ঢাকা, ২০১৯-০৪-২৪ ০:৩৫:০৪, বুধবার

Ekushey Television Ltd.
স্মরণসভা

অন্যায়ের বিরুদ্ধে কথা বলতেন ফজলুল হালিম চৌধুরী

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ০৩:০৮ পিএম, ১০ এপ্রিল ২০১৯ বুধবার

ষাটের দশকে জাতীয়তাবাদী আন্দোলনের যে বিস্তার ঘটেছিল তার সঙ্গে অধ্যাপক ফজলুল হালিম যুক্ত ছিলেন এবং তিনি অন্যায়ের বিরুদ্ধে কথা বলতেন। অধ্যাপক ফজলুল হালিম চৌধুরীর ২৩তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে এ কথাগুলো বলছিলেন জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান।

দলীয় ভিত্তিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হয়েও তিনি নিরপেক্ষভাবে কাজ করেছেন বলে জানান তিনি।

গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ ভবনের অধ্যাপক মুজাফফর আহমেদ চৌধুরী মিলনায়তনে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

অধ্যাপক ফজলুল হালিম চৌধুরী ১৯৭৬ থেকে ১৯৮৩ সাল পর্যন্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ছিলেন। তিনি ১৯৯৬ সালের ৯ এপ্রিল মৃত্যুবরণ করেন।

ঢাবির সাবেক উপাচার্য ইমেরিটাস অধ্যাপক এ কে আজাদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন উপাচার্য অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামান, উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ, ইমেরিটাস অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী।

এছাড়াও সভায় উপস্থিত ছিলেন, রাষ্ট্রবিজ্ঞানী অধ্যাপক রওনক জাহান, ইতিহাস বিভাগের সাবেক অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম, সমকালের উপ-সম্পাদক অজয় দাশগুপ্ত প্রমুখ। পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের সাবেক অধ্যাপক অজয় রায় প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

এতে অধ্যাপক ফজলুল হালিম চৌধুরীর মেয়ে ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক সাদেকা হালিম স্বাগত বক্তব্য দেন। সভা সঞ্চালনা করেন গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক রোবায়েত ফেরদৌস।

অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, ফজলুল হালিম চৌধুরীকে ভোলা কারও পক্ষেই সম্ভব নয়। প্রশাসনে থাকলেও তিনি ছিলেন আজন্ম শিক্ষক।

অধ্যাপক আজাদ চৌধুরী বলেন, বিশ্বের মেধাবী শিক্ষাবিদদের মধ্যে তিনিও ছিলেন একজন। দলীয় ভিত্তিতে উপাচার্য হয়েও নিরপেক্ষ চিন্তা থেকে তিনি সিদ্ধান্ত নিতেন।

উপাচার্য আখতারুজ্জামান বলেন, ফজলুল হালিম চৌধুরী অত্যন্ত নিষ্ঠাবান শিক্ষক ও দক্ষ প্রশাসক ছিলেন। রাষ্ট্রবিজ্ঞানী রওনক জাহান বলেন, একজন সত্যিকারের উপাচার্যের যা করা দরকার ফজলুল হালিম চৌধুরী তাই করেছিলেন।



© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি