ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২১ অক্টোবর ২০২১, || কার্তিক ৫ ১৪২৮

দেরি নয়, আর্থ্রাইটিস চিকিৎসায়

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ০৯:০৭, ১২ অক্টোবর ২০২১

নানা কারণে বেড়েই চলেছে হাড়ের জয়েন্টে ব্যথা বা বাত রোগের হার। ছোট-বড় সকলের ক্ষেত্রেই এটি এখন দৃশ্যমান। শুরুতে অনেকেই এই ব্যথাকে তেমন একটা গুরুত্ব দেন না। কিন্তু পরবর্তীতে এটি জটিল আকার ধারণ করতে পারে। ফলে সময় থাকতে সচেতন হওয়া সকলের জন্যই জরুরি। তাইতো ‘আর দেরি নয়, আর্থ্রাইটিস চিকিৎসার এখনই সময়’- এ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে ১২ অক্টোবর, মঙ্গলবার পালিত হচ্ছে ‘বিশ্ব আর্থ্রাইটিস দিবস’।

বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও দিবসটি পালিত হচ্ছে। বেসরকারি পর্যায়ে বিভিন্ন কর্মসূচির আয়োজন করা হলেও সরকারিভাবে দিবসটি পালন করা হয় না।

বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, আর্থ্রাইটিস সমস্যার মধ্যে অন্যতম হলো টেনিস এলবো ও কনুই সমস্যা। জয়েন্ট বা অস্থিসন্ধির ব্যথার মূল কারণ এর প্রদাহ। সঠিক পরিসংখ্যান না থাকলেও বিশ্বব্যাপী আর্থ্রাইটিস আক্রান্তের সংখ্যা কম নয়। টেনিস এলবো একটি ইনজুরি জাতীয় সমস্যা। টেনিস খেলোয়াড়দের এ সমস্যা বেশি দেখা দেয় বলে একে টেনিস এলবো বলা হয়। ক্রিকেট, গলফ, ব্যাডমিন্টন, ভলিবল ও তীর নিক্ষেপ ইত্যাদি খেলায় ভুল টেকনিকের কারণে এ ধরনের সমস্যা দেখা দিতে পারে। সমস্যার শুরুতে হাতের কনুইয়ের বাইরের দিকে ব্যথা অনুভূত হয়। হাতের নড়াচড়া বা কাজকর্মে ব্যথা তীব্র থেকে তীব্রতর হতে পারে। দীর্ঘদিন ধরে এভাবে চলতে থাকলে মাংসপেশির শক্তি ও হাতের কর্মদক্ষতা কমে আসে।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) ও হাসপাতালের ফিজিক্যাল মেডিসিন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. জাহিদুল ইসলাম বলেন, “আর্থ্রাইটিসে আক্রান্তের জোড়ায় জোড়ায় ব্যথা থাকে এবং এই ব্যথা ধীরে ধীরে বিস্তার লাভ করে। হাত ও পায়ের ছোট ছোট জোড়াগুলো বেশি আক্রান্ত হয়। প্রায়ই সমানভাবে দুই পাশের অর্থাৎ ডান ও বাম দিকের জোড়াগুলোতে ব্যথা হয়। অনেক সময় ঘাড়েও ব্যথা হতে পারে। এ রোগের ব্যথা কাজ করলে কমে; কিন্তু বিশ্রাম নিলে বেড়ে যায়। সকালে ঘুম থেকে ওঠার সময় ব্যথা বেশি অনুভূত হয়। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ব্যথা আস্তে আস্তে কমে।”

এ ধরনের সমস্যায় আক্রান্তরা ফিজিওথেরাপি বিশেষজ্ঞের কাছ থেকে চিকিৎসা ও পরামর্শ গ্রহণ করলে নিয়মিত থেরাপির মাধ্যমে দ্রুত এ সমস্যা কাটিয়ে উঠতে সক্ষম হবে বলে মনে করেন তিনি।

১৯৯৬ সাল থেকে বিশ্ব আর্থ্রাইটিস দিবসটি ‘আর্থ্রাইটিস অ্যান্ড রিউমেটিজম ইন্টারন্যাশনাল’-এর তত্ত্বাবধানে উদযাপিত হয়। প্রাচীনকাল থেকে এই রোগটির অস্তিত্ব থাকলেও সাড়ে চার হাজার খ্রিস্টপূর্ব থেকেই এটি পুস্তক বা নথিভুক্ত হওয়া শুরু করে এবং আকারে সবার মাঝে ছড়িয়ে পড়তে এবং সংক্রমিত হতে শুরু করে। ১৮৫৯ সালের দিকে রোগটিকে তার বর্তমান ‘আর্থ্রাইটিস’ নামকরণ করা হয়।

‘আর্থ্রাইটিস ফাউন্ডেশন আটল্যান্টা’-এর তথ্য অনুযায়ী বর্তমানে মানুষের অক্ষমতার প্রথম এবং প্রধান কারণ হলো আর্থ্রাইটিস। 

আর্থ্রাইটিস কোন একক রোগ নয়; এটি অনেকগুলো রোগের প্রধান লক্ষণ। 

ইনফ্লামেটরি বা ওটোইম্যুন আর্থ্রাইটিসের প্রধান লক্ষণগুলো হলো অতিরিক্ত মাত্রায় ব্যথা, জয়েন্ট ফুলে যাওয়া ও শক্ত হয়ে যাওয়া। এ ছাড়া এ রোগের অন্য উপসর্গগুলোর মধ্যে রয়েছে প্রাতঃকালীন জড়তা, চলাফেরায় জড়তা, মাংসপেশিতে ব্যথা, জয়েন্টের ফ্লেক্সিবিলিটি কমে যাওয়া। প্রকারভেদে ভিন্ন ভিন্ন আর্থ্রাইটিস বিভিন্ন জয়েন্টকে আক্রান্ত করে থাকে।
এসএ/
 


Ekushey Television Ltd.

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি