ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, || আশ্বিন ৪ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডে প্রথম প্রতিবাদ হয় কিশোরগঞ্জ ও বরগুনায় (ভিডিও)

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১৫:০৬ ১৪ আগস্ট ২০১৯ | আপডেট: ১৫:০৭ ১৪ আগস্ট ২০১৯

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানকে সপরিবারে হত্যার পর এক স্তব্ধতা গ্রাস করে সমগ্র জাতিকে। ওই স্তব্ধ সময়েও জেগে ছিলো বহু প্রতিবাদি কন্ঠ। বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডে প্রথম প্রতিবাদ হয় কিশোরগঞ্জ ও বরগুনায়।

প্রতিবাদকারীরা জানান, জাতির পিতাকে হত্যার পর দির্ঘদিন পথভ্রষ্ট ছিলো দেশ ও রাজনীতি। তাই নতুন কোন ষড়যন্ত্র যাতে না হয়, সেদিকে নজর রাখার দাবি বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের প্রথম প্রতিবাদকারীদের।

পাকিস্তানের শাসন-শোষণ থেকে বাঙ্গালি জাতিকে মুক্তি দিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। সৃজন করেছিলেন একটি স্বাধীণ দেশ। সেই পিতাকেই হত্যা করা হলো ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্ট। তখন নেমে আসে এক স্তব্ধ সময়। সেই কালরাতে কেবল মুজিব নয়, নির্মমভাবে হত্যা করা হয় পুরো পরিবারকে।

বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিবাদে প্রথম মিছিলকারী ভুপেন্দ্র ভৌমিক দোলন বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর থমথমে পরিবেশ, স্থম্ভিত রাজধানীসহ সারা দেশের মানুষ। শত ইচ্ছাও সেনাচৌকি পেরিয়ে এমন অন্যায়ের প্রতিবাদে রাজপথে নামতে পারেনি জনগন। এমন বেদনার খবর রেডিওতে ছড়িয়ে পড়ে ১৫ আগস্ট সকালে। আর প্রতিবাদী হয় কিশোরগঞ্জের একগুচ্ছ তরুণ। শুরু করে মিছিল। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার প্রতিবাদে প্রথম প্রতিবাদী মিছিল।

তৎকালীন ডাকসু ভিপি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বলেন, এমন পৈশাচিক হত্যাকাণ্ডের পর ঢাকার অলিগলিতে গুমড়ে মরেছে আপামর জনতা। অবশেষে রাজধানীতে প্রতিবাদী মিছিল নামে, ৪ঠা নভেম্বর। বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিবাদে রাজপথে নামে ছাত্র-জনতা।

দিনের প্রতিবাদীরা জাতির জনকের হত্যার বিচারে সন্তোষ জানালেও, পালিয়ে থাকা খুনিদের দেশে এনে ফাঁসির রায় কার্যকরের দাবি তাদের।

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি