ঢাকা, শুক্রবার   ২৪ জানুয়ারি ২০২০, || মাঘ ১১ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

আপনি কি সান অ্যালার্জির শিকার?

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১৩:৪৮ ২০ জুন ২০১৭ | আপডেট: ১৬:৪৩ ২০ জুন ২০১৭

গরমের মৌসুমে যারা বেশিরভাগ সময় বাইরে কাটান, তাদের দেখা দিতে পারে সান অ্যালার্জির সমস্যা। কিন্তু কী এই সান অ্যালার্জি?

বেশ কিছু সমস্যা বা উপসর্গ নির্দেশ করে আপনার ত্বকে সান অ্যালার্জির উপস্থিতি। সূর্যের আলোর সংস্পর্শে আসার পর ত্বকে র‌্যাশ উঠলে তাকে ফটোসেনসিটিভ ডিজঅর্ডার অথবা ফটোডার্মাটোস বলা হয়। বেশ কিছু মেডিক্যাল টার্ম আছে এর জন্য যেমন- ইডিওপ্যাথিক ফটোডার্মাটোস, এক্সোজেনাস ফটোডার্মাটোস, ফটোএক্সারবেটেড ফটোডার্মাটোস, জেনেটিক ফটোডার্মাটোস এবং মেটাবলিক ফটোডার্মাটোস।

আপনারও এ সমস্যাটি হয়েছে কিনা বুঝবেন কী করে? কয়েক ঘন্টা সূর্যের আলোয় কাটানোর পর আপনার হাত এবং বুকের ওপরের অংশে যদি চুলকানিসহ র‌্যাশ হয়, তাহলে সম্ভবত আপনার হয়েছে পলিমর্ফাস লাইট ইরাপশন (PMLE)। সান অ্যালার্জি বলতে সাধারণ এটাকেই বুঝায়। এ ধরণের ফটোডার্মাটোস বেশি দেখা যায়। একেক জন মানুষের শরীরে এই র‌্যাশ একেক রকম দেখায় বলে একে পলিমর্ফাস বলা হয়। সাধারণত ২০-৪০ বছর বয়সী মানুষে তা বেশি হয়। হাত-পা এবং বুকে দেখা যায় র‌্যাশ, মুখে সাধারণত হয় না। সূর্যের আলো থেকে ত্বক ঢেকে রাখলে এবং সানস্ক্রিন ব্যবহার করলে সাধারণত তা এড়ানো যায়।

কিন্তু সূর্যের আলোয় কয়েক মিনিট থাকার পরেই যদি ত্বকে র‌্যাশ দেখা দেয়, তখন? এর অর্থ হতে পারে আপনার সোলার ইউট্রিকারিয়া আছে, যা কিনা মুখ ছাড়া শরীরের বাকি অংশে (যেখানে রোদ পড়েছে) হতে পারে। রোদ থেকে সরে গেলে এটা ঠিক হয়ে যায় দ্রুতই, আর ২৪ ঘন্টার বেশি সাধারণত থাকে না। অনেকে ব্রণ দূর করার জন্য ডক্সিসাইক্লিন খান, তাদের ক্ষেত্রে ত্বক দ্রুত লাল হয়ে পুড়ে যেতে পারে। একে বলা হয় ড্রাগ-ইনডিউসড ফটোসেনসিটিভিটি। বেশ কিছু মুখে খাওয়ার ওষুধ এবং ত্বকে প্রয়োগের মলমের কারণে এমনটা হতে পারে। এটা আবার মুখসহ শরীরের যে কোনো অংশে হতে পারে।

আপনি যদি জানেন আপনার গ্রহণ করা ওষুধের কারণে ফটোসেনসিটিভিটি হতে পারে, তাহলে রোদে কম যাওয়া উচিৎ এবং সানস্ক্রিন ব্যবহারে মনযোগী হতে হবে। যদি তা সম্ভব না হয় তাহলে ডাক্তারের সাথে কথা বলে দেখুন ওষুধ পাল্টানো যায় কিনা।

অনেকেই এই সময়ে লেবুর শরবত পান করেন, অথবা লেবু আছে এমন ফেসপ্যাক ব্যবহার করেন ত্বকে। লেবুর রস ত্বক থেকে ভালোভাবে পরিষ্কার না করে রোদে গেলে হতে পারে আরেক ধরণের ফটসেনসিটিভিটি। একে ফাইটোফটোডার্মাটাইটিস বলা হয়। এটা সাধারণত নিজে থেকেই চলে যায়। আইস প্যাকের ব্যবহারে উপশম হতে পারে। নিজে থেকে না গেলে ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

ত্বকের কিছু কিছু সমস্যা রোদের কারণে আরো খারাপ অবস্থা ধারণ করতে পারে। এসব ক্ষেত্রে উচ্চমাত্রার সানস্ক্রিন ব্যবহার করা দরকার।

জেনেটিক ফটোডার্মাটোস আছে এমন মানুষ দুর্লভ। খুব সহজেই সান বার্ন হয় এবং প্রচুর র‌্যাশ হয় রোদে গেলেই। তাদের জন্য স্কিন ক্যান্সারের ঝুঁকিটা বেশি হয়। মেটাবলিক ফটোডার্মাটোসও জেনেটিক হতে পারে। এর একটি ধরণ হলো পরফিরিয়া। ধরণের ওপর নির্ভর করে ফরফিরিয়া অন্যান্য অঙ্গেরও ক্ষতি করতে পারে। এর কোনো প্রতিকার নেই। রোদ থেকে দূরে থাকা এবং নিয়ম করে সানস্ক্রিনের ব্যবহার করলে সমস্যাটি নিয়ন্ত্রনে রাখা যায়।

রোদে গেলে যদি আপনার এ ধরণের সমস্যা হয় তবে ডাক্তারের পরামর্শ নিন।  সূত্র: হাফিংটন পোস্ট।

© ২০২০ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি