ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ০৬ অক্টোবর ২০২২

স্বাস্থ্যবান জনগোষ্ঠী গড়তে স্বাস্থ্যসম্মত শৌচাগারের বিকল্প নেই

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১২:০৬, ১৯ নভেম্বর ২০২১

‘শৌচাগারের মূল্যায়ন’- এই প্রতিপাদ্য কে সামনে রেখে পালিত হচ্ছে ‘বিশ্ব শৌচাগার দিবস’। শতভাগ স্বাস্থ্যসম্মত টয়লেট সুবিধা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে প্রতিবছর ১৯ নভেম্বর দিবসটি পালন করা হয়। 

বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও দিবসটি পালিত হচ্ছে।

২০০১ সালে সারা বিশ্বে টয়লেট ব্যবহার ও স্যানিটাইজেশন সম্পর্কে ক্যাম্পেইন শুরু করে ওয়ার্ল্ড টয়লেট অর্গানাইজেশন। এরপর থেকে প্রতি বছর ১৯ নভেম্বর পালিত হয়ে আসছে ‘বিশ্ব শৌচাগার দিবস’। মানবদেহে রোগ হ্রাস করে স্বাস্থ্যবান জনগোষ্ঠী গড়ে তুলতে স্বাস্থ্যসম্মত টয়লেট গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। তাই এটিকে সামনে রেখেই সচেতনতা বৃদ্ধিতে পালিত হয় দিবসটি।

ওয়াটার এইডের এক গবেষণায় দেখা গেছে ঢাকার সড়কপথে প্রতিদিন ৫০ লাখ মানুষ চলাচল করে যাদের জন্য টয়লেট আছে মাত্র ৪৯টি। এগুলোর অধিকাংশই আবার ব্যবহার অনুপযোগী। পরিস্থিতির উন্নতির জন্য ওয়াটার এইড বাংলাদেশ ‘মেকিং দ্য পাবলিক টয়লেট ওয়ার্ক’ থিমে কাজ করছে যা বাংলাদেশে প্রথম বলে দাবি করছে সংস্থাটি। ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের সঙ্গে অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে তারা এ পর্যন্ত ৩০টি পাবলিক টয়লেট নির্মাণ করেছে। আর সোশ্যাল ইমপ্যাক্ট অর্গানাইজেশন হিসেবে ভূমিজ এগুলোর নির্মাণ, মেরামত ও রক্ষ্ণাবেক্ষণের কাজ করছে। ব্র্যাকের সহযোগিতায় ২০১৭ সালে ভূমিজ রাজধানীর গাউছিয়া মার্কেটে নারীদের জন্য দেশের প্রথম পাবলিক টয়লেট নির্মাণের মাধ্যমে যাত্রা শুরু করে। বর্তমানে ভূমিজের তৈরি করা ১৪টি পাবলিক টয়েলেটে প্রায় সাড়ে তিন হাজার মানুষ নিয়মিত স্যানিটেশন সেবা পাচ্ছে।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম বলেন, “ডিএনসিসির উদ্যোগে নাগরিকদের ব্যবহারের জন্য ৬৩টি আধুনিক গণশৌচাগার নির্মাণ করা হয়েছে। এবার দিবসটির প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়েছে ‘শৌচাগারের মূল্যায়ন’ যা অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ ও সময়োপযোগী। নাগরিকদের সুবিধার্থে ইতোমধ্যে ডিএনসিসি এবং বিভিন্ন এনজিওর উদ্যোগে নির্মিত সর্বমোট ১৬৩টি গণশৌচাগার সম্পর্কিত তথ্য ‘সবার ঢাকা’ মোবাইল অ্যাপসে সংযুক্ত করা হয়েছে।”
এসএ/
 


Ekushey Television Ltd.

© ২০২২ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি