ঢাকা, বুধবার   ২২ জানুয়ারি ২০২০, || মাঘ ৯ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

মন ভালো রাখতে পরিবারের চেয়েও বন্ধুর ভূমিকা বেশি

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১৬:৩৩ ১৫ জুন ২০১৭ | আপডেট: ১৪:৫৫ ১৬ জুন ২০১৭

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

নিজের পরিবারের মানুষগুলোর চেয়েও হয়তো আমাদের একটু বেশি ভাল রাখে মনের মতো কয়েক জন বন্ধু। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মিশিগান স্টেট বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক উইলিয়াম চোপিকের সাম্প্রতিক গবেষণাপত্র তা-ই বলছে। ‘পার্সোনাল রিলেশনশিপ’ পত্রিকায় প্রকাশিত খবরে এমনটাই দাবি করা হয়েছে।

এই গবেষণার সূত্রে সমীক্ষা হয়েছিল অন্তত একশোটি দেশের বিভিন্ন বয়সের ২ লক্ষ ৭১ হাজার ৫৩ জনের উপরে। ঘেঁটে দেখা হয়েছিল যুক্তরাষ্ট্রের অন্যান্য সমীক্ষার তথ্যও। তা থেকে অধ্যাপক চোপিকের মত, ছোটবেলায় পরিবারের সান্নিধ্যে মানুষ নিরাপদ বোধ করে ঠিকই। কিন্তু বেড়ে ওঠার সঙ্গে সঙ্গে বন্ধুরাই বেশি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে তার কাছে। বন্ধুদের সাহচর্যেই সবাই বেশি খুশি হয়। মনের সঙ্গে চাঙ্গা থাকে শরীরও।

কিন্তু কেন এমন হয়? কেন বাবা-মা, ভাই-বোন, দাদা-দিদির সঙ্গে পারিবারিক বন্ধনের থেকেও একটা বয়সের পরে জীবনে বন্ধুরাই বেশি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে?

চোপিকের মতে, এর একটা বড় কারণ, বন্ধুত্বের ক্ষেত্রে সম্পর্ক বেছে নেওয়ার সুযোগ থাকে। পছন্দসই মানুষটিকে আমরা বন্ধু হিসেবে বেছে নিতে পারি। না পোষালে সেই সম্পর্ক ভেঙে বেরিয়েও যাওয়া যায়। কিন্তু অধিকাংশ পারিবারিক সম্পর্কই হয় জন্মগত। সব ক্ষেত্রেই আমাদের তা মেনে নিতে হয়। তা ছাড়া যাঁরা অবিবাহিত কিংবা সঙ্গীকে হারিয়েছেন, তাঁদের জীবনেও বন্ধুরা একটা বড় ভূমিকা পালন করে। মনের কাছাকাছি থেকে একাকিত্ব দূর করে তারা। চোপিকের মতে, ক্ষেত্র বিশেষে পারিবারিক সম্পর্কগুলো একঘেয়ে হয়ে পড়তে পারে। তখন তা নেতিবাচক প্রভাব ফেলে মনের উপর।

কিন্তু কোন বন্ধু খাঁটি, তা বোঝা যাবে কী করে? চোপিকের মতে, দীর্ঘদিনের বন্ধুই প্রকৃত বন্ধু। তারাই পাশে থাকে সারা জীবন।

সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা।

© ২০২০ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি