ঢাকা, শনিবার   ১৬ নভেম্বর ২০১৯, || অগ্রাহায়ণ ২ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

শিক্ষা সংস্কারে ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১২:১১ ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯

ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর সম্পর্কে আমরা কম বেশি সবাই জানি। উনবিংশ শতকের একজন বিশিষ্ট বাঙালি শিক্ষাবিদ, সমাজ সংস্কারক ও গদ্যকার তিনি। তার প্রকৃত নাম ঈশ্বরচন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু ১৮৩৯ সালে জ্ঞানচর্চায় ঈশ্বরচন্দ্র ‘বিদ্যাসাগর’ উপাধি লাভ করেন। ছাত্র জীবনে প্রতি বছরই তিনি বৃত্তি এবং গ্রন্থ লাভ করেন।

১৮৪১ সালের ডিসেম্বর মাস। সংস্কৃত কলেজ ত্যাগ করে তিনি ফোর্ট উইলিয়াম কলেজের বাংলা ভাষার প্রধান শিক্ষকের পদ লাভ করেন। ১৮৪৬ সালে সংস্কৃত কলেজে সহকারী সেক্রেটারির দায়িত্ব পালন করেন। ওই কলেজের শিক্ষকদের রক্ষণশীল মনোভাবের কারণে ১৮৪৭ সালের জুলাই মাসে তিনি সংস্কৃত কলেজের কাজে ইস্তফা দেন।

১৮৪৯ সালে মার্শম্যানের ‘হিস্ট্রি অফ বেঙ্গল’ অবলম্বনে রচনা করেন ‘বাঙ্গালার ইতিহাস দ্বিতীয় ভাগ’ গ্রন্থখানি। ওই বছরই ১ মার্চ পাঁচ হাজার টাকা জামিনে মাসিক ৮০ টাকা বেতনে ফোর্ট উইলিয়াম কলেজে হেডরাইটার ও কোষাধ্যক্ষ পদ গ্রহণ করেন। বন্ধু ও হিতৈষীদের সহযোগিতায় সমাজ সংস্কার আন্দোলনের লক্ষ্যে স্থাপনা করেন ‘সব শুভকরী সভা’। ১৮৫০ সালে তিনি সংস্কৃত কলেজের সাহিত্যের অধ্যাপক পদ লাভ করেন এবং পরে ওই কলেজের অধ্যক্ষ নিযুক্ত হন। ১৯৩৫ সংবৎ (১৮৭৪) প্রকাশিত ‘বর্ণপরিচয়’ গ্রন্থের ৫৩তম সংস্করণ। বাংলা বর্ণশিক্ষার জগতে ১৮৫৫ সালে প্রকাশিত বইটি সার্ধশত বছর পরে আজও সমান জনপ্রিয়। ১৮৫০ সালের আগস্ট মাসে মদনমোহন তর্কালঙ্কারের সহযোগিতায় ‘সব শুভকরী’ পত্রিকা প্রকাশ করেন। এর প্রথম সংখ্যায় ‘বাল্যবিবাহের দোষ’ নামে একটি বাংলা প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়। ১৮৫৩ সালে জন্মভূমি বীরসিংহ গ্রামে স্থাপন করেন অবৈতনিক বিদ্যালয়। ১৮৫৪ সালের জানুয়ারি মাসে ইংরেজ সিভিলিয়ানদের প্রাচ্য ভাষা শিক্ষা দেওয়ার জন্য প্রতিষ্ঠিত ফোর্ট উইলিয়াম কলেজ ভেঙে বোর্ড অফ একজামিনার্স গঠিত হলে তার সদস্য মনোনীত হন বিদ্যাসাগর।

১৮৫৪ সালে চার্লস উডের শিক্ষা সনদ গৃহীত হওয়ার পর সরকার গ্রামীণ এলাকায় শিক্ষা সম্প্রসারণের সিদ্ধান্ত নেয়। এ উদ্দেশ্যে ১৮৫৫ সালের মে মাসে বিদ্যাসাগরকে সংস্কৃত কলেজের অধ্যক্ষ পদের অতিরিক্ত সহকারী স্কুল পরিদর্শকের দায়িত্ব দেওয়া হয়। আর তখনই তিনি নদীয়া, বর্ধমান, হুগলি ও মেদিনীপুর জেলায় স্কুল প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নেন। দুবছরের মধ্যে তিনি কুড়িটি স্কুল স্থাপন করেন। এ ছাড়া তিনি এসব স্কুলে পড়ানোর জন্য, শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ দেওয়ার জন্য একটি নর্মাল স্কুল স্থাপন করেন। তিনি নিজ গ্রামে নিজ খরচে একটি স্কুল প্রতিষ্ঠা করেন। ১৮৫৫ সালের জানুয়ারি মাসে বিধবা বিবাহ প্রচলিত হওয়া উচিত কিনা এতবিষয়ক প্রস্তাব প্রথম পুস্তক প্রকাশিত হয়। ১৮৫৬ সালের ১৪ জানুয়ারি মেদিনীপুরে পঞ্চম বঙ্গবিদ্যালয় স্থাপন করেন। ওই বছর ১৬ জুলাই বিধবা বিবাহ আইনসম্মত হয়। ওই বছর ৭ ডিসেম্বর কলকাতায় প্রথম বিধবা বিবাহ দেওয়া হয়।

১৮৫৭ সালের ২৪ জানুয়ারি স্থাপিত হয় কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়। এ বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালনা সমিতির অন্যতম সদস্য তথা ফেলো মনোনীত হন বিদ্যাসাগর। ১৮৫৭ সালের নভেম্বর মাস থেকে ১৮৫৮ সালের মে মাস অবধি সমগ্র দক্ষিণবঙ্গে বিদ্যাসাগর ৩৫টি বালিকা বিদ্যালয় স্থাপন করেছিলেন। ১৮৫৮ সালের ১৫ নভেম্বর প্রকাশ করেন ‘সোমপ্রকাশ’ নামে একটি সাপ্তাহিক পত্রিকা। দেশীয় ভাষায় প্রকাশিত এটিই প্রথম পত্রিকা যেখানে রাজনৈতিক বিষয় স্থান পেয়েছিল। ১৮৬১ সালের এপ্রিলে কলিকাতা ট্রেনিং স্কুলের সম্পাদক মনোনীত হন বিদ্যাসাগর। এই বছর ডিসেম্বরে হরিশ্চন্দ্র মুখোপাধ্যায়ের অকালপ্রয়াণে ‘হিন্দু প্যাট্রিয়ট’ পত্রিকার পরিচালনার ভার নেন তিনি। ১৮৬২ সালে কৃষ্ণদাস পালকে এই পত্রিকার সম্পাদক নিযুক্ত করেন বিদ্যাসাগর। ওই বছর মাইকেল মধুসূদন দত্ত তাকে উৎসর্গ করেন স্বরচিত ‘বীরাঙ্গনা’ কাব্য। ১৮৬৩ সালে সরকার তাকে ওয়ার্ডস ইনস্টিটিউশনের পরিদর্শক নিযুক্ত করেন।

১৮৬৪ সালের ২ আগস্ট ফ্রান্সে ঋণগ্রস্থ মাইকেল মধুসূদনের সাহায্যার্থে ১৫০০ টাকা প্রেরণ করেন তিনি। ১৮৬৬ সালের ১ ফেব্রুয়ারি বহুবিবাহ রদের জন্য দ্বিতীয়বার ভারতীয় ব্যবস্থাপক সভার কাছে আবেদনপত্র পাঠান বিদ্যাসাগর। ১৮৬৭ সালের জুলাইয়ে জ্যেষ্ঠ কন্যা হেমলতার সঙ্গে গোপালচন্দ্র সমাজপতির বিবাহ হয়। ১৮৬৮ সালে তার ঘনিষ্ঠ বন্ধু রামগোপাল ঘোষ প্রয়াত হন। ১৮৬৯ সালের জানুয়ারি মাসে বেথুন বালিকা বিদ্যালয়ের সম্পাদক পদ ত্যাগ করেন। ১৮৭০ সালের জানুয়ারিতে ডা. মহেন্দ্রলাল সরকারের বিজ্ঞান সভায় এক হাজার টাকা দান করেন বিদ্যাসাগর।

১৮৭১-৭২ সাল নাগাদ তার স্বাস্থ্যের অবনতি হয়। ১৮৭২ সালের ১৫ জুন হিন্দু বিধবাদের সাহায্যার্থে হিন্দু ফ্যামিলি অ্যানুয়িটি ফান্ড নামে একটি জনহিতকর অর্থনৈতিক প্রতিষ্ঠান স্থাপন করেন। ১৮৭৪ সালে মাত্র এক বছরেই ফার্স্ট আর্টস পরীক্ষায় মেট্রোপলিটান কলেজ গণনানুসারে দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেছিল। ১৮৮০ সালের ১ জানুয়ারি বিদ্যাসাগর মহাশয় সিআইই উপাধি পান। ১৮৮৭ সালে মেট্রোপলিটান কলেজ স্থানান্তরিত হয়। বাংলার নবজাগরণের অন্যতম পুরোধা ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর প্রয়াত হন ১৮৯১ সালের ২৯ জুলাই।

সূত্র : উইকিপিডিয়া

এসএ/

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি