ঢাকা, রবিবার   ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯, || অগ্রাহায়ণ ২৫ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

জিএম কাদেরের বিরুদ্ধে এরশাদ পুত্র এরিকের গুরুতর অভিযোগ

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১০:৪৩ ১৫ নভেম্বর ২০১৯

প্রয়াত রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির সাবেক চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ মারা যাওয়ার পর থেকে ছেলে এরিক এরশাদকে নিয়ে নিজেদের মধ্যে জল কম ঘোলা হয়নি এরশাদ পরিবারের মাঝে। যা এখনও বিদ্যমান রয়েছে। এরশাদের মৃত্যুর পরও এরিককে তার মায়ের সঙ্গে থাকতে না দেয়ায় প্রেসিডেন্ট পার্কের বাসায় একা থাকতে হয় তাকে। ফলে বিষন্নতা আর অবহেলায় দিন কাটছে এরশাদ পুত্রের। এর জন্য চাচা গোলাম কিবরিয়া (জিএম) কাদেরকে দুষছেন এরিক। তুলছেন গুরুতর অভিযোগ।

জানা গেছে, এরশাদ মারা যাওয়ার পর এরিকের সঙ্গে খুব একটা দেখা হয়না মা বিদিশার। গতকাল বৃহস্পতিবার এরশাদের গাড়ীর ড্রাইভার এরিকে গায়ে হাত তুলেন। তাকে গালিগালাজ করে ধাক্কা দেন। এসময় সময় কাদতে কাদতে তার মা বিদিশাকে ফোন দেন। এখনই তার কাছে আসতে বলেন এরিক।

সন্তানের ফোন পেয়ে এক মুহূর্ত বসে থাকতে পারেননি মা বিদিশা। পাগলের মত ছুটে আসেন প্রেসিডেন্ট পার্কে। অনেকদিন পর মা ছেলের মিলন হয়। দেখা মাত্রই দুজনে অঝোরে কাঁদেন। এসময় এক আবেগঘন দৃশ্যের অবতারণা হয়।
 
মাকে কাছে পেয়ে জড়িয়ে ধরে এরিক বলেন, ‘মা তুমি এসেছ, তুমি ছাড়া আমার কেউ নাই। তোমাকে ছাড়া আমি বাঁচব না। ওরা আমাকে ঠিকমত খেতে দেয় না, গোসল করায় না। তুমি আমাকে একা ফেলে আর যেও না মা’।

অনেকদিন পর ছেলেকে কাছে পেয়ে বুকে জড়িয়ে নেন বিদিশা। মা ছেলে দুজনই আনন্দে-কান্নায় বুক ভাসান। ছেলে এরিককে কাছে পেয়ে নিজ হাতে গোসল করান, নিজের রান্না করা পোলাও রোস্ট খাইয়ে দেন। মা ছেলে গল্পে মেতে উঠেন। শেয়ার করেন এতদিনের দুঃখ হাসি কান্না।

জানা গেছে, এরশাদের মৃত্যুর পর চাচা জিএম কাদের এর তত্ত্বাবধানে বাসার লোকজন তার দেখাশুনা করতেন। কিন্তু, ঠিকমত তার দেখভাল করতেন না তারা। এ নিয়ে চাচা কাদেরকে বলা হলেও, কেয়ার নেননি তিনি।

বৃহস্পতিবার মায়ের সঙ্গে দেখা হলে, গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেন মা-ছেলে।

মাকে কাছে পেয়ে এরশাদ পুত্র বলেন, অনেক ভালো লাগছে,  কেমন ভালো লাগছে তা বুঝাতে পারবো না। মা বাবা ছাড়া বেঁচে থাকা অনেক কষ্টের। বাবা নেই, আমার তো এখন মা ছাড়া আপন আর কেউ নাই। যার মা নেই সেই বুঝে তার কি কষ্ট।  

এরিক বলেন, এতদিন আমি কেঁদে কেঁদে মাকে খুজেছি। কতবার চাচাকে (জিএম কাদের) বলেছি, আমার মাকে এনে দাও। আমি মার কাছে চলে যাবো। কিন্তু চাচা এনে দেইনি।

মাকে দেখতে চাচা বাধা দিতো জানিয়ে এরশাদ পুত্র বলেন, চাচা জিএম কাদের আমার মাকে দেখতে দেয়নি। কেন দেয়নি, তা উনি ভাল জানেন। নিজের স্বার্থের জন্য আমাকে নিয়ে রাজনীতি আর কি।

চাচার উপর ক্ষোভ প্রকাশ করে এরিক বলেন, মাকে কাছে না পাওয়ার কারণ হলো তার রাজনীতির। নিজের স্বার্থের জন্য যদি আমার মতো অসহায়কে ব্যবহার করা হয় তাহলে এর মত লজ্জাজনক আর কি থাকতে পারে। মাকে দেখতে না দিয়ে চাচা মহাঅন্যায় করেছেন, এজন্য তার শাস্তি হওয়া দরকার বলে মনে করেন এরিক।

তিনি বলেন,  আমি এখন থেকে মায়ের কাছে থাকতে চাই। মা সঙ্গে থাকলে আমার আর কোনো দুঃখ কষ্ট থাকবে না। কেউ আমাকে মারতে পারবে না।

আর মা বিদিশা ছেলেকে কাছে পেয়ে অনভূতির কথা জানিয়ে বলেন, ছেলে এখন আমার বুকে, এর চাইতে একজন মায়ের সুখ শান্তি আর কি হতে পারে। সুখের এই অনুভূতি পুথিবীতে কোনো কিছুর বিনিময়ে বুঝানো যাবে না। দুনিয়াতে সন্তানের চাইতে আপন কিছু আর নেই। এখন থেকে এরিক তার কাছে থাকবে বলেও জানান তিনি।

বিদিশা বলেন, যারা মা ছেলের সম্পর্ক ছিন্ন করার চেষ্টা করছে আল্লাহ পাক তাদের সন্তান তাদের কাছ থেকে ছিনিয়ে নেবে।  

এরশাদের সাবেক পত্নী বলেন, এতদিন আমার ছেলেকে তার চাচা দেখতে দেননি। এর চেয়ে অমানবিক কাজ আর কি হতে পারে। পিতৃহারা আমার ছেলেকে বাঁচাতে হলে মার বিকল্প নাই। বাবা মারা যাওয়ার পর যেভাবে ও অবহেলায়, না খেয়ে পড়ে ছিল, আর কিছুদিন হলে ও শেষ হয়ে যেতো।

ঠিকমত খাওয়ানো হয় না, ৩/৪দিনেও গোসল নেই, গায়ে গন্ধ, যে অবস্থা ওর না দেখলে বিশ্বাস হবে না। আমি আমার ছেলেকে এভাবে অনাদরে, অবহেলায় মরতে দিতে পরি না। এরিক আমার কাছে থাকবে। আমি ওকে পেয়ে হ্যাপি। কেউ তার কাছ থেকে এরিককে কেড়ে নিতে পারবে না বলেও জানান বিদিশা।
এআই/

 

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি