ঢাকা, সোমবার   ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, || আশ্বিন ১১ ১৪২৮

বাহাত্তর বছরে পা রাখছে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ (ভিডিও)

রিয়াজ সুমন

প্রকাশিত : ১২:১৪, ২০ জুন ২০২১

আগামী ২৩ জুন বাহাত্তর বছরে পা রাখছে দেশের সবচেয়ে বৃহৎ ও প্রাচীন রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। ১৯৪৯ সালে রোজ গার্ডেনে জন্ম। রোজ গার্ডেন থেকে বঙ্গবন্ধু এভিনিউ গোটাটাই বাংলাদেশের ইতিহাস। আওয়ামী লীগের শরীরে মোড়ানো আন্দোলন, সংগ্রামের ঐতিহ্য। বঙ্গবন্ধুর আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে সবচে বড় অর্জন স্বাধীনতা। আর স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীতে বঙ্গবন্ধু কন্যার নেতৃত্বে উন্নয়ন অগ্রযাত্রায় বাংলাদেশ।

১৯৪৭ এ পাকিস্তান জন্মের পর পরই পাকিস্তানি শাসকদের বৈষম্যে বাঙালির স্বপ্নভঙ্গ। ১৯৪৯ সালের ২৩ জুন রোজ গার্ডেনে জন্ম পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগের। সভাপতি মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী ও সাধারণ সম্পাদক শামসুল হক। কারাগারে থাকা শেখ মুজিবুর রহমানকে যুগ্ম সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়। 

১৯৫২ সালে শেখ মুজিবুর রহমান ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পান। পরের বছর নির্বাচিত হন সাধারণ সম্পাদক। ৬৬ সাল পর্যন্ত সাধারণ সম্পাদক ছিলেন বঙ্গবন্ধু।

জন্মের ৬ বছরের মাথায় অসাম্প্রদায়িক দল হিসেবে প্রতিষ্ঠা পেতে মুসলিম শব্দটি বাদ দেয়া হয়। ৫৭ সালে পররাষ্ট্র নীতি নিয়ে বিরোধে মওলানা ভাসানী দল ছাড়েন। ৬৬তে বঙ্গবন্ধু সভাপতি ও তাজউদ্দিন আহমেদ সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। 

লেখক ও গবেষক রওনক জাহান বলেন, সাধারণ মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তি হবে, গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠিত হবে- দেখলেন সেগুলো কিছুই হচ্ছে না। এটা যখন দেখলেন তখনই তারা বুঝতে পারলেন যে মুসলিম লীগ না করে সাধারণ মানুষের জন্য আরেকটা রাজনৈতিক দল করা দরকার। সে জন্য তাঁরা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠা করলেন।

৬৬তে বাঙালির বাঁচার দাবি ছয়দফা দেন বঙ্গবন্ধু। এক হয় সাড়ে সাত কোটি বাঙালি। ৬৯-এর গণঅভ্যুত্থানে বাঙালি মুক্ত করে বঙ্গবন্ধুকে। ৭০-এর নির্বাচনে বঙ্গবন্ধুর আওয়ামী লীগ একক সংখ্যাগরিষ্টতা অর্জন করে। ক্ষমতা হস্তান্তরে পাকিস্তানিদের তালবাহানা। স্বাধীনতার ঘোষণা দেন বঙ্গবন্ধু।  

নয় মাসের মুক্তিযুদ্ধে আসে স্বাধীনতা। 

বঙ্গবন্ধু যখন দেশ গড়ার পথে, ঠিক সেই সময়ে ৭৫-এর ১৫ই আগস্ট কালরাতে স্বপরিবারে নির্মমভাবে হত্যা করা হয় জাতির পিতাকে। আবারও উল্টোপথে বাংলাদেশ।

আওয়ামী লীগের ওপর নেমে আসে নির্যাতনের খড়গ। বঙ্গবন্ধুর দুই কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা নির্বাসনে। কঠিন সময়ে দলের আহ্বায়কের দায়িত্ব পালন করেন জোহরা তাজউদ্দিন। ৮১ সালে আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হন শেখ হাসিনা। ফিরে আসেন দেশে। 

ভোট-ভাতের অধিকার আদায়ে রাজপথে শেখ হাসিনার আওয়ামী লীগ। শত নির্যাতনেও দমেনি দলটি। ৮১ সাল থেকে এ পর্যন্ত দলটির সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন আবদুর রাজ্জাক, সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, জিল্লুর রহমান, আবদুল জলিল, সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। আর টানা দ্বিতীয় মেয়াদে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন ওবায়দুল কাদের।

রোজ গার্ডেন থেকে বঙ্গবন্ধু এভিনিউ পর্যন্ত দীর্ঘ পথ চলায় শুধুই সংগ্রাম আর ঐতিহ্যের গল্প।

রওনক জাহান আরও বলেন, শেখ হাসিনা দুটোই করতে পেরেছেন। বহুদিন তিনি অপজিশনে ছিলেন, ক্ষমতার বাইরে ছিলেন এবং নির্বাচন করে দলকে ক্ষমতায় নিয়ে আসতে পেরেছেন। 

আওয়ামী লীগের হাত ধরেই বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে সমৃদ্ধির পথে। উন্নয়নের পথে হাঁটা আওয়ামী লীগের লক্ষ্য- উন্নত বাংলাদেশ।

ভিডিও-

এএইচ/


Ekushey Television Ltd.

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি