ঢাকা, সোমবার   ১৮ নভেম্বর ২০১৯, || অগ্রাহায়ণ ৪ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

অতিরিক্ত সেলফি পোস্ট আত্মকেন্দ্রিক ও একাকিত্বের লক্ষণ

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১৪:৫৭ ২৪ আগস্ট ২০১৯

বিশ্বে চলছে সেলফি ভাইরাস! ক্রমেই সেই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ছে তরুণ থেকে বৃদ্ধ সবার মাঝে। ফেসবুক বা ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্ট জুড়ে শুধুই সেলফি আর সেলফি? এই অতিরিক্ত সেলফি পোস্ট করার অভ্যাস নাকি আত্মকেন্দ্রিক ও একাকিত্বের লক্ষণ। এমনটাই বলছেন ওয়াশিংটন স্টেট বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোবিদরা। 

সাম্প্রতিক একটি সমীক্ষায় দেখা যায়, কোন ব্যক্তি সোশ্যাল মিডিয়ায় অতিরিক্ত সেলফি পোস্ট করলে তাকে কম আকর্ষণীয় মনে করছেন অন্যরা। এমনকি সোশ্যাল মিডিয়ায় সেলফি ভরা গ্যালারি দেখেও পোস্টকারী নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন বলেও ধরে নেয় মানুষ।

সেলফি আর অন্য কারও তুলে দেওয়া ছবি- এই দুই ধরনের পোস্ট আছে এমন ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্ট নিয়ে সম্প্রতি একটি সমীক্ষা করা হয়। তাতেই উঠে আসে এমন তথ্য। দুটি পর্যায়ে সমীক্ষাটি করা হয়।

প্রথমে ৩০ জন ছাত্রছাত্রীর ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্ট নির্বাচন করেন মনোবিদরা। তারপর সেই অ্যাকাউন্টগুলোর স্ক্রিনশট নেওয়া হয়। এরপর সেই স্ক্রিনশট দেখানো হয় ১১৯ জন ছাত্রছাত্রীকে। ৩০টি অ্যাকাউন্টের ছবি দেখিয়ে আত্মসম্মান, সাফল্য, একাকিত্ব ইত্যাদি বিষয়ে আন্দাজ করে নম্বর দিতে বলা হয় ওই ১১৯ জন ছাত্রছাত্রীদের। 

সমীক্ষার শেষে দেখা যায়, প্রচুর সেলফি আছে এমন অ্যাকাউন্টগুলোর বিষয়ে নেতিবাচক মনোভাব প্রকাশ করেছেন বেশিরভাগ ছাত্রছাত্রীরা। অতিরিক্ত সেলফি আত্মকেন্দ্রিকতা, আত্মবিশ্বাসের অভাব ও একাকিত্বের লক্ষণ বলে মত প্রকাশ করেছেন তারা। 

ওয়াশিংটন স্টেট বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোবিদ ক্রিস বেরির মতে, সেলফির তুলনায় পোজ দিয়ে তোলা ছবিকেই বেশি পছন্দ করে সমাজ। বিষয়টি ব্যাখ্যা করে তিনি বলেন, ৩০টির মধ্যে দুটি প্রোফাইল প্রায় একইরকম ছিল। দুটি প্রোফাইলেই ব্যবহারকারী তার বেড়াতে যাওয়ার, সাফল্যের ছবি দিয়েছেন। একজনের ছবি সেলফিতে, অপরজনের ছবিগুলো পোজ দেওয়া। দ্বিতীয় ব্যক্তিকেই পছন্দ করেছেন সবাই। 

বেরি আরও জানান, সেলফি দেওয়া ব্যক্তিকে আত্মকেন্দ্রিক ও নেতিবাচক বলে মনে করেছেন সকলেই। তিনি বলেন, এর থেকে প্রমাণ হয় কোন ব্যক্তির সোশ্যাল মিডিয়া প্রোফাইল দেখেই তার মানসিকতার ধরন আন্দাজ করে সমাজ।

এএইচ/
 

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি