ঢাকা, সোমবার   ১৮ নভেম্বর ২০১৯, || অগ্রাহায়ণ ৪ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

আমরা মেয়েদের সব জায়গায় স্থান করে দিয়েছি : প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত : ১২:১৭ ৯ মার্চ ২০১৯ | আপডেট: ১৫:৪১ ৯ মার্চ ২০১৯

সরকার নারীদের সব জায়গায় সুযোগ সৃষ্টি করে দিচ্ছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘নারীদের প্রতি বৈষম্য একটা সময় আমরা দেখেছি। কিন্তু আজ আমাদের মেয়েরা শুধু প্লেনই চালায় না, তারা সব জায়গায় স্থান করে নিয়েছে। আর বঙ্গবন্ধু দেশ স্বাধীন করেছিলেন বলেই এটি সম্ভব হয়েছে।’ 

আজ শনিবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আন্তর্জাতিক নারী দিবস-২০১৯ উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘আমাদের সেনা, নৌ, বিমান বাহিনী, বর্ডার গার্ড কোথাও নারীদের স্থান ছিলো না। কিন্তু সব জায়গায় এখন আমাদের নারীর স্থান আছে। তারা প্রত্যেকে অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছেন। আমরা আমাদের সরকারের আলমলেই একজন নারীকে প্রথম মেজর জেনারেল করেছি। যদিও সেটি মেডিকেল সার্ভিসে, তবে ভবিষতে আমাদের মেয়েরা সব জায়গাতেই তাদের জায়গা করে নিবে।’ 

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘অনেকেই আছেন যারা ধর্মের নামে নারীদের ঘরে বন্দি করে রাখতে চান। নারী শিক্ষার বিরোধিতা করেন। তাদের উদ্দেশ্যে একটা কথাই বলতে চাই- যিনি ইসলাম ধর্মের প্রবর্তক, সেই হযরত মুহাম্মদ (স.)-এর জীবনটা শুরু হয়েছিলো একজন ব্যবসায়ী নারীর অধিনে। এমনকি নবীজির সততার জন্য বিবি খাদিজা তাকে বিবাহ করেন। এবং তিনিই প্রথম নারী যিনি সবার আগে ইসলাম গ্রহণ করেন।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘জাতির পিতা নারীদের এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ করে দিয়েছেন। স্বাধীনতার পর জাতির পিতা প্রথম যে সংবিধান দিলেন সেখানে তিনি মেয়েদের জন্য সংরক্ষিত নারী আসন দেন। তিনি মেয়েদের শিক্ষা অবৈতনিক করে দিয়েছিলেন। তিনি বিশ্বাস করতেন, একজন মেয়ে যদি অর্থনৈতিকভাবে স্বাধীনতা অর্জন করে তাহলে সমাজে তার ভালো অবস্থান হয়।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আগে জুডিশিয়াল সার্ভিসে কোনও নারী চাকরির সুযোগ ছিল। বঙ্গবন্ধু এই আইন বাতিল করে দিয়েছেন। ‘৯৬ সালে উচ্চ আদালতে একজনও নারী বিচারক ছিলেন না। ওই সময় নাজমুন আরা ছিলেন জেলা জজ ছিলেন। আমরা ক্ষমতায় এসে তাকে হাইকোর্টে নিয়ে আসি। এরপর রাষ্ট্রপতির সঙ্গে কথা বলে তার ১০ শতাংশ কোটায় জুডিশিয়াল সার্ভিসে নারীদের নিয়োগ দেওয়া হয়। এছাড়া স্থানীয় সরকার আইনে সংরক্ষিত আসন করে দিয়েছি।’

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মেহের আফরোজ চুমকি।

উল্লেখ্য, প্রতিবারের মতো এবারও ৮ মার্চ সারাবিশ্বে দিবসটি নানা কর্মসূচির মধ্যে দিয়ে পালিত হয়েছে। তারই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশেও বিভিন্ন আনুষ্ঠানিকতায় দিবসটি পালন করা হয়। এবারও বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ও বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেছে।

এসএ/

 

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি