ঢাকা, শনিবার, ২০ অক্টোবর, ২০১৮ ২:০৯:১৬

জনবিচ্ছিন্ন ঐক্য প্রক্রিয়ায় জনগণের আস্থা নেই: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

জনবিচ্ছিন্ন ঐক্য প্রক্রিয়ায় জনগণের আস্থা নেই: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, জনবিচ্ছিন্ন ঐক্যে প্রক্রিয়ায় জনগণের কোন আস্থা নেই। এই ঐক্য প্রক্রিয়ায় স্বাধীনতাবিরোধীরা ভর করেছে। তাই আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জনগণ এসব নেতাদের ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করবে। শুক্রবার বিকেলে এলজিইডির বাস্তবায়নে পাঁচ কোটি টাকা ব্যয়ে সিরাজগঞ্জের কাজিপুর উপজেলা পরিষদের সমন্বিত ভবন ও মিলনায়তন উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন ১৪ দলের সমন্বয়ক ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। তিনি বলেন, নীতি আদর্শের কথা বলে ড. কামাল হোসেন বিএনপি-জামায়াতের সঙ্গে মিলে গেছেন। এসব নীতিহীন মানুষকে জনগণ কখনও ক্ষমা করবে না। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকা মার্কায় ভোট দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে নাসিম বলেন, ‘কাজিপুরের মানুষ সব সময় নৌকার সঙ্গে ছিল এখনও আছে। আগামী নির্বাচনে নৌকা মার্কায় ভোট বিপ্লব ঘটাতে নেতাকর্মিদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি। এ সময় সিরাজগঞ্জ জেলা প্রশাসক কামরুন নাহার সিদ্দিকা, কাজিপুর উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ মোজাম্মেল হক বকুল সরকার, কাজিপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম, উপজেলা প্রকৌশলী বাবলু মিয়া, উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি শওকত হোসেন প্রমুখ। কেআই/ এসএইচ/
বিকল্পধারার নামে দল গঠন ঘৃণিত ও হাস্যকর: মাহী বি. চৌধুরী 

বিকল্পধারার যুগ্ম মহাসচিব ও দলের মুখপাত্র মাহী বি. চৌধুরী বলেছেন, যারা বিকল্পধারার প্রেসিডেন্ট ও মহাসচিবকে বহিষ্কার করেছেন তারা বিকল্প ধারার কেউ নন। তাদেরকে দল থেকে একমাস আগেই বহিষ্কার করা হয়েছে। বিকল্পধারার নামে দল গঠন ঘৃণিত ও হাস্যকর ব্যাপার।   শুক্রবার (১৯ অক্টোবর) সন্ধ্যায় বি. চৌধুরীর বারিধারার বাসভবন মায়া-বি-তে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে মাহী বি. চৌধুরী এ কথা বলেন।   তিনি বলেন, ‘দল ভাঙার পেছনে বড় একটি রাজনৈতিক দলের ষড়যন্ত্র থাকতে পারে। বিকল্পধারার বহিষ্কৃত নেতা শাহ আহাম্মেদ বাদল বিএনপি নেতা আব্দুল আউয়াল মিন্টুর একজন কর্মচারী। সেখান থেকে হয়ে থাকলে এটা খুবই দুঃখজনক।’ তিনি খবরের গুরুত্ব অনুসারে সত্যতা নিশ্চিত হয়ে সঠিক সংবাদ প্রকাশের জন্য গণমাধমের প্রতি অনুরোধ জানান। মাহী বলেন, ‘ঐক্য করতে আমাদের কোনো আপত্তি নেই। আমরা বিএনপিকে আগেই বলেছি, স্বাধীনতাবিরোধীদের ছাড়লে এবং ভারসাম্যের রাজনীতি মেনে নিলে তাদের সঙ্গে ঐক্য হতে পারে। এখনও বিএনপির ৭০/৮০ ভাগ মানুষ স্বাধীনতাবিরোদীদের সঙ্গে ঐক্যের বিরোধী। আমরা জাতীয়তাবাদী শক্তির বৃহৎ ঐক্য চাই। এই লক্ষ্যে ইতোমধ্যে বাংলাদেশ ন্যাপ এবং এনডিপি যুক্তফ্রন্টে কাজ করতে সম্মত হয়েছে। আরও অনেক দল এবং বিশিষ্ট রাজনৈতিক ব্যক্তি আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করছেন।’ প্রেস ব্রিফিং-এ উপস্থিত ছিলেন— বিকল্পধারার সহ-সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার মুহাম্মদ ইউসুফ, যুগ্ম মহাসচিব আবদুর রউফ মান্নান, সহ-সভাপতি মাহবুব আলী, সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিস্টার ওমর ফারুক। এসি     

‘ঐক্যফ্রন্টের নেতাদের আস্থা বিদেশিদের ওপর’

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ বলেছেন, জনগণ ঐক্যফ্রন্টের সন্ত্রাসীদের আর ক্ষমতায় আনবে না, তাদের মন্ত্রী-প্রধানমন্ত্রী হওয়ার স্বপ্ন স্বপ্নই থেকে যাবে। শুক্রবার দুপুরে কুষ্টিয়া শহরের পিটিআই রোডে নিজ বাসভবনে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ কথা বলেন। তিনি বলেন, ঐক্যজোটের নেতারা জোট গঠন করেই বিদেশে যান, এর মধ্যে দিয়ে প্রমাণ হয় তাদের এই দেশের জনগণের উপর আস্থা নেই। তাদের আস্থা হচ্ছে বিদেশিদের উপর। হানিফ আরও বলেন, তারা অপেক্ষায় করুক, বিদেশিরা যদি ক্ষমতায় বসিয়ে দেয় তারা যেন তখন ক্ষমতায় আসে। এদেশের জনগণ আর কখনও তাদের ক্ষমতায় বসাবে না। জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রবিউল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী ফারুকুজ্জামান, সাংগঠনিক সম্পাদক হাসান মেহেদী, মিরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কামারুল আরেফিন প্রমুখ এ সময় উপস্থিত ছিলেন। এসএইচ/

ঐক্যের নামে নতুন করে ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে: আইনমন্ত্রী

ড. কামাল হোসেনের জাতীয় ঐক্যের নামে দেশে নতুন ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে বলে মন্তব্য করেছে আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক। তিনি বলেন, আপনারা ঐক্য করেন, কোনও আপত্তি নেই। তবে যে ঐক্য নীতিহীন, স্বাধীনতাবিরোধীদের কথা বলে, সেই ঐক্যের সঙ্গে বাংলার জনগণ যাবে না। আজ শুক্রবার (১৯ অক্টোবর) দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া কসবা পৌর উচ্চ বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে বাংলাদেশ মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতি কসবা শাখার আয়োজিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। মন্ত্রী বলেন, আগামী নির্বাচনে শিক্ষক হিসেবে নয়, একজন সাধারণ মানুষ হিসেবে ভালো-মন্দ যাচাই বাছাই করে সাদাকে গ্রহণ করবেন বলে প্রত্যাশা করি। এসময় মন্ত্রী আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকা মার্কায় ভোট প্রার্থনা করেন। পরে শিক্ষকদের দাবিতে তিনি শিক্ষককল্যাণ ফান্ডে ২৫ লাখ টাকা দেওয়ার ঘোষণা দেন। সভায় কসবা উপজেলা শিক্ষক সমিতির সভাপতি মো. আবু ইউসুফ ভূঞার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাড. আনিসুল হক ভূইয়া, মন্ত্রীর একান্ত সচিব রাশেদুল কাউছার ভূইয়া জীবন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হাসিনা ইসলাম প্রমুখ। আরকে//

ঐক্যফ্রন্ট গঠনে সরকারকে বিচলিত দেখছি: মওদুদ

ঐক্যফ্রন্ট গঠনের পর থেকে সরকারকে আমরা বিচলিত দেখতে পাচ্ছি বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ। তিনি বলেন, জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠনে সরকারের আতে ঘাঁ লেগেছে। সরকার পরাজয়ের ভয়ে সুষ্ঠু নির্বাচন করতে চায় না। তার এখন বিচলিত। শুক্রবার দুপুরে এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মওদুদ আহমদ এসব কথা বলেন। জাতীয় প্রেস ক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে ‘খালেদা জিয়ার মুক্তি, সংসদ ভেঙে নিরপেক্ষ সরকারের অধিনে নির্বাচনই সঙ্কট উত্তরণের একমাত্র পথ’ শীর্ষক এই আলোচনা সভার আয়োজন করে বাংলাদেশ ইয়ূথ ফোরাম। মওদুদ আহমদ বলেন, আমাদেরকে ২৩ অক্টোবর সিলেটে জনসভার জন্য অনুমতি দেয়া হয়নি। আমরা বলেছি হলের মধ্যে করতে দেন। সেটা এখন পর্যন্ত আমরা পাইনি। এতেই প্রমাণ করে সরকারের জনপ্রিয়তা কত নিচে নেমে গেছে। তাদের যে জনপ্রিয়তা নাই, তাদের পেছনে যে মানুষ নাই এটাই তারা বার বার প্রমাণ করছে। তিনি বলেন, সরকারের যদি আত্মবিশ্বাস থাকতো, তারা যদি মনে করতেন জনগণ তাদের সঙ্গে আছেন তাহলে মানা করতে পারতেন না। আপনারা রোড মার্চ করতে পারলে আমরা কেনো পারবো না? আপনারা সভা করতে অনুমতি লাগে না, আমাদের কেনো অনুমতি লাগবে? আমরা কী বাংলাদেশের দ্বিতীয় শ্রেণীর নাগরিক? আজকে সেজন্য এই বাঁধ ভাঙতে হবে। সময় কম অল্প সময়ের মধ্যেই সরকারের এই বাঁধ ভাঙতে হবে। আলোচনা সভায় অন্যদের মধ্যে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আহমেদ আযম খান, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহ, মুসলিম লীগের মহাসচিব জুলফিকার বুলবুল চৌধুরী, শেরে বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।। আরকে//

ঐক্য নামক ফাঁনুসে সায় নেই জাতির: নৌমন্ত্রী

জাতীয় ঐক্যের নামে ড. কামাল হোসেনের ফাঁনুসে জাতির কোন সাই নেই বলে মন্তব্য করেছেন নৌ-পরিবহনমন্ত্রী মো. শাজাহান খান। তিনি জাতীয় ঐক্যকে ‘জগা খিচুড়ি’ আখ্যা দিয়ে দিয়ে বলেন, রাজাকার, আলবদর এবং বঙ্গবন্ধু বিরোধীদের নিয়ে এই ঐক্য করা হয়েছে। জনগণ তাসের ঘরের মতো এই ঐক্যকে চূর্ণবিচূর্ণ করে দেবে। এতে জাতির কোন সাই নেই। শুক্রবার বরিশালে বিআইডবিব্লিউটিসি’র ৬তলা বিশিষ্ট অফিস কাম বাণিজ্যিক ভবন উদ্ধোধন শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি। বরিশাল নদী ভবন চত্বরে এ উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন নৌ পরিবহন মন্ত্রী। বিআইডব্লিউটিসি’র চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মফিজুল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন নৌ পরিবহন মন্ত্রনালয়ের সচিব মো. আবদুস সামাদ। এছাড়া অন্যান্যের মধ্যে অতিথি ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগ সাধারন সম্পাদক তালুকদার মো. ইউনুস এমপি, সদর আসনের এমপি জেবুন্নেছা আফরোজ, মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মোশারফ হোসেন এবং নৌ পুলিশের অতিরিক্ত সুপার মো. কফিল উদ্দিন। আরকে//

‘আইয়ুব বাচ্চু মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী ছিলেন’

বাংলাদেশের ব্যান্ড সংগীতের কিংবদন্তি শিল্পী আইয়ুব বাচ্চু মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী ছিলেন বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, আইয়ুব বাচ্চু তার প্রতিটি কনসার্ট জাতীয় সংগীত দিয়ে শুরু করতেন। তার চলে যাওয়াটা অকাল ও আকস্মিক। শুক্রবার সকালে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে আইয়ুব বাচ্চুর প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানাতে এসে তিনি এসব কথা বলেন। সর্বসাধারণের শেষ শ্রদ্ধা জানানোর জন্য শুক্রবার সকাল সোয়া ১০টায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে বাংলাদেশের ব্যান্ড সংগীতের কিংবদন্তি শিল্পী আইয়ুব বাচ্চুর মরদেহ রাখা হয়। সকাল থেকেই সেখানে অগণিত ভক্তের ঢল। সেতুমন্ত্রী বলেন, মাদকমুক্ত সমাজ ও নারীর প্রতি সহিংসতা রোধে আইয়ুব বাচ্চু ছিলেন সংগীতযোদ্ধা। ব্যান্ড সংগীতকে তিনি এক অনন্য পর্যায়ে নিয়ে গেছেন। আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ, যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী, মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ প্রমুখ এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন। প্রসঙ্গত, গতকাল বৃহস্পতিবার মাত্র ৫৬ বছর বয়সে না ফেরার দেশে চলে গেলেন আইয়ুব বাচ্চু। তার আকস্মিক মৃত্যুতে সারা দেশে নেমে আসে শোকের ছায়া। দেশের শীর্ষস্থানীয় ব্যান্ড এলআরবির দলনেতা আইয়ুব বাচ্চু ছিলেন একাধারে গায়ক, গিটারবাদক, গীতিকার, সুরকার ও সংগীত পরিচালক। একে//

চলে গেলেন খেলাফত মজলিসের আমির মাওলানা হাবিবুর রহমান

বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের আমির প্রিন্সিপাল মাওলানা হাবিবুর রহমান (৬৯) ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। তার প্রতিষ্ঠিত সিলেটের জামেয়া মাদানিয়া ইসলামিয়া কাজির বাজার মাদরাসার মুহাদ্দিস মাওলানা শাহ মমশাদ আহমদ তার মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে সিলেট নগরের ইবনে সিনা হাসপাতালে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। আজ শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৩টায় সিলেট সরকারি আলীয়া মাদ্রাসা মাঠে তার নামাজের জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। সিলেটের বিশিষ্ট এই আলেম নগরীর জামেয়া মাদানিয়া ইসলামিয়া কাজিরবাজার মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা ও প্রিন্সিপালের দায়িত্বে ছিলেন। মৃত্যুকালে তিনি এক স্ত্রী, চার ছেলে ও তিন কন্যা সন্তানসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, প্রিন্সিপাল হাবিবুর রহমান দীর্ঘদিন থেকে ডায়াবেটিস ও হাই প্রেশারসহ শারীরিক নানা সমস্যায় ভুগছিলেন। গত ৭ অক্টোবর তিনি চিকিৎসার জন্য ভারত গিয়েছিলেন। সেখানে চিকিৎসা শেষে অনেকটা সুস্থ হয়ে তিনি গত মঙ্গলবার দেশে ফেরেন। অবস্থার উন্নতি হওয়ায় গত বুধবার ও বৃহস্পতিবার তিনি যথারীতি মাদ্রাসায়ও আসা-যাওয়া করেন। তবে বৃহস্পতিবার রাত ১২টায় তার শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে দ্রুত তাকে ইবনে সিনা হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। মাওলানা হাবিবুর রহমানের গ্রামের বাড়ি সিলেটের গোলাপগঞ্জ উপজেলায়। ১৯৪৯ সালে উপজেলার ফুলবাড়ি ইউনিয়নের ঘনশ্যাম গ্রামে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। কওমি মাদরাসার প্রধানের পরিচয় মুহতামিম হলেও তিনি খ্যাতি পেয়েছিলেন প্রিন্সিপাল হিসেবে। তিনি কওমি মাদরাসায় পড়ালেখার পাশাপাশি দেশের প্রাচীনতম আলিয়া গোলাপগঞ্জের ফুলবাড়ি মাদরাসায় ফাজিল পর্যন্ত পড়েন। পরে সিলেট সরকারি আলিয়া মাদরাসা থেকে কামিল পাস করেন। একে//

© ২০১৮ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি