ঢাকা, রবিবার   ১৩ জুন ২০২১, || জ্যৈষ্ঠ ৩০ ১৪২৮

দাঁতের সুস্বাস্থ্য ধরে রাখতে করণীয় (ভিডিও)

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১৬:৩৬, ২১ মার্চ ২০২১

মানবদেহের গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ দাঁত। দাঁতের মাধ্যমেই খাদ্য গ্রহণ প্রক্রিয়ার প্রথম ধাপের শুরু। তাই এর প্রতি যত্নবান হওয়া জরুরি। দাঁতের সুস্বাস্থ্য ধরে রাখতে দরকার সচেতনতা। এ জন্যে নিয়মিত দন্ত চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়ার পাশাপাশি স্বাস্থ্যবিধি অনুশীলন দরকার। এসব কথা জানান বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক। আর, বিডিএস ডিগ্রি না থালে এবং বিএমডিসি স্বীকৃত না হলে দাঁতের চিকিৎসক হওয়া যায় না বলেও জানান ডেন্টাল শিক্ষা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক মোশাররফ হোসাইন খন্দকার মুসা। 

মানবদেহের গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ দাঁত। সুন্দর হাসি এবং সুস্বাস্থ্য, দু’য়ের জন্যই সুস্থ দাঁত জরুরি। এ জন্যে দরকার নিয়মিত দন্ত চিকিৎসকের পরামর্শ মতে দাঁতের যত্ন নেওয়া।

নিয়মিত যত্ন নিলে দাঁত সুস্থ থাকার পাশাপাশি সুন্দরও দেখাবে। তাই দাঁতের যত্নে প্রতিদিন কমপক্ষে দুই বার সঠিক নিয়মে ব্রাশ করা জরুরি। এর সঙ্গে দরকার পুষ্টিকর খাবার গ্রহণ। 

বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক বলেন, সুষম খাদ্য এবং দাঁতের যত্ন খুবই জরুরি।

দাঁতের যত্নে মানসম্মত ব্রাশ ব্যবহারও গুরুত্বপূর্ণ, জানান এই বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ডেন্টাল শিক্ষা পরিচালক ডা. মো. মোশাররফ হোসেন খন্দকার মুসা বলেন, দাঁতের ব্রাশ আমাদের যে যত্ন নেয়, সেই ব্রাশের যত্ন নেয়া উচিত। দাঁত যে শিরশির করে এই শিরশির কমানোর জন্য ডিসেন্টের টুথপেস্ট পাওয়া যায়। আমাদের দেশের বেশ ভাল এবেং এভেলেভেল পেপসোডেন্ট সেনসিভিটি একটি টুথপেস্ট আছে এটা গ্লোবালি ব্যবহার হয়ে থাকে। 

যত্ন না নিলে ধীরে ধীরে দাঁতের এনামেল ক্ষয়ে যায়। আর এভাবে ক্ষয় হলে একসময় ডেন্টিন বের হয়ে আসে। খোলা ডেন্টিনের সংস্পর্শে ঠাণ্ডা বা গরম খাবার আসলেই দাঁতে শিরশির অনুভূতি হয়; যাকে সেনসিটিভিটি বলা হয়।

ডা. মো. মোশাররফ হোসেন খন্দকার মুসা বলেন, টক, মিষ্টি এবং সফট পানীয় খাবার অথবা বাতাস যদি অনুভূত হয় অর্থাৎ এই কারণে যদি কারও ব্যথা বা অস্বস্তি হয় তাকে আমরা বলি সেনসিটিভিটি। যদি ক্ষয়ে যায় তখন খাবার খেলে হবে না প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা নিতে হবে।

দাঁত ও মুখের সুস্বাস্থ্য মানুষের সুস্থ জীবন যাপনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। আর ঠিকমত যত্ন না নিলে ক্ষয় হওয়া থেকে শুরু করে ক্যান্সার হওয়ারও আশংকা থাকে। এতে মৃত্যুঝুঁকি বাড়ে বলে জানান এই চিকিৎসক। 

ডা. মো. মোশাররফ হোসেন খন্দকার মুসা বলেন, অনিয়মতি জীবন যাপনে মুখ ও দাঁত বিভিন্ন রোগের সম্মুখীন হয়। ডেন্টাল ক্যারিস্ট থেকে শুরু করে ওরাল ক্যান্সার পর্যন্ত হতে পারে। এছাড়াও দাঁতের কারণে আমাদের স্বাভাবিক জীবন যাপনে অসুবিধা হয়, জীবনে কোয়ালিটি ফিরে আসে না। দাঁতের ব্যথায় মানুষের বহুমুখি সমস্যা দেখা দেয়।

দাঁতের সুরক্ষায় বছরে অন্তত দুবার বিডিএস কোয়ালিফাইড চিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। বিডিএস ডিগ্রি না থাকলে এবং বিএমডিসি স্বীকৃত না হলে দাঁতের চিকিৎসক হওয়া যায়না বলেও জানান তিনি।

ডা. মো. মোশাররফ হোসেন খন্দকার মুসা বলেন, বিএমডিসির রেজিস্ট্রার বিহীন কেউ ডাক্তার নয়। সেক্ষেত্রে ডেন্টিস্টদের মধ্যে বিডিএস যারা তারা ডেন্টাল সার্জন এবং মেডিসিন বা সার্জারি তারা এমবিবিএস ডাক্তার। এছাড়া কেউ ডেন্টাল ডাক্তার নয়।

নিয়মিত দাঁতের যত্ন এবং বিডিএস ডিগ্রিধারী চিকিৎসকের পরামর্শ দাঁতকে দীর্ঘস্থায়ী রাখবে বলেও জানান এই চিকিৎসক।

এই বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক বলেন, সুন্দর হাঁসি, সুন্দর দাঁত, সুন্দর জীবন।

ভিডিও-

এএইচ/


Ekushey Television Ltd.

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি