ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ১৭ অক্টোবর ২০১৯, || কার্তিক ২ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

মুখ খুললেন সম্রাটের স্ত্রী শারমিন

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১৭:৫১ ৬ অক্টোবর ২০১৯ | আপডেট: ১৮:০৭ ৬ অক্টোবর ২০১৯

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাটকে রোববার ভোরে কুমিল্লা থেকে আটক করা হয়। আটকের পর সম্রাটের দ্বিতীয় স্ত্রী শারমিন চৌধুরী তার স্বামী সম্পর্কে মুখ খুলেন।

শারমিন বলেন, বাড়ি গাড়ির প্রতি সম্রাটের তেমন কোনো নেশা নেই। তার মহাখালির বাড়ি ছাড়া আর কোনো বাড়ি নেই। বাড্ডায় থাকেন আগের স্ত্রী। সম্রাট কাকরাইলে অফিসেই থাকেন। গত দুই বছর ধরে মহাখালির বাসায় আসেন না। তার ওপেন হার্ট সার্জারি হয়েছে। তাই সিঁডি বেয়ে উঠতে পারেন না।

তার এ স্ত্রী বলেন, সম্রাট সব সময়ই সম্রাটের মতোই চলাফেরা করতেন। তার একমাত্র নেশা হলো জুয়া খেলা। অন্য কোনো নেশা ছিল না। সিঙ্গাপুরে তিনি জুয়া বা ক্যাসিনো খেলতে যেতেন। বাংলাদেশে কীভাবে সম্রাট ক্যাসিনোর সঙ্গে যুক্ত হলেন আমার জানা নেই।

শারমিন চৌধুরী বলেন, সম্রাট অনেক ভাল মানের একজন নেতা। লোকজন বা ছেলেপুলে চালাতে অনেক টাকা লাগে সেজন্য আমার মনে হয় সে ক্যাসিনো ব্যবসা চালু করেছ। ক্যাসিনোর সব টাকাই সে দলের জন্য খরচ করত।

শারমিন বলেন, সম্রাট সবার সঙ্গে খুব ভালো ব্যবহার করতেন। তিনি সংগঠনের ছেলেদের সঙ্গে থাকতে পছন্দ করতেন। মানুষকে সহযোগিতা করতেন। তবে জুয়া খেলা তার নেশা হলেও তার মাথায় একটা জিনিষ ছিল যে, সে অবৈধ কোনো টাকা সংসারে খরচ করতো না।

জানা যায়, দেশে সম্রাটের দুইজন স্ত্রী রয়েছে। প্রথম সংসারে তার একটি মেয়ে এবং দ্বিতীয় সংসারে একটি ছেলে রয়েছে। সম্রাট দ্বিতীয় স্ত্রীর সঙ্গেই থাকতেন তবে গত দুই বছর ধরে তিনি আর মহাখালীর ডিওএইচএস’র বাসায় যান না। তিনি কাকরাইলের ভূঁইয়া ম্যানশনে নিজ কার্যালয়ে থাকতেন। পরিবারের সব খরচ মাসের প্রথম দিকে তার স্ত্রী শারমিন এসে নিয়ে যেতেন।

এর আগে, ক্যাসিনোকাণ্ডের ঘটনায় রোববার ভোর ৫টায় কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার কুঞ্জশ্রীপুর গ্রামে অভিযান চালিয়ে বহুল আলোচিত এ নেতাকে গ্রেফতার করে র‌্যাব-১ এর একটি বিশেষ দল। একই সঙ্গে গ্রেফতার করা হয় তার ঘনিষ্ঠ সহযোগী এনামুল হক আরমানকেও।  

এসি

 

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি