ঢাকা, রবিবার   ১৭ নভেম্বর ২০১৯, || অগ্রাহায়ণ ৪ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

জিন্স নিয়ে ৮ তথ্য

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১১:২৮ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | আপডেট: ১২:৩৬ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮

জিন্সের সঙ্গে কাউকে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার প্রয়োজন নেই, একথা ঠিক৷ তবে জিন্সের প্যান্ট স্কিনি বা স্ট্রেচ হওয়ায় যেমন রয়েছে ভিন্ন ভিন্ন নাম, তেমনি রয়েছে নানা রকমের ছাঁট ও ডিজাইন৷

মম জিন্স

এই নামের ও ছাঁটের জিন্স হয় আরামদায়ক৷ ওপরের অংশ কিছুটা ঢিলেঢালা হলেও নীচে অর্থাৎ পায়ের কাছে চাপা৷ এই জিন্স পরার পর কিন্তু পেট বেশ নির্মেদ দেখায়৷ বলা যায়, যাদের পেট সামান্য মোটা, তাদের জন্য অবশ্যই মম জিন্স ভালো৷

ওয়াইড ক্রপড জিন্স

এই ছাঁটের জিন্সের ওপরটা চাপা বা টাইট, তবে পা দু’টো চওড়া৷ এই জিন্সের সঙ্গে হাইহিল পরলে মেয়েদের কিন্তু বেশ স্মার্ট দেখায়৷

ফ্লেয়ার্ড জিন্স

টাইট জিন্স তবে নীচের বর্ডার উল্টনো বা ভাঁজ করা৷ এই ডিজাইন কিন্তু আগে ট্রেন্ড ছিল, এখনও ট্রেন্ড৷

স্কিনি জিন্স

নামেই যার পরিচয়৷ পায়ের সঙ্গে একদম টাইট হয়ে লেগে থাকে এই জিন্স৷ তরুণ-তরুণীদের ভীষণ পছন্দ!

ডেকোরেটেড অর্থাৎ সাজুগুজু করা জিন্স

ছোট ছোট কাঁচ পাথর বা পুতি বসানো জিন্স৷ একটু কম বয়সের মেয়েরাই এ সব পরে থাকে৷ তবে এই জিন্স ওয়াশিং মেশিনে ধোয়া যায় না৷

স্ট্রিংটাঙ্গা জিন্স

খোলামেলা জিন্স৷ এ রকম জিন্স পরা মানুষ অবশ্য তেমন দেখা যায় না বললেই চলে৷

স্ট্রেচ জিন্স

এই জিন্স টানলে কিছুটা বড় হয়, অর্থাৎ সাইজ একটু এ দিক-সে দিক হলেও কিন্তু ভালোভাবেই পরা যায়৷ এ জিন্স খুব আরামদায়ক৷ তবে এই ধরনের জিন্স কিন্তু ড্রায়ারে দেওয়া যাবে না৷

বয়ফ্রেন্ড জিন্স

এই জিন্সের ছাঁট সাধারণ, তবে একটু ঘুরিয়ে সেলাই করা৷ খুব জনপ্রিয় এই জিন্স মেরিলিন মনরোর মতো সে যুগের অভিনেত্রীর যেমন প্রিয় ছিল, তেমনি এ যুগের কেটি হোমসেরও খুব প্রিয়৷

সূত্র: ডয়চে ভেলে

একে//

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি