ঢাকা, শনিবার, ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ১১:৫৯:২০

ভাঙচুর করে ক্ষমা চাইলেন পোগবা

ভাঙচুর করে ক্ষমা চাইলেন পোগবা

চ্যাম্পিয়ন্স লিগে প্যারিস সাঁ জারমাঁর (পিএসজি) বিরুদ্ধে ম্যাচে দু’বার হলুদ কার্ড দেখায় মাঠ ছাড়তে হয়েছিল পল পোগবাকে। জানা যাচ্ছে, সে দিন ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের ড্রেসিংরুমে ফিরে ফরাসি তারকা সাংঘাতিক মাথা গরম করেন। শুধু তাই নয়, নিজের লকারও ভেঙে ফেলেন। তার এতটা হতাশ হওয়ার কারণ, ফ্রান্সে গিয়ে পিএসজি-র বিরুদ্ধে ফিরতি ম্যাচ খেলার সুযোগ হারানো। দু’বার হলুদ কার্ডে তার লাল কার্ডের সমান শাস্তি হওয়ায় মারাত্মক হতাশ হন ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ম্যানেজার ওয়ে গুন্নার সোলসার। ম্যাচের পরে বলেছিলেন, ‘লাল বা হলুদ কার্ড ফুটবলের অঙ্গ। কিন্তু মাঝে মধ্যে সেটা দুর্ভাগ্যজনকভাবে ঘটে। পলের ক্ষেত্রে সেটাই হয়েছে। দানি আলভেসকে এমন কিছু মারাত্মক ফাউল ও কিন্তু করেনি।’ শুক্রবার ম্যান ইউয়ের একটি সূত্র জানিয়েছে, পোগবা মাথা গরম করার জন্য ক্লাব, ম্যানেজার এবং সতীর্থদের কাছে ক্ষমা চেয়ে নিয়েছেন। জানিয়েছেন, চ্যাম্পিয়ন্স লিগে পরের ম্যাচে খেলতে পারবেন না ভেবে ভেঙে পড়েছিলেন তিনি। তাই মাথা গরম করে ফেলেন।        চ্যাম্পিয়ন্স লিগে অনেকটা পিছিয়ে পড়লেও পোগবারা চান, এবার যে কোনওভাবে প্রিমিয়ার লিগ প্রথম চারে শেষ করার। যদিও খেতাবের স্বপ্ন সম্ভবত আর দেখছে না রেড ডেভিলস। লিগ উত্তেজক পরিণতির দিকে যাচ্ছে। খেতাব জেতার দৌড় এখন মূলত তিন ক্লাবের। লিভারপুল, ম্যানচেস্টার সিটি এবং টটেনহ্যাম হটস্পার। লিভারপুল ও ম্যানচেস্টার সিটি এখন এক বিন্দুতে। দু’দলের পয়েন্ট ৬৫। লিভারপুল একটা ম্যাচ কম খেলেছে (২৬টি)। পিছিয়ে নেই মাউরিসিয়ো পচেত্তিনোর টটেনহ্যাম। তাদের পয়েন্ট ৬০। ২৩ ফেব্রুয়ারি টার্ফ মুরে নিজেদের ২৭ নম্বর ম্যাচে বার্নলিকে হারালে প্রথম দু’দলের কাছাকাছি দলে আসবে টটেনহ্যাম। ফুটবল বিশ্লেষকেরা বলছেন, সে সম্ভাবনা উজ্জ্বল। আহত হ্যারি কেন আর ডেলে আলিকে ছাড়াই চ্যাম্পিয়ন্স লিগে গত বুধবার বরুসিয়া ডর্টমুন্ডকে ২-০ হারিয়ে স্পার্স এখন রীতিমতো উজ্জীবিত। টটেনহ্যামের জন্য ভাল খবর, বার্নলি ম্যাচে হ্যারি কেন এবং ডেলে দলে ফিরতে পারেন। গত মৌসুমে ম্যানচেস্টার সিটি যেভাবে একপেশে মেজাজে লিগ নিয়ন্ত্রণ করেছে এবার ছবিটা তা নয়। ফুটবল বিশ্লেষকেরা টটেনহ্যামকেও হিসেবের মধ্যে রাখছেন। যদিও বহু বছর তারা বড় ট্রফি জেতেনি। প্রিমিয়ার লিগে তাদের আরও পরীক্ষা দিতে হবে। ফেব্রুয়ারির শেষে চেলসির সঙ্গে খেলা। ২ মার্চ প্রতিপক্ষ আর্সেনাল। মার্চেই অ্যানফিল্ডে খেলতে হবে লিভারপুলের বিরুদ্ধে। পচেত্তিনো বলেছেন, ‘আমাদের লিগ জয়ের সম্ভাবনা কতটা জানি না। এটুকু বলতে পারি, ছেলেরা ভাল ফুটবল খেলার জন্য উন্মুখ। কে না জানেন, ভাল খেললে ভাল ফল পাওয়া যায়। দেখা যাক, শেষ পর্যন্ত কত দূর কী করতে পারি।’ সূত্র: আনন্দবাজার একে//
জুভেন্টাসের দাপুটে জয়

সময়টা দারুণ যাচ্ছে জুভেন্টাসের। সেইসঙ্গে নিয়মিত গোল করে চলেছেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। সঙ্গে নিজেকে খুঁজে ফেরা পাওলো দিবালা দীর্ঘদিন পর পেয়েছেন জালের দেখা। পাশাপাশি দুজনেই রাখলেন সতীর্থের গোলে অবদান। তাদের নৈপুণ্যে সেরি আয় ফ্রোসিনোনের বিপক্ষে দাপুটে জয় পেয়েছে ইতালিয়ান জায়ান্টরা। শুক্রবার রাতে অ্যালিয়েঞ্জ স্টেডিয়ামে পয়েন্ট তালিকার অবনমন অঞ্চলের দলটিকে ৩-০ গোলে হারায় মাস্সিমিলিয়ানো আল্লেগ্রির শিষ্যরা। নিজেদের মাঠে খেলতে নেমে ম্যাচের শুরু থেকেই বল দখলে আধিপত্য দেখায় জুভেন্টাস। ম্যাচের ষষ্ঠ মিনিটের মাথায় জুভেন্টাসের আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড পাউলো ডিবালার গোলে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে যায় ইতালিয়ান চ্যাম্পিয়নরা। এরপর ৯ম মিনিটে রোনালদোর শর্ট ফিরিয়ে দেন ফলসিনোনের গোলরক্ষক। ম্যাচের ১৭তম মিনিটে লিয়েনার্দো বোনউচ্চির গোলে ব্যবধান বাড়ায় স্বাগতিকরা। ২-০ স্কোরলাইনে শেষ হয় প্রথমার্ধ। বিরতি থেকে ফিরে ম্যাচের ৬৩তম মিনিটে রোনালদোর গোলে ৩-০ ব্যবধানে এগিয়ে যায় ওল্ড লেডিরা। ডান দিক থেকে মানজুকিচের পাস পেনাল্টি স্পটের কাছে পেয়ে সামনের ডিফেন্ডারকে কোনো সুযোগ না দিয়ে নিচু শটে গোলরক্ষককে পরাস্ত করেন পর্তুগিজ ফরোয়ার্ড। বাকি সময়ে ম্যাচে ফিরতে পারেনি অতিথিরা। ফলে ৩-০ গোলের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে জুভেন্টাস। এই জয়ে ২৪ ম্যাচে ৬৬ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে থাকা নাপোলির চেয়ে ১৪ পয়েন্ট এগিয়ে থেকে শীর্ষস্থান মজবুত করেছে জুভিরা। সূত্র: লাইভস্কোর ডটকম একে//

বড় শাস্তির মুখে বেল

বড় সমস্যায় পড়তে পারেন রিয়াল মাদ্রিদের গ্যারেথ বেল। আটলেটিকো বিরুদ্ধে গোল করার পরে তিনি যে ভঙ্গিতে উৎসব করেন, তাতেই বিতর্ক। গত সপ্তাহে আটলেটিকোর বিরুদ্ধে তৃতীয় গোল করে দর্শকদের দিকে তাকিয়ে হাত দিয়ে যে অঙ্গভঙ্গি করেন বেল, তা নিয়েই ঝড় উঠেছে। অভিযোগ, এই ভঙ্গি করে দর্শকদের উত্তেজিত করার চেষ্টা করেছিলেন বেল। স্পেনে এমন অঙ্গভঙ্গিকে অশ্লীল বলা হয়। অপরাধের গুরুত্ব এতটাই যে, ১২টি ম্যাচে নির্বাসনে পাঠানো হতে পারে বেলকে। লা লিগার তরফে এই শাস্তি দাবি করে স্প্যানিশ ফুটবল ফেডারেশনের কাছে আবেদন জানানো হয়েছে। লা লিগার বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘এই ম্যাচে স্থানীয় দর্শকেরা বেলকে বিদ্রুপ করে যাচ্ছিল। ম্যাচের ৭৩তম মিনিটে গোল করে বেল ওর একটা হাত মাথার কাছাকাছি নিয়ে দোলাচ্ছিল। এতে পরিষ্কার, বেল দর্শকদের উত্তেজিত করতে চাইছিল। পরে ও অন্য হাতটা তুলে ধরা হাতের ওপর রেখেছিল। যেটা অশ্লীলতার ইঙ্গিত। এই অপরাধের জন্য তিন থেকে ১২ ম্যাচ নির্বাসন হতে পারে।’ রেফারির রিপোর্টে বেলের নামে কিছু নেই। কিন্তু লা লিগার তরফে স্প্যানিশ ফেডারেশনের কাছে ঠিকই আবেদন করা হয়েছে। তবে অনেকেই মনে করছেন, তিন ম্যাচের বেশি বহিষ্কৃত হবেন না বেল। ১২ ম্যাচ যদি হয়, তাহলে মৌসুমের অনেকটা সময়ই বাইরে থাকতে হবে তাকে। সূত্র: আনন্দবাজার একে//

আয়াক্সের বিপক্ষে রিয়ালের নাটকীয় জয়

ডাচ ক্লাব আয়াক্সের বিপক্ষে কঠিন লড়াইয়ের মুখে পড়ে রিয়াল মাদ্রিদ। তবে শেষ পর্যন্ত নাটকীয় জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শিরোপাধারীরা। বুধবার রাতে আমস্টাডার্মের ইয়োহান ক্রুইফ অ্যারেনায় শেষ ষোলোর প্রথম লেগে ২-১ গোলে জিতেছে সান্তিয়াগো সোলারি। প্রতিপক্ষের মাঠে খেলতে নেমে ম্যাচের প্রথমদিকে রিয়ালের পারফরম্যান্স ছিল ভীষণ হতাশাজনক। ভুল পাসের ছড়াছড়িতে তাদের আক্রমণে ওঠার চেষ্টাগুলো ভেস্তে যাচ্ছিল বারবার। তবে পঞ্চদশ মিনিটে প্রথম উল্লেখযোগ্য সুযোগটি পেয়েছিল তারাই; বাঁ দিক দিয়ে ভিনিসিউস জুনিয়র দ্রুত আক্রমণে উঠে ডি-বক্সে ঢুকে এক জনকে কাটিয়ে জোরালো শট নেন, ঝাঁপিয়ে কর্নারের বিনিময়ে ঠেকান গোলরক্ষক। তবে রিয়ালের বিরুদ্ধে আয়াক্সের ইউরোপীয়ান রেকর্ড মোটেও আশাব্যঞ্জক নয়৷ এই নিয়ে শেষ সাতটা ম্যাচেই রিয়ালের কাছে পরাস্ত হল নেদারল্যান্ডসের দলটি৷ তবু এই ম্যাচের প্রথমার্ধে দুরন্ত ফুটবল উপহার দেয় ডাচরা৷ একাধিক গোলের সুযোগ তৈরি করে তারা৷ ম্যাচের ৩৭তম মিনিটে তাগলিয়াফিকো হেডে রিয়ালের জালে বল জড়িয়ে দেয় স্বাগতিকরা৷ তবে অজস্রবার রি-প্লে দেখার পর রেফারি দামির গোলটি বাতিল করেন তাদিচ অফসাইডে ছিলেন মনে হওয়ায়৷ গোলশূন্য থেকেই থেকেই শেষ হয় প্রথমার্ধ। বিরতি থেকে ফিরে ম্যাচের ৬০তম মিনিটে দারুণ এক আক্রমণে এগিয়ে যায় অতিথিরা। নিজেদের সীমানা থেকে সতীর্থের বাড়ানো বল ধরে ভিনিসিউস বাঁ দিক দিয়ে দ্রুত আক্রমণে উঠে ডি-বক্সে ঢুকে দুজনকে কাটিয়ে ছোট করে পাস দেন বেনজেমাকে। আর প্রথম ছোঁয়ায় জোরালো কোনাকুনি শটে বল ঠিকানায় পাঠান ফরাসি এই স্ট্রাইকার। ক্লাব ফুটবলে ইউরোপ সেরা প্রতিযোগিতায় বেনজেমার এটি ৬০তম গোল। চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ইতিহাসের গোলদাতার তালিকায় তার উপরে আছেন তিন জন; রাউল গনসালেস (৭১), লিওনেল মেসি (১০৬) ও ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো (১২১)। এরপর ম্যাচের ৭৫তম মিনিটে ডেভিড নেরেসের পাস থেকে গোল করে ম্যাচে সমতা ফেরান হাকিম৷ এর চার মিনিট পর আবারও এগিয়ে যেতে পারতো লস ব্ল্যাঙ্কোসরা। তবে খানিক আগে বেনজেমার বদলি নামা মার্কো আসেনসিওর শট পোস্ট ঘেঁষে লাগে পাশের জালে। এরপর ম্যাচের ৮৭তম মিনিটে স্প্যানিশ এই মিডফিল্ডারের গোলেই জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। ডান দিক থেকে দানি কারভাহালের দূরের পোস্টে বাড়ানো দুর্দান্ত ক্রসে পা বাড়িয়ে বল লক্ষ্যে পাঠান আসেনসিও। তবে এই গোলে রেফারির ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। রিপ্লেতে দেখা যায় রেফারির চোখের সামনেই ভাস্কুয়েজ দি অংকে ফাউল করছেন কিন্তু রেফারি ফাউলের সিদ্ধান্ত দেননি। এমনকি ভিএআরে দেখারও প্রয়োজন মনে করেননি। এই জয়ে ঘরের মাঠে ২-১ গোলে এগিয়ে থেকেই কোয়ার্টারে এক পা দিয়ে দ্বিতীয় লেগে মাঠে নামবে রিয়াল মাদ্রিদ। তবে দুর্দান্ত জয়ের পরও একটা অস্বস্তি নিয়ে মাঠ ছেড়েছে সর্বোচ্চ ১৩ বারের ইউরোপ চ্যাম্পিয়নরা। যোগ করা সময়ে সার্জিও রামোস হলুদ কার্ড পাওয়ায় আগামী ৫ মার্চ ঘরের মাঠে ফিরতি পর্বে অধিনায়ককে পাবে না রিয়াল মাদ্রিদ। সূত্র: লাইভস্কোর ডটকম একে//

ম্যানইউকে হারিয়ে ইতিহাস গড়ল পিএসজি

সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে টানা ১১ ম্যাচ অপরাজিত ছিল ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। যার মধ্যে ১০টিতেই জিতেছিল রেড ডেভিলরা। কিন্তু ইউরোপ সেরার মঞ্চে ছন্দপতন। উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফুটবলের শেষ ষোলোর প্রথম লেগে মুখোমুখি হয় দুই ইউরোপিয়ান জায়ান্ট ইংলিশ ক্লাব ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও ফরাসি জায়ান্ট পিএসজি। কোনও প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচে এটাই দুই দলের প্রথম লড়াই ছিল। আর এতে ইউনাইটেডকে তাদেরই মাঠে হারিয়ে দিল প্যারিসের ক্লাবটি। মঙ্গলবার রাতে ম্যাচটিতে ম্যানইউকে ২-০ গোলে হারাল পিএসজি। সেই সঙ্গে প্রথম ফরাসি ক্লাব হিসেবে ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে জয়ের অনন্য কীর্তি গড়ল টমাস টুথেলের দল। প্রতিপক্ষের মাঠে খেলতে নেমে ম্যাচের ৬ মিনিটের মাথায় মার্কো ভেরত্তির বাড়নোর বলটাকে ঠিক মতো কাজে লাগাতে পারেনি পিএসজির আর্জেন্টাইন তারকা ডি মারিয়া। এর দুই মিনিট বাদেই সুযোগ পেয়েছিল ম্যানইউ। ডান সাইডে অ্যাশলে ইয়ংয়ের বাড়ানো বলে রাশফোর্ডের শর্ট ফিরিয়ে দেন পিএসজি গোলরক্ষক বুফন। ম্যাচের ৩৯তম মিনিটে বল দখলের লড়াইয়ে অ্যাশলি ইয়ং পিএসজি-র ডি মারিয়াকে ধাক্কা দিলে হাতে ব্যথা পান আর্জেন্টাইন তারকা। এই ঘটনায় দু’দলের খেলোয়াড়দের মধ্যে তর্কাতর্কি শুরু হয়। কিছুক্ষণ পর মাঠে ফেরেন ডি মারিয়া। আর আগেই হলুদ কার্ড দেখা ইয়ং-কে সতর্ক করে ছেড়ে দেন রেফারি। বিরতি থেকে ফিরে প্রথম সুযোগটি পায় অতিথিরা। এমবাপের হেড ঝাঁপিয়ে কর্নার করে দেন দাভিদ হিয়া। কিন্তু ৫৩তম মিনিটে ডি মারিয়ার কর্নার থেকে পিএসজিকে এগিয়ে নেন ফরাসি ডিফেন্ডার কিম্পেম্বে। এগিয়ে গিয়ে আরও আত্মবিশ্বাসী হয়ে ওঠা পিএসজি প্রতিপক্ষের রক্ষণে চাপ বাড়ায়। সাত মিনিটের ব্যবধানে ব্যবধান দ্বিগুণ করে ফরাসি জায়ান্টরা৷ ৬০তম মিনিটে বাঁ-দিক থেকে ডি মারিয়ার ক্রস ডি-বক্সের বাইরে পেয়ে প্লেসিং শটে বল ম্যানইউ-র জালে জড়ান এমবাপে। আর ম্যাচের ৮৯তম মিনিটে ম্যাচে দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখে পগবার মাঠ ছাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ম্যাচে ফেরার আশা শেষ হয়ে যায় ম্যানইউর। সূত্র: লাইভস্কোর ডটকম একে//

লা লিগায় বার্সাকে রুখে দিল বিলবাও

স্প্যানিশ লা লিগায় টানা দ্বিতীয় ম্যাচে হোঁচট খেলো বার্সেলোনা। অ্যাথলেতিক বিলবাওয়ের মাঠে গোলের দেখা পায়নি আর্নেস্তো ভালভার্দের শিষ্যরা। রোববার রাতে সান ম্যামেসে ম্যাচটি গোলশূন্য ড্র হয়েছে। এদিন শিরোপা ধরে রাখার চ্যালেঞ্জে নেমে নিজের সেরাটা মেলে ধরতে ব্যর্থ হলেন লিওনেল মেসি। প্রতিপক্ষের মাঠে খেলতে নেমে পুরো ম্যাচে বার্সেলোনা গোলরক্ষক মার্ক-আন্ড্রে টের স্টেগেনের পারফরম্যান্স ছিল দুর্দান্ত। বলতে গেলে তার দুর্দান্ত কিছু সেভেই জাল অক্ষত থাকে বার্সার।         নিজেদের মাঠে ম্যাচের একাদশ মিনিটে প্রথম উল্লেখযোগ্য সুযোগটি পায় বিলবাও। মাঝমাঠে আর্তুরো ভিদাল বল হারালে দ্রুত পাল্টা আক্রমণে গিয়ে ডি-বক্সের বাইরে থেকে ডিফেন্ডার ইউরি বের্চিচের নেওয়া কোনাকুনি শট অল্পের জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। এর পর ম্যাচের ১৭তম মিনিটে মার্কেল সুসায়েতার তুমুল গতির শট দারুণ নৈপুণ্যে বাঁ হাত দিয়ে ঠেকিয়ে দেন টের স্টেগেন। ম্যাচের ২৪তম মিনিটে রাউল গার্সিয়া বাইসাইকেল শট নিলেও তা জালের দেখা পায়নি। ম্যাচের ২৬তম মিনিটে নেলসন সেমেদোকে আটকাতে এগিয়ে যান বিলবাও গোলরক্ষক। সেই সুযোগে আলগা বল পেয়ে প্রায় ৩০ গজ দূর থেকে মেসির নেওয়া শট ক্রসবারের উপরের অংশে লাগে। বিরতি থেকে ফিরে অধিকাংশ সময় বল দখলে রেখে আক্রমণে উঠতে থাকে বার্সেলোনা। কিন্তু কোনও সুযোগই পাচ্ছিল না তারা। উল্টো ম্যাচের ৮২তম মিনিটে এগিয়ে যাওয়ার সহজ সুযোগ পেয়েছিলেন ইনাকি উইলিয়ামস। তবে অরক্ষিত এই স্প্যানিশ ফরোয়ার্ডের শট দারুণ ক্ষিপ্রতায় রুখে দেন টের স্টেগেন। গত সপ্তাহে ভালেন্সিয়ার বিপক্ষে ক্যাম্প ন্যুতে প্রথমে দুই গোল খেয়ে বসা বার্সেলোনা। পরে মেসির জোড়া গোলে এক পয়েন্ট নিয়ে মাঠ ছেড়েছিল দলটি। আর এবার জালের দেখাই পায়নি তারা। চলতি মৌসুমে এই প্রথম ম্যাচে গোলের দেখা পেল না কাতালান ক্লাবটি। সব মিলিয়ে টানা তিন ম্যাচ ড্র করলো মেসিরা। এ ড্রয়ে লিগে ২৩ ম্যাচে ১৫ জয় ৬ ড্রয়ে শীর্ষে থাকা বার্সার পয়েন্ট ৫১। অন্যদিকে দ্বিতীয় স্থানে থাকা রিয়াল মাদ্রিদ সমান সংখ্যাক ম্যাচ খেলে ৪৫ পয়েন্ট সংগ্রহ করেছে। ৪৪ পয়েন্ট নিয়ে তিন নম্বরে রয়েছে অ্যাথলেতিকো মাদ্রিদ। আর ৩৭ পয়েন্ট নিয়ে চতুর্থ স্থানে আছে সেভিয়া। সূত্র: লাইভস্কোর ডটকম একে//

জুভেন্টাসকে জয়ে ফেরালেন রোনালদো

ইতালিয়ান লিগ ‘সিরি আ’য় ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর অসাধারণ নৈপুণ্যে বড় জয় পেল জুভেন্টাস। পর্তুগিজ তারকা নিজে গোল করার পাশাপাশি সতীর্থকে দিয়ে গোল করিয়ে সাসুয়োলোর বিপক্ষে সহজেই জয় তুলে নেন। রোববার প্রতিপক্ষের মাঠে ৩-০ গোলে জিতেছে মাসিমিলানো আললেগ্রির দল। গত সপ্তাহে পার্মার বিপক্ষে ঘরের মাঠে দুই গোলে এগিয়ে গিয়েও শেষ পর্যন্ত ৩-৩ ড্র করেছিল টানা সাতবারের লিগ শিরোপা জয়ীরা। প্রতিপক্ষের মাঠে খেলতে নেমে ম্যাচের ২৩তম মিনিটেই এগিয়ে যায় জুভেন্টাস। ডি-বক্সের মুখে রোনালদোর নেওয়া জোরালো শট রুখে দিলে ফিরে আসা বল অনায়াসে জালে পাঠান জার্মান মিডফিল্ডার স্যামি খেদিরা। ১-০ গোলে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় অতিথিরা। বিরতি থেকে ফিরে ম্যাচের ৭০তম মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন রোনালদো। মিরালেম পিয়ানিচের কর্নারে হেডে গোলটি করেন সাবেক রিয়াল মাদ্রিদ ফরোয়ার্ড। আসরে এই নিয়ে সর্বোচ্চ ১৮ গোল করলেন তিনি। এর পর ম্যাচের ৮৬তম মিনিটে দলের তৃতীয় গোলটি আসে রোনালদোর পাসে এমরে কানের নেওয়া কোনাকুনি শটে। বাকি সময়ে ব্যবধান কমাতে পারেননি স্বাগতিকরা। ফলে বড় জয় নিয়ে মাঠ ছড়ে বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। এ জয়ে ২৩ ম্যাচে ২০ জয় ও তিন ড্রয়ে শীর্ষে থাকা জুভেন্টাসের পয়েন্ট ৬৩। দ্বিতীয় স্থানে থাকা নাপোলির পয়েন্ট ৫২। ৪৩ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে আছে ইন্টার মিলান। সূত্র: লাইভস্কোর ডটকম একে//

বিমানচালকের খোঁজে তৈরি করা তহবিলে দান করলেন এমবাপে

ফ্রেঞ্চ লিগে খেলা আর্জেন্টাইন ফুটবলার এমিলিয়ানো সালা যেই বিমান দুর্ঘটনায় মারা গেছেন, সেই বিমানের চালক ডেভিড ইবটসনকে খুঁজে বের করার জন্য তৈরি করা তহবিলে ২৭ হাজার পাউন্ড দান করেছেন ফরাসি ফুটবল তারকা কিলিয়ান এমবাপে। ফ্রান্সের নঁতে থেকে যুক্তরাজ্যগামী যে বিমানটি গত ২১ জানুয়ারি গোয়ের্নসে’র কাছে দুর্ঘটনার শিকার হয়, সেই বিমানের চালক ছিলেন ডেভিড ইবটসন। দুর্ঘটনার বেশ কয়েকদিন পর সমুদ্রের তলদেশ থেকে ফুটবলার এমিলিয়ানো সালা’র লাশ উদ্ধার করা হলেও ইবটসনের দেহ এখনও খুঁজে পাওয়া যায়নি। ইবটসনকে খোঁজার জন্য তৈরি করা তহবিলে গতকাল রোববার পর্যন্ত প্রায় এক লাখ ৩০ হাজার পাউন্ড পরিমাণ অর্থ সংগৃহীত হয়। সংগ্রহকারীদের লক্ষ্য অন্তত ৩ লাখ পাউন্ড সংগ্রহ করা। বিশ্বকাপজয়ী ফরাসি ফুটবলার কিলিয়ান এমবাপে ছাড়াও তহবিলে অর্থ দান করেছেন ইংল্যান্ড ফুটবল দলের সাবেক অধিনায়ক গ্যারি লিনেকার। ফরাসি ক্লাব নঁতে থেকে ইংলিশ ক্লাব কার্ডিফ সিটিতে এমিলিয়ানো সালার ট্রান্সফারের খবর প্রকাশিত হওয়ার দু’দিন পরই বিমান দুর্ঘটনার কবলে পড়েন তিনি। দুর্ঘটনার পর ২৪ জানুয়ারি সমুদ্রের নিচে খোঁজ সমাপ্ত ঘোষণা করে কর্তৃপক্ষ। এরপর সালা’র এজেন্ট ৩ লাখ ২৪ হাজার পাউন্ড তহবিল সংগ্রহ করে ব্যক্তিগতভাবে আবারো তার দেহ খুঁজে বের করার উদ্যোগ নেওয়ার পর পাওয়া যায় ফুটবলারের লাশ। বিমানচালক ইবটসনের পরিবারও এবার সে রকম একটি ব্যক্তিগত পর্যায়ের অনুসন্ধান পৃষ্ঠপোষকতা করার জন্য তহবিল সংগ্রহের উদ্দেশ্যে সামাজিক মাধ্যমে প্রচারণা চালাচ্ছেন। ইবটসনের পরিবার লিখেছে, ‘তিনি (ইবটসন) একা রয়েছেন, এই বিষয়টি আমরা মেনে নিতে পারছি না। আমরা তাকে ঘরে নিয়ে আসতে চাই যেন তাকে আমরা চিরনিদ্রায় সমাধিস্থ করতে পারি।’ যেভাবে হারিয়ে গেলো বিমানটি গত ২১ জানুয়ারি ফ্রান্সের স্থানীয় সময় সাতটা পনের মিনিটে একটি সিঙ্গেল টার্বাইন ইঞ্জিন বিমান সালাকে নিয়ে রওনা করে। প্রায় ৫ হাজার ফুট ওপরে থাকা অবস্থায় এয়ার ট্রাফিক কনট্রোলের সঙ্গে যোগাযোগ করে অবতরণের অনুরোধ করে। দুই হাজার ৩০০ ফুট ওপরে থাকা অবস্থায় সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয় বিমানের সঙ্গে, এরপর আর খোঁজ পাওয়া যায়নি বিমানটির। অ্যালডারনির চ্যানেল দ্বীপে সোমবার রাতে বিমানটি হারায়। পাঁচটি বিমান ও দুটি লাইফবোট প্রায় এক হাজার বর্গ মাইল জায়গা জুড়ে বিমানটির খোঁজ করে। কিন্তু কোনও খোঁজ পাওয়া যায়নি। এর পর ২৪ জানুয়ারি আনুষ্ঠানিকভাবে সমাপ্ত ঘোষণা করা হয় খোঁজের। পরে ব্যক্তিগত অর্থায়নে খোঁজ চালানো হলে এ সপ্তাহের শুরুতে বিমানের ধ্বংসাবশেষের কাছ থেকে একটি লাশ উদ্ধার করা হয়। পরে বৃহস্পতিবার সেটিকে সালা’র লাশ বলে ঘোষণা করা হয়। বিমান চালক ইবটসনের লাশ এখনও খুঁজে পাওয়া যায়নি। সূত্র: বিবিসি একে//

চেলসিকে উড়িয়ে আগুয়েরোর রেকর্ড হ্যাটট্রিক

আবারও হ্যাটট্রিক করলেন সার্জিও আগুয়েরো। স্পর্শ করলেন ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে সর্বোচ্চ হ্যাটট্রিকের মালিক অ্যালান শিয়েরারকে। আর্জেন্টাইন তারকার দারুণ কীর্তি গড়ার দিনে চেলসির জালে গোল উৎসব করল ম্যানচেস্টার সিটি। এদিন জোড় গোল করলেন রাহিম স্টার্লিং। জালের দেখা পেয়েছেন ইলকাই গুন্দোগানও। রোববার ইতিহাদ স্টেডিয়ামে চেলসিকে ৬-০ গোলে উড়িয়ে লিভারপুলকে হটিয়ে ফের শীর্ষে চলে এলো বর্তমান লিগ চ্যাম্পিয়নরা। ঘরের মাঠে খেলতে নেমে ম্যাচের শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক খেলতে থাকে পেপ গার্দিওলার দল। এরই ধারাবাহিকতায় খেলার মাত্র ৪ মিনিটেই লিড পেয়ে যায় সিটিজেনরা। বেনার্দো সিলভার ফ্রি-কিক থেকে বল পেয়ে গোল করেন স্টারলিং। এর পর ম্যাচের ১৩তম মিনিটে ব্যবধান বাড়ান আগুয়েরো। ২৫ গজ দূর থেকে জোরালো শটে গোলটি করেন আর্জেন্টাইন তারকা। এর ৬ মিনিট পরেই নিজের জোড়া গোল পূর্ণ করেন তিনি। আগুয়েরোর দ্বিতীয় গোলটি আসে ডিফেন্ডারদের ভুলে। ম্যাচের ২৫তম মিনিটে ৪ গোলের লিড পায় স্বাগতিকরা। ডি-বক্সে ব্লুজরা বল ক্লিয়ার করতে ব্যর্থ হলে পেয়ে যান গুন্দোগান। ২২ গজ দূর থেকে জোরালো শটে বল ঠিকানায় পাঠান জার্মান মিডফিল্ডার। বিরতি থেকে ফিরে এগিয়ে যেতে সময় নেয়নি সিটি। ম্যাচের ৫৬তম মিনিটে স্পট কিকে হ্যাটট্রিক পূরণ করেন আগুয়েরো। প্রিমিয়ার লিগে সবচেয়ে বেশি ১১টি হ্যাটট্রিক করার যে কীর্তি এতোদিন আলান শিয়েরার ছিল, সেই রেকর্ডে ভাগ বসালেন আর্জেন্টাইন তারকা। এরই সঙ্গে আসরে ১৭ গোল নিয়ে গোলদাতার তালিকায় যৌথভাবে মোহামেদ সালাহর সঙ্গে শীর্ষে উঠলেন তিনি। ম্যাচের ৮০তম মিনিটে চেলসির কফিনে শেষ পেরেকটি ঠুকে নিজের জোড়া গোল পূর্ণ করেন স্টারলিং। চলতি লিগে এটা তার দ্বাদশ গোল। বাকি সময়ে আর ব্যবধান বাড়েনি। ফলে বড় ব্যবধানে জিতে মাঠ ছাড়ে সিটি। আর এতে লিগে শেষ চার ম্যাচে চেলসির এটি তৃতীয় পরাজয়। লিগে ২৭ ম্যাচে ২১ জয় ও দুই ড্রয়ে শীর্ষে ফেরা ম্যানচেস্টার সিটির পয়েন্ট ৬৫। এক ম্যাচ কম খেলা লিভারপুলেরও পয়েন্ট সমান ৬৫। তবে ক্লপের দল দ্বিতীয় স্থানে। টটেনহ্যাম হটস্পার ৬০ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে আছে।ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ৫১ পয়েন্ট নিয়ে আছে চার নম্বরে। আর আর্সেনাল ৫০ পয়েন্ট নিয়ে উঠেছে পঞ্চম স্থানে। সমান পয়েন্ট নিয়ে এক ধাপ নেমে ষষ্ঠ স্থানে আছে চেলসি। সূত্র: লাইভস্কোর ডটকম একে//

জয়ের ধারায় ফিরল লিভারপুল

ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে এএফসি বোর্নমাউথকে ৩-০ গোলে হারিয়েছে লিভারপুল। এই জয়ের মাধ্যমে জয়ের ধারায় ফিরল অলরেডরা। এর আগে টানা দুই ম্যাচে জয়বঞ্চিত থাকতে হয়েছে তাদের। ড্র নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছে দলটিকে।এই জয়ের মাধ্যমে এবার সেই গেরো খুললো। খেলার শুরুতে মানের গোলে এগিয়ে যায় লিভারপুল। পরে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন জর্জিনিয়ো ভিনালডাম। শেষ পেরেক ঠুকেন মোহামেদ সালাহ। এই জয়ে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের পয়েন্ট টেবিলের চূড়ায় ফিরলেন তারা। লেখার ২৪ মিনিটে জেমস মিলনারের বাড়ানো ক্রসে অনবদ্য হেডে বল জালে জড়ান মানে। পরে ৩৪ মিনিটে অ্যান্ড্রু রবার্টসনের বাড়ানো বল ধরে নিখুঁত শটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন ভিনালডাম। মূলত, এতেই ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ চলে আসে ইয়ুর্গেন ক্লপের শিষ্যদের হাতে। ম্যাচের শেষ দিকে গোল করেন মোহামেদ সালাহ। উল্লেখ্য, ২৬ ম্যাচে ৬৫ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে ফিরেছে লিভারপুল। সমান ম্যাচে ৬২ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে নেমে গেছে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন ম্যানচেস্টার সিটি। ২৫ ম্যাচে ৫৭ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে রয়েছে টটেনহ্যাম হটস্পার। তথ্যসূত্র: বিবিসি এমএইচ/

রিয়ালের মাদ্রিদ ডার্বি জয়

অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদের বিপক্ষে তাদের নতুন ঘরের মাঠ ওয়ান্ডা মেট্রোপলিটানোতে ৩-১ গোলের দারুণ জয় তুলে নিয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ । লা লিগায় আগের চার দেখায় জেতেনি কোন দল। না রিয়াল তাদের ঘরের মাঠে জিততে পেরেছে। না অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ ঘরের মাঠে রিয়ালকে হারাতে পেরেছে। তবে এবার রিয়াল মাদ্রিদ পারল। দলের দারুণ এই জয়ের ম্যাচে গ্যারেথ বেল করেছেন রিয়ালের হয়ে শততম গোল। রিয়াল অধিনায়ক রামোস পেয়েছেন গোল। চলতি মৌসুমে পেনাল্টি থেকে গোলের খাতা বেশ ভারী করছেন এই স্পেন তারকা। তাকে গোল পেতে সহায়তা করেছেন ব্রাজিল তরুণ ভিনিসিয়াস। তিনি এ ম্যাচেও রিয়ালের সেরা তারকা ছিলেন। তার গতির কাছে হার মেনে বক্সে ফাউল করলে পেনাল্টি পায় রিয়াল। তা থেকে গোল করেন রামোস। যদিও ফাউলিটি পেনাল্টি নাকি ফ্রি কিক তা নিয়ে আছে প্রশ্ন। তবে দলের হয়ে সেরা গোলটি করেছেন আরেক ব্রাজিলিয়ান কাসেমিরো। তিনি ম্যাচের ১৬ মিনিটের মাথায় দুর্দান্ত বাইসাইকেল ভলিতে গোল করেন। বুঝিয়ে দেন দিনটা রিয়ালের। আগে যে কাজটি জিদানরা পারেননি এবার সেটা সোলারির অধীনে করতে এসেছেন তারা। তবে তার গোলের লিড বেশিক্ষণ রাখতে দেননি গ্রিজম্যান। ম্যাচের ২০ মিনিটে চোখে লেগে থাকার মতো এক গোল করে দলকে সমতায় ফেরান তিনি। এরপর প্রথমার্ধের ৪২ মিনিটে পেনাল্টি থেকে গোল করেন রামোস। আর ৭২ মিনিটে বদলি নেমে গোল পান বেল। তবে ম্যাচের ৫৪ মিনিটে গোল করে উদযাপন শুরু করেন সাবেক রিয়াল এবং চেলসি তারকা মোরাতা। কিন্তু অফসাইটে বাতিল হয় তার গোলটি। যদিও সেটা নিয়েও আছে সন্দেহ। এছাড়া ম্যাচের ৬৪ মিনিটে দারুণ এক সেভ করেন রিয়াল গোলরক্ষক থিবো কর্তোয়া। মোরাতা এবং কোর্তোয়া এ ম্যাচে সাবেক ক্লাবের বিপক্ষে খেলতে নামেন। কিন্তু শেষ হাসি হাসলেন কর্তোয়া। এছাড়া অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ কোচ ডিয়াগো সিমিওনে এবং রিয়াল কোচ সোলারি মুখোমুখি হন এ ম্যাচে। তারাও এর আগে খেলোয়াড় হিসেবে মুখোমুখি হন। এবার কোচ হিসেবে জয়ের হাসি হাসলেন সোলারি। এই জয়ে সোলারি বুঝিয়ে দিলেন বার্সার বিপক্ষে কোপা দেল রে’র পরের লেগ এবং চ্যাম্পিয়নস লিগের শেষ ষোলোর জন্য প্রস্তুত তারা। টিআর/

ইনজুরিতে আর্থার, ফিরছেন না ফেব্রুয়ারিতে

হ্যামস্ট্রিং চোটে পড়ে এবার তিন থেকে চার সপ্তাহের জন্য মাঠের বাইরে থাকতে হবে বার্সেলোনার ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার আর্থারকে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম টুইটারে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে ক্লাব বার্সেলোনা। চোটের কারণে এই মাসে আর ফেরা হচ্ছেনা ২২ বছর বয়সী মিডফিল্ডার আর্থারের। বার্সা জানিয়েছে ‘পরীক্ষার পর জানা গেছে হ্যামিস্ট্রিংয়ে চোট পেয়েছেন আর্থার। তিন থেকে চার সপ্তাহ তাকে মাঠের বাইরে থাকতে হবে বলে ধারণা করা যাচ্ছে।’ বার্সেলোনায় গত গ্রীষ্মে যোগ দেওয়ার পর গত নভেম্বরে পেশিতে চোটের কারণে দুই সপ্তাহ মাঠের বাইরে থাকতে হয়েছে আর্থারকে। এবার দ্বিতীয়বারের মতো ন্যু ক্যাম্পে চোটে পড়লেন তিনি। তবে আগের চেয়ে বড় চোটের কারণে এই মাসে কাতালানদের হয়ে বেশক’টি ম্যাচে মাঠের বাইরেই কাটাতে হবে আর্থারকে। এর মধ্যে লা লিগার অ্যাওয়ে ম্যাচে অ্যাথলেটিকো বিলবাওয়ের বিপক্ষে লড়বে বার্সা। এরপর রিয়াল ভায়াদোলিদের বিপক্ষে ঘরের মাঠে খেলবে তারা। আর চ্যাম্পিয়ন্স লিগের অ্যাওয়ে ম্যাচে ক্লাব লিওঁকে মোকাবিলা করবে ভালভারদের ছাত্ররা। এরপর লিগ ম্যাচে সেভিয়া ও কোপা দেল রে’র ম্যাচে রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে খেলবে তারা। আর এই ম্যাচগুলোতে পাওয়া যাবেনা আর্থারকে। আরকে//

মৃত্যুর সঙ্গে লড়ছেন রোনালদোর মা

ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর মা ডলোরেস আভেইরো স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত। স্পেনের রাজধানী মাদ্রিদে রেডিওথেরাপির পরে আভেইরো পর্তুগিজ টিভি চ্যানেলকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলেন, মাদ্রিদে অন্য স্তনটিতে অস্ত্রোপচার হয়েছে। রেডিওথেরাপিও করা হয়েছে। এখন জীবন বাঁচানোর জন্য লড়াই করছি। গত মঙ্গলবার রোনালদোর ৩৫তম জন্মদিন উপভোগ করতে ইতালি রওনা হওয়ার আগে আভেইরো মন খারাপ করা সংবাদ জানিয়ে দিলেন বিশ্বকে। তবে তার এই ক্যানসার এবারেই প্রথম ধরা পড়ল না। ২০০৭ সালে স্তনের ক্যানসার ধরা পড়ার পরে একপ্রস্থ অস্ত্রোপচার করা হয়েছিল। তারপরে নিয়ম মেনে রেডিওথেরাপি-পর্ব সারার পরে মনে করা হয়েছিল বোধ হয় রোগকে দূরে সরিয়ে রাখতে সফল হয়েছিলেন তিনি। ২০০৯ সালে রোনালদো একটি ক্যানসার হাসপাতালে ১ লাখ ইউরো দান করেন, যেখানে তার মা আরোগ্য লাভ করেছিলেন। কিন্তু পুরনো আতঙ্ক ফিরিয়ে ফের একবার ডায়াগনসিসে ধরা পড়ল ক্যানসার। তবে দ্বিতীয় বারের অস্ত্রোপচার কবে হয়েছে, তা জানাননি তিনি। তার বক্তব্য, দ্বিতীয়বারের বিষয়টি কেউ জানে না। একে//

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি