ঢাকা, সোমবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৮ ১২:৩৮:১৫

সেরা ২০ সুন্দরীর তালিকায় ঐশী

সেরা ২০ সুন্দরীর তালিকায় ঐশী

‘মিস বাংলাদেশ’ জান্নাতুল ফেরদৌস ঐশী রয়েছেন চীনের সানাইয়া শহরে। সেখানে চলছে ৬৮তম ‘মিস ওয়ার্ল্ড’ প্রতিযোগিতা। এ প্রতিযোগিতায় দেশের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করছেন তিনি। ইতিমধ্যে মিস ওয়ার্ল্ডের সেরা ২০ জন সুন্দরীর তালিকায় জায়গা করে নিয়েছেন ‘মিস বাংলাদেশ’। আগামী ৮ ডিসেম্বর চীনের সাংহাই শহরে গ্র্যান্ড ফিনালে অনুষ্ঠিত হবে। ওই দিনই বিশ্বসুন্দরীর মাথায় মুকুট পরিয়ে দেয়া হবে।এদিকে ৩০ ডিসেম্বর বিকাল ৫টা পর্যন্ত মিস ওয়ার্ল্ড প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারীদের দেয়া উত্তরের ওপর ভোট গ্রহণ চলে। যাতে গ্রুপ-৬ থেকে চ্যাম্পিয়ন হয়ে ২০ জনের তালিকায় উঠে আসেন ঐশী।প্রসঙ্গত, দেশে ৩০ হাজার প্রতিযোগীকে পেছনে ফেলে ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’ খেতাব পেয়েছিলেন জান্নাতুল ফেরদৌস ঐশী। আর কয়েকটি ধাপ সাফল্যের সঙ্গে অতিক্রম করতে পারলেই গ্র্যান্ড ফিনালেতে দেখা যেতে পারে তাকে।উল্লেখ্য, গত বছর এ প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশ থেকে অংশ নিয়েছিলেন জেসিয়া ইসলাম। তিনি সেরা ৪০-এ জায়গা করে নিয়েছিলেন। এসএ/
মিস ওয়ার্ল্ডে সেরা ত্রিশে ঐশী

মিস ওয়ার্ল্ড প্রতিযোগিতার ৬৮তম আসরে বিভিন্ন দেশের প্রতিযোগীদের হারিয়ে সেরা ৩০ জনের মধ্যে জায়গা করে নিয়েছেন বাংলাদেশের জান্নাতুল ফেরদৌস ঐশী। ‘হেড টু হেড চ্যালেঞ্জ’ বিভাগের গ্রুপ সিক্সে জয়ী হয়ে তিনি পৌঁছে গেছেন সেরা ৩০-এ।মিস ওয়ার্ল্ড প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশের মেয়ে জান্নাতুল ফেরদৌস ঐশী বিভিন্ন দেশের প্রতিযোগীদের হারিয়ে সেরা ৩০ জনের মধ্যে জায়গা করে নিয়েছেন। শুক্রবার রাতে মিস ওয়ার্ল্ডের ফেসবুক পেজে এ তথ্য জানানো হয়।এটি হচ্ছে মিস ওয়ার্ল্ড প্রতিযোগিতার ৬৮তম আসর। এই আসরে বিশ্বের ১১৮ প্রতিযোগীর মধ্যে ঐশী সেরা ৩০-এ জায়গা করে নিল।এর মধ্যে ‘হেড টু হেড চ্যালেঞ্জ’ বিভাগের ২০টি গ্রুপের প্রতিটির বিজয়ীরা পৌঁছে গেছেন ফাইনালে। আর তাদের একজন হলেন ঐশী।ড্রয়ের মাধ্যমে ‘হেড টু হেড চ্যালেঞ্জ’ বিভাগে কোন প্রতিযোগী কোন গ্রুপে থাকবেন তা নির্ধারিন করা হয়েছে । সব মিলিয়ে সাজানো হয় ২০টি গ্রুপ।অন্য গ্রুপের বিজয়ী দেশগুলো হলো মরিশাস, ফ্রান্স, ভেনেজুয়েলা, ফিলিপাইন, নাইজেরিয়া, চিলি, লেবানন, মালয়েশিয়া, গোয়াডলুপ, মিয়ানমার, ভারত, নেপাল, সিঙ্গাপুর, থাইল্যান্ড, বুলগেরিয়া, মেক্সিকো, ত্রিনিদাদ অ্যান্ড টোবাগো, আর্জেন্টিনা ও উগান্ডা। এমএইচ/

‘ব্যান্ড ফেস্ট’ শুরু

চ্যানেল আইয়ের আয়োজনে পঞ্চমবারের মতো আজ অনুষ্ঠিত হচ্ছে ‘ব্যান্ড ফেস্ট’। এবারের ব্যান্ড ফেস্টে অংশ নিয়েছে- এলআরবি, উচ্চারণ, ডিফারেন্ট টাচ, অবসকিউর, তীরন্দাজ, ম্যাট্রিকেল, দলছুট, ফিডব্যাক, জলের গান, আর্টসেলসহ ১৭টি ব্যান্ড দল। চ্যানেল আই প্রাঙ্গণে সকাল সাড়ে ১০টায় এসব ব্যান্ডের সদস্যদের নিয়ে উদ্বোধন করা হয় ব্যান্ড ফেস্টের দিনব্যাপী কার্যক্রম। অনুষ্ঠানটি চলবে বিকেল ৫টা পর্যন্ত।‘ব্যান্ড ফেস্ট’-এর শুরু থেকেই সঙ্গে জড়িত ছিলেন দেশের কিংবদন্তি সঙ্গীতশিল্পী আইয়ুব বাচ্চু। মূলত তিনিই সামনে থেকে নতুন-পুরনোদের সম্পৃক্ত করতেন এই আয়োজনের সঙ্গে। কিন্তু এবারের আয়োজনে সেই আইয়ুব বাচ্চু নেই। তাই পঞ্চম আয়োজনটি উৎসর্গ করা হয়েছে আইয়ুব বাচ্চুর প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে। এবারের আয়োজনে সর্বশেষ পারফর্ম করবে আইয়ুব বাচ্চুর ব্যান্ড এলআরবি। এলআরবি নিয়ে হাজির হবেন আইয়ুব বাচ্চুর ছেলে আহনাফ তাজোয়ার আইয়ূব।অনুষ্ঠানটি সরাসরি সম্প্রচার করা হচ্ছে চ্যানেল আই। ব্যান্ড ফেস্ট ’১৮ উপস্থাপনা করছেন অপু মাহফুজ, সাফি আহমেদ ও দিলরুবা সাথী। এটি পরিচালনা করবেন অনন্যা রুমা। এসএ/  

প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে তথ্যচিত্র ‘শেখ হাসিনা দ্য লিডার’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সংগ্রামী জীবন নিয়ে নির্মাণ করা হলো তথ্যচিত্র ‘শেখ হাসিনা দ্য লিডার’। শেখ হাসিনা কেমন করে হয়ে উঠলেন বাংলাদেশের স্বপ্নহীন মানুষের আশা-আকাঙ্খার প্রতীক। এ তথ্যচিত্রে সেটাই তুলে ধরা হয়েছে। এটি নির্মাণ করেছেন ফয়েজ রেজা।১১ মিনিট ৩৩ সেকেন্ড ব্যপ্তি এই তথ্যচিত্রের গবেষণা করেছেন সাজিদ রায়হান, ধারা বর্ণনা দিয়েছেন আজাদ আবুল কালাম, মিউজিক কম্পোজিশন করেছেন মকসুদ জামিল মিন্টু, সার্বিক সহযোগিতায় ছিলেন তামান্না তাসমিয়া তুয়া।নির্মাতা ফয়েজ রেজা জানান, তথ্যচিত্রের শুরুতেই দেখানো হয়েছে- ১৯৮১ সালের ১৭ মে শেখ হাসিনা দেশে ফিরে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের দায়িত্ব নিয়ে কীভাবে দলকে পুনরায় গড়ে তুললেন, তার চিত্র। এর পর সাধারণ মানুষের ভাত-কাপড়ের অধিকার ও গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে অংশ নিয়ে রাজপথে শেখ হাসিনার আন্দোলন, স্বৈরতন্ত্রের বিরুদ্ধে লড়াই এবং ১৯৯৬ সালের ভোটে নির্বাচিত হওয়ার পর প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ গ্রহণের চিত্র। প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর দারিদ্র্যকে এ দেশের মূল সমস্যা হিসেবে চিহ্নিত করে তা দূর করার জন্য কীভাবে সংগ্রাম করেছেন, সেটাও দেখানো হয়েছে। এর পর ২০০৯ সালে দ্বিতীয়বার এবং ২০১৪ সালে তৃতীয়বার প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর তার দৃঢ় নেতৃত্বে অর্থনৈতিক উন্নয়নসহ কীভাবে উন্নত দেশের পথে অগ্রসর হচ্ছে বাংলাদেশ, তা দেখানো হয়েছে। সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের আয়োজনে শেকড়ের সন্ধানে মেগা কনসার্টে ইতোমধ্যে তথ্যচিত্রটি দেখানো হয়েছে রংপুর জেলা স্কুল মাঠ, রাজশাহীর এ এইচ এম কামরুজ্জামান স্টেডিয়াম, খুলনার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়াম, বরিশালের বিভাগীয় স্টেডিয়াম, চট্টগ্রামের এম এ আজিজ স্টেডিয়াম ও ঢাকায় বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে।এসএ/  

আজ বিটিভিতে ‘ইত্যাদি’

এবারের ‘ইত্যাদি’র দৃশ্য ধারণ করা হয়েছে সিলেটের সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার টেকেরঘাটে। এ পর্বটি দেখানো হবে বিটিভি ও বিটিভি ওয়ার্ল্ডে আজ রাত ৮টার বাংলা সংবাদের পর। অনুষ্ঠানটি পুনঃপ্রচার করা হবে আগামী ২ ডিসেম্বর রাত ১০টার ইংরেজি সংবাদের পর। এবারের পর্বে আছে সুনামগঞ্জের ইতিহাস, ঐতিহ্য ও প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের ওপর তথ্যভিত্তিক প্রতিবেদন। দেওয়ান হাসন রাজা, রাধারমণ দত্ত, দুর্বিন শাহ, শাহ আবদুল করিমসহ আরও বহু মনীষীর ওপর আছে তথ্যভিত্তিক অনুসন্ধানী আয়োজন। আছে মাইনুল মাজেদিনের ঘড়ি সংগ্রহের ওপর একটি প্রতিবেদন। জার্মানপ্রবাসী শৌখিন দৌড়বিদ বাংলাদেশের নবাবগঞ্জের শিবশংকর পালের ওপর রয়েছে আরেকটি অনুপ্রেরণামূলক আয়োজন। অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণের জন্য তিনি সরাসরি নিউইয়র্ক থেকে টেকেরঘাটে এসেছেন।এবারের ‘ইত্যাদি’তে মূল গান আছে একটি। হাসন রাজা, রাধারমণ দত্ত, দুর্বিন শাহ ও শাহ আবদুল করিমের লেখা চারটি গানের অংশ মিলিয়ে তৈরি হয়েছে একটি গান। গানটি গেয়েছেন সিলেটেরই শিল্পী শুভ্র দেব, সেলিম চৌধুরী ও সহশিল্পীবৃন্দ। সুনামগঞ্জকে নিয়ে মোহাম্মদ রফিকউজ্জামানের কথায়, হানিফ সংকেতের সুরে ও মেহেদীর সংগীতায়োজনে একটি গানের সঙ্গে নৃত্য পরিবেশন করেছেন টেকেরঘাটেরই স্থানীয় নৃত্যশিল্পীরা। এ ছাড়া থাকবে নিয়মিত আয়োজনগুলো। ‘ইত্যাদি’র রচনা, পরিচালনা ও উপস্থাপনা করেছেন হানিফ সংকেত। নির্মাণ করেছে ফাগুন অডিও ভিশন। ইত্যাদি স্পনসর করেছে কেয়া কসমেটিকস লিমিটেড।সাধারণত রাতের বেলা ‘ইত্যাদি’র দৃশ্য ধারণ করা হয়। কিন্তু এবারের পর্বটির দৃশ্য ধারণ করা হয় দিনের বেলা। উদ্দেশ্য ছিল সুনামগঞ্জের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য তুলে আনা। বাংলাদেশের যে স্থানে সাধারণত দৃশ্য ধারণ করা হয়, সে স্থানটির বৈশিষ্ট্যকে কেন্দ্র করেই সেট নির্মাণ করা হয়। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি।এসএ/

ইয়াশ-তিশার ‘রূপকথা’

ইয়াশ রোহান। দেশিয় মিডিয়ার তরুণ তারকা। ক্যারিয়ারের শুরুতেই নায়িকা পরীমনির সঙ্গে করেছেন ‘স্বপ্নজাল’ সিনেম। এবার তাকে দেখা যাবে টেলিভিশন ও সিনেমা দুই মাধ্যমেরই জনপ্রিয় তারকা নুসরাত ইমরোজ তিশার বিপরীতে। ‘রূপকথা’ শিরোনামের একটি ওয়েবভিত্তিক চলচ্চিত্রে দেখা যাবে দুজনকে। আলফা আই মিডিয়া প্রডাকশন লিমিটেডের ব্যানারে ভিডিও শেয়ারিং সাইট বায়োস্কোপ অরিজিনালসের জন্য এটি নির্মাণ হয়েছে। সম্প্রতি ঢাকার বেশ কয়েকটি স্থানে এর দৃশ্যধারণ হয়।সৈয়দ জিয়া উদ্দিনের রচনায় এটি পরিচালনা করেছেন গোলাম মুক্তাদির। এতে নুসরাত ইমরোজ তিশা, ইয়াশ রোহান ছাড়াও অভিনয় করেছেন শম্পা রেজা। নির্মাতা জানান, ‘রূপকথা’র গল্পে উঠে আসবে ২৪ বছর বয়সী সামিয়া নামের এক বোকাসোকা মেয়ের গল্প। আর এই বোকা মেয়ের চরিত্রে অভিনয় করেছেন তিশা।এ প্রসঙ্গে তিশা বলেন, ‘এখনকার ওয়েব কনটেন্টগুলো শক্তিশালী। এখানে সিনেমা বা টেলিভিশনের মতো কোনও সেন্সরশিপ নেই। যে কোনও মানুষ যেকোনও জায়গায় বসে মোবাইল ফোনে কাজগুলো দেখার সুযোগ পাচ্ছেন সহজেই। আর এই চলচ্চিত্রে আমি অভিনয় করেছি গল্পের কারণে। এখানে আমাকে ভিন্ন একটি রূপে দেখা যাবে। এই রূপটি দর্শকদের ভালো লাগবে নিশ্চয়ই।’আগামী ৬ ডিসেম্বর বায়োস্কোপ অরিজিনালে এটি মুক্তি পাবে।এসএ/  

এই ছবিটি আসলে কার জানেন?

উপরের এই ছবিটা নিশ্চয়ই দেখেছেন? ফেসবুক-সহ সোশ্যাল মিডিয়ার বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মে ঘোরা ফেরা করা অজস্র মিম-এর সঙ্গে এই ছবি স্ট্যাম্পের মতো করে সেঁটে থাকতে অনেকেই দেখেছেন। সাধারণত খুব হাস্যকর কোনও পরিস্থিতি, বিষয় বোঝাতে এই ছবিটির ব্যবহার করা হয়। কিন্তু জানেন কি এ ছবিটি কার? ছবিটি কি কাল্পনিক, নাকি এই ব্যপক ব্যবহৃত এই ছবির আড়ালে লুকিয়ে রয়েছে কোনও বাস্তব চরিত্র? আসুন এ বার এর উত্তর জেনে নেওয়া যাক। সোশ্যাল মিডিয়ার বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মে ঘোরা ফেরা করা অজস্র মিম-এর সঙ্গে ব্যবহৃত হাস্যকর মুখভঙ্গির এই ছবিটি আসলে ইয়াও মিং-এর। একজন প্রাক্তন বাস্কেটবল খেলোয়াড়। ৩৮ বছর বয়সি মিং-এর জন্ম চিনের সাংহাই প্রদেশে। উচ্চতা সাড়ে ৭ ফুট। খুব ছোটবেলাতেই মিং তাঁর এক কানের শ্রবনশক্তি হারান। চিনের সাংহাই শার্কস-এর হয়ে দীর্ঘদিন বাস্কেটবল খেলেছেন। আমেরিকায় এনবিএ (NBA)-র হিউস্টন রকেটস দলেও খেলেছেন তিনি। খেলা থেকে অবসর নেওয়ার পর মিং চীনা বাস্কেটবল অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি নিযুক্ত হন। কিন্তু ইয়াও মিং-এর এই ছবিটি কখন, কী ভাবে ভাইরাল হল? ২০০৯ সালে একটা বাস্কেটবল ম্যাচের পরে সাংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়েছিলেন মিং। ওই সময় এই মজার অভিব্যক্তিটি মিং-এর মুখে ফুটে ওঠে। এর পরের বছর অর্থাৎ, ২০১০ সালে ‘রেজ কমিক্স’ ক্যাম্পেনের মাধ্যমে ‘ডাম্ব বিচ’ নামে ইয়াও মিং-এর এই অভিব্যক্তির ছবি দিয়ে তৈরি মিমটি সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়ে। তার পর থেকেই হাস্যকর ‘সোশ্যাল পোস্ট’-এর প্রতীক হয়ে উঠেছে ইয়াও মিং-এর ছবিটি।   তথ্যসূত্র: জি নিউজ   এমএইচ/

চার শিল্পীকে অনুদান দিলেন প্রধানমন্ত্রী

দেশের চার গুণী শিল্পীর পাশে দাঁড়ালেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি চলচ্চিত্র অভিনেতা প্রবীর মিত্র, অভিনেত্রী রেহানা জলি, নূতন ও কণ্ঠশিল্পী কুদ্দুস বয়াতিকে মোট ৯০ লাখ টাকার অনুদান প্রদান করেছেন। তার মধ্যে ক্যান্সারে আক্রান্ত অভিনেত্রী রেহানা জলিকে ২৫ লক্ষ টাকা অনুদান দিলেন। আর বাকিদের ২০ লাখ টাকা করে অনুদান দেন।  বৃহস্পতিবার সকাল ১০টার দিকে গণভবনে ডেকে তাদের হাতে এ অনুদান তুলে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শিল্পী ঐক্যজোটের সাধারণ সম্পাদক ও নাট্য নির্মাতা জিএম সৈকতের তত্ত্বাবধানে ও সংগঠনটির সভাপতি ডি এ তায়েবের পরামর্শে প্রধানমন্ত্রীর কাছে সহায়তার আবেদন করেন প্রবীর মিত্র, রেহানা জলি ও নূতন। এছাড়া আবেদন করেন কুদ্দুস বয়াতিও। অনুদান প্রদানের সময় শিল্পী ঐক্য জোটের পক্ষ থেকে সেখানে উপস্থিত ছিলেন জিএম সৈকত। অনুদান প্রাপ্তির পর অভিনেত্রী রেহানা জলি বলেন, র্দীঘ দিন থেকে আমি অসুস্থ। আমার জীবনের সবচেয়ে বড় উপকারটি করলেন প্রধামনমন্ত্রী শেখ হাসিনা। অর্থ সংকটে আমার চিকিৎসা বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। এখন আবার শুরু করতে পারবো। এ জন্য তার কাছে কৃতজ্ঞ। আর শিল্পী ঐক্যজোটকে তাদের সহযোগিতার জন্য অনেক ধন্যবাদ। প্রধানমন্ত্রী অসহায় এসব শিল্পীদের অনুদান দেয়ায় শিল্পী ঐক্যজোটের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান সংগঠনটির সভাপতি ডি এ তায়েব ও সাধারণ সম্পাদক জিএম সৈকত। জিএম সৈকত একুশে টিভি অনলাইনকে বলেন, আমরা তিনজন শিল্পীর সহায়তার জন্য আবেদন করেছিলাম। প্রধানমন্ত্রী সে আবেদনে সাড়া দিয়ে তাদের পাশে দাঁড়িয়েছেন। এ জন্য তাঁর কাছে কৃতজ্ঞ। আমরা চেষ্টা করি সব সময় শিল্পীদের পাশে থাকার। এর আগেও আমরা শিল্পীদের পাশে ছিলাম। আগামীতেও শিল্পী ঐক্যজোট যে কোনো প্রয়োজনে পাশে থাকবে।     এসএ/এসি   

নতুন সাংস্কৃতিক জোট ‘বাঙালি সাংস্কৃতিক বন্ধন’র আত্মপ্রকাশ

রাজধানীর ২৫টি সাংস্কৃতিক সংগঠনের সমন্বয়ে নতুন সাংস্কৃতিক জোট ‘বাঙালি সাংস্কৃতিক বন্ধন’-এর আত্ম প্রকাশ ঘটেছে। বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এই জোট গঠনের ঘোষণা দেন নবগঠিত জোটের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা ও চিত্রনায়ক আকবর হোসেন পাঠান (চিত্রনায়ক ফারুক)। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে নায়ক ফারুক বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধে ত্রিশ লাখ বাঙালি শহীদ হয়েছেন। তাদের স্বপ্ন বাস্তবায়নে এই সংগঠন কাজ করবে। দেশ স্বাধীনের পরও স্বাধীনতাবিরোধী ঘাতকরা আমাদের স্বাধীনতা মেনে নেয়নি। তারা জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করেছে। আজও এই খুনীরা দেশে হত্যাযজ্ঞ চালাচ্ছে। আমরা আর কোন বাঙালিকে হত্যা করতে দেব না। তিনি বলেন, এই সাংস্কৃতিক জোট ভবিষ্যতে জাতির যে কোন দুর্যোগের মোকাবেলা করবে সংস্কৃতিকর্মের ভেতর দিয়ে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গঠনে কাজ করবো আমরা। আগামী নির্বাচনে এই সংগঠনের সকল সহযোগী প্রতিষ্ঠানের কর্মীরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করবে। সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন কবি কাজী রোজী এমপি, কবি মুহাম্মদ সামাদ, শিল্পী ইন্দ্রমোহন রাজবংশী, শিল্পী মনোরঞ্জন ঘোষাল, সঙ্গীতঙ্গ শেখ সাদী খান, নাট্যজন ড. ইনামুল হক, শিল্পী বুলবুল মহলানবিশ, বাউল শিল্পী শফি মন্ডল, চিত্রনায়ক জুনায়েদ। উপস্থিত ছিলেন নায়িকা রত্না, শাহনূর, অমৃতা, আর জে নয়নসহ শিল্প-সংস্কৃতি জগতের ব্যক্তিবর্গ। বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে নায়ক ফারুক বলেন, এই জোটের সদস্য সব সংগঠন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে বিশ্বাসী এবং তাঁর স্বপ্নের বাংলাদেশকে একটি উন্নত বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার জন্য কাজ করে যাবে। জোটের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল আজম বাশার বলেন, এ জোট আগামী দিনের চলার পথে জাতীয় যে কোন ইস্যুতে সাবলিল গতিতে কাজ করে যাবে। কোন ক্রমেই স্বাধীনতাবিরোধীদের এ দেশে আমরা সহ্য করবো না। সংস্কৃতিকর্মের মধ্যদিয়ে মানবিক অসাম্প্রদায়িক সমাজ গড়ার কাজ আমরা করবো। অভিনেতা ড. ইনামুল হক বলেন, আমরা শিল্প-সংস্কৃতি বান্ধব সরকার চাই। বর্তমানে ক্ষমতাসীন সরকার সংস্কৃতিবান্ধব। আগামী নির্বাচনে আমরা ক্ষমতাসীনদের পাশেই থাববো। নতুন জোটের সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন নায়ক ফারুক ও সাধারণ সম্পাদক সাইফুল আজম বাশার। জোটে যোগ দেয়া সংগঠনগুলো হচ্ছে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট, আওয়ামী শিল্পী গোষ্ঠী, বাংলার মুখ, আওয়ামী সাংস্কৃতিক ফোরাম, আওয়ামী সাংস্কৃতিক জোট, বাংলাদেশ লোক সাংস্কৃতিক পরিষদ, সংগীত সংগঠন সমন্বয় পরিষদ, স্বাধীনতা চারুশিল্পী সংসদ, বঙ্গবন্ধু লেখক পরিষদ, বঙ্গবন্ধু আবৃত্তি পরিষদ, শিল্পী কলাকুশলী সমিতি, ভাওয়াইয়া অঙ্গন, বাংলাদেশ ললিতকলা পরিষদ, বাংলাদেশ রোদসী কৃষ্টি সংসার, প্রতিভা মূল্যায়ন পরিষদ, স্বাধীনতা সাংস্কৃতিক একাডেমি, বঙ্গমাতা পরিষদসহ পঁচিশটি সংগঠন। সূত্র : বাসস এসএ/

আনিসুল হকের অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করবেন তুষার

১৯৯৬ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে বিটিভিতে প্রচারিত হয়েছিল প্রয়াত মেয়র আনিসুল হকের উপস্থাপনায় ‘সবিনয়ে জানতে চাই’। রাজনৈতিক দলগুলোর শীর্ষস্থানীয় নেতৃবর্গের অংশগ্রহণে সেই সময়ে অনুষ্ঠানটি ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেয়েছিল। ওই অনুষ্ঠানের প্রধান সমন্বয়ক হিসেবে কাজ করেছিলেন ডা. আব্দুন নূর তুষার। আর এবার নাগরিক টিভিতে ‘সবিনয়ে জানতে চাই’ নিয়ে আসছেন চ্যানেলটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা তুষার। আগামীকাল বৃহস্পতিবার রাত ১১টায় অনুষ্ঠানটির প্রথম পর্ব প্রচার হবে। এরপর একই বার ও একই সময়ে এটি দেখা যাবে নাগরিক টিভির পর্দায়। অনুষ্ঠানে একাদশ সংসদ নির্বাচনে নির্বাচনী আসন, প্রার্থী ও জনগণের ওপর নির্বাচনী প্রভাব, সাফল্য ও ব্যর্থতা নিয়ে আলোচনা করা হবে। অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন মন্ত্রী, রাজনীতিক, সাংবাদিক, সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা। এ অনুষ্ঠানে আব্দুন নূর তুষার অতিথিদের কাছে জবাবদিহিমূলক একাধিক প্রশ্ন করবেন এবং আর অতিথিরা সেই প্রশ্নের জবাব দেবেন। এছাড়া প্রতি পর্বে দু’জন প্রতিথযশা সাংবাদিক/ সমাজকর্মী অতিথিকে প্রশ্ন করবেন। পাশাপাশি দর্শকরাও অংশ নিতে পারবেন এতে। একে//

আন্তর্জাতিক পুরস্কার পাচ্ছে ছায়ানট

সংস্কৃতির বিভিন্ন শাখায় গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখায় ভারতের ‘আন্তর্জাতিক রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর পুরস্কার বা টেগোর অ্যাওয়ার্ড’ পাচ্ছে বাংলাদেশের অন্যতম সাংস্কৃতিক সংগঠন ছায়ানট।বাংলাদেশের ভারতীয় হাইকমিশন থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।তাতে বলা হয়েছে, ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বে একটি জুরি বোর্ড ২০১৫ সালের জন্য ঐতিহ্যবাহী এ সংগঠনটিকে নির্বাচিত করে।‘আন্তর্জাতিক রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর পুরস্কার বা টেগোর অ্যাওয়ার্ড’ হলো কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৫০তম জন্মবার্ষিকীতে চালু করা একটি বিখ্যাত সম্মাননা। সাংস্কৃতিক সম্প্রীতির মূল্য রক্ষণাবেক্ষণের জন্য ভারত সরকার ২০১১ সালে পুরস্কারটির প্রবর্তন করে। পরে ২০১২ সালে ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায় সেতার শিল্পী রবিশংকরকে দিয়ে এ পুরস্কার শুরু করেন। যার অর্থমূল্য এক কোটি রুপি।এদিকে, ১৯৬১ সালে প্রতিষ্ঠিত ছায়ানটের রয়েছে রবীন্দ্রচর্চাসহ নানা সাংস্কৃতিক কাজের গৌরবময় ঐতিহ্য। সেইসঙ্গে বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামেও ছায়ানট গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিল। এসএ/    

নতুন বিজ্ঞাপনে মাশরাফির সঙ্গে ফারিন

নতুন করে আরো একটি বিজ্ঞাপনের মডেল হিসেবে দেখা যাবে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজাকে। গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর উত্তরার দিয়া বাড়িতে সেই বিজ্ঞাপন চিত্রের শুটিংয়ে অংশ নেন তিনি। জানা গেছে বিজ্ঞাপনটি বিকাশের। বিজ্ঞাপনটি নির্মাণ করেন আশফাক উজ জামান বিপুল।  মাশরাফির সাথে এই বিজ্ঞাপনপচিত্রে কাজ করেছেন মডেল ও অভিনেত্রী ফারিন। এবিষয় জানতে চাইলে অভিনেত্রী ফারিন বলেন, আমি এক্সাইটমেন্ট ধরে রাখতে পারছি না। মাশরাফি ভাইয়া খুবই ভালো একজন মানুষ। কাজের জায়গায় তিনি অনেক সহায়ক ও হেল্পফুল। আমি মুগ্ধ হয়েছি। দুই ক্যামেরাতে কাজ করায় গতকাল সন্ধ্যার মধ্যেই শুটিং শেষ হয়ে যায়। শিগগিরই বিজ্ঞাপনটি দেশের সবগুলো চ্যানেলে প্রচার হবে।  টিআর/

ঐশীর ছবি মিস ওয়ার্ল্ড ওয়েবসাইটে

এবছর মিস ওয়ার্ল্ড প্রতিযোগীতায় বাংলাদেশ থেকে প্রতিনিধিত্ব করছেন জান্নাতুল ফেরদৌস ঐশী। সম্প্রতি তিনি দেশের সেরা সুন্দরী নির্বাচিত হয়েছেন। এবার মিস ওয়ার্ল্ড-এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে অন্যান্য প্রতিযোগীর পাশাপাশি যুক্ত হয়েছে তার স্থিরচিত্র। মিস ওয়ার্ল্ড অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে ‘কনটেস্টেন্টস’ অপশনে ক্লিক করলে তৃতীয় সারিতেই দেখা যাচ্ছে ঐশীর ছবি। ওয়েবসাইটের হোমপেজেও প্রতিযোগীদের নাম, ছবি ও দেশের নাম উল্লেখ রাখা হয়েছে। এখন পর্যন্ত ঐশীসহ ১২১টি দেশের প্রতিযোগী চূড়ান্ত হয়েছেন মিস ওয়ার্ল্ডের ৬৮তম আসরের জন্য। তবে এ তালিকায় যুক্ত হতে পারে আরও কয়েকটি দেশ। উল্লেখ্য, গতবারের মতো এবারও মিস ওয়ার্ল্ড অনুষ্ঠিত হবে চীনের সানাইয়া সিটি এরেনায়। আগামী ৮ ডিসেম্বর এই আয়োজনে থাকছে চোখধাঁধানো সৌন্দর্য, চমৎকার ফ্যাশন ও বিশ্বসেরা পারফর্ম্যান্সের সম্মিলন। নতুন মিস ওয়ার্ল্ডের মাথায় মুকুট পরিয়ে দেবেন বর্তমান বিশ্বসুন্দরী ভারতের মানুষি চিল্লার। এসএ/

© ২০১৮ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি