একটি পর্যালোচনা’ শিরোনামে গবেষণা করছেন।   পি.এইচ.ডি সেমিনারে উপস্থিত ছিলেন, প্রফেসর ড. আ ফ ম আকবর হোসাইন, প্রফেসর ড. আ ছ ম তরীকুল ইসলাম, প্রফেসর ড. মোঃ লোকমান হোসেন, প্রফেসর ড. আমিনুল ইসলাম, প্রফেসর ড. শেখ এ বি এম জাকির হোসেন, প্রফেসর মো. রহিম উল্যাহ, প্রফেসর ড. আ খ ম ওয়ালী উল্লাহ, প্রফেসর ড.সৈয়দ মাকসুদুর রহমান, প্রফেসর ড. জুলফিকার হোসেন প্রমূখ। কেআই/এসি    

এই বিভাগের জনপ্রিয়

© ২০১৮ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি