ঢাকা, বুধবার   ২১ অক্টোবর ২০২০, || কার্তিক ৬ ১৪২৭

Ekushey Television Ltd.

সংক্রমণ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে আমাদের করণীয়

ছৈয়দ আহমদ তানশীর উদ্দীন

প্রকাশিত : ১২:০৬ ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ | আপডেট: ১২:০৮ ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০

সংক্রমণ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ (আইপিসি) রোগীদের এবং স্বাস্থ্যকর্মীদের সংক্রমণজনিত ক্ষতি থেকে রোধ করার জন্য ডিজাইন করা একটি বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি এবং ব্যবহারিক সমাধান।

এটি সংক্রামক রোগ, মহামারীবিদ্যা, সামাজিক বিজ্ঞান এবং স্বাস্থ্য ব্যবস্থা শক্তিশালীকরণের ভিত্তিতে রয়েছে। আইপিসি রোগীর সুরক্ষা এবং মানসম্পন্ন সার্বজনীন স্বাস্থ্য কভারেজের ক্ষেত্রে একটি অনন্য অবস্থান নিয়েছে কারণ এটি প্রতিটি একক স্বাস্থ্য-যত্নের লড়াইয়ে স্বাস্থ্যকর্মী এবং রোগীদের ক্ষেত্রে প্রাসঙ্গিক।

কোনও দেশ, কোনও স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্র এমনকি সর্বাধিক উন্নত ও পরিশীলিত স্বাস্থ্যসেবা সিস্টেমের মধ্যেও স্বাস্থ্যসেবা-সম্পর্কিত সংক্রমণের সমস্যা থেকে মুক্ত থাকার দাবি করতে পারে না।

সংক্রমণ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে সবার অংশগ্রহন ভূমিকা জোরদার করতে এবং যত্নের জায়গায় নিরাপদ অনুশীলন বাস্তবায়নের লক্ষ্যে একটি বিস্তৃত, একীভূত আইপিসি কার্যক্রম প্রদানের জন্য ডব্লিউএইচও সার্ভিস ডেলিভারি এন্ড সেইফটি (এসডিএস) বিভাগের মধ্যে একটি নতুন আইপিসি ইউনিট গঠন করা হয়েছে।

এই ইউনিটটি ক্লিন কেয়ার সেফার কেয়ার প্রোগ্রাম (২০০৫-২০১৫) এর ভিত্তি এবং অর্জনগুলির ভিত্তি তৈরি করবে এবং বিদ্যমান ডব্লিউএইচও সংক্রমণ প্রতিরোধ দল ​​দ্বারা প্রদর্শিত শক্তিশালী নেতৃত্ব এবং প্রযুক্তিগত দক্ষতা, সম্প্রতি সম্প্রতি ইবোলা ভাইরাস রোগের প্রতিক্রিয়া এবং প্রাথমিক পুনরুদ্ধারের কাজের সময়। আইপিসি গ্লোবাল ইউনিট আইপিসিতে ডব্লিউএইচও’র কাজকে নেতৃত্ব দেবে এবং এসডিএস সম্পর্কিত বিশেষ ইউনিটগুলির সাথে বিশেষত রোগী সুরক্ষা ও গুণমান ইউনিট এবং কোয়ালিটি ইউনিভার্সাল হেলথ কভারেজের সাথে সম্পর্কিত নতুন নির্মিত ইউনিট, পাশাপাশি অন্যান্য সম্পর্কিত বিভাগ এবং ইউনিটগুলির সাথে যৌথভাবে কাজ করবে। 

ডব্লিউএইচও এর তিনটি স্তর। তেমনিভাবে বাংলাদেশ স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সিডিসি (সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল) আইপিসি কার্যক্রম চালুর উদ্যোগ নিয়েছে তারা একটি নিজস্ব গাইডলাইন তৈরি করেছে। আশার কথা হচ্ছে, কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে ২০১৮ সাল থেকে আইপিসি কার্যক্রম চলমান। বলে রাখা ভাল আইপিসি গ্লোবাল ইউনিট পাঁচটি মূল ফাংশনের ভিত্তিতে এর কাজটি সরবরাহ করবে:

১. নেতৃত্ব, সংযোগ এবং সমন্বয়
২. প্রচার এবং এডভোকেসি।
৩. প্রযুক্তিগত দিক নির্দেশনা এবং বাস্তবায়ন 
৪. সক্ষমতা তৈরি করা।
৫. পরিমাপ এবং শেখা।

২০১৫-২০১৭ এ  সময়ের বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা নিম্নোক্ত কাজগুলোতে গুরুত্বারোপ করেছেন:
১.  হাত স্বাস্থ্যবিধি
২.  অস্ত্রোপচার সাইট সংক্রমণ প্রতিরোধ 
৩. আইপিসি অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল প্রতিরোধের বিরুদ্ধে লড়াই করা।
৪.  ইনজেকশন সুরক্ষা
৫. স্বাস্থ্যসেবা সম্পর্কিত সংক্রমণের বোঝা 
৬. ইবোলা প্রতিক্রিয়া এবং পুনরুদ্ধার 
৭.  আইপিসির দেশ সক্ষমতা বৃদ্ধি
৮. সেপসিস এবং ক্যাথেটার সম্পর্কিত রক্ত ​​প্রবাহের সংক্রমণ প্রতিরোধ 
৯. ক্যাথেটার-সম্পর্কিত মূত্রনালীর সংক্রমণ রোধ।

এটা সত্যি যে কার্যকর আইপিসির জন্য নীতি নির্ধারক, সুবিধা ব্যবস্থাপক, স্বাস্থ্যকর্মী এবং যারা স্বাস্থ্যসেবা অ্যাক্সেস করেন তাদের সহ স্বাস্থ্য ব্যবস্থার সব স্তরে ধ্রুবক পদক্ষেপ নেওয়া প্রয়োজন।

আইপিসি রোগীর সুরক্ষা এবং যত্নের মানের ক্ষেত্রে অনন্য, কারণ এটি প্রতিটি স্বাস্থ্যকর্মী এবং রোগীর সাথে প্রতিটি স্বাস্থ্যসেবা মিথস্ক্রিয়ায় সর্বজনীনভাবে প্রাসঙ্গিক। ত্রুটিযুক্ত আইপিসি ক্ষতি সৃষ্টি করে এবং হত্যা করতে পারে। কার্যকর আইপিসি ছাড়া মানসম্পন্ন স্বাস্থ্যসেবা সরবরাহ করা অসম্ভব। সংক্রমণ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে হাতের স্বাস্থ্যবিধি, সার্জিক্যাল সাইটের সংক্রমণ, ইনজেকশন সুরক্ষা, অ্যান্টিমাইক্রোবায়াল প্রতিরোধের এবং কীভাবে হাসপাতালগুলি জরুরি অবস্থার সময়ে বা বাইরে কাজ করে এসব বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। 

আইপিসিকে সমর্থন করার প্রোগ্রামগুলি নিম্ন ও মধ্যম আয়ের দেশগুলিতে বিশেষত গুরুত্বপূর্ণ, যেখানে স্বাস্থ্যসেবা সরবরাহ এবং চিকিৎসা স্বাস্থ্যকর মানগুলি গৌণ সংক্রমণের ফলে নেতিবাচকভাবে প্রভাবিত হতে পারে। এখন সময় এসেছে সংক্রমণ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ বা (IPC) নিয়ে কাজ করার। এ জন্য সর্বোচ্চ পর্যায় থেকে শুরু করে তৃণমূল পর্যন্ত সংক্রমণ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে সবার সামগ্রিক অংশগ্রহণে কার্যকরী সেবা নিশ্চিত করা যাবে।

লেখক: নার্সিং কর্মকর্তা

এমবি//


New Bangla Dubbing TV Series Mu
New Bangla Dubbing TV Series Mu

© ২০২০ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি