ঢাকা, রবিবার, ২১ অক্টোবর, ২০১৮ ১:৩৩:৫৯

ক্রিমিয়ায় ১৯ শিক্ষার্থীকে গুলি করে হত্যার পর আত্মহত্যা!

ক্রিমিয়ায় ১৯ শিক্ষার্থীকে গুলি করে হত্যার পর আত্মহত্যা!

ক্রিমিয়ার একটি কলেজে ১৯ জন শিক্ষার্থীকে গুলি করে হত্যা করেছে ভ্লাতিস্লাভ রোস্লিয়াকোভ (১৮) নামে এক তরুণ। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও কমপক্ষে ৪০ জন। পরে ওই তরুণেরও লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ওই তরুণ আত্মহত্যা করেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে ওই তরুণ কেন এ হামলা করেছে সে ব্যাপারে কিছু জানা যায়নি। গতকাল বুধবার কার্চ টেকনিক্যাল কলেজ নামের একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে হত্যাকাণ্ডের এ ঘটনা ঘটে। সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা যায়, গতকাল বুধবার দুপুরে ভ্লাদিস্লাভ রোস্লিয়াকোভ টেকনিক্যাল কলেজে প্রবেশ করে এলোপাতাড়ি গুলি ছুঁড়তে থাকে। আত্মঘাতী গুলির আলামতসহ ওই তরুণের গুলিবিদ্ধ লাশ কলেজ প্রাঙ্গণে পাওয়া যায়। প্রসঙ্গত, ২০১৪ সালে ইউক্রেনের কাছ থেকে ক্রিমিয়ার কর্তৃত্ব ছিনিয়ে নেয় রাশিয়া। পশ্চিমা দেশগুলো অবশ্য এ নিয়ে রাশিয়ার সমালোচনা করে। এ ঘটনার পর দেশটির দক্ষিণাঞ্চলে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে নিহতদের সম্মানে কিছু সময় নীরবতা পালন করেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। এ ঘটনায় তদন্ত করা হবে বলে ঘোষণা করেন পুতিন। সূত্র: বিবিসি একে//
সেই নারীদের কাছে ক্ষমা চাইল নরওয়ে সরকার

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় নরওয়ের বেশ কয়েকজন নারীর সঙ্গে জার্মান যোদ্ধাদের ভালোবাসার সম্পর্ক ছিল। একারণে ওই নারীরা আক্রোশের শিকার হয়েছিলেন নরওয়ে সরকারের।   খারপ আচরণের শিকার নরওয়ের ওই নারীদের কাছে দেশের হয়ে ক্ষমা চেয়েছেন নরওয়ের প্রধানমন্ত্রী আর্না সোলসবার্গ। বুধবার জাতিসংঘের মানবাধিকার ঘোষণাপত্রের ৭০ তম বার্ষিকী উপলক্ষে  তিনি দেশের হয়ে এ ক্ষমা চান। তিনি বলেন, জার্মান সেনাদের সাথে ভালোবাসার সম্পর্কে জাড়ানো নরওয়ের নারীদের সাথে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ এবং যুদ্ধপরর্তী সময় যে খারাপ আচরণ করা হয়েছে আমরা তার জন্য ক্ষমা প্রার্থী।   আর্না সোলসবার্গ বলেন, ওই সময় নরওয়ের নারীদের জার্মান সেনাদের প্রতি ছিল টিনেজ ভালোবাসা। এই নিষ্পাপ ভালোবাসার বিষয়টি তাদের তখন কাল হয়ে দাঁড়িয়েছিল।  তিনি বলেন, আমরা এখন শান্তির পথে এগিয়ে যেতে চাই। এ জন্য বিশ্বব্যাপী যে মানবাধিকারের বিষয়টি সামনে নিয়ে আসা হয়েছে তা আমরা রক্ষা করতে চাই। জার্মান সেনাদের সাথে ওরওয়ের যে সকল তরুনীদের সম্পর্ক ছিল তারা ‘জার্মান গার্লস’ নামে পরিচিতি পায়।  জার্মান গার্লস নামে পরিচিত নরওয়ের এ সমস্ত নারীদেরকে সামাজিক অধিকার থেকে বঞ্চিত করা হয়। তাদের অনেককে আটক করা হয়। অনেককে আবার সন্তানসহ জোর করে জার্মানিতে পাঠিয়ে দেওয়া হয়।   দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় নরওয়ে নিরপেক্ষ ছিল। কিন্তু ১৯৪০ সালের এপ্রিলে জার্মানের নাজি বাহিনীর দ্বারা দেশটি আক্রান্ত হয়েছিল। ফলে তারা ওরওয়ের ওই নারীদের প্রতি ক্ষুদ্ধ হয়েছিল।   ওই সময় জার্মান সেনাদের সাথে আনুমানিক ৫০ হাজারেরও বেশি নরওয়েজিয়ান নারীর ভালোবাসার সম্পর্ক ছিল। ওই সময় এ্যাডলফ হিটলারের ঘনিষ্ট সহকারী হিসেবে পরিচিত জার্মানদের এসএস নেতা হেনরিক হিমলার জার্মানীদেরকে নরওয়ের ওই নারীদের সঙ্গে সন্তান জন্ম দানে উত্সাহিত করেছিল। এর ফলে ১৯৪১ সালের আগে জার্মান সেনা ও নরওয়ের নারীদের কোলে অনেক সন্তান জন্ম গ্রহণ করেছিল।  সূত্র: বিবিসি এমএইচ/

বেলজিয়ামে কাউন্সিলর হলেন বাংলাদেশি শায়লা শারমীন

বেলজিয়ামের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর এন্টোয়রপেনের পিবিডিএ পার্টি থেকে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত শায়লা শারমীন কাউন্সিলর পদে নির্বাচিত হয়েছেন। ১৪ অক্টোবর অনুষ্ঠিত এ নির্বাচনে বেলজিয়ামের এন্টোয়রপেন জেলা পরিষদ ও মিউনিসিপ্যালিটি নির্বাচনে বিদেশী অধ্যুষিত এলাকায় ওয়ার্কার্স পার্টির মনোনয়ন নিয়ে নির্বাচন করেন। যোগ্যতা আর মেধার পরিচয় দিয়েই নির্বাচিত হন শায়লা শারমীন। তিনি রাজনীতির পাশাপাশি বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনেও সফলতার সাথে কাজ করে আসছেন। শায়লা শারমীন স্থানীয় বেলজিয়াম নাগরিকসহ সব দেশের নাগরিকদের কাছে বেশ জনপ্রিয়। বরিশালের মেয়ে শায়লা শারমীন স্বামী জাহিদুল ইসলাম ও একমাত্র পুত্র সায়মনকে নিয়ে এন্টোয়রপেনে বসবাস করছেন। ১৫ বছর পূর্বে ব্যবসায়ী স্বামী জাহিদুল ইসলামের সূত্রেই বেলজিয়ামে যান শায়লা শারমীন। তার এই বিজয়ে বেলজিয়ামে বাংলাদেশিদের মুখ উজ্জ্বল হয়েছে। বিপুল ভোটে নির্বাচিত হওয়ার পর সব বাংলাদেশি ও ভোটারদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন শায়লা শারমীন। টিআর/

নিজেকে নিজে বিয়ে করলেন জেমাইমা!   

উগান্ডার বাসিন্দা জেমাইমা। বয়স ৩০ পেরিয়েছে। অথচ এখনও বিয়ে করেনি। তাই তার বাবা-মা মেয়ের বিয়ে নিয়ে ভীষণ চিন্তিত। কিন্তু মেয়ে পড়াশোনা চালিয়ে যেতে চায়। কিছুতেই বিয়ে করতে চান না। এদিকে মেয়ের জন্য পাত্রের খোঁজ-খবর নেওয়া শুরু করে দেয় বাবা- মা। বিয়ের ব্যাপারে নিজের অবস্থান পরিস্কার করার পরেও বাবা-মা কিছুতেই বুঝতে চায় না।     অবশেষে বাধ্য হয়ে বাবা-মাকে নিজের অবস্থান বোঝাতে অবাক ‘কাণ্ড’ করে বসলেন মেয়ে। বিয়ে করলেন তিনি, তবে কোন ছেলেকে নয়, নিজেকেই। এই দাম্পত্যে বর তিনি, স্ত্রীও তিনি। উগান্ডার বাসিন্দা জেমাইমা সমাজকে দিলেন ভিন্ন পাঠ। বোঝালেন, নিজেকে ভালোবাসতে জানাটা সবথেকে জরুরি। বিয়েটা আসল কথা নয়। আমরা নিজেরা কী চাই, সেটাই মূলত আসল কথা। আর নিজের প্রতি অবাধ ভালোবাসাকে প্রাধান্য দিতে তাঁর এই ভিন্ন পদক্ষেপ। অস্ট্রেলিয়ার একটি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ২০১৩ সালে বিএ মিডিয়া বৃত্তি পান তিনি। স্নাতক হওয়ার পর অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতকোত্তর পড়ার সুযোগ পেয়ে যান তিনি। জেমাইমা জানান, তাঁর কাছে নিজের পড়াশোনা, স্বপ্ন পূরণের চেয়ে বড় কিছু নেই। তাই নিজের অস্তিত্ব, নিজের প্রতি নিজের ভালোবাসার সঙ্গে বাঁধনে বাঁধতে চান তিনি। জেমাইমার এই বিয়ের অনুষ্ঠানে অবশ্য তাঁর বাবা-মা কেউই আসেনি। জেমাইমা জানিয়েছেন, ব্যাপারটা  নিয়ে এখনও তিনি দ্বিধাদ্বন্দ্বে রয়েছেন তাঁর মা-বাবা। উগান্ডার এই ৩২ বছর বয়সী মেয়ে বলছিলেন, ‘শুধু তাঁদের বোঝাতে চেয়েছিলাম যে এই মুহূর্তে আমি বিয়ের জন্য প্রস্তুত নই।’ বিয়ের যাবতীয় অনুষ্ঠান আয়োজন করতে জেমাইমার খরচ হয়েছে মাত্র দুই ইউরো। তাও সেটি যাতায়াতের খরচ বাবদ। বিয়ের গাউন জোগাড় হয়েছিল এক বান্ধবীর কাছ থেকে। বিয়ের কেক তৈরি করে দিয়েছিলেন তাঁর ভাই। আর অতিথিরা পানশালার খরচ নিজেরাই মিটিয়েছেন।   কেআই/এসি     

মা হচ্ছেন মেগান, বাবা হচ্ছেন হ্যারি

প্রিন্স হ্যারি ও মেগান মার্কেল। রাজকীয় ভ্রমণে এই দম্পতি বর্তমানে রয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার রাজধানী সিডনিতে। গত মে মাসে বিয়ের পর এটিই তাদের প্রথম সফর। অস্ট্রেলিয়া ছাড়াও ফিজি, টোঙ্গা এবং নিউজিল্যান্ডে ভ্রমণ করবেন তারা। তবে এরই মধ্যে সুখবর দিলেন ব্রিটিশ রাজপরিবারের রাজবধূ মেগান মেরকেল। জানালেন, আগামী বসন্তে (সামনের মার্চ-এপ্রিল) প্রিন্স হ্যারি ও তার ঘর আলোকিত করে আসছে নতুন অতিথি। মা হচ্ছেন মেগান, আর বাবা হচ্ছেন হ্যারি। সোমবার দু’জনের রাজপ্রাসাদ কেনসিংটন প্যালেসের এক বিবৃতিতে এ শুভ সংবাদটি দেওয়া হয়েছে। এদিকে নবদম্পত্তি ১৬ দিনের ভ্রমণে শনিবার সিডনিতে পৌঁছান। দেশগুলোর বিভিন্ন অনুষ্ঠানে তাদের যোগদানের কথা রয়েছে। তারা সিডনিতে অ্যাডমিরাল হাউসে ওঠেন। এটি সিডনি হারবারের গভর্নর জেনারেল পিটার কসগ্রভের বাসভবন। যিনি অস্ট্রেলিয়ায় রানীর প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করেন। উল্লেখ্য, গত ১৯ মে ব্রিটিশ রাজপরিবারের রাজপুত্র হ্যারি এবং মার্কিন অভিনেত্রী মেগান মেরকেলের বিয়ে সম্পন্ন হয়। সূত্র : বিবিসি এসএ/

প্রথম রাজকীয় ভ্রমণে হ্যারি-ম্যাগান

প্রিন্স হ্যারি ও মেগান মার্কেল দম্পতি রাজকীয় ভ্রমণে অস্ট্রেলিয়ার রাজধানী সিডনিতে পৌঁছেছেন। গত মে মাসে বিয়ের পর এটিই তাদের প্রথম সফর। অস্ট্রেলিয়া ছাড়াও ফিজি, টোঙ্গা এবং নিউজিল্যান্ডে ভ্রমণ করবেন তারা।     নবদম্পত্তি ১৬ দিনের ভ্রমণ করবেন। শুরুতেই তারা শনিবার সিডনিতে পৌঁছেছেন। দেশগুলোর বিভিন্ন অনুষ্ঠানে তাদের যোগদানের কথা রয়েছে।   তারা সিডনিতে অ্যাডমিরাল হাউসে উঠেছেন। এটি সিডনি হারবারের গভর্নর জেনারেল পিটার কসগ্রভের বাসভবন।যিনি অস্ট্রেলিয়ায় রানীর প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করেন। এই ভ্রমণে তারা চার্লস এবং ডায়নার পদাঙ্ক অনুসরণ করেছেন। কেননা বিয়ের পর চার্লস ও ডায়নার প্রথম রাজকীয় ভ্রমণ ছিল অস্ট্রিলিয়া এবং নিউজিল্যান্ডে। এদিকে নিউ সাউথ ওয়েলসের প্রধানমন্ত্রী গ্ল্যাডিস বেরেজিক্লিয়ান হ্যারি ও ম্যাগানকে স্বাগত জানিয়েছেন। চলতি বছর মে মাসে হ্যারি ও ম্যাগানের বিবাহের সময় প্রায় ৪০ লাখ অস্ট্রেলিয়ান তাদের বিবাহ অনুষ্ঠান টিভিতে উপভোগ করেছে। এর মাধ্যমে বুঝাই যাচ্ছে যে, অস্ট্রেলিয়াতে তাদের গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে। সূত্র: বিবিসি এমএইচ/

‘সিরিয়ায় রাষ্ট্রের ভেতর রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করতে চায় যুক্তরাষ্ট্র’

যুক্তরাষ্ট্র সিরিয়ায় ‘রাষ্ট্রের ভেতরে রাষ্ট্র’ প্রতিষ্ঠা করতে চায় বলে জানিয়েছেন রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ।  এজন্য মার্কিন সরকার সেখানকার মিত্রদের বিশেষ করে কুর্দিদের ব্যবহার করে ফোরাত নদীর পূর্ব উপকূলে অবৈধ রাষ্ট্র কাঠামো গড়ে তোলার চেষ্টা করছে। শুক্রবার রাশিয়ার সরকারি টেলিভিশন চ্যানেল আরটি এবং ফ্রান্সের ‘প্যারিস ম্যাচ’এবং ‘লা ফিগারো’পত্রিকাকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ল্যাভরভ এ কথা বলেন।  ল্যাভরভ বলেন, ফোরাত নদীর পূর্ব উপকূলে বিশাল এলাকা জুড়ে এমন কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে যা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। তিনি বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র তার সর্বশক্তি দিয়ে ফোরাত নদীর পূর্ব উপকূলের ভূখণ্ডকে ব্যবহার করে এই আধা-রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করছে।এমনকি তারা এমন অবস্থা তৈরির চেষ্টা করছে যাতে মনে হবে সবকিছু স্বাভাবিক আছে। তারা সেখানে এমন একটি সরকার প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করছে যা হবে সিরিয়ার বৈধ রাষ্ট্রের বিকল্প।’ সিরিয়ার শরণার্থীদের ফিরে আসাকে আমেরিকা অনুৎসাহিত করছে বলেও উল্লেখ করেন রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি বলেন, এর মাধ্যমে মার্কিন সরকার সিরিয়ায় শান্তি প্রক্রিয়াকে বাধাগ্রস্ত করতে চাইছে। সূত্র: পার্সটুডে এমএইচ/ এআর

খাশোগি নিখোঁজের ঘটনা বিপজ্জনক: ম্যাঁক্রো

সৌদি সরকার বিরোধী সাংবাদিক জামাল খাশোগির নিখোঁজ হওয়ার ঘটনাটিকে বিপজ্জনক ঘটনা বলে জানিয়েছেন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাঁক্রো। এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি যেন না হয় সেই আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। ১০ দিন আগে তুরস্কের ইস্তাম্বুলে সৌদি কনস্যুলেট থেকে খাশোগি নিখোঁজ হয়ে যাওয়ার পর এই প্রথম ফরাসি প্রেসিডেন্ট এ বিষয়ে প্রতিক্রিয়া জানালেন। এর আগে ফরাসি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ভন ডারমুহল শুক্রবার এক বিবৃতিতে বলেন, ইস্তাম্বুল থেকে খাশোগির নিখোঁজ হওয়ার ফলে অনেক প্রশ্ন ও দ্বিধাদ্বন্দ্ব তৈরি হয়েছে। ফ্রান্স সরকার খাশোগির বিষয়ে নিজের উদ্বেগের কথা সৌদি সরকারকে জানিয়েছে বলেও খবর দেন তিনি।  খাশোগির ভাগ্যে কি ঘটেছে তা রিয়াদকেই স্পষ্ট করতে হবে বলে জানান ফরাসি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র। ফ্রান্স সরকার এমন সময় এ প্রতিক্রিয়া জানাল যখন আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম খাশোগির নিখোঁজ হয়ে যাওয়ার ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা দেশগুলোর দীর্ঘ নীরবতার সমালোচনা করে আসছিল। এ সম্পর্কে উইকিলিক্স লিখেছে, সৌদি আরবের কাছ থেকে আসা পেট্রোডলারের প্রবাহ অব্যাহত রাখতেই যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রিটেন খাশোগির গুম হওয়ার প্রশ্নে তেমন কোনো প্রতিক্রিয়া দেখায়নি। গত ২ অক্টোবর জামাল খাশোগি ইস্তাম্বুলস্থ সৌদি কনস্যুলেটে প্রবেশ করে আর বের হননি। তুর্কি নিরাপত্তা সূত্রগুলো এরইমধ্যে স্পষ্টভাবে জানিয়েছে, খাশোগিকে কনস্যুলেটের মধ্যে হত্যা করে তার লাশ টুকরা টুকরা করে ওই কূটনৈতিক মিশন থেকে সরিয়ে ফেলা হয়েছে।  সৌদি আরব অবশ্য দাবি করছে, খাশোগি তার কাজ শেষ করে কনস্যুলেট থেকে বেরিয়ে গেছেন। কিন্তু ওই ভবনের বাইরে স্থাপিত সিসিটিভি ফুটেজে খাশোগিকে ভেতরে প্রবেশ করতে দেখা গেলেও তাকে বাইরে বের হতে দেখা যায়নি। সৌদি রাজতন্ত্রের ঘোর বিরোধিতাকারী খাশোগি ২০১৭ সাল থেকে যুক্তরাষ্ট্রে স্বেচ্ছা-নির্বাসিত জীবন কাটাচ্ছিলেন। সরকার বিরোধীদের বিরুদ্ধে সৌদি যুবরাজ মোহাম্মাদ বিন সালমান ব্যাপক ধরপাকড় অভিযান শুরু করার পর তিনি যুক্তরাষ্ট্রে চলে যান। সূত্র: পার্সটুডে এমএইচ/

আবারও ব্রিটেনের রাজপরিবারে বিয়ের সানাই

ব্রিটেনের রাজপরিবারে আবারও বিয়ের সানাই বাজতে চলছে। দ্বিতীয় কুইন এলিজাবেথের নাতনী রাজকুমারী ইউজেনে জ্যাক ব্রুকসব্যাঙ্ককের মধ্যে আজ শুক্রবার বিয়ে অনুষ্ঠিত হবে। বিয়ে অনুষ্ঠিত হবে রাজকীয় বাসস্থান উইন্ডসর ক্যাসলেতে। অনুষ্ঠানে ৮শরও বেশি অতিথি অংশ নেবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এছাড়া রাজ পরিবারের সিনিয়র সদস্যরাও এতে অংশ নেবেন। প্রিন্সেস ইউজেনে ব্রিটিশ রাজসিংহাসনের নবম উত্তরাধিকারী। তার জন্ম ১৯৯০ সালের ২৩ মার্চ লন্ডনের পোর্টল্যান্ড হাসপাতালে। তিনি জ্যাক ব্রুকসব্যাংককে (৩১) বিয়ে করতে যাচ্ছেন।  এই বিয়ে সম্পর্কে গার্ডিয়ানে এক সাক্ষাৎকারে জ্যাক ব্রুকসব্যাঙ্কক (৩২) বলেন, প্রায় সাত বছর আগে আমরা প্রেম শুরু করি। আমাদের মধ্যে ভালোবাসা সৃষ্টি হয়। তাই আমরা বিবাহ করার সিদ্ধান গ্রহণ করি।  এর পাঁচ মাস আগে প্রিন্স হেরি এবং হলিউড অভিনেত্রী মেগান মার্কেলের সাথে বিবাহ অনুষ্ঠিত হয়েছে। এরও আগে ২০১১ সালে প্রিন্স ইউলিয়াম ক্যাট মিডলটেনকে বিবাহ অনুষ্ঠিত হয়।   সূত্র : দ্যা টেলিগ্রাফ এমএইচ/  

অনুসন্ধানী সাংবাদিককে ধর্ষণের পর হত্যা

সম্প্রতি ইউরোপীয় ইউনিয়নের তহবিল নিয়ে বুলগেরিয়ার বড় বড় ব্যবসায়ী এবং রাজনীতিবিদদের দুর্নীতিতে জড়ানোর বিষয়ে অনুসন্ধানী প্রতিবেদন করেছিলেন ভিক্টোরিয়া মারিনোভা৷ তাকে ধর্ষণের পর খুন করা হয়েছে৷ বুলগেরিয়ার প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, তার আশা, হত্যাকারী শিগগিরই ধরা পড়বে৷ ৩০ বছর বয়সি ভিক্টোরিয়া মারিনোভা বুলগেরিয়ার উত্তরাঞ্চলের রুসে শহরকেন্দ্রিক টেলিভিশন চ্যানেল টিভিএন-এ কাজ করতেন৷ সম্প্রতি বুলগেরিয়ার কয়েকজন সাংবাদিক ইউরোপীয় ইউনিয়নের অর্থায়নে পরিচালিত অবকাঠামো উন্নয়নের কাজে দুর্নীতি সংক্রান্ত একটি অনুসন্ধানী প্রতিবেদন প্রকাশ করেন৷ ভিক্টোরিয়া মারিনোভা ছিলেন সেই প্রতিবেদনের অন্যতম প্রতিবেদক৷ শনিবার একটি পার্কে তাকে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায়৷ মাথায় আঘাত এবং শ্বাস রোধ করে হত্যার আগে তাকে ধর্ষণ করা হয়েছে বলে মনে করছে পুলিশ৷ রুসের স্থানীয় আইনজীবি জর্জি গিয়র্গিয়েভ জানিয়েছেন, ভিক্টোরিয়ার মৃতদেহ পাওয়া গেলেও ঘটনাস্থলে তার মোবাইল ফোন, গাড়ির চাবি, চশমা ও পরনের কাপড়ের কিছু অংশ পাওয়া যায়নি৷ বুলগেরিয়ার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ম্লাদেন মারিনভ জানান, হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে ভিক্টোরিয়ার কাজের কোনেও সম্পর্ক আছে কি-না সে সম্পর্কে এখনেও নিশ্চিত হওয়া যায়নি৷ অন্যদিকে, প্রধানমন্ত্রী বয়কো বরিসভ সংবাদ মাধ্যমকে বলেছেন, ‘আমি নিশ্চিত যে, হত্যাকাণ্ডের তদন্ত শীঘ্রই সম্পন্ন হবে৷ রুসে শহরে সেরা অপরাধ বিশেষজ্ঞদের পাঠানো হয়েছে৷ দয়া করে তাদের ওপর অযথা চাপ বাড়াবেন না৷` ইউরোপের নিরাপত্তা ও সহযোগিতা সংস্থা (ওএসসিই)-র মুক্ত সাংবাদিকতা বিষয়ক প্রতিনিধি, আরলেম দেসির টুইটারে ভিক্টোরিয়া মারিনোভা হত্যার নিন্দা করেছেন৷ রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডার্স জরুরিভিত্তিতে এই হত্যাকাণ্ডের বিচার দাবি করেছে৷ এ বছর মুক্ত সাংবাদিকতার সূচকে ১৮০টি দেশের মধ্যে বুলগেরিয়াকে ১১১তম স্থানে রেখেছে রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডার্স৷ সাম্প্রতিক সময়ে ইউরোপীয় অঞ্চলে সাংবাদিক নির্যাতন বৃদ্ধির ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে৷ গত এক বছরের মধ্যে ইউরোপীয় ইউনিয়নে খুন হওয়া তৃতীয় সাংবাদিক ভিক্টোরিয়া মারিনোভা৷ ২০১৭ সালের অক্টোবরে, মাল্টার সাংবাদিক, ব্লগার কারুয়ানা গালিজিয়া শক্তিশালী বোমার আঘাতে নিহত হন৷ এ বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে গুলি করে হত্যা করা হয় স্লোভাক সাংবাদিক ইয়ান কুৎসিয়াককে৷ সূত্র: ডয়চে ভেলে একে//

স্বাধীনতার দাবিতে স্কটল্যান্ডে ফের বিক্ষোভ

যুক্তরাজ্য থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে স্বাধীন-সার্বভৌম রাষ্ট্রের দাবিতে বিশাল সমাবেশ করেছে স্কটল্যান্ডের হাজার হাজার মানুষ। জাতীয় পতাকা হাতে রাজধানী এডিনবার্গে পার্লামেন্ট ভবনের কাছে জড়ো হন স্বাধীনতাপন্থীরা। স্বাধীনতার দাবিতে তারা বিভিন্ন ধরনের স্লোগান বক্তব্য দেন।   স্কটল্যান্ডের পার্লামেন্টে প্রায় অর্ধেক আসনের অধিকারী রাজনৈতিক দল দ্য স্কটিশ ন্যাশনাল পার্টি’র আহ্বানে ওই সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এর আগে, ২০১৪ সালে এক গণভোটে দশ শতাংশ ভোটের ব্যবধানে পিছিয়ে থাকায় স্কটল্যান্ডের স্বাধীনতার দাবি বাস্তবায়িত হয়নি। সে সময় স্বাধীনতার পক্ষে ভোট দিয়েছিল মাত্র পঁয়তাল্লিশ শতাংশ মানুষ। একে//

© ২০১৮ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি