ঢাকা, ২০১৯-০৪-২৪ ১২:৩৫:০০, বুধবার

Live Scroll from Stock Exchange
 DSE
Up: 69 Dn: 200 Unc: 67
Up: 69 Dn: 200
Last Update: 4/24/2019 12:33:39 PM
T.Trd: 1729.872  mn
T.Trd: 1729.872 mn
1JANATAMF  | 4.40errow     1STPRIMFMF | 8.10errow     AAMRANET  | 48.80errow     AAMRATECH  | 24.00errow     ABB1STMF  | 4.50errow     ABBANK  | 11.40errow     ACFL  | 30.60errow     ACI  | 306.00errow     ACIFORMULA | 144.90errow     ACMELAB  | 79.60errow     ACTIVEFINE | 25.90errow     ADVENT  | 29.60errow     AFCAGRO  | 27.10errow     AFTABAUTO  | 35.20errow     AGNISYSL  | 19.80errow     AGRANINS  | 35.00errow     AIL  | 60.70errow     AL-HAJTEX  | 76.70errow     ALARABANK  | 20.30errow     ALIF  | 8.90errow     ALLTEX  | 13.40errow     AMANFEED  | 42.00errow     AMBEEPHA  | 630.00errow     AMCL(PRAN) | 244.00errow     ANLIMAYARN | 32.50errow     ANWARGALV  | 71.20errow     APEXFOODS  | 158.00errow     APEXSPINN  | 120.00errow     APEXTANRY  | 135.20errow     APOLOISPAT | 6.70errow     ARAMIT  | 352.00errow     ARAMITCEM  | 20.10errow     ARGONDENIM | 23.30errow     ASIAINS  | 25.10errow     ASIAPACINS | 20.40errow     ATCSLGF  | 9.80errow     ATLASBANG  | 130.70errow     AZIZPIPES  | 145.90errow     BANGAS  | 244.00errow     BANKASIA  | 17.00errow     BARKAPOWER | 29.70errow     BATASHOE  | 1132.40errow     BATBC  | 1440.00errow     BAYLEASING | 17.20errow     BBS  | 26.00errow     BBSCABLES  | 91.20errow     BDAUTOCA  | 210.50errow     BDCOM  | 27.30errow     BDFINANCE  | 14.00errow     BDLAMPS  | 201.00errow     BDTHAI  | 17.80errow     BDWELDING  | 18.60errow     BEACHHATCH | 21.20errow     BEACONPHAR | 18.30errow     BENGALWTL  | 26.20errow     BERGERPBL  | 1720.00errow     BEXIMCO  | 21.90errow     BGIC  | 19.20errow     BIFC  | 5.30errow     BNICL  | 19.00errow     BPML  | 63.00errow     BRACBANK  | 63.00errow     BSC  | 46.80errow     BSCCL  | 155.10errow     BSRMLTD  | 67.20errow     BSRMSTEEL  | 59.00errow     BXPHARMA  | 79.90errow     CAPMBDBLMF | 6.80errow     CAPMIBBLMF | 7.00errow     CENTRALINS | 21.30errow     CENTRALPHL | 12.90errow     CITYBANK  | 24.20errow     CITYGENINS | 13.70errow     CNATEX  | 3.00errow     CONFIDCEM  | 160.00errow     CONTININS  | 19.50errow     CVOPRL  | 152.50errow     DACCADYE  | 4.30errow     DAFODILCOM | 53.90errow     DBH  | 114.10errow     DBH1STMF  | 8.40errow     DELTALIFE  | 95.20errow     DELTASPINN | 6.00errow     DESCO  | 45.80errow     DESHBANDHU | 12.00errow     DHAKABANK  | 13.40errow     DHAKAINS  | 21.00errow     DOREENPWR  | 80.90errow     DSHGARME  | 210.10errow     DSSL  | 16.00errow     DULAMIACOT | 58.00errow     DUTCHBANGL | 77.20errow     EASTERNINS | 45.50errow     EASTLAND  | 22.60errow     EASTRNLUB  | 1350.00errow     EBL  | 39.70errow     ECABLES  | 318.50errow     EHL  | 47.80errow     EMERALDOIL | 16.30errow     ENVOYTEX  | 33.50errow     ESQUIRENIT | 41.50errow     ETL  | 12.80errow     EXIM1STMF  | 5.00errow     EXIMBANK  | 11.00errow     FAMILYTEX  | 4.00errow     FARCHEM  | 12.10errow     FAREASTFIN | 5.40errow     FAREASTLIF | 62.00errow     FASFIN  | 7.90errow     FBFIF  | 4.20errow     FEDERALINS | 10.60errow     FEKDIL  | 14.50errow     FINEFOODS  | 42.40errow     FIRSTFIN  | 5.00errow     FIRSTSBANK | 8.90errow     FORTUNE  | 37.30errow     FUWANGCER  | 11.00errow     FUWANGFOOD | 14.10errow     GBBPOWER  | 9.50errow     GEMINISEA  | 295.00errow     GENEXIL  | 33.50errow     GENNEXT  | 5.70errow     GHAIL  | 32.50errow     GHCL  | 36.00errow     GLAXOSMITH | 1424.20errow     GLOBALINS  | 13.40errow     GOLDENSON  | 9.40errow     GP  | 368.30errow     GPHISPAT  | 34.60errow     GQBALLPEN  | 79.00errow     GRAMEENS2  | 12.90errow     GREENDELMF | 7.50errow     GREENDELT  | 59.50errow     GSPFINANCE | 16.80errow     HAKKANIPUL | 62.90errow     HEIDELBCEM | 257.00errow     HFL  | 20.10errow     HRTEX  | 41.70errow     HWAWELLTEX | 37.70errow     IBBLPBOND  | 940.00errow     IBNSINA  | 251.50errow     IBP  | 22.10errow     ICB  | 108.60errow     ICB3RDNRB  | 5.40errow     ICBAGRANI1 | 6.80errow     ICBAMCL2ND | 7.80errow     ICBEPMF1S1 | 5.70errow     ICBIBANK  | 4.00errow     IDLC  | 59.80errow     IFADAUTOS  | 81.00errow     IFIC  | 10.50errow     IFIC1STMF  | 4.40errow     IFILISLMF1 | 6.70errow     ILFSL  | 9.20errow     IMAMBUTTON | 23.80errow     INTECH  | 34.00errow     INTRACO  | 20.40errow     IPDC  | 33.00errow     ISLAMIBANK | 25.40errow     ISLAMICFIN | 15.00errow     ISLAMIINS  | 19.00errow     ISNLTD  | 35.20errow     ITC  | 41.30errow     JAMUNABANK | 18.50errow     JAMUNAOIL  | 180.00errow     JANATAINS  | 14.00errow     JMISMDL  | 310.00errow     JUTESPINN  | 100.00errow     KARNAPHULI | 14.90errow     KAY&QUE  | 226.40errow     KBPPWBIL  | 10.10errow     KDSALTD  | 52.30errow     KEYACOSMET | 4.60errow     KOHINOOR  | 372.00errow     KPCL  | 51.70errow     KPPL  | 16.50errow     KTL  | 16.90errow     LANKABAFIN | 20.30errow     LEGACYFOOT | 107.40errow     LHBL  | 39.50errow     LIBRAINFU  | 963.20errow     LINDEBD  | 1171.10errow     MAKSONSPIN | 6.50errow     MALEKSPIN  | 18.80errow     MARICO  | 1380.50errow     MATINSPINN | 38.00errow     MBL1STMF  | 7.30errow     MEGCONMILK | 23.50errow     MEGHNACEM  | 87.00errow     MEGHNALIFE | 56.90errow     MEGHNAPET  | 13.70errow     MERCANBANK | 15.60errow     MERCINS  | 27.70errow     METROSPIN  | 7.10errow     MHSML  | 11.90errow     MICEMENT  | 72.00errow     MIDASFIN  | 15.80errow     MIRACLEIND | 28.40errow     MITHUNKNIT | 15.30errow     MJLBD  | 92.10errow     MLDYEING  | 32.80errow     MONNOCERA  | 231.30errow     MONNOSTAF  | 1229.90errow     MPETROLEUM | 190.90errow     MTB  | 33.80errow     NAHEEACP  | 50.50errow     NATLIFEINS | 187.10errow     NAVANACNG  | 46.70errow     NBL  | 8.80errow     NCCBANK  | 15.30errow     NFML  | 8.50errow     NHFIL  | 35.50errow     NITOLINS  | 22.60errow     NORTHERN  | 1170.00errow     NORTHRNINS | 17.00errow     NPOLYMAR  | 88.00errow     NTC  | 704.70errow     NTLTUBES  | 121.50errow     NURANI  | 14.10errow     OAL  | 10.00errow     OIMEX  | 28.70errow     OLYMPIC  | 214.20errow     ONEBANKLTD | 14.60errow     ORIONINFU  | 53.90errow     ORIONPHARM | 31.50errow     PADMAOIL  | 230.00errow     PARAMOUNT  | 14.10errow     PDL  | 14.30errow     PENINSULA  | 24.70errow     PEOPLESINS | 19.20errow     PHARMAID  | 591.20errow     PHENIXINS  | 28.60errow     PHOENIXFIN | 29.50errow     PHPMF1  | 4.40errow     PIONEERINS | 29.40errow     PLFSL  | 4.40errow     POPULAR1MF | 4.20errow     POPULARLIF | 84.30errow     POWERGRID  | 57.90errow     PRAGATIINS | 29.50errow     PRAGATILIF | 117.00errow     PREMIERBAN | 10.50errow     PREMIERCEM | 68.50errow     PREMIERLEA | 7.80errow     PRIME1ICBA | 6.00errow     PRIMEBANK  | 17.20errow     PRIMEFIN  | 8.90errow     PRIMEINSUR | 17.10errow     PRIMELIFE  | 54.90errow     PRIMETEX  | 25.30errow     PROGRESLIF | 88.00errow     PROVATIINS | 30.60errow     PTL  | 62.70errow     PUBALIBANK | 26.10errow     PURABIGEN  | 14.50errow     QUASEMIND  | 33.30errow     QUEENSOUTH | 33.80errow     RAHIMTEXT  | 425.90errow     RAKCERAMIC | 32.10errow     RANFOUNDRY | 153.80errow     RDFOOD  | 14.30errow     RECKITTBEN | 2224.00errow     REGENTTEX  | 14.20errow     RELIANCE1  | 9.30errow     RELIANCINS | 43.80errow     RENATA  | 1177.20errow     RENWICKJA  | 1480.00errow     REPUBLIC  | 20.00errow     RNSPIN  | 5.50errow     RSRMSTEEL  | 44.40errow     RUPALIBANK | 42.60errow     RUPALIINS  | 17.80errow     RUPALILIFE | 85.60errow     SAFKOSPINN | 17.00errow     SAIFPOWER  | 19.50errow     SAIHAMCOT  | 24.40errow     SAIHAMTEX  | 50.00errow     SALAMCRST  | 27.20errow     SALVOCHEM  | 15.60errow     SAMATALETH | 78.60errow     SAMORITA  | 67.00errow     SANDHANINS | 22.70errow     SAPORTL  | 22.60errow     SAVAREFR  | 118.60errow     SEMLIBBLSF | 6.50errow     SEMLLECMF  | 6.60errow     SHAHJABANK | 24.50errow     SHASHADNIM | 40.60errow     SHEPHERD  | 33.00errow     SHURWID  | 37.30errow     SHYAMPSUG  | 29.00errow     SIBL  | 14.70errow     SILVAPHL  | 22.30errow     SIMTEX  | 23.20errow     SINGERBD  | 181.20errow     SINOBANGLA | 46.40errow     SKTRIMS  | 42.00errow     SONALIANSH | 450.00errow     SONARBAINS | 54.00errow     SONARGAON  | 37.00errow     SOUTHEASTB | 14.40errow     SPCERAMICS | 13.60errow     SPCL  | 85.70errow     SQUARETEXT | 41.80errow     SQURPHARMA | 257.50errow     SSSTEEL  | 23.80errow     STANCERAM  | 247.40errow     STANDARINS | 34.70errow     STANDBANKL | 10.20errow     STYLECRAFT | 687.00errow     SUMITPOWER | 39.50errow     SUNLIFEINS | 22.70errow     TAKAFULINS | 27.30errow     TALLUSPIN  | 5.30errow     TITASGAS  | 37.80errow     TOSRIFA  | 17.40errow     TRUSTB1MF  | 4.60errow     TRUSTBANK  | 28.20errow     TUNGHAI  | 3.80errow     UCB  | 17.90errow     UNIONCAP  | 11.90errow     UNIQUEHRL  | 50.30errow     UNITEDAIR  | 2.70errow     UNITEDFIN  | 16.90errow     UNITEDINS  | 63.00errow     UPGDCL  | 296.90errow     USMANIAGL  | 105.00errow     UTTARABANK | 28.50errow     UTTARAFIN  | 63.00errow     VFSTDL  | 50.90errow     WATACHEM  | 515.10errow     WMSHIPYARD | 16.10errow     YPL  | 12.20errow     ZAHEENSPIN | 8.80errow     ZAHINTEX  | 8.10errow     ZEALBANGLA | 41.20errow     
4.40/0.000.00% 8.10/0.000.00% 48.80/-0.80-1.61% 24.00/-0.70-2.83% 4.50/0.000.00% 11.40/0.000.00% 30.60/-0.40-1.29% 306.00/-1.20-0.39% 144.90/1.801.26% 79.60/0.400.51% 25.90/-0.20-0.77% 29.60/-0.10-0.34% 27.10/-0.30-1.09% 35.20/-0.40-1.12% 19.80/0.000.00% 35.00/0.501.45% 60.70/-0.50-0.82% 76.70/-2.50-3.16% 20.30/-0.20-0.98% 8.90/0.000.00% 13.40/-0.10-0.74% 42.00/-0.50-1.18% 630.00/-21.20-3.26% 244.00/-2.00-0.81% 32.50/-1.00-2.99% 71.20/-0.10-0.14% 158.00/-1.30-0.82% 120.00/-3.00-2.44% 135.20/-2.80-2.03% 6.70/-0.10-1.47% 352.00/-2.00-0.56% 20.10/0.000.00% 23.30/-0.40-1.69% 25.10/0.100.40% 20.40/0.000.00% 9.80/-0.10-1.01% 130.70/-1.90-1.43% 145.90/-1.90-1.29% 244.00/-7.40-2.94% 17.00/0.201.19% 29.70/0.000.00% 1132.40/-13.10-1.14% 1440.00/-19.10-1.31% 17.20/-0.30-1.71% 26.00/-0.50-1.89% 91.20/-0.10-0.11% 210.50/1.000.48% 27.30/-0.30-1.09% 14.00/-0.10-0.71% 201.00/-16.80-7.71% 17.80/-0.20-1.11% 18.60/0.201.09% 21.20/1.507.61% 18.30/-0.20-1.08% 26.20/0.100.38% 1720.00/-6.90-0.40% 21.90/0.000.00% 19.20/0.000.00% 5.30/0.203.92% 19.00/0.100.53% 63.00/0.000.00% 63.00/0.200.32% 46.80/-1.10-2.30% 155.10/-6.80-4.20% 67.20/-0.30-0.44% 59.00/0.000.00% 79.90/-0.50-0.62% 6.80/0.101.49% 7.00/0.000.00% 21.30/0.401.91% 12.90/-0.10-0.77% 24.20/-0.10-0.41% 13.70/-0.10-0.72% 3.00/0.000.00% 160.00/-0.20-0.12% 19.50/0.000.00% 152.50/-3.80-2.43% 4.30/-0.10-2.27% 53.90/-0.50-0.92% 114.10/-0.70-0.61% 8.40/0.101.20% 95.20/-1.30-1.35% 6.00/-0.10-1.64% 45.80/0.300.66% 12.00/0.000.00% 13.40/-0.10-0.74% 21.00/-0.50-2.33% 80.90/-1.90-2.29% 210.10/-2.20-1.04% 16.00/-0.20-1.23% 58.00/0.500.87% 77.20/-0.40-0.52% 45.50/0.300.66% 22.60/-1.10-4.64% 1350.00/-40.80-2.93% 39.70/-0.40-1.00% 318.50/-2.80-0.87% 47.80/-0.20-0.42% 16.30/-0.20-1.21% 33.50/-0.30-0.89% 41.50/-0.60-1.43% 12.80/0.100.79% 5.00/0.102.04% 11.00/-0.10-0.90% 4.00/0.102.56% 12.10/0.000.00% 5.40/-0.10-1.82% 62.00/0.100.16% 7.90/-0.20-2.47% 4.20/0.000.00% 10.60/0.000.00% 14.50/0.000.00% 42.40/1.002.42% 5.00/0.000.00% 8.90/-1.20-11.88% 37.30/0.000.00% 11.00/0.000.00% 14.10/-0.10-0.70% 9.50/0.000.00% 295.00/0.300.10% 33.50/-0.20-0.59% 5.70/0.000.00% 32.50/-0.40-1.22% 36.00/-0.50-1.37% 1424.20/-9.70-0.68% 13.40/0.000.00% 9.40/0.101.08% 368.30/-1.10-0.30% 34.60/-0.20-0.57% 79.00/-0.30-0.38% 12.90/-0.10-0.77% 7.50/0.101.35% 59.50/0.300.51% 16.80/-0.20-1.18% 62.90/-0.30-0.47% 257.00/-4.50-1.72% 20.10/-0.10-0.50% 41.70/0.000.00% 37.70/0.701.89% 940.00/17.501.90% 251.50/-1.60-0.63% 22.10/-0.80-3.49% 108.60/-0.60-0.55% 5.40/-0.20-3.57% 6.80/0.000.00% 7.80/-0.20-2.50% 5.70/-0.20-3.39% 4.00/0.000.00% 59.80/-0.20-0.33% 81.00/-0.20-0.25% 10.50/0.000.00% 4.40/0.102.33% 6.70/-0.10-1.47% 9.20/-0.20-2.13% 23.80/0.502.15% 34.00/-0.50-1.45% 20.40/-0.40-1.92% 33.00/-0.60-1.79% 25.40/0.000.00% 15.00/-0.20-1.32% 19.00/-0.40-2.06% 35.20/0.501.44% 41.30/0.200.49% 18.50/0.000.00% 180.00/-2.70-1.48% 14.00/-0.20-1.41% 310.00/-3.80-1.21% 100.00/-2.30-2.25% 14.90/-0.10-0.67% 226.40/-8.10-3.45% 10.10/0.101.00% 52.30/-1.00-1.88% 4.60/0.000.00% 372.00/2.900.79% 51.70/-2.40-4.44% 16.50/0.000.00% 16.90/-0.40-2.31% 20.30/-0.40-1.93% 107.40/-1.90-1.74% 39.50/-0.30-0.75% 963.20/-23.60-2.39% 1171.10/1.100.09% 6.50/0.000.00% 18.80/-0.30-1.57% 1380.50/4.800.35% 38.00/0.100.26% 7.30/0.000.00% 23.50/0.100.43% 87.00/-1.40-1.58% 56.90/-1.00-1.73% 13.70/0.000.00% 15.60/-0.10-0.64% 27.70/-0.60-2.12% 7.10/0.000.00% 11.90/-0.30-2.46% 72.00/-0.90-1.23% 15.80/-0.50-3.07% 28.40/-0.60-2.07% 15.30/-0.30-1.92% 92.10/0.200.22% 32.80/0.300.92% 231.30/-17.70-7.11% 1229.90/-48.70-3.81% 190.90/-0.30-0.16% 33.80/-0.10-0.29% 50.50/-0.30-0.59% 187.10/5.202.86% 46.70/-0.10-0.21% 8.80/0.000.00% 15.30/-0.20-1.29% 8.50/0.000.00% 35.50/0.200.57% 22.60/0.000.00% 1170.00/-34.40-2.86% 17.00/-0.10-0.58% 88.00/-0.90-1.01% 704.70/-1.60-0.23% 121.50/0.500.41% 14.10/-0.10-0.70% 10.00/0.000.00% 28.70/-0.50-1.71% 214.20/-1.20-0.56% 14.60/0.000.00% 53.90/-0.70-1.28% 31.50/-0.40-1.25% 230.00/3.001.32% 14.10/0.000.00% 14.30/-0.20-1.38% 24.70/-0.30-1.20% 19.20/0.201.05% 591.20/-22.90-3.73% 28.60/0.000.00% 29.50/-1.00-3.28% 4.40/-0.10-2.22% 29.40/-0.60-2.00% 4.40/-0.10-2.22% 4.20/0.000.00% 84.30/0.400.48% 57.90/0.300.52% 29.50/-0.10-0.34% 117.00/1.100.95% 10.50/-2.50-19.23% 68.50/-1.90-2.70% 7.80/0.000.00% 6.00/0.203.45% 17.20/0.000.00% 8.90/0.000.00% 17.10/0.201.18% 54.90/0.300.55% 25.30/0.000.00% 88.00/-0.30-0.34% 30.60/0.602.00% 62.70/0.000.00% 26.10/0.200.77% 14.50/-0.10-0.68% 33.30/-0.60-1.77% 33.80/0.200.60% 425.90/-2.00-0.47% 32.10/-0.60-1.83% 153.80/0.800.52% 14.30/-0.10-0.69% 2224.00/-82.30-3.57% 14.20/-0.10-0.70% 9.30/0.000.00% 43.80/-0.80-1.79% 1177.20/-0.20-0.02% 1480.00/-38.40-2.53% 20.00/-0.10-0.50% 5.50/-0.10-1.79% 44.40/0.000.00% 42.60/0.501.19% 17.80/-0.10-0.56% 85.60/-3.10-3.49% 17.00/0.100.59% 19.50/0.000.00% 24.40/0.200.83% 50.00/-0.30-0.60% 27.20/-0.30-1.09% 15.60/0.100.65% 78.60/-2.90-3.56% 67.00/-0.10-0.15% 22.70/0.000.00% 22.60/0.000.00% 118.60/-2.60-2.15% 6.50/-0.10-1.52% 6.60/-0.10-1.49% 24.50/0.000.00% 40.60/-0.20-0.49% 33.00/-0.40-1.20% 37.30/-0.50-1.32% 29.00/0.000.00% 14.70/-0.30-2.00% 22.30/-1.00-4.29% 23.20/0.000.00% 181.20/0.200.11% 46.40/-0.50-1.07% 42.00/0.200.48% 450.00/-13.30-2.87% 54.00/1.703.25% 37.00/-1.00-2.63% 14.40/0.000.00% 13.60/0.000.00% 85.70/-1.10-1.27% 41.80/-0.60-1.42% 257.50/0.300.12% 23.80/-0.20-0.83% 247.40/19.908.75% 34.70/-0.10-0.29% 10.20/-0.20-1.92% 687.00/-13.70-1.96% 39.50/-0.10-0.25% 22.70/-0.20-0.87% 27.30/0.301.11% 5.30/0.000.00% 37.80/-0.20-0.53% 17.40/-0.70-3.87% 4.60/0.102.22% 28.20/-0.20-0.70% 3.80/0.000.00% 17.90/-0.10-0.56% 11.90/-0.10-0.83% 50.30/-0.40-0.79% 2.70/0.000.00% 16.90/-0.30-1.74% 63.00/4.407.51% 296.90/-25.60-7.94% 105.00/-0.40-0.38% 28.50/-0.20-0.70% 63.00/0.701.12% 50.90/-0.10-0.20% 515.10/-15.00-2.83% 16.10/-0.10-0.62% 12.20/-0.60-4.69% 8.80/0.000.00% 8.10/-0.10-1.22% 41.20/0.000.00%
Live Scroll from Stock Exchange
 CSE
Up: 19 Dn: 131 Unc: 23
Up: 19 Dn: 131
Last Update: 4/24/2019 12:33:03 PM
T.Trd: 59.03  mn
T.Trd: 59.03 mn
1JANATAMF  | 4.30errow     1STPRIMFMF | 8.30errow     AAMRATECH  | 24.50errow     ABBANK  | 11.40errow     ACFL  | 30.70errow     ACMELAB  | 80.00errow     ACTIVEFINE | 25.70errow     ADVENT  | 29.10errow     AFTABAUTO  | 34.80errow     AIL  | 61.20errow     ALARABANK  | 20.20errow     ALLTEX  | 13.20errow     AMANFEED  | 42.50errow     AMBEEPHA  | 640.00errow     APOLOISPAT | 6.70errow     ASIAINS  | 24.50errow     ATCSLGF  | 9.40errow     BANGAS  | 245.00errow     BARKAPOWER | 29.30errow     BATBC  | 1435.00errow     BAYLEASING | 16.80errow     BBS  | 27.00errow     BBSCABLES  | 91.50errow     BDLAMPS  | 203.00errow     BDTHAI  | 17.90errow     BEACHHATCH | 21.30errow     BEACONPHAR | 18.30errow     BERGERPBL  | 1720.00errow     BEXIMCO  | 21.80errow     BNICL  | 18.80errow     BPML  | 62.10errow     BSC  | 47.00errow     BSCCL  | 156.00errow     BSRMLTD  | 67.40errow     BSRMSTEEL  | 57.80errow     BXPHARMA  | 80.00errow     BXSYNTH  | 6.40errow     CENTRALPHL | 12.90errow     CITYBANK  | 24.00errow     CNATEX  | 3.00errow     CONFIDCEM  | 158.00errow     CVOPRL  | 153.00errow     DAFODILCOM | 52.60errow     DELTASPINN | 5.80errow     DESCO  | 45.00errow     DESHBANDHU | 11.20errow     DHAKABANK  | 13.20errow     DOREENPWR  | 81.50errow     DSSL  | 16.00errow     DUTCHBANGL | 77.00errow     EASTLAND  | 22.70errow     ECABLES  | 320.00errow     EHL  | 47.10errow     ESQUIRENIT | 41.30errow     EXIMBANK  | 11.00errow     FAMILYTEX  | 3.90errow     FARCHEM  | 12.10errow     FASFIN  | 7.80errow     FEKDIL  | 14.00errow     FINEFOODS  | 42.00errow     FIRSTSBANK | 8.90errow     FORTUNE  | 37.20errow     FUWANGCER  | 10.90errow     FUWANGFOOD | 14.10errow     GBBPOWER  | 9.30errow     GENEXIL  | 33.30errow     GENNEXT  | 5.70errow     GP  | 371.50errow     GPHISPAT  | 34.50errow     GRAMEENS2  | 12.50errow     GREENDELMF | 7.20errow     GSPFINANCE | 16.80errow     IBP  | 22.10errow     IFADAUTOS  | 80.70errow     IFIC  | 10.40errow     ILFSL  | 9.20errow     INTECH  | 33.80errow     INTRACO  | 20.40errow     IPDC  | 32.20errow     ISLAMIBANK | 25.20errow     JAMUNABANK | 18.50errow     JAMUNAOIL  | 178.80errow     JANATAINS  | 13.70errow     KAY&QUE  | 229.00errow     KBPPWBIL  | 9.90errow     KDSALTD  | 52.00errow     KEYACOSMET | 4.60errow     KPCL  | 52.00errow     KTL  | 16.70errow     LANKABAFIN | 20.50errow     LEGACYFOOT | 106.00errow     LHBL  | 39.30errow     LINDEBD  | 1170.00errow     MAKSONSPIN | 6.50errow     MALEKSPIN  | 18.50errow     MEGHNALIFE | 63.80errow     MERCANBANK | 15.60errow     METROSPIN  | 6.90errow     MIDASFIN  | 16.00errow     MIRACLEIND | 28.50errow     MJLBD  | 91.10errow     MLDYEING  | 32.00errow     MONNOCERA  | 228.30errow     NATLIFEINS | 187.00errow     NBL  | 8.80errow     NCCBANK  | 15.20errow     NFML  | 8.30errow     NHFIL  | 34.50errow     NPOLYMAR  | 88.00errow     NTC  | 729.80errow     NURANI  | 14.00errow     OAL  | 9.80errow     OIMEX  | 28.50errow     ONEBANKLTD | 14.30errow     ORIONPHARM | 31.30errow     PADMALIFE  | 23.00errow     PDL  | 14.20errow     PENINSULA  | 24.80errow     PEOPLESINS | 19.70errow     PHPMF1  | 4.30errow     PLFSL  | 4.40errow     POPULAR1MF | 4.10errow     POWERGRID  | 57.10errow     PREMIERBAN | 10.50errow     PREMIERCEM | 74.20errow     PRIMEBANK  | 17.70errow     PROVATIINS | 29.90errow     PUBALIBANK | 25.90errow     RAKCERAMIC | 31.90errow     RECKITTBEN | 2309.90errow     REGENTTEX  | 13.90errow     REPUBLIC  | 20.00errow     RNSPIN  | 5.60errow     RSRMSTEEL  | 44.00errow     RUPALIBANK | 42.60errow     RUPALIINS  | 17.50errow     SAIFPOWER  | 19.50errow     SAIHAMCOT  | 24.00errow     SALAMCRST  | 27.20errow     SANDHANINS | 23.00errow     SAPORTL  | 22.50errow     SHASHADNIM | 40.10errow     SHEPHERD  | 32.20errow     SHURWID  | 37.00errow     SIBL  | 14.70errow     SILVAPHL  | 22.40errow     SINGERBD  | 181.00errow     SINOBANGLA | 46.00errow     SKTRIMS  | 42.00errow     SONARBAINS | 53.00errow     SOUTHEASTB | 14.30errow     SPCERAMICS | 13.30errow     SQURPHARMA | 256.50errow     SSSTEEL  | 23.90errow     STANCERAM  | 251.40errow     STANDBANKL | 10.10errow     SUMITPOWER | 39.50errow     TITASGAS  | 38.00errow     TOSRIFA  | 17.20errow     TRUSTB1MF  | 4.40errow     TRUSTBANK  | 28.00errow     TUNGHAI  | 3.80errow     UCB  | 17.80errow     UNIONCAP  | 11.90errow     UNIQUEHRL  | 50.00errow     UNITEDAIR  | 2.60errow     UPGDCL  | 295.00errow     UTTARABANK | 28.40errow     UTTARAFIN  | 60.50errow     WATACHEM  | 512.00errow     WMSHIPYARD | 16.20errow     YPL  | 12.40errow     ZAHEENSPIN | 8.60errow     
-0.10-2.27% -0.10-1.19% 0.000.00% -0.30-2.56% -0.50-1.60% 0.000.00% -0.20-0.77% -0.90-3.00% -1.10-3.06% -0.10-0.16% -0.10-0.49% 0.100.76% 0.000.00% -10.00-1.54% 0.000.00% -0.80-3.16% -0.20-2.08% -11.10-4.33% -0.30-1.01% -26.90-1.84% -0.30-1.75% 0.301.12% 0.300.33% -17.10-7.77% -0.10-0.56% 1.909.79% 0.000.00% 0.000.00% -0.10-0.46% -0.30-1.57% -1.20-1.90% -0.60-1.26% -5.70-3.53% -0.10-0.15% -0.40-0.69% -0.10-0.12% -0.10-1.54% 0.000.00% -0.30-1.23% -0.20-6.25% -2.10-1.31% -4.20-2.67% -1.90-3.49% -0.10-1.69% 0.300.67% -0.90-7.44% -0.20-1.49% -0.30-0.37% -0.20-1.23% -0.90-1.16% -1.40-5.81% -5.60-1.72% -0.50-1.05% -0.80-1.90% -0.10-0.90% 0.000.00% 0.000.00% -0.20-2.50% -0.30-2.10% 0.000.00% -1.10-11.00% -0.10-0.27% 0.000.00% -0.10-0.70% -0.20-2.11% 0.100.30% -0.10-1.72% 0.400.11% -0.20-0.58% 0.000.00% 0.202.86% -0.10-0.59% -0.80-3.49% -1.00-1.22% -0.10-0.95% -0.20-2.13% -0.80-2.31% -0.40-1.92% -1.90-5.57% 0.000.00% -0.20-1.07% -2.40-1.32% -0.20-1.44% -8.30-3.50% -0.10-1.00% -1.30-2.44% -0.10-2.13% -2.20-4.06% -0.60-3.47% -0.10-0.49% -3.30-3.02% -0.60-1.50% -10.00-0.85% -0.10-1.52% -0.70-3.65% 5.8010.00% 0.000.00% -0.20-2.82% -1.00-5.88% -0.40-1.38% -0.40-0.44% -0.60-1.84% -21.80-8.72% 8.804.94% 0.000.00% -0.20-1.30% -0.20-2.35% -1.00-2.82% -4.50-4.86% 29.804.26% -0.10-0.71% -0.30-2.97% -0.60-2.06% -0.20-1.38% -0.10-0.32% 0.000.00% -0.10-0.70% 0.000.00% 0.100.51% -0.10-2.27% -0.10-2.22% 0.000.00% -0.50-0.87% -2.50-19.23% 0.200.27% 0.704.12% -0.10-0.33% -0.50-1.89% -0.50-1.54% -0.70-0.03% -0.30-2.11% -0.80-3.85% -0.10-1.75% -0.40-0.90% 0.000.00% -1.00-5.41% -0.10-0.51% -0.30-1.23% -0.50-1.81% 0.200.88% -0.30-1.32% -1.20-2.91% -2.20-6.40% -0.80-2.12% -0.10-0.68% -1.10-4.68% 0.200.11% -1.10-2.34% -1.50-3.45% 3.006.00% 0.100.70% -0.60-4.32% -1.30-0.50% -0.10-0.42% 20.208.74% -0.20-1.94% 0.000.00% -0.10-0.26% -0.60-3.37% -0.10-2.22% 0.000.00% 0.000.00% -0.10-0.56% -0.20-1.65% -2.70-5.12% -0.20-7.14% -25.10-7.84% -0.30-1.05% -2.50-3.97% -10.10-1.93% 0.000.00% -0.40-3.13% -0.50-5.49%
Last Update: 4/24/2019 12:33:39 PM
জিএসকে বাংলাদেশের চেয়ারম্যান মাসুদ খান

জিএসকে বাংলাদেশের চেয়ারম্যান মাসুদ খান

সম্প্রতি জিএসকে বাংলাদেশের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন মাসুদ খান। প্রতিষ্ঠানটির এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, সম্প্রতি তিনি জিএসকেতে যোগ দিয়েছেন। বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় বহুজাতিক কোম্পানিগুলোয় প্রায় চার দশক কাজের অভিজ্ঞতা রয়েছে স্বনামধন্য এ পেশাদার হিসাববিদের। বর্তমানে তিনি ক্রাউন সিমেন্ট গ্রুপ বাংলাদেশের প্রধান নির্বাহীর দায়িত্ব পালন করছেন। একই সঙ্গে তিনি ম্যারিকো বাংলাদেশ, বার্জার পেইন্টস এবং ভিয়েলাটেক্স লিমিটেডের একজন ইন্ডিপেন্ডেন্ট ডিরেক্টর। মাসুদ খান গত ৩৮ বছর ধরে ইনস্টিটিউট অব চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টস অব বাংলাদেশের একজন শিক্ষক হিসেবে নিযুক্ত রয়েছেন। তিনি লাফার্জহোলসিম বাংলাদেশের চিফ ফাইন্যান্সিয়াল অফিসার হিসেবে ১৮ বছর কাজ করেছেন। এছাড়াও, ব্রিটিশ অ্যামেরিকান টোব্যাকো বাংলাদেশে তিনি ফাইন্যান্স এবং এ সম্পর্কিত বিষয়ে ২০ বছর দেশে-বিদেশে কাজ করেছেন। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত সেন্ট জেভিয়ার্স কলেজ থেকে বাণিজ্যে স্নাতক ডিগ্রী নেওয়া মাসুদ ১৯৭৭ সালে চার্টার্ড একাউন্টেন্সি পরীক্ষায় ভারত থেকে রৌপ্য পদক অর্জন করেন। বিজ্ঞপ্তি।
দুর্ঘটনার পর তৈরি পোশাকের দাম না বাড়লেও রফতানি বাড়ছে

গাজীপুরে একটি পোশাক কারখানা যেখানে প্রায় দুই হাজারের মতো শ্রমিক আছে। নাম প্রকাশ না করে কারখানার মালিক বলছিলেন, কাজের পরিবেশ নিরাপদ করার জন্য এই কারখানায় প্রায় সাত কোটি টাকা খরচ করতে হয়েছে। রানা প্লাজা ধসের পর বিদেশি ক্রেতাদের চাপে পড়ে তিনি এ কাজ করতে বাধ্য হয়েছেন। বিভিন্ন কারখানার কয়েকজন মালিকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেল, যারা কারখানা নিরাপদ করার জন্য টাকা ব্যয় করেছেন, তারা সেটি পুষিয়ে নেওয়ার জন্য উৎপাদন বাড়ানোর জন্যও বিনিয়োগ করেছেন। ফলে পোশাক রফতানির অর্ডার পাওয়ার জন্য কারখানাগুলোর মধ্যেও চলছে তীব্র প্রতিযোগিতা। এ জন্য দাম বাড়ানোর কথা চিন্তাই করছেন না বিদেশি ক্রেতারা। বলছিলেন, একটি গার্মেন্টস কারখানার মালিক আরশাদ জামাল। তিনি বলেন, ক্ষুদ্র এবং মাঝারি কারখানাগুলোর অনেকেই ‘কমপ্লায়েন্স রাডারের’ বাইরে। প্রায় দুই- আড়াই হাজার ফ্যাক্টরি রয়েছে তারাও করছে। জামাল প্রশ্ন তোলেন, ‘এই প্রতিযোগিতার বাজারে বাংলাদেশেই যদি আরেকটি প্রতিষ্ঠান কম অফার করে, তাহলে বায়াররা (ক্রেতারা) কেন স্বপ্রণোদিত হয়ে দাম বাড়াতে যাবে?‘ পোশাকের দাম আসলে বেড়েছে নাকি বাড়েনি সেটি নিয়ে সুনির্দিষ্ট কোনও তথ্য পাওয়া যায় না। বিদেশি ক্রেতারা এ বিষয়ে যেমন তথ্য দিনে নারাজ তেমনি বাংলাদেশি মালিকরা যে তথ্য দিচ্ছেন সেটি যাচাই করার সুযোগও কম। তবে বাংলাদেশ রফতানি উন্নয়ন ব্যুরোর হিসেবে দেখা যাচ্ছে, গত বছরের জুলাই থেকে নভেম্বর মাস পর্যন্ত গার্মেন্টস পণ্যের রফতানি বেড়েছে ১৯ শতাংশ। দাম না বাড়লেও রফতানি বাড়ছে কেন? বেসরকারি গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ বা সিপিডির নির্বাহী পরিচালক ড. ফাহমিদা খাতুন বলেন, বিশ্ববাজারে সাধারণ মানুষ যে ধরণের কাপড় পরিধান করে বাংলাদেশের গার্মেন্টস শিল্প সে ধরণের কাপড় বেশি রফতানি করে। ফলে বাংলাদেশের তৈরি পোশাকের চাহিদা বাড়ছে। সে জন্য রফতানির আকারও বেড়েছে বলে উল্লেখ করেন ফাহমিদা খাতুন। তিনি বলেন, দাম দিয়ে নয়, বেশি রফতানি করে সেটি পুষিয়ে নেওয়া হচ্ছে। মালিকরাও বলছেন, চীন এবং ভিয়েতনাম থেকে কিছু অর্ডার এখন বাংলাদেশে আসছে। কারণ ভিয়েতনামে মজুরী বৃদ্ধির কারণে পোশাকের দামও বেড়েছে। একদিকে কারাখানা নিরাপদ করার জন্য টাকা খরচ এবং অন্যদিকে তৈরি পোশাকের দাম না বাড়লেও তাতে মালিকরা যে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে সেটি মনে করেন না শ্রমিক পক্ষ। গার্মেন্টস শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের সাধারণ সম্পাদক জলি তালুকদার বলেন, ‘মালিকরা এ কথাটা সব সময় একটা প্রোপাগান্ডা হিসেবে রাখে যে আমাদের অর্ডার চলে গেল, আমাদের ফ্যাক্টরি ধস হয়ে গেল। শ্রমিকের মজুরি কম দেওয়ার জন্য, শ্রমিকদের আরও ঠকানোর জন্য তারা এ ধরণের প্রোপাগান্ডা সব সময় চালায়।‘ ২০১৮ সালে তৈরি পোশাক রফতানি করে বাংলাদেশ আয় করেছে ৩২ বিলিয়ন ডলার। অথচ ২০১৪ সালে এই আয় ছিল ২৪ বিলিয়ন ডলার। ২০২১ সালের মধ্যে ৫০ বিলিয়ন ডলার রফতানির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। অর্থনীতিবিদ ফাহমিদা খাতুন বলছেন, আন্তর্জাতিক বাজারে দাম যাই হোক না, এই লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করা খুব একটা কঠিন হবে না। সূত্র: বিবিসি একে//

‘ইন্দোনেশিয়া ফেয়ার’ শুরু হচ্ছে বৃহস্পতিবার

বাংলাদেশে ইন্দোনেশিয়ার বাণিজ্য সম্প্রসারণ ও বিনিয়োগ বৃদ্ধির লক্ষ্যে আগামী বৃহস্পতিবার (২৫ এপ্রিল) থেকে রাজধানীর ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় (আইসিসিবি) দ্বিতীয়বারের মতো শুরু হচ্ছে তিন দিনব্যাপী ‘ইন্দোনেশিয়া ফেয়ার ২০১৯’। আজ মঙ্গলবার বেলা ১২ টায় রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁওয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে প্রদর্শনীর বিস্তারিত তুলে ধরেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ইন্দোনেশিয়ার রাষ্ট্রদূত রিনা পি সোমারনো। তিনি বলেন, ইন্দোনেশিয়ার ৭৫টির বেশি কোম্পানি তাদের পণ্য-সেবা নিয়ে প্রদর্শনীতে অংশ নেবে। ইন্দোনেশিয়ান বাটিক, পোশাক, গহনা, হস্তশিল্প সামগ্রী, প্রক্রিয়াজাত খাবার, বেভারেজ ও পর্যটনের উপর বিশেষ ছাড় থাকবে প্রদর্শনীতে। ইন্দোনেশিয়া-বাংলাদেশ বিজনেস অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট ফোরাম আয়োজিত এ প্রদর্শনী চলবে শনিবার (২৭ এপ্রিল) পর্যন্ত, বেলা ১১টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে মেলা প্রাঙ্গণ। রাষ্ট্রদূত জানান, প্রদর্শনীতে দুই দেশের ব্যবসায়ীদের নিয়ে আয়োজিত হবে বিজনেস ফোরাম, যেখানে ইন্দোনেশিয়ার ব্যবসায়ীরা বাংলাদেশে তাদের অংশীদার (পার্টনার) খুঁজে নেবেন। তিনি বলেন, আমাদের লক্ষ্য কী করে দুই দেশের মধ্যকার ব্যবসায়িক সম্পর্ক আরও জোরদার করা যায়। আমরা চাই বাংলাদেশে বিনিয়োগ করতে। রাষ্ট্রদূত রিনা পি সোমারনো বলেন, বাংলাদেশের কাছে ইন্দোনেশিয়ার সংস্কৃতিকে তুলে ধরবে এই প্রদর্শনী। সেই সঙ্গে আমরা চাই দুই দেশের মধ্যকার বাণিজ্য আরও সম্প্রসারিত হোক। প্রদর্শনীর মাধ্যমে দুই দেশের মধ্যকার বাণিজ্য সম্পর্কের উন্নয়নের পাশাপাশি বাণিজ্য ঘাটতি দূর করা নিয়ে আলোচনা হবে বলে জানান ইন্দোনেশিয়া বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা কামরুস সোবহান। তিনি বলেন, প্রদর্শনীর উদ্বোধন করবেন বাণিজ্য মন্ত্রী টিপু মুনশি। মেলার দ্বিতীয় দিন বিজনেস ফোরামের আলোচনা অনুষ্ঠিত হবে। সেখানে রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন। টিআর/

এ বছর চা উৎপাদনে নতুন রেকর্ডের প্রত্যাশা (ভিডিও)

আগাম বৃষ্টিতে মৌলভীবাজারে চা গাছগুলো ভরে উঠেছে নতুন কুঁড়িতে। উৎসবমুখর পরিবেশে শুরু হয়েছে পাতা তোলার কাজে। এ’বছর চা উৎপাদনে নতুন রেকর্ডের প্রত্যাশা করছে চা গবেষণা ইনস্টিটিউট। প্রতিবছরই ডিসেম্বরের শুরুতে নতুন বছরে বেশি পাতা পাওয়ার জন্য কেটে দেয়া হয় চা গাছের উপরের অংশ। আর ৩ মাস গাছের পরিচর্যা করে এপ্রিলে গাছে আসতে থাকে নতুন পাতা। শুরু হয় চায়ের মৌসুম। এ বছর ফেব্র“য়ারীর শেষে এবং মার্চ ও এপ্রিলের শুরুতে পর্যাপ্ত বৃষ্টি হওয়ায় মৌলভীবাজারের চা বাগানগুলো ভরে গেছে সবুজে সবুজে। আর তাই, এ বছরও লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি ফলন পাওয়ার আশা চা বাগান মালিক ও ব্যবস্থাপকদের। আর লক্ষ্যমাত্রা ঠিক রাখতে পোকামাকড় দমনে নিয়ম মেনে ওষুধ ছিটানো এবং মাটির উর্বরতা রক্ষায় পরিমিত সার ব্যবহারে সজাগ থাকার পরামর্শ দিয়েছেন চা গবেষকরা। অনুকুল আবহাওয়া বজায় থাকলে এবং সংশ্লিষ্টদের আন্তরিক প্রচেষ্টায় এ বছর দেশের চায়ের সর্বোচ্চ রেকর্ড ৮৫ মিলিয়ন কেজি ছাড়িয়ে যাবে বলে আশা করছে চা বোর্ড। বিস্তারিত দেখুন ভিডিওতে : এসএ/এসইউ  

অর্থনৈতিক সংস্থা এসইএসিও আত্মপ্রকাশ ঘটছে জুনে

দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার ৫টি দেশ নিয়ে নতুন আঞ্চলিক অর্থনৈতিক ফোরাম গঠনের উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ। প্রস্তাবিত নাম ‘সাউথ অ্যান্ড সাউথইস্ট এশিয়ান কো-অপারেশন’ (এসইএসিও)। নতুন ফোরামের যাত্রা শুরু হতে পারে আগামী জুনের শেষে। ব্রুনাই সফররত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশ ও ব্রুনাইসহ দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া অঞ্চলের ইসলামী সহযোগিতা সংস্থার (ওআইসি) ৫টি রাষ্ট্র নিয়ে রোববার এ ফোরাম গঠনে প্রস্তাব দেন ব্রুনাইয়ের সুলতানকে। ব্রুনাইয়ের সুলতান হাজি হাসানাল বলকিয়া এ উদ্যোগকে ইতিবাচক বলেছেন। ফোরামে মালয়েশিয়াকে আমন্ত্রণ জানাতে সেদেশে অবস্থান করছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম। তিনি ৪ সদস্যের প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। ব্রুনাই সুলতানের সঙ্গে আলোচনা শেষে পররাষ্ট্র সচিব শহীদুল হক সাংবাদিকদের বলেছেন, প্রস্তাবিত এ ফোরামে দক্ষিণ এশিয়া থেকে বাংলাদেশ ও মালদ্বীপ এবং দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া থেকে ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া ও ব্রুনাই সদস্য হবে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, এটা হবে ৫ দেশের আঞ্চলিক অর্থনৈতিক একীভূতকরণ সংক্রান্ত বেসরকারি খাত এবং ট্রাক-টু (বেসরকারি) পর্যায়ের ফোরাম। আগামী জুনে যাত্রা শুরুর লক্ষ্যে ঢাকায় পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের অংশগ্রহণে সম্মেলন হবে, সেখানে সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ের অংশীজনেরা যোগ দেবেন। এ লক্ষ্যে মালয়েশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী দাতো সাইফুদ্দীন আবদুল্লাহ এবং ওয়ার্ল্ড ইসলামিক ইকনোমিক ফোরামের (ডব্লি­উআইইএফ) চেয়ারম্যান এবং মালয়েশিয়ার সাবেক উপপ্রধানমন্ত্রী মুসা হাতিমের সঙ্গে সোমবার বাংলাদেশের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর পৃথক বৈঠক হয়। বাংলাদেশের উদ্যোগে তাদের স্বতঃস্ফূর্ত সমর্থন পাওয়া যায়। মালয়েশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে দুই দেশের পারস্পরিক ও দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক নিয়েও আলোচনা হয়েছে। আলোচনায় মালয়েশিয়ার বাজারে জনশক্তি রফতানি, দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য এবং বিনিয়োগ নিয়ে আলোচনা হয়। এ সময় মালয়েশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, মালয়েশিয়ার শ্রমবাজারের জন্য বাংলাদেশের জনশক্তি একটি উৎস হিসেবে বহাল থাকবে। এসএ/  

রমজান মাসে পণ্যের মূল্য স্বাভাবিক রাখতে বাণিজ্যমন্ত্রীর চিঠি

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি আসন্ন রমজান মাসে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের মজুত, সরবরাহ ও মূল্য স্বাভাবিক রাখতে ১৭ এপ্রিল বিভাগীয় কমিশনারদের চিঠি দিয়েছে। চিঠিতে রমজান মাসের নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য ভোক্তা জনসাধারণের কাছে ন্যায্যমূল্যে মান সম্পন্ন পণ্য সরবরাহের বিষয়ে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এছাড়া স্থানীয় পর্যায়ে পণ্যের মূল্য সহনীয় পর্যায়ে রাখা এবং জেলা ও উপজেলায় বাজারে পণ্য সরবরাহ ও মজুত অটুট রাখা, নির্বিঘ্নে পণ্য পরিবহন, অবৈধ মজুদ প্রতিরোধ এবং পণ্য মূল্য সহনীয় পর্যায়ে রাখতে মোবাইল কোর্ট কার্যক্রম জোরদারসহ প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য দেশের সব জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের প্রয়োজনীয় নির্দেশনা প্রদান করেছে। এসএইচ/

এফএসআইবিএল নববর্ষ কাপ গলফ্ টুর্নামেন্টের পুরস্কার বিতরণি

ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের পৃষ্ঠপোষকতায় ‘১ম এফএসআইবিএল নববর্ষ কাপ গলফ্ টুর্নামেন্ট ২০১৯’-এর সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণী পর্ব অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার শাহীন গলফ্ এন্ড কান্ট্রি ক্লাব পতেঙ্গা, চট্টগ্রামে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর প্রধান এয়ার চিফ মার্শাল মাসিহুজ্জামান সেরনিয়াবাত, বিবিপি, ওএসপি, এনডিইউ, পিএসসি এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ ওয়াসেক মো. আলী উপস্থিত ছিলেন। অন্যান্যদের মধ্যে বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর ঘাঁটি জহুরুল হকের এয়ার অফিসার কমান্ডিং ও শাহীন গলফ্ এন্ড কান্ট্রি ক্লাব পতেঙ্গার প্রেসিডেন্ট এয়ার ভাইস মার্শাল মুহাম্মদ মফিদুর রহমান, বিএসপি, বিইউপি, এনডিইউ, পিএসসি, ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক লিমিটেডের চট্টগ্রামের আঞ্চলিক প্রধান মো. হাফিজুর রহমানসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। এসএইচ/

সিগারেট রফতানিতে বিশেষ সুবিধা দেওয়া হবে: এনবিআর চেয়ারম্যান

দেশে ব্যবহার কমিয়ে সিগারেট কোম্পানিগুলোকে রপ্তানিমুখী হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া। তিনি বলেছেন, আপনারা রপ্তানি করেন, আমাদের পক্ষ থেকে সব সুযোগ-সুবিধা দেওয়া হবে। রোববার (২১ এপ্রিল) সকালে ইউনাইটেড ঢাকা ট্যোবাকো কোম্পানি লিমিটেড, বাংলাদেশ সিগারেট ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ বেভারেজ ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশন, অ্যাসোসিয়েশন অব মোবাইল অপারেটরস বাংলাদেশ (এমটব) এবং উইমেন এন্টারপ্রেনার অ্যাসোসিয়েশন বাংলাদেশের প্রতিনিধিদের সঙ্গে প্রাক বাজেট আলোচনায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ আহ্বান জানান। সেগুনবাগিচায় এনবিআর কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে সভাটি অনুষ্ঠিত হয়। তিনি বলেন, বাংলাদেশে সিগারেটের ব্যবহারের পরিমাণ কমানোর বিষয় বিবেচনায় রেখে এবারের বাজেটে দাম নির্ধারণ করা হবে। এক্ষেত্রে দেশি ব্যবহার কমিয়ে বিদেশে রপ্তানি করতে হবে বলে তিনি মনে করেন। তিনি আরো বলেন, গত বছর বাজেটেও আমরা রপ্তানির উপর ছাড় দিয়েছি। এবারো দেওয়া হবে। আপনারা এই সুযোগটি কাজে লাগান। রপ্তানি বাড়াতে আমরা অন্যান্য পণ্যের মতো সিগারেটের উপর জিরো ট্যাক্স করে দিয়েছি। এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, রেভিনিউ আদায় এনবিআর’র কাছে মুখ্য নয়। আমরা চাই দেশে ইনভেস্টমেন্ট আসুক। শুধু গার্মেন্ট নয় অন্যান্য কোম্পানিগুলো এক্সপোর্ট করুক। এক্ষেত্রে প্রচলিত ও অপ্রচলিত সব পণ্যই এক্সপোর্ট হোক। ট্যাক্স আপিলের জন্য অমীমাংসিত করের হার সর্ম্পকে তিনি বলেন, বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান মামলা মোকাদ্দমা করে কর দিতে দেরি করে। এক্ষেত্রে ২ থেকে ৩ বছরও লেগে যায়। সরকার যেন তার রেভিনিউ পায় এজন্য এটি করা হয়েছে। তবে এক্ষেত্রে সব প্রতিষ্ঠানকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, মামলা মোকাদ্দমা না করে সরাসরি আসুন বসুন, আমরা সমাধানে চেষ্টা করবো। তিনি বলেন, আমরা সবার প্রস্তাবগুলো গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছি। আলাপ আলোচনার মাধ্যমে আগামী বাজেটে সেগুলো অন্তর্ভুক্ত করা হবে। সভায় বাংলাদেশ বেভারেজ ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মো. হারুনুর রশিদ স্থানীয় পর্যায়ে উৎপাদিত সব কোমল পানীয়র উপর থেকে সম্পূরক শুল্ক হার কমানোর দাবি জানান। তিনি বলেন, প্রতিবেশী দেশগুলোতে কোমল পানীয়ের স্থানীয় কর হার অনেক কম। ভারতে ৩৫ দশমিক ৩ শতাংশ, শ্রীলঙ্কায় ২৯ দশমিক ২ শতাংশ, নেপালে ২৪ দশমিক ২ শতাংশ, ভুটানে ৩০ শতাংশ, আর বাংলাদেশে তা ৪৩ দশমিক ৭৫ শতাংশ। অর্থ্যাৎ বাংলাদেশে এটি সর্বোচ্চ। ফলে বিনিয়োগকারীরা এখানে নিরুৎসাহিত হচ্ছেন বলে তিনি মনে করেন। ইউনাইটেড ঢাকা ট্যোবাকো কোম্পানি লিমিটেডের করপোরেট অ্যাফেয়ার্স জাকির ইবনে হাই বলেন, কর ফাঁকি দিয়ে বাজারে সস্তা সিগারেটের সয়লাব হয়ে গেছে। এখন রাইস মিলের ভেতরেও সিগারেট তৈরি হচ্ছে। এতে করে আমরা যারা বিনিয়োগ করছি তারা তাদের বিনিয়োগ নিয়ে চিন্তায় আছি। তিনি আরো বলেন, রাজস্ব আদায়ের প্রধান খাতে যদি এ অবস্থা হয় তাহলে আমরা ব্যবসা করবো কিভাবে? এজন্য আগামী বাজেটে সিগারেটের দাম না বাড়ানোর আহ্বান জানান তিনি। এমটবের প্রতিনিধি মাহতাবউদ্দিন টেলিযোগাযোগ শিল্পের বিকাশ নিশ্চিত করতে সরকারের সিম বিক্রির উপর আরোপিত সম্পূরক ও মূল্য সংযোজন কর প্রত্যাহারের দাবি জানান। আরকে//

ডেমোগ্রাফিক ডিভিডেন্ট কাজে লাগাতে কর্মসংস্থান সৃষ্টির বিকল্প নেই

দেশ ডেমোগ্রাফিক ডিভিডেন্টের (জনসংখ্যার বোনাসকাল) মধ্যদিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু যথাযথ কর্মসংস্থানের অভাবে এই জন সম্পদকে কাজে লাগানো যাচ্ছে না। তাই ডেমোগ্রাফিক ডিভিডেন্টের সুবিধা কাজে লাগাতে কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয় এমন শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার ক্ষেত্রে অধিকতর গুরুত্ব দিতে হবে। রোববার ইকোনমিক রিপোর্টার্স ফোরাম (ইআরএফ) এবং ইন্টারন্যাশনাল ফাইন্যান্স কর্পোরেশনের (আইএফসি) যৌথ আয়োজিত কর্মশালায় বক্তারা এসব কথা বলেন। ইআরএফের কার্যালয়ে আয়োজিত এই কর্মশালার বিষয় বস্তু ছিল ট্রেড ফ্যাসিলিটেশন অ্যান্ড বাংলাদেশ। ইআরএফের সভাপতি সাইফ ইসলাম দিলালের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক এসএম রাশিদুল ইসলামের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন আইএফসির সিনিয়র ইকোনমিস্ট ড. মাসরুর রিয়াজ, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সদস্য খোন্দকার মোহাম্মদ আমিনুর রহমান, ঢাকা চেম্বারের সাবেক সভাপতি আবুল কাশেম, বিশ্বব্যাংকের বেসরকারিখাত বিশেষজ্ঞ নুসরাত নাহিদ ববি, এনবিআরের কাস্টমস মর্ডানাইজেশন অ্যান্ড প্রজেক্ট ম্যানেজমেন্টের ফার্স্ট সেক্রেটারি মো. গিয়াস কামাল এবং ইউকে এইডের প্রাইভেট সেক্টর ডেভেলপমেন্ট অ্যাডভাইজর মুশফিক ইবনে আকবর। অনুষ্ঠানে জানানো হয়, কর্মশালাটি রোববার উদ্ধোধন হল। আগামীতে কয়েকটি পর্বে এটি চলতে থাকবে। দ্বিতীয় পর্বের বিষয় বস্তু হল দেশের বাণিজ্য নীতি। এছাড়াও অর্থনীতির বিভিন্ন বিষয় নিয়ে ধারাবাহিকভাবে আলোচনা হবে এই কর্মশালায়। ড. মাসরুর রিয়াজ বলেন, বর্তমানে ডেমোগ্রাফিক ডিভিডেন্টের (জনসংখ্যার বোনাসকাল) মধ্যদিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। প্রতিবছর বাংলাদেশে ২০ লাখ শ্রমবাজারে আসছে। কিন্তু ওইভাবে কর্মসংস্থান বাড়ছে না। ফলে কর্মসংস্থান তৈরি হয়, এই ধরনের শিল্প প্রতিষ্ঠানের উদ্যোগ নিতে হবে। তিনি বলেন, কর্মসংস্থান বাড়াতে না পারলে ডেমোগ্রাফিক ডিভিডেন্ট দায় হয়ে দাড়াঁবে। তিনি বলেন, বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু আমাদের প্রতিযোগী দেশগুলোর আরও বেশি গতি আগাচ্ছে। তিনি বলেন, একটি বিষয়ে লক্ষ্যনীয় বাংলাদেশে দেশি বিদেশি বিনিয়োগ আছে, সেগুলো ধরে রাখতে পেরেছে বাংলাদেশ। কিন্তু নতুন বিনিয়োগ বাড়ছে না। প্রতিবছর ১ থেকে ২ বিলিয়ন ডলার সরারসি বিদেশি বিনিয়োগ (এফডিআই) আসছে, কিন্তু এর অধিকাংশই পুণ:বিনিয়োগ। কিন্তু নতুন বিনিয়োগ আসছে না। রফতানি বেড়েছে, কিন্তু বাংলাদেশের মতো জনসংখ্যার দেশে আরও বৃদ্ধি জরুরি। মাসরুর রিয়াজ বলেন ইআরএফের সদস্যদের সঙ্গে এই ধরনের কর্মশালা অব্যাহতভাবে চলবে। কারণ এরফলে আইএফসি এবং ইআরএফ উভয় প্রতিষ্ঠানের মধ্যে সম্পর্ক বাড়বে। পাশাপাশি ইএরএফ সদস্যদের দক্ষতা বাড়বে। এছাড়াও আইএফসিসহ সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলো সহজেই মানুষের তাদের কর্মসূচী পৌঁছাতে পারবে। খোন্দকার মোহাম্মদ আমিনুর রহমান বলেন, বাংলাদেশে ব্যবসা সহজ করতে কাজ করছে সরকার। তিনি বলেন, কাস্টমস থেকে কত সহজে পণ্য খালাস করা যায়, সে ব্যাপারে চেষ্টা চলছে। আমাদের প্রত্যাশা দ্রুতই একাজে সফলতা আসবে। আবুল কাশেম বলেন, সহজে ব্যবসা করার সুচকে অনেক পিছিয়ে আছে বাংলাদেশ। বিশ^ব্যাংকের ইজ অব ডুইং বীজনেস রিপোর্টে ১৯০টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১৭৬। কিন্ত ২০০৫-২০০৬ সালে ৬৫তম। বাংলাদেশ এই পিছিয়ে পড়ার কারণ হল আমাদের প্রতিযোগী দেশগুলো দ্রুত গতিতে সামনে এগিয়েছে। তিনি বলেন, জিডিপি প্রবৃদ্ধিসহ সবকিছুতেই বাংলাদেশের অগ্রগতি হচ্ছে। এরপরও মনে হচ্ছে, বাংলাদেশের আরও আগানো দরকার। কারণ আমাদের প্রতিযোগীরা বেশি গতিতে আগাচ্ছে। অনুষ্ঠানে জানানো হয়, আশে পাশের দেশগুলোর মধ্যে বন্দরের জটিলতায় সবচেয়ে পিছিয়ে আছে বাংলাদেশ। বিশেষ করে বাংলাদেশে আমদানি করা পণ্য কাস্টমসে খালাস করতে ৩৬০ ঘটনা সময় লাগে। আর রফতানি করা পণ্য জাহাজীকরণে সময় লাগে ৩১৫ ঘন্ট। কিন্তু দক্ষিণ কোরিয়াতে আমদানি পণ্য ৭ ঘন্টা এবং রফতানি পণ্য জাহাজীকরণে মাত্র ১৪ ঘন্টা সময় লাগে। ভিয়েতনামে আমদানি ১৩২ এবং রফতানিতে ১০৫ ঘন্টা সময় লাগে। তারা বলেন, পণ্য আমদানি রফতানির অনুমোদনে মোট ৩৯টি সংস্থা রয়েছে। প্রতিটি আমদানি রফতানিতে গড়ে ৭ থেকে ৮টি সংস্থার অনুমোদন লাগে। এগুলো প্রক্রিয়া দীর্ঘ। ফলে বন্দরে অনেক বেশি সময় লাগে। সাইফ ইসলাম দিলাল বলেন, সদস্যদের দক্ষতা বাড়াতে ইআরএফের এই ধরনের কর্মসূচী অব্যাহত থাকবে। এ সময়ে কর্মশালায় সহায়তা করায় আইএফসি এবং জাতীয় রাজস্ব বোর্ডকে ধন্যবাদ জানান তিনি। রাশিদুল ইসলাম বলেন, বাংলাদেশের মোট অর্থনীতির বড় অংশই বিশ্ব বাণিজ্যের সঙ্গে জড়িত। এই বিষয়কে বিবেচনায় নিয়ে কর্মশালার বিষয় বস্তু নির্ধারণ করা হয়। তিনি বলেন, আজ সংক্রান্ত কর্মশালা উদ্ধোধন হল। এরপর আইএফসির সঙ্গে যৌথভাবে আরও ৪টি কর্মশালা করবে ইআরএফ। এ সময়ে কর্মশালায় সহযোগিতার জন্য আইএফসি, এনবিআর এবং ইউকে এইডকে ধন্যবাদ জানান তিনি। কর্মশালায় ইআরএফের ৮০জন সদস্য অংশ নিয়েছেন। চার ঘন্টা ব্যাপি এ কর্মশালায় দেশের অর্থনীতি, বহুপাক্ষিক বাণিজ্য এবং কাস্টমসের বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা হয়। আরকে//

অপো এফ১১ প্রোয়ের বিক্রি শুরু

দেশের বাজারে আনুষ্ঠানিকভাবে বিক্রি শুরু হলো অপো এফ১১ প্রোয়ের।রবিশপ সহ বিভিন্ন অনলাইন প্ল্যাটফর্ম ও অপো সেন্টার থেকে কেনা যাবে অপো এফ১১ প্রো। ফোনটি কিনলে রবি ও এয়ারটেল গ্রাহকরা বোনাস হিসেবে পেয়ে যাবেন ১২ গিগাবাইট ইন্টারনেট ডাটা। অফারটির মেয়াদ থাকবে ৩০ দিন পর্যন্ত। মঙ্গলবার রাজধানীর একটি হোটেলে আনুষ্ঠানিকভাবে ফোনটির উন্মোচন করা হয়। ডিভাইসটিতে রয়েছে ৬ দশমিক ৫ ইঞ্চির ফুলস্ক্রিন এইচডি ডিসপ্লে, যার রেজুলেশন ১০৮০*২৩৪০ মেগাপিক্সেল। এর অ্যাসপেক্ট রেশিও ১৯:৫:৯। ফোনের পেছনে ৪৮ ও ৫ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা রয়েছে। সামনে রয়েছে ১৬ মেগাপিক্সেলের পপআপ ক্যামেরা।মিডিয়াটেক হেলিও পি৭০ ১.৭৯ গিগাহার্জের অক্টাকোর প্রসেসর রয়েছে এতে। ফোনটিতে অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে রয়েছে অ্যান্ড্রয়েড ৯ পাই কালার ওএস।এফ১১ প্রো মডেলটিতে রয়েছে ফাস্ট চার্জিং সুবিধাসহ দীর্ঘ ব্যাকআপ দিতে ৪০০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার ব্যাটারি। এটি ফুল চার্জ হতে সময় লাগবে ৮০ মিনিট।থান্ডার ব্ল্যাক ও অরোরা গ্রিন রঙে অপো এফ১১ প্রো পাওয়া যাবে ৩৬ হাজার ৯৯০ টাকায়।

পদ্মা ব্যাংকের দ্বিতীয় পর্ষদ সভা অনুষ্ঠিত

চতুর্থ প্রজন্মের পদ্মা ব্যাংক লিমিটেডের দ্বিতীয় পর্ষদ সভা অনুষ্ঠিত হয় বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল, মতিঝিল শাখায়। পর্ষদ সভায় সভাপতিত্ব করেন পদ্মা ব্যাংকের চেয়ারম্যান চৌধুরী নাফিজ সরাফাত। পরিচালনা পর্ষদের আরও উপস্থিত ছিলেন পদ্মা ব্যাংক লিমিটেডের ভাইস-চেয়ারম্যান হাসান তাহের ইমাম, তামিম মারজান হুদা, সোনালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ ওবায়েদ উল্লাহ আল মাসুদ, জনতা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আবদুস সালাম আজাদ। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন পদ্মা ব্যাংক লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ এহসান খসরু এবং উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক মুহাম্মদ আলী জারিয়াব। আরকে//

বিজিএমইএ`র দায়িত্ব নিলেন ড. রুবানা হক

দেশের তৈরি পোশাক শিল্প মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ’র সভাপতির দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন নব-নির্বাচিত সভাপতি ড. রুবানা হক। শনিবার (২০ এপ্রিল) উত্তরায় নবনির্মিত বিজিএমইএ কমপ্লেক্সে সংগঠনটির ৩৬তম বার্ষিক সাধারণ সভায় (এজিএম) আনুষ্টানিকভাবে তিনি এ দায়িত্ব গ্রহণ করেন। সংগঠনটির পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য জানানো হয়। সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বার্ষিক সাধারণ সভায় বিজিএমইএর নব-নির্বাচিত পরিচালনা বোর্ড সদ্য বিদায়ী পরিচালনা বোর্ডের কাছ থেকে বিজিএমইএ’র দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। সভার প্রথম অংশে বিজিএমইএ’র সদ্য বিদায়ী সভাপতি মো. সিদ্দিকুর রহমান ও শেষ অংশে নব-নির্বাচিত সভাপতি ড. রুবানা হক সভাপতিত্ব করেন। সভায় ২০১৭-১৮ সালের নিরীক্ষিত হিসাব বিবরণী পাস হয়। একইসঙ্গে আগামী দুই বছরের (২০১৮-১৯ সাল) বাজেট অনুমোদন হয়। আগামী দুই বছরের জন্য দায়িত্বপ্রাপ্তরা হলেন হলেন সভাপতি ড. রুবানা হক, প্রথম সহ-সভাপতি মোহাম্মদ আব্দুস সালাম, সিনিয়র সহ-সভাপতি ফয়সাল সামাদ, সহ-সভাপতি এস এম মান্নান (কচি), সহ-সভাপতি (অর্থ) এম এ রহিম (ফিরোজ), সহ-সভাপতি আরশাদ জামাল (দিপু), সহ-সভাপতি মো. মশিউল আজম (সজল), সহ-সভাপতি এ এম চৌধুরী (সেলিম)। আরকে//

শিল্পের টেকসই উন্নয়নে পরিবেশ দূষণ কমানোর আহ্বান

দেশের প্রধান রপ্তানি খাত পোশাক শিল্পকে আরও টেকসই করতে উন্নত বর্জ্য ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে দূষণ কমানোর আহ্বান এসেছে একটি আলোচনা অনুষ্ঠান থেকে। শনিবার ঢাকার ব্রাক সেন্টারে অ্যাকশনএইড এবং ফ্যাশন রেভোলিউশন আয়োজিত ‘ভয়েসেস অ্যান্ড সল্যুশনস’ শীর্ষক সেমিনারে গত এক দশকে দেশীয় পোশাক শিল্পের অনেক সংস্কার উদ্যোগও আলোচনায় আসে। অনুষ্ঠানে পোশাক শিল্পে পানি ও পরিবেশ দূষণ নিয়ে আয়োজকদের কয়েকটি তথ্যের সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করেন কারখানা মলিকরা। রানা প্লাজা দুর্ঘটনার পর চলমান সংস্কার প্রক্রিয়ার সুফল হিসেবে গড়ে ওঠা বিভিন্ন পরিবেশ বান্ধব কারখানার বিষয়টি তুলে ধরেন তারা। অ্যাকশনএইডের কান্ট্রি ডিরেক্টর ফারাহ কবির বলেন, শিল্পের ক্রমাগত বিকাশের ফলে ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে পরিবেশ। উৎপাদন প্রক্রিয়ায় সম্পদের মাত্রাতিরিক্ত ব্যবহারে পরিবেশের ওপর নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে। আবার উৎপাদিত বর্জ্যের কারণে প্রতক্ষ্যভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে পরিবেশ। বিশেষজ্ঞরা এই পরিস্থিতিকে উদ্বেগজনক হিসেবে উল্লেখ করে বলেছেন, এখনই টেকসই উৎপাদন ও ভোগ ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করা দরকার। পরিবেশের উপর পোশাক শিল্পখাতের এই নেতিবাচক প্রভাব কমাতে উদ্ভাবনী উদ্যোগ ও প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে শিল্প কলকারখানার পানি, জ্বালানী ব্যবহার হ্রাস করে বর্জ্য নিষ্কাশন কমানো প্রয়োজন। অনুষ্ঠানের শুরুতে একশনএইড বাংলাদেশ-এর কান্ট্রি ডিরেক্টর ফারাহ্ কবির পোশাক খাত কিভাবে পরিবেশের উপর প্রভাব ফেলছে তার উপর একটি প্রবন্ধ উপপস্থান করেন। প্রবন্ধে বলা হয়, বিশ্বব্যাপী ৩ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলারের বাণিজ্য খাত ফ্যাশন শিল্প। যেটি পৃথিবীর দ্বিতীয় বৃহত্তম দূষণকারী খাত। একইসাথে এটি সারা বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ পানি ব্যবহারকারী খাত। অপরদিকে, শুধুমাত্র এই একটি খাত থেকেই বিশে^র ২০ শতাংশ বর্জ্য পানি এবং ১০ শতাংশ কার্বন ডাই অক্সাইড নিঃসরণ হয়। প্রবন্ধে বলা হয়, শিল্প কারখানার সকল ক্ষেত্র, যেমন কাটা, বয়ন, সেলাই, প্রক্রিয়াজাতকরণ এবং তৈরী পোশাক উৎপাদন বায়ূ, পানি এবং মাটি দূষণ করে থাকে। বেশিরভাগ কারখানা নদীর তীরে অবস্থিত হওয়ায় তাদের বর্জ্য নদীতে ফেলা হয়। ইন্টারন্যাশনাল ফিন্যান্স কর্পোরেশনের এক গবেষণা মতে, প্রতিবছর পোশাক শিল্প কারখানায় পোশাক ও তুলা ধৌতকরণ এবং রঙ এর কাজে ১৫শ বিলিয়ন লিটার পানি ব্যবহার করা হয়। কারখানাগুলো ব্যবহারের পর এই বিষাক্ত পানি নদী এবং খালে নিষ্কাশন করে। এ প্রসঙ্গে ফারাহ্ কবির বলেন, বাংলাদেশের পোশাক শিল্পখাত দেশের অর্থনীতিতে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখলেও, পরিবেশের জন্য এটি উদ্বেগজনক। পানি দূষণের ফলে একদিকে কমছে মাছের সংখ্যা অপরদিকে হ্রাস পাচ্ছে চাষের উপযোগী জমি। বেশিরভাগ স্থানীয় কৃষক ও মৎস্যজীবীদের জীবিকা এখন ঝুঁকিপূর্ণ। পরিস্থিতি সামাল দিতে সব পক্ষকে একসাথে কাজ করতে হবে। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ও বিজিএমইএ-এর সাবেক সভাপতি আতিকুল ইসলাম বলেন, সচেতনতা বৃদ্ধির মাধ্যমে উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করে শিল্পকারখানা হতে নিষ্কাশিত বর্জ্যরে পরিমাণ কমিয়ে আনতে হবে। জলাশয়কে ডাস্টবিন হিসেবে ব্যবহার করা যাবে না। বর্জ্য নিষ্কাশন ব্যবস্থাকে করতে হবে আরো উন্নত। মেয়র আরো বলেন, রানা প্লাজা ধ্বসের পর বাংলাদেশের শিল্প খাতে অনেক পরিবর্তন এসেছে। তবে, অংশীদারদের মধ্যেই এখনো সচেতনতার অভাব রয়েছে। টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য বাস্তবায়নে পোশাক শিল্পখাতে কূটনৈতিক তৎপরতা জোরদার করতে হবে। নিজেদের দায়িত্ব না এড়িয়ে নিজেদের ব্যবহারে ও মানসিকতায় পরিবর্তন আনতে হবে। জোর দিতে হবে গবেষণায় এবং শিক্ষাব্যবস্থায় টেকসই উৎপাদন ও ব্যবহারের বিষয় অন্তর্ভুক্তকরণে। অনুষ্ঠানের ধারণাপত্রে বলা হয়, বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকায় গত দুই দশকে ভূগর্ভস্থ পানির পরিমাণ ব্যাপক মাত্রায় হ্রাস পেয়েছে। অতিরিক্ত ব্যবহার এবং নগরীকরণের কারণে পুনরায় পানি সরবরাহের অভাবই হলো এর মূল কারণ। ঢাকার পানি সরবরাহের প্রায় ৮২ শতাংশই ভূগর্ভস্থ পানির উপর নির্ভরশীল। পানির এই বিশাল চাহিদা পূরণের জন্য, ভূ-পানির স্তর প্রতি বছর ২-৩ মিটার পরিমাণে হ্রাস পাচ্ছে। গবেষণায় দেখা যাচ্ছে, যদি পর্যাপ্ত প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ না করা হয় তবে ২০৫০ সালের মধ্যে ভূগর্ভস্থ পানির পরিমাণ কমে গিয়ে ১১০ থেকে ১১৫ মিটারে নেমে আসবে। এছাড়া পোশাক শিল্পের বর্জ্য হতে নির্গত মিথেন বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধিতে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখে। পোশাক প্রক্রিয়াকরণে ব্যবহৃত রাসায়নিক রং মাটির সঙ্গে মিশে ভূপৃষ্ঠ এবং ভূগর্ভস্থ পানি দূষিত করে। কিউটেক্স সল্যুশনস লিমিটেড-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক তাহুরা খানম বলেন, বর্জ্য নিষ্কাশন শুধু পরিবেশ দূষণই করছে না বরং জ্বালানী খরচ বৃদ্ধি করছে। বর্তমানে গড়ে অধিকাংশ কারখানার জ্বালানী দক্ষতা মাত্র ২০-২৫ শতাংশ। শিল্পকারখানার এই নেতিবাচক প্রভাব রোধে সরকার, নগর কর্তৃপক্ষ এবং শিল্প কারখানাসমূহের ভালো উদ্যোগগুলো সমন্বয়ের অভাবে সঠিকভাবে কার্যকর হচ্ছে না। বিজিএমইএ-এর সদ্য নির্বাচিত পরিচালক জনাব শরীফ জহির বলেন, কাঁচামাল দক্ষতার সাথে ব্যবহার করলে বর্জ্যরে পরিমাণ আরো কমিয়ে আনা সম্ভব। পানি ও জ্বালানী ব্যবহার কমিয়ে এনে বর্জ্য নিষ্কাশনের হার হ্রাস করার লক্ষ্যে আরো কাজ করা জরুরি। প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে এক্ষেত্রে ভালো উদ্যোগগুলো সবার মাঝে ছড়িয়ে দেওয়া জরুরি। পরিবেশবান্ধব মেশিন ব্যবহারসহ ভালো উদ্যোগগুলো প্রচারের মাধ্যমে অংশীদারদের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি করে এই সমস্যার সমাধানের দিকে এগিয়ে যাওয়া সম্ভব। বিজিএমইএ-এর সাবেক সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট ফারুক হাসান জানান, “বর্জ্য নিষ্কাশনের পরিমাণ কমিয়ে আনতে আমরা কাজ করছি। এজন্য কর্মচারী ও শ্রমিকদের দক্ষতা বৃদ্ধি প্রয়োজন। এজন্য আরো উন্নয়ন ও বিনিয়োগ দরকার।” ঢাকা চেম্বার অফ কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি-এর সাবেক সভাপতি আসিফ ইব্রাহিম বলেন, সমমানের বিকল্প খাতের অভাবে আগামী ১০-১৫ বছর এই শিল্পখাতের উপর নির্ভর করেই বাংলাদেশকে এগোতে হবে। বিজিএমইএ টেকসই পণ্য উন্নয়নের লক্ষ্যে প্রশিক্ষণ ও গবেষণা কার্যক্রমে গুরুত্ব দিচ্ছে। উৎপাদনের সাথে ব্যবসায়িক চাহিদার সমন্বয় ঘটাতে হবে। একইসাথে, পরিবেশ রক্ষা, কর্মক্ষেত্রে নিরাপত্তা নিশ্চিতে কাজ করবে এই সংগঠন। ফ্যাশন রিভোলিউশন-এর কান্ট্রি কো-অর্ডিনেটর নওশীন খায়ের, সবার আগে সকলের মানসিক পরিবর্তন জরুরি। সম্প্রতি অনেক নতুন ব্র্যান্ড টেকসই উৎপাদন এবং ব্যবহারে উৎসাহী হচ্ছে। ইউল্যাব বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ইমরান রহমান বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়সমূহের উচিৎ তাদের নীতিমালায় টেকসই উৎপাদন ও ব্যবহারের উপর জোর দেওয়া। এখন পর্যন্ত ফ্যাশন শিল্প নিয়ে নীতিমালা তৈরির জন্য পর্যাপ্ত তথ্য উপাত্ত নেই। তাই আরো বেশি গবেষণার প্রয়োজন। পরিবেশ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ড. সুলতান আহমেদ দিনব্যাপি এই আলোচনার দ্বিতীয়ভাগে বলেন, দেশের কারখানাগুলোর পরিবশ বিষয়ক তদারকি ব্যবস্থাপনা আছে। তবে তদারকির জন্য যথেষ্ট লোকবল নেই। আমাদের পরিবেশ রক্ষার জন্য প্রয়োজন দক্ষ জনশক্তি ও পরিবেশ ব্যবস্থাপনা। একইসঙ্গে দরকার সকলের মানসিকতার পরিবর্তন। আয়োজকরা প্রবন্ধে বলেন, বর্তমানে সমস্ত শিল্প কর্মসংস্থানের ৪৫ শতাংশই হয় পোশাক এবং টেক্সটাইল খাতে, যা মোট জাতীয় আয়ের ৫ শতাংশ। দেশে রপ্তানি আয়ের ৭৮ শতাংশ আসে এই খাত থেকে। এই খাত, যেখানে কাজ করছে দেশের ৪ মিলিয়নেরও বেশি মানুষ, তার পরিচালনার ফলে পরিবেশের উপর যে নেতিবাচক প্রভাব, তা বিবেচনা করে এই শিল্পকে টেকসই করার প্রতি মনোযোগ দেওয়া অত্যন্ত প্রয়োজনীয় হয়ে দাড়িয়েছে। আর তাই এই সেমিনার এ আলোচনার মধ্য দিয়ে একটি প্লাটফর্মের সূচনা করা হয় যেখানে ফ্যাশন শিল্পখাতের অংশীদারগণ তাদের সমস্যা ও চ্যালেঞ্জসমূহ নিয়ে কথা বলবেন এবং অভিজ্ঞতার আলোকে প্রাপ্ত সমাধান তুলে ধরবেন সকলের সামনে। আরকে//

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি