ঢাকা, শুক্রবার, ১৯ অক্টোবর, ২০১৮ ১৭:২৭:০৯

Ekushey Television Ltd.

পরিবেশ সুরক্ষায় ঘাস থেকে কাগজ

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১০:৫১ এএম, ৩১ মে ২০১৮ বৃহস্পতিবার

পেপারলেস অফিস ম্যানেজমেন্টের কথা দীর্ঘদিন ধরে বলা হলেও কাগজ ছাড়া চলে না। বরং কাগজের কাগজের ব্যবহার দিন দিন বাড়ছে। আর কাগজের জন্য সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে পরিবেশ। কাটতে হচ্ছে গাছ। বিষয়টি মাথায় রেখে ঘাস থেকে কাগজ তৈরির উদ্যোগ নিয়েছেন জার্মানির এক বিজ্ঞানী।
উভে দাগনোন নামে ওই বিজ্ঞানী বলছেন, সাধারণত যে সাদা কাগজ ব্যবহার করা হয় তার মধ্যে কাঠ ও বাঁশের উপাদান থাকে। তবে তিনি যে কাগজ তৈরি করেছেন তার উপাদান কাঠ নয়, শুকনো ঘাস। কাগজ তৈরিতে ঘাস থেকে ফাইবার বা তন্তু বের করতে অনেক কম পানি, জ্বালানি ও রাসায়নিকের প্রয়োজন হয়।
দাগনোন বলেন, কিছুদিন আগে আমি কাগজ নিয়ে অনেক ঘাঁটাঘাঁটি করে ভাবলাম, কীভাবে কম কার্বন ডাই-অক্সাইড ব্যবহার করে আরও টেকসই পদ্ধতিতে কাগজ তৈরি করা যায়। লক্ষ্য করলাম, ওপর দিকে বাড়ার কারণে গাছের মধ্যে অনেক আঠার সৃষ্টি হয়। লিগনিন নামের সেই আঠা রাসায়নিক প্রক্রিয়ায় আলাদা করতে হয়। অন্যদিকে যেসব ঘাস সমতলে বেড়ে ওঠে, তাদের অনেক কম লিগনিন লাগে। সেগুলোর তন্তু অনেক দ্রুত আলাদা করা যায়। তাই আমি কাগজ তৈরিতে শুকনো ঘাসকেই বেছে নিয়েছি।
দাগনোন জানান, তার উদ্ভাবিত পদ্ধতিতে কাগজ উৎপাদনে টনপ্রতি প্রায় ৬০০০ লিটার পানি সাশ্রয় হয়। এই পদ্ধতিতে শুকনো ঘাস প্রথমে ভালোভাবে পেষা হয়। তারপর প্রয়োজন অনুযায়ী স্থির করা হয় মান। পরে সাধারণ কাগজ তৈরির প্রক্রিয়া প্রয়োগ করা হয়।
ইতিমধ্যে উভে দাগনোন তার কাগজ দিয়ে নানা ধরনের মোড়ক তৈরি করেছেন। ডাকে পাঠানোর জন্য সহজ ও হালকা মোড়ক থেকে শুরু করে শক্ত ও মজবুত পিচবোর্ডের বাক্সও এর মধ্যে রয়েছে। এ ছাড়া বাজারের ব্যাগ, ফল ও ডিম রাখার বাক্সও তৈরি হয়েছে।
সূত্র : ডয়চে ভেলে।
/ এআর /





© ২০১৮ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি