ঢাকা, শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০:২৩:২৭

মালয়েশিয়ার সারাওয়াকে কনস্যুলার সেবায় নজির স্থাপন

মালয়েশিয়ার সারাওয়াকে কনস্যুলার সেবায় নজির স্থাপন

সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের আন্তরিক সহায়তায় কুয়ালালামপুর থেকে বিমানে হাজার মাইল পথ পাড়ি দিয়ে পূর্ব মালয়েশিয়ার সাবা সারাওয়াক প্রদেশের রাজধানী কুচিং এর কয়েকটি অঞ্চলে কনস্যুলার সেবা প্রদান করে অনন্য নজির স্থাপন করলেন বাংলাদেশ হাইকমিশন।  জানা গেছে, কুয়ালালামপুর থেকে পূর্ব মালয়েশিয়া সাবা সারাওয়াকে যাতায়াতের একমাত্র বাহন বিমান। সেখানে বর্তমানে বিভিন্ন কলকারখানা, শিল্প প্রতিষ্ঠান এবং প্লান্টেশনে কর্মরত আছেন কয়েক হাজার বাংলাদেশি শ্রমিক।  তাদের সুবিধার্থে হাইকমিশনের এমন উদ্যোগে গত দুই দিনে সুফল ভোগ করেছেন প্রায় ৫ শতাধিক বাংলাদেশি শ্রমিক। আর এই কনস্যুলার সেবা প্রদানের লক্ষ্যে নিয়োজিত আছেন পাসপোর্ট ও ভিসা শাখার প্রথম সচিব মো. মশিউর রহমান তালুকদার।  তিনি এই প্রতিবেদককে বলেন, সাবা সারাওয়াক থেকে কুয়ালালামপুরে বিমানে ১ ঘণ্টা ১০ মিনিটের দূরত্ব। সেখান থেকে একজন শ্রমিক হাজার মাইল পথ পাড়ি দিয়ে যদি কনস্যুলার সেবার জন্য কুয়ালালামপুরে আসেন তাহলে তার বেতনের একটি বড় অংশই খরচ হয়ে যাবে। তাই গত বছরের ২১ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ হাইকমিশনের রাষ্ট্রদূত মুহ. শহীদুল ইসলাম সারাওয়াক প্রদেশ সফর করে কনস্যুলার সেবা প্রদানের ব্যবস্থা করেন। তারই ধারাবিহকতায় রাজধানী কুচিং এর বাতু তিগা, বেনতুন ও মিরি এলাকায় কনস্যুলার সেবা প্রদান করা হচ্ছে।  পাসপোর্ট আবেদন ও বিতরণের সহযোগিতায় আছেন পাসপোট ও ভিসা শাখার সহকারী সুশান্ত সরকার। এদিকে, সেবা নিতে আসা কয়েকজন ব্যক্তি বলেন, বাংলাদেশ হাইকমিশনের এমন সেবা পেয়ে আমরা সত্যি খুবই খুশি। কুয়ালালামপুর যেতে অনেক খরচ প্লেনে যেতে হয়, কাজ কামায় যাবে, পথে বিপদ-আপদের কথা বলা মুশকিল।  সেক্ষেত্রে সারাওয়াকে হাতের নাগালে পাসপোর্ট তৈরি এবং গ্রহণ করতে পেরে হাইকমিশনকে ধন্যবাদ জানাই। সর্বদা এইভাবে যদি আমাদের পাশে থাকে তাহলে আমরা উপকৃত হবো।  পাসপোর্ট নিতে আসা রুবেল নামে একজন বলেন, ৫ থেকে ৬ মাস আগে কুয়ালালামপুর গিয়ে পাসপোর্ট করতে দিয়েছিলাম। কিন্তু কাজ কামায় দিয়ে আনতে যেতে পারছিলাম না। আর যাতায়াতের খরচও অনেক বেশি। এখন এখানে পাসপোর্ট পেয়ে খুব ভাল লাগছে।’ টিকে
মেলবোর্নে সন্ত্রাসী হামলা: বাংলাদেশি তরুণী গ্রেফতার

অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্নে ৫৬ বছর বয়সী এক ব্যক্তিকে ছুরিকাঘাতের অভিযোগে বাংলাদেশি এক তরুণীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ২৪ বছর বয়সী ওই নারীর নাম মোমেনা সোমা। পুলিশ তার বিরুদ্ধে জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেটের (আইএস) আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে হামলার অভিযোগ এনেছে। স্থানীয় সময় শুক্রবার এ ঘটনা ঘটার মাত্র একদিন আগেই অস্ট্রেলিয়া এসেছিলেন মোমেনা সোমা নামে ওই তরুণী। পুলিশ জানিয়েছে, ৫৬ বছর বয়সী যে ব্যক্তিকে ছুরিকাঘাত করা হয়েছে তার বাসাতেই থাকতে উঠেছিলেন সোমা। মেলবোর্নের উত্তর-পূর্বে মিল পার্কের ওই বাসাটিতে গত ৫ বছর ধরে তিনি বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের থাকতে দিচ্ছিলেন। মোমেনা সোমা ১ ফেব্রুয়ারি স্টুডেন্ট ভিসায় অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্নে যায়। লাটরবি ইউনিভার্সিটির ছাত্রী সোমা মিলি পার্কের ক্যলিসটেমন রাইস এলাকায় আহত ওই ব্যক্তির বাড়ির একটি কক্ষ ভাড়া নেয়। স্থানীয় সময় শুক্রবার বিকেল সাড়ে চারটার দিকে স্থানীয়রা হট্টগোলের শব্দ পেয়ে বিষয়টি পুলিশকে জানায়। পুলিশ আহত অবস্থায় ওই ব্যক্তিকে উদ্ধার করে। পুলিশ আরও জানায়, শুক্রবার ওই ব্যক্তি ঘুমিয়ে থাকার সময় কালো বোরকা পরিহিত মোমেনা তার ওপর ছুরি নিয়ে হামলা চালায়। ঘুম ভেঙেই তিনি দেখতে পান তার চারপাশ রক্তে ভেসে যাচ্ছে। এরপর তিনি তার প্রতিবেশি মোস্তাফা ও সাফিয়াকে খবর দেন। তারা এসে সোমাকে আটক করেন। ওই ব্যক্তিকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়া হয়েছে। সেখানে তার অপারেশন হয়। বর্তমানে তিনি স্থিতিশীল অবস্থায় আছেন। হামলার সময় বাড়িতে ওই ব্যক্তির পাঁচ বছরের কন্যা থাকলেও তার কোনো ক্ষতি হয়নি। পুলিশের বিশ্বাস, সোমা নিজে থেকেই এ হামলা চালিয়েছে এবং আর কোনো হুমকি নেই। অস্ট্রেলিয়ান ফেডারেল পুলিশের জাতীয় নিরাপত্তা শাখার ভারপ্রাপ্ত ডেপুটি কমিশনার বলেছেন, ওই নারী আইএস থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে এমন কাজ করেছেন। শনিবারে সোমাকে মেলবোর্নের ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হয়েছে। আদালতে তার পক্ষ থেকে জামিন আবেদন করা হয়নি। ২ মে তার পরবর্তী হাজিরার তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে। সূত্র: দ্য গার্ডিয়ান একে// এআর

মালয়েশিয়ায় প্রবাসী বাংলাদেশির মৃত্যু

পরিবারের স্বচ্ছলতা ফেরাতে মালয়েশিয়া এসে এখন লাশ হয়ে দেশে ফিরছেন নারায়ণগঞ্জের আব্দুল জলিল।  শুক্রবার কুয়ালালামপুরে নির্মাণাধীন ভবনে কাজ করতে গিয়ে চার তলা ভবন থেকে পড়ে শ্রমিক আব্দুল জলিলের মৃত্যু হয়। নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলার দাসপাড়া গ্রামের মৃত সালামের ছেলে আব্দুল জলিল পরিবারের স্বচ্ছলতা ফেরাতে তিন বছর আগে মালয়েশিয়া আসেন। কুয়ালালামপুর শহরের জেলান টেকনোলজি নামে একটি কোম্পানিতে কাজ শুরু করেন। শুক্রবার একটি নির্মাণাধীন ভবনের চার তলায় শ্রমিকের কাজ করতে গিয়ে নিচে পড়ে ঘটনাস্থলেই জলিল মারা যান। নিহত জলিলের বড় ভাই আবুল হোসেন জানান, সোমবার তার মরদেহ দেশে পাঠানোর কথা রয়েছে। পারিবারিক জীবনে দুই কন্যা সন্তানের জনক আব্দুল জলিল।   আর/টিকে

মালয়েশিয়ার বুক অফ রেকর্ডসে বাংলাদেশি বিজ্ঞানী

প্রাণঘাতী জিকা ভাইরাস নিয়ে সারা বিশ্ব যখন উদ্বেগ উৎকণ্ঠায় ভুগছে ঠিক তখনই এই ভাইরাস থেকে নিরাপদ থাকার পন্থা উদ্ভাবন করে প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে মালয়েশিয়ার বুক অব রেকর্ডসে নাম লেখালেন প্রবাসী তরুণ বিজ্ঞানী এম এ হামিদ। মালয়েশিয়ায় সবচেয়ে বড় মশা মারার যন্ত্র তৈরির স্বীকৃতি হিসেবে বাংলাদেশের চট্টগ্রাম জেলার সন্তান হামিদ এ রেকর্ড গড়েন। শুক্রবার বিকেলে কুয়ালালামপুরের চেরাসে টুফ্যাম ব্রাদার্স আয়োজিত এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে `মালয়েশিয়া বুক অফ রেকর্ডস` কতৃপক্ষের জৈষ্ঠ্য কর্মকর্তা নূর আশিকিনী রামলি এম এ হামিদের হাতে রেকর্ডসের সনদ হস্তান্তর করেন।  এ সময় যন্ত্র প্রদর্শনী অনুষ্ঠানের আয়োজক টুফ্যাম ব্রাদার্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রতন সেন ও টুফ্যাম ফ্যাশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মিনহাজ উদ্দিন মিরান, বিকে সুরিয়ার ব্যবস্থাপনা পরিচালক রাফিদা রামলি উপস্থিত ছিলেন। বিজ্ঞানী এম এ হামিদ জিকা ভাইরাস, ডেঙ্গু, চিকুনগুনিয়াসহ যে কোনো প্রাণঘাতী জীবাণুবাহী মশাকে সহজেই নিধন করার যন্ত্র আবিষ্কার করে দেশে-বিদেশে আলোচিত হয়েছেন। গত নভেম্বরে তিনি মালয়েশিয়ার কুয়ালামপুরে একটি সেমিনারের মাধ্যমে তার উদ্ভাবিত যন্ত্র ‘এইচইসি মসকিউটো কিলার’ মালয়েশিয়া থেকে আন্তর্জাতিক বাজারে বাজারজাত করার ঘোষণা দেন। সম্প্রতি, তিনি মালয়েশিয়ার গিনেস খ্যাত ‘মালেয়শিয়া বুক অফ রেকর্ডস’ এ আবেদন করেন তার উদ্ভাবিত যন্ত্র ‘এইচইসি মসকিউটো কিলার’ প্রদর্শনের।  তার আবেদনের প্রেক্ষিতেই ‘মালেয়শিয়া বুক অফ রেকর্ডস’ ‘বিগেস্ট ইকো-ফ্রেন্ডলি মসকিটো ট্রাপ’ শিরোনামে তার উদ্ভাবিত যন্ত্রটি প্রদর্শনের অনুমতি পায়। সাধারণত জিকা ভাইরাস, ম্যালেরিয়া ও ডেঙ্গু, চিকুনগুনিয়ার মতো ভয়ানক ভাইরাস মানুষের শরীরে ছড়িয়ে পড়ে মশার মাধ্যমে। এই মশা নিধনে এতোদিন বাংলাদেশসহ পৃথিবীর অন্যদেশে তরল ওষুধ, কয়েল, বৈদ্যুতিক জালসহ নানা উপকরণ ব্যবহৃত হয়ে আসছে। যার ক্ষতিকর রাসায়নিক উপাদান স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর।  বিজ্ঞানী ও গবেষক হামিদ তার উদ্ভাবিত যন্ত্রকে জনস্বাস্থ্যের জন্য নিরাপদ বলে দাবি করেন। তার উদ্ভাবিত নতুন মশক নিধন যন্ত্রটি গত বছরের ১০ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ সরকারের স্বীকৃতি পায়। নিজের নামের সাথে মিল রেখে নতুন এই যন্ত্রের নাম দেওয়া হয়েছে ‘এইচইসি মসকিটো কিলার’ (হামিদ ইলেকট্রো-কেমিক্যাল মসকিটো কিলার)। মালয়েশিয়া বুক অফ রেকর্ডস কর্তৃপক্ষের দেওয়া সনদে বিজ্ঞানী এম এ হামিদের তৈরি মশা নিধক এই বৈদ্যুতিক যন্ত্রটি ৬ দশমিক ৩৪ মিটার উচু ও ৩ দশমিক শুন্য ৪ মিটার গোলাকার। যেটি মালয়েশিয়ার ইতিহাসে সবচেয়ে বড় মশা মারার যন্ত্র।   আর/টিকে

কুয়ালালামপুর এয়ারপোর্টে গণপূর্ত মন্ত্রীকে ফুলেল শুভেচ্ছা

মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুর ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্টে ফুলেল শুভেচ্ছায় সিক্ত হলেন গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইজ্ঞিনিয়ার মোশারফ হোসেন। মঙ্গলবার রাতে কুয়ালালামপুর আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছালে মন্ত্রীকে স্বাগত জানান মালয়েশিয়া আওয়ামী লীগের প্রস্তাবিত কমিটির সভাপতি মকবুল হোসেন মুকুল, সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান কামালের নেতৃত্বে মালয়েশিয়া আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা। এ সময় উপস্থিত ছিলেন মালেশিয়াস্থ বাংলাদেশ হাই কমিশনের রাষ্ট্রদূত মুহ শহিদুল ইসলাম ও পলিটিক্যাল মিনিস্টার রইস হাছান সারওয়ার। উল্লেখ্য, মালয়েশিয়ায় অনুষ্ঠিতব্য আগামীকাল বৃহস্পতিবার জাতিসংঘ (ইউএন) আয়োজিত ওয়ার্ল্ড আরবান ফোরাম-এ যোগ দিবেন গণপূর্ত মন্ত্রী।   আর /টিকে

মালদ্বীপে বাংলাদেশিদের সতর্ক করল  দূতাবাস

মালদ্বীপে জরুরি অবস্থা জারি করায় দেশটিতে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশিদের প্রয়োজন ছাড়া বাড়ির বাইরে অবস্থান না করার পরামর্শ দিয়েছে মালের বাংলাদেশ দূতাবাস। গতকাল সোমবার জারি করা এক জরুরি বিজ্ঞপ্তিতে এই পরামর্শ দেওয়া হয়। এ ছাড়া জরুরি প্রয়োজনে তাদের যোগাযোগের জন্য দূতাবাসের পক্ষ থেকে একটি হটলাইন চালু করা হয়েছে। দূতাবাসের হটলাইন নম্বর +৯৬০৩৩২০৮৫৯। মালদ্বীপে বাংলাদেশ দূতাবাসের ওই সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, বর্তমান পরিস্থিতিতে সেখানে অবস্থানরত বাংলাদেশিদের জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কর্মস্থল বা বাসার বাইরে না থাকাই নিরাপদ হবে। কোনো ধরনের মিছিল-মিটিং বা সভা-সমাবেশে অংশ না নিতে বলা হয়েছে বিজ্ঞপ্তিতে। পাশাপাশি মিছিল, সমাবেশসহ যে কোনো ধরনের ভিড় এড়িয়ে চলার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে তাদের। উল্লেখ্য, হঠাৎ করেই রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা দেখা দেওয়ার পর মালদ্বীপে ১৫ দিনের জন্য জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে দেশটির সরকার। সম্প্রতি আদালত পার্লামেন্টের নয় সদস্যককে (এমপি) মুক্তির আদেশ দিলে মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট আবদুল্লাহ ইয়ামেন উচ্চ আদালতের এই রায় মানতে অস্বীকার করার পর থেকেই দেশটিতে শুরু হয় রাজনৈতিক অস্থিরতা। একে// এআর

যেভাবে পাবেন ‘ভাল আচরণের’ সনদ

সম্প্রতি সংযুক্ত আরব আমিরাত সে দেশে কর্ম ভিসা প্রত্যাশীদের জন্য নতুন ভিসা নীতি প্রণয়ন করে। গত মাসে এ বিষয়ে ঘোষণা দেওয়ার পর আজ রবিবার থেকে নীতি কার্যকর করা হয়। এ নীতি অনুযায়ী দেশটিতে কর্ম ভিসার জন্য আবেদন করতে হলে আবেদনপত্রের সাথে ‘ভাল আচরণ’ এর সনদপত্র দেখাতে হবে। ভাল আচরণের সনদপত্র ছাড়া কাউকে ওয়ার্ক পারমিট দেওয়া হবে না। কী এই ভাল আচরণ সনদ? আরব আমিরাতে যারা প্রথমবারের মত ওয়ার্ক পারমিটের জন্য আবেদন করবেন তাদের জন্য প্রয়োজন হবে এ সনদ। মূলত তাদের অতীত বা ব্যাকগ্রাউন্ড জানার জন্যই আমিরাত সরকারের এই সিদ্ধান্ত। নতুন এই যাচাই বাছাই প্রক্রিয়ায় ভাল আচরণের সনদপত্র দিয়েই কর্ম ভিসা পেতে হবে। সনদ নেবেন যেভাবে আবেদনকারী যে দেশের নাগরিক অথবা সর্বশেষ যে দেশে কমপক্ষে পাঁচ ধরে বসবাস করছেন সেই দেশের কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে নিতে হবে ভাল আচরণের সনদপত্র। তারপর সেই সনদপত্রটিকে আমিরাতের কূটনৈতিক মিশন অথবা দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় অথবা বিদেশে থাকা আন্তর্জাতিক সহযোগিতা শাখার গ্রাহক সন্তুষ্টি কেন্দ্র থেকে সত্যায়িত করে নিতে হবে। সনদের মেয়াদ ভালো চরিত্রের এই সনদের মেয়াদ থাকবে ৩ মাস। আবেদন প্রক্রিয়া অনলাইন এবং অফলাইন দুই ভাবেই আবেদন করা যাবে। অনলাইনে আবেদনের জন্য দেশটির পুলিশের ওয়েবসাইটে যেতে হবে। ওয়েবসাইটের ঠিকানা https://goo.gl/AvDmih এছাড়াও পুলিশ সংস্থাটির মোবাইল অ্যাপসের মাধ্যমেও আবেদন করা যাবে। আর সশরীরে আবেদনের জন্য যেতে হবে দেশটির যে কোনো থানায়। অথবা অপরাধী তদন্ত বিভাগ বা সিআইডি’তেও এর জন্য আবেদন করা যাবে। শুক্রবার আর শনিবার বাদ দিয়ে সপ্তাহের বাকি দিনগুলোতে সকাল সাড়ে ৭টা থেকে দুপুর আড়াইটার মধ্যে সশরীরে হাজির হতে হবে। আরব আমিরাতের বাইরে থাকা ব্যক্তিদের আবেদনের জন্য আগে যেতে হবে তিনি যে দেশে থাকেন সেই দেশের থানায়। সেখানে আঙ্গুলের ছাপের স্ক্যান করে তা প্রিন্ট আউট করতে হবে। তারপর সেই প্রিন্ট করা কাগজটিকে পাঠাতে হবে আমিরাতে অবস্থিত তার দেশের দূতাবাসে। খরচ ভালো চরিত্রের সনদপত্র পেতে আমিরাতের স্থায়ী নাগরিকদের ব্যয় হবে ১০০ দিরহাম। আমিরাতে নাগরিকত্ব পাওয়া ব্যক্তিদের খরচ হবে ২০০ দিরহাম। আমিরাতের বাইরের মানুষদের জন্য এই সনদের খরচ পরবে ৩০০ দিরহাম। পাশাপাশি নলেজ ফি বাবদ ১০ দিরহাম আর পরিবর্তন ফি দিতে হবে ১০ দিরহাম। দরকারী জিনিস এই সনদ পেতে আবেদনকারীর থাকতে হবে আমিরাতের বৈধ আইডি। আর দরকার হবে একটি ই-মেইল ঠিকানা। ই-মেইল ঠিকানাটি অবশ্যই এমন হতে হবে যার মধ্যে ঐ আবেদনকারী প্রবেশ করতে পারেন। তবে যদি আবেদনকারী বৈধ আইডি কার্ড না থাকে অথবা আইডি’র মেয়াদ যদি শেষ হয়ে যায় তাহলে তাহলে তাকে পুলিশের জরুরী যোগাযোগ নাম্বারে যোগাযোগ করতে বলে দেশটির সরকার। ৯০১ নম্বরে ফোন দিয়ে আইডি কার্ড না থাকার যথাযথ কারণ জানাতে হবে পুলিশকে। সূত্র: গালফ নিউজ //এস এইচ এস//টিকে

কাল থেকে আমিরাতের নতুন ভিসা নীতি কার্যকর

সংযুক্ত আরব  আমিরাতের কর্ম ভিসা পেতে আবেদনের সাথে ‘ভালো আচরণের সনদপত্র’ জমা দেওয়ার যে নতুন বিধান করা হয়েছে অবশেষে তা কার্যকর হতে যাচ্ছে। চলতি বছরের শুরুর দিকে দেশটির উচ্চ-পর্যায়ের একটি প্যানেল কমিটি কর্ম ভিসার জন্য নতুন এই বিধিমালা কার্যকরের ঘোষণা দেয়, যা আগামীকাল রোববার (৪ ফেব্রুয়ারি) থেকে কার্যকর হবে। ওই প্যানেলের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন গত সোমবার অনুমোদন পায়। কমিটি জানায়, যারাই সংযুক্ত আরব আমিরাতের ভিসার জন্য আবেদন করবেন, তাদের অবশ্যই ভালো আচরণের সনদপত্র সংগ্রহের পর জমা দিতে হবে। নিজ দেশ থেকে অথবা সর্বশেষ যে দেশে পাঁচ বছর কাটিয়েছেন সেদেশের কর্তৃপক্ষের কাছে থেকে এ সনদপত্র সংগ্রহ করতে হবে। পরে ভিসার আবেদনের সাথে বিদেশে থাকা আমিরাতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আন্তর্জাতিক কূটনৈতিক মিশনে জমা দিতে হবে। তবে যারা ট্যুরিস্ট ভিসা নিয়ে দেশটিতে যাবেন তাদের জন্য নতুন এ বিধান প্রযোজ্য নয়। সূত্র: খালিজ টাইমস   আর/টিকে

বাংলাদেশি হত্যা, ব্রিটিশ নাগরিকের ৪৩ বছরের জেল

লন্ডনের মসজিদের কাছে মুকাররম আলী (৫১) নামে এক বাংলাদেশি মুসল্লিকে ভ্যান চাপা দিয়ে হত্যার দায়ে এক ব্রিটিশ নাগরিকের ৪৩ বছরের কারাদণ্ড হয়েছেন। যুক্তরাজ্যের একটি আদালত ড্যারেন ওসবর্ন নামে ওই ব্যাক্তির ৪৩ বছর কারাদণ্ড দিয়েছেন। শুক্রবার লন্ডনের ওই আদালতের বিচারক রায় ঘোষণার সময় এই ঘটনাকে সন্ত্রাসী হামলা হিসেবে উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, মৌলবাদের দিকে ঝুঁকে পড়া ওসবর্ন ইসলাম বিদ্বেষ থেকেই ওই হামলা চালিয়েছিলেন। বিবিসি জানায়, এই সাজা অনুযায়ী ড্যারেন ওসবর্নকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ভোগ করতে হবে। রায়ের আগে লন্ডনের উলউইচ ক্রাউন আদালতে ওসবর্ন দাবি করে, হামলার একেবারে শেষ মুহূর্তে ডেভ নামের এক ব্যক্তি গাড়ির চালকের আসনে ছিল। কিন্তু প্রত্যক্ষদর্শীরা ওসবর্নকে বলতে শুনেন, আমি আমার দায়িত্বপালন করেছি। এখন আপনারা আমাকে হত্যা করতে পারেন। তবে ওসবর্ন কেন হঠাৎ করে বাম রাজনীতিতে আসেন, তা নিয়েও কৌতূহল দেখা দিয়েছে। আদালতে ওসবর্ন জানায়, তিনি ব্রিটেনের গুরুত্বপূর্ণ বামপন্থী গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গ যেমন ইংলিশ ডিফেন্স লিগ টমি রবিনসন এবং ব্রিটেনের প্রথম নেতা পল গোল্ডিং এর আর্দেশ দীক্ষিত হয়ে তিনি ইসলাম বিদ্বেষী মনোভাব পোষণ শুরু করেন। আর তাদের এই আদর্শ-ই তাকে মুসলমানদের ওপর হামলা চালাতে উদ্ভূত করেছে। রায় ঘোষণার আগে জুরি বোর্ডের আটজন নারী ও চার জন পুরুষ সদস্য প্রায় এক ঘণ্টা নিজেদের মধ্যে আলোচনা করেন। পরে তারা ওসবর্নকে দোষী সাব্যস্ত করেন। রায়ে আদালত জানান, ওসবর্ন ওই হামলা পরিকল্পনামাফিক চালিয়েছে। তবে শাস্তি থেকে বাঁচতে সে একটি কাহিনী দাঁড় করিয়েছে, যাতে জুরিরা প্রভাবিত হন। বিচারকরা আরও বলেন, আমরা নিশ্চিত ছিলাম এটি একটি সন্ত্রাসী হামলা। এখন তাকে পরিণাম ভোগ করতে হবে।  উল্লেখ্য, টেলিভিশনে প্রচারিত একটি ইসলাম বিদ্বেষী নাটক দেখার পর ইসলাম ধর্মের প্রতি ক্ষোভ-রাগ-ঘৃণা ও হিংসা জন্মায় ব্রিটিশ নাগরিক ড্যারেন ওসবর্নের (৪৮)। এরই প্রেক্ষিতে গত বছরের ১৯ জুন উত্তর লন্ডনের ফিন্সবুরি পার্কে মসজিদের কাছে মুসল্লিদের ভিড়ে গাড়ি উঠিয়ে দেয় ওসবর্ন। মসজিদমুখী মুসল্লিদের ওপর ওই ব্যক্তি ভ্যান চাপা দিলে মুকাররম আলী নামে এক বাংলাদেশি মুসল্লি নিহত হন। এ ঘটনায় আহত হন আরও ১২ জন। এ হামলায় নিহত মকররম আলীর গ্রামের বাড়ি সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার সরুয়ালায়। মকররমের পরিবার দীর্ঘদিন থেকে বসবাস করছিলেন লন্ডনে। ১২ বছর বয়সে তিনি পাড়ি জমান লন্ডনে। একটানা প্রবাস জীবন কাটিয়ে বিশ্বনাথের দৌলতপুরে বিয়ে করেন তিনি। কয়েক বছর পর স্ত্রীকেও লন্ডনে নিয়ে যান। সেখানে জন্ম হয় চার মেয়ে ও দুই ছেলের। সূত্র: দ্য মেইল, বিবিসি একে// এআর

রোহিঙ্গা সংকটে বাংলাদেশের পাশে থাকবে মালয়েশিয়া

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে মালয়েশিয়া বাংলাদেশের পাশে থাকবে বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী দাতুক সেরি হিশামুদ্দিন হুসেন। মঙ্গলবার দুপুরে প্রতিরক্ষামন্ত্রীর কার্যালয়ে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মহ. শহীদুল ইসলাম সৌজন্য সাক্ষাৎ করতে গেলে তিনি এ কথা বলেন। সাক্ষাতকালে রোহিঙ্গা ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দ্বিপক্ষীয় প্রতিরক্ষা বিষয় নিয়ে আলোচনায় হয়েছে। এ সময় মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশের নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের আশ্রয় প্রদান করে মানবতার দৃষ্টান্ত স্থাপন করায় বাংলাদেশের প্রশংসা করেন মালয়েশিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রী। রোহিঙ্গা সমস্যার আশু সুষ্ঠু সমাধান প্রত্যাশা করে তিনি বলেন, রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে সব সময় বাংলাদেশের পাশে থাকবে মালয়েশিয়া। এ সময় রাষ্ট্রদূতের সাথে ছিলেন বাংলাদেশ দূতাবাসের প্রতিরক্ষা বিভাগের উইং প্রধান এয়ার কমোডর মো. হুমায়ূন কবির। আলোচনা শেষে প্রতিরক্ষামন্ত্রী দাতুক সেরি হিশামুদ্দিন হুসেনকে উপহার প্রদান করা হয়। আর/টিকে

মালেশিয়ায় নিষিদ্ধ পদ্মাবত

মালেশিয়ায় এবার নিষিদ্ধ হলো বহুল আলোচিত-সমালোচিত সঞ্জয় লীলা বানসালির `পদ্মাবত`। এ ছবিতে রয়েছে এমন কিছু দৃশ্য তাতে দেশের মুসলিম ধর্মাবলম্বী মানের ভাবাবেগে আঘাত হানতে পারে বলে জানিয়েছে দেশটির  সেন্সর বোর্ড। মালয়েশিয়া সেন্সর বোর্ডের চেয়ারম্যান জামবেরি আবদুল আজিজ জানিয়েছেন, বানসালির `পদ্মাবতী` ছবিতে এমন কিছু দৃশ্য রয়েছে যা মুসলিম ধর্মাবলম্বী মানের ভাবাবেগে আঘাত হানতে পারে। তিনি বলেন, মালেশিয়ার মত মুসলিম প্রধান দেশে এই ছবির মুক্তি দেওয়া একটু ঝঁকির কাজ হয়ে যাবে।  সেই ঝুঁকি কোনওভাবেই নিতে রাজি নয় সেন্সর বোর্ড।  যদিও দেশের ফিল্ম ডিস্ট্রিবিউটাররা ছবিটিকে ছাড়পত্র দেওয়ার আবেদন করেছিল।  কিন্তু এখনই সেই আবেদনে কোন গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে না।  সেই আবেদনপত্র আপিল কমিটির কাছে পাঠানো হয়েছে।  সেখানে অনুমোদন পেলেই বিষয়টি ভেবে দেখা হবে। ভারতের সুপ্রিমকোর্টের নির্দেশের পর একাধিক গোণ্ডি পেরিয়ে ভারতে `পদ্মাবত`র মুক্তি ঘটেছে বটে। তবে কর্ণীসেনার আন্দোলন থামেনি। এই নিয়ে বিরোধ, অবরোধ, আন্দোলন চলছেই। ভারতের একাধিক রাজ্যে `পদ্মাবত` প্রদর্শনে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। এবার ভারতের বাহিরে নতুন সংকটে সঞ্জয়লীলা বনসালির পদ্মাবত।  সূত্র: হলিউড রিপোর্ট   আর

মালয়েশিয়া হাইকমিশনের বাণিজ্য সচিবকে বিদায়ী সংবর্ধনা

মালয়েশিয়াস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশনের বাণিজ্য শাখার প্রথম সচিব ধনঞ্জয় কুমার দাসকে দূতাবাসের পক্ষ থেকে বিদায়ী সংবর্ধনা দেওয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ দূতাবাসের সম্মেলন কক্ষে এ সংবর্ধনার আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- হাইকমিশনার মুহ. শহীদুল ইসলাম, ডিফেন্স উইং প্রধান এয়ার কমডোর মো. হুমায়ূন কবির, শ্রম কাউন্সিলর মো. সায়েদুল ইসলাম, মো. রইস হাসান সারোয়ার, ফার্স্ট সেক্রেটারি এম এসকে শাহীন, শ্রম শাখার প্রথম সচিব মো. হেদায়েতুল ইসলাম মণ্ডল, পাসপোর্ট ও ভিসা শাখার প্রথম সচিব মো. মশিউর রহমান তালুকদার, বাণিজ্য শাখার নবনিযুক্ত উইং প্রধান রাজিবুল আহসান, প্রথম সচিব তাহমিনা ইয়াছমিন, শ্রম শাখার ২য় সচিব মো. ফরিদ আহমদসহ দূতাবাসের সব কর্মকর্তা কর্মচারী। উল্লেখ্য, গত সাড়ে চার বছর ধরে ধনঞ্জয় কুমার দাস নিষ্ঠার সঙ্গে মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশ হাইকমিশনের প্রথম সচিবের দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। ২০১২ সালের মাঝামাঝি সময়ে তিনি দূতাবাসে যোগদান করেন। একে/এসএইচ

বিদেশি শ্রমিক নির্ভরতা কমাবে সৌদি

বিদেশি শ্রমিকের ওপর নির্ভরশীলতা কমিয়ে নিজেদের জনশক্তিকে কাজে লাগানোর কথা জানিয়েছেন সৌদি আরবের অর্থনীতি ও পরিকল্পনামন্ত্রী মোহাম্মদ আলী-তুওয়াইজিরি। সৌদি দৈনিক আল-আরাবিয়াকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি এ ঘোষণা দেন। মন্ত্রী বলেছেন, তার মন্ত্রণালয়ের অগ্রাধিকারমূলক কাজগুলোর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে, বিদেশি শ্রমিকের ওপর থেকে নির্ভরতা কমিয়ে আনা। সৌদি সরকারের নেওয়া ভিশন ২০৩০ প্রকল্প ও কর্মসূচি বাস্তবায়নে আমাদের নারী ও পুরুষরা সক্ষম। সরকারি পরিসংখ্যান অনুযায়ী, দেশটিতে গত বছরের দ্বিতীয়ার্ধ্বে সরকারি ও বেসরকারি খাতে বিদেশি শ্রমিকের সংখ্যা ছিল এক কোটি ৭৯ লাখ। যা তৃতীয়ার্ধ্বে এক কোটি ৬৯ লাখে পৌঁছেছে। দেশটিতে বেকারত্বের হার কমানোরও অঙ্গীকারও করেছেন মোহাম্মদ আলী-তুওয়াইজিরি। সৌদি আরবে বর্তমানে বেকারত্বের হার ১২ দশমিক ৮ শতাংশ। বেকারত্ব কমাতে ইতোমধ্যে দেশটির ইন্সুরেন্স, যোগাযোগ ও পরিবহনসহ প্রধান প্রধান কিছু খাতে নাগরিকদের প্রাধান্য দিচ্ছে সৌদি সরকার। এপ্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘সৌদি সরকার আগামী কয়েক বছরের মধ্যে বেকারত্বের হার সাত শতাংশে নামিয়ে আনতে চায়। এজন্য পড়াশোনা শেষ করা সৌদি নাগরিকদের শ্রমবাজারে প্রবেশের সুযোগ করে দিতে চায় সরকার।’ এএলএ/টিকে

© ২০১৮ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি