ঢাকা, রবিবার   ১৭ নভেম্বর ২০১৯, || অগ্রাহায়ণ ৩ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

কর্মক্ষেত্রে সফল ৬ নারীকে সম্মাননা

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ২৩:২৮ ৮ মার্চ ২০১৮ | আপডেট: ১৪:১৮ ১১ মার্চ ২০১৮

কর্মক্ষেত্রে সফল নারীকে সম্মাননা দিয়েছেন উইমেন এন্ট্রাপ্রিনিওয়ার্স নেটওয়ার্ক ফর ডেভেলপমেন্ট এসোসিয়েশন (ওয়েন্ড)

নারীকে আর্থিকভাবে সক্ষম করে গড়ে তোলার পাশাপাশি কর্মক্ষেত্রে সাফল্য অর্জনে সহায়তা ও উৎসাহ প্রদানে কাজ করছে প্রতিষ্ঠানটি। এরই ধারাবাহিকতায় আন্তর্জাতিক নারী দিবসে বিভিন্ন ক্ষেত্রে সফল ৬ নারীকে সম্মাননা প্রদান করেছে প্রতিষ্ঠানটি। বৃহস্পতিবার রাজধানীর আইবিএ অ্যালামনাই ক্লাবে আর্ন্তজাতিক নারী দিবস উপলক্ষে ‘প্রেস ফর প্রোগ্রেস’ অনুষ্ঠানে এ সম্মাননা প্রদান করা হয়।

সম্মাননাপ্রাপ্তরা হলেন, মানসিক রোগ বিশেষজ্ঞ ডা. সোহেলা আহম্মদ, স্থপতি নুজহাত জেরিন, ‍সাংবাদিক সামিয়া রহমান, ফ্যাশন ডিজাইনার সাবিনা পান্নি, আইনজীবী নাহিদ মাহতাব, সরকারী কর্মকর্তা নাহিদা সোবহান।

আইনজীবী নাহিদ মাহতাব বলেন, আইন পেশাটা মূলত পুরুষতান্ত্রিক। এখানে সারা দিন চেম্বার করার পর রাতের বেলায়ও কাজ করতে হয়। আইন পেশায় নারী আইনজীবীদের গ্রহণযোগ্যতা সেইভাবে নেই। বিচার প্রার্থীরা ভাবে নারী আইনজীবীদের কাছে গেলে তারা বিচার সেইভাবে পাবেন কিনা। সেক্ষেত্রে আমাদের যোগ্যতা, মেধা দিয়ে প্রমাণ করতে হয় আমরাও পারি। এ সফলতার পেছনে আমার পরিবারের ভূমিকা রয়েছে। তবে সফলতার পেছনে সব কিছু সমন্বয় করার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে।

সাংবাদিক সামিয়া রহমান বলেন, নারী পুরুষ নয় আমি মানবতা বাদে বিশ্বাসী। যে কোন পুরস্কার মানুষের সমতার জন্য মানুষের অধিকারের জন্য। নারীর অধিকার মানে শুধু অর্থনৈতিক মুক্তি নয় নারীর অধিকার মানে তার ব্যক্তিগত স্বাধীনতা এবং নিরাপত্তা। সেটা যখন শুধু এ সমাজ নয় পুরো বিশ্বে প্রতিষ্ঠিত হবে তখন নারী-পুরুষ বলে কোন ব্যাপার না, সব মানুষের অধিকার নিশ্চিত হবে।

ফ্যাশন ডিজাইনার সাবিনা পান্নি বলেন, কর্মক্ষেত্রে সফল নারীদের সম্মাননা প্রদানের ওয়েন্ড এর উদ্যোগ সত্যি প্রশংসনীয়। সম্মাননা পেয়ে খুবই ভালো লাগছে। অনেক নারী উদ্যোক্তা অনেক সমস্যায় রয়েছেন।

স্থপতি নুজহাত জেরিন এ সম্মাননা প্রদান করায় ওয়েন্ড কে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, আমার পরিবারের কারণে আজকে আমি সফল। সেজন্য এককভাবে আমি এ সফলতা দাবি করতে পারি না। আজকে নারী দিবসে যদিও আমার কাজ দিয়ে আমাকে সফল হিসেবে সম্মাননা দেওয়া হচ্ছে, কিন্তু আমি মনে করি প্রতিটি নারী-মাকে নারী দিবসে শ্রদ্ধা জানানোর মধ্য দিয়েই আসবে আমাদের স্বার্থকতা।

ডা. সোহেলা আহম্মাদ বলেন, প্রোগ্রেসের ক্ষেত্রে শিক্ষা মুখ্য ভূমিকা রাখে। নারীকে সম্মান দেওয়া পরিবার থেকে শেখাতে হবে। নারীকে এগিয়ে যাবার ক্ষেত্রে মাইন্ড সেটের পরিবর্তন ও সেলফ কনফিডেন্ট বাড়াতে হবে। নারীদের মূল ধারায় আনতে হলে মানসিক অবস্থার উন্নয়ন করতে হবে। আমার সফলতার পেছনে আমার বাবা-মা সবচেয়ে বড় ভূমিকা রেখেছেন। ওয়েন্ড এর সম্মাননার মাধ্যমে সামনে এগিয়ে যাবার ক্ষেত্রে প্রেরণা যোগাবে।

ওয়েন্ড এর প্রেসিডেন্ট ড. নাদিয়া বিনতে আমিন বলেন, সাধারণত দেখা যায় যারা সাফল্যের চূড়ায় তাদের সব সময় সম্মাননা দেওয়া হয়। ওয়েন্ড এর পক্ষ থেকে প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক নারী দিবসে সফল নারীদের সম্মাননা দেওয়া হচ্ছে। সম্মাননা দেওয়ার ক্ষেত্রে আমরা বিশেষ একটা বয়সের ক্যাটাগরি বিবেচনা করেছি। যাদের বয়স ৪৫ থেকে ৫৫ বছর। যারা এ বয়সে অনেক ঘাত প্রতিঘাত সহে কর্মক্ষেত্রে আছেন, সফল হয়েছেন এবং চাকরিতে থেকে তাদের অবস্থান তুলে ধরছেন।

 

এমএইচ/

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি