ঢাকা, সোমবার, ২৩ অক্টোবর, ২০১৭ ৮:১৪:৪৯

ভারতকে আঞ্চলিক যোগাযোগের নতুন প্রস্তাব

ভারতকে আঞ্চলিক যোগাযোগের নতুন প্রস্তাব

আঞ্চলিক যোগাযোগ বাড়ানোর জন্য ভারত-বাংলাদেশ যৌথ পরামর্শক কমিশনের সভায় নতুন প্রস্তাব করেছে বাংলাদেশ। রবিবার ঢাকার সোনারগাঁও হোটেলে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ ও বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলীর নেতৃত্বে দুই দেশের প্রতিনিধি দল যৌথ পরামর্শক কমিশনের সভায় এই প্রস্তাব দেওয়া হয়। বৈঠকের পর মাহমুদ আলী বলেন, সড়ক, রেল ও নৌপথে যোগাযোগ বাড়াতে দুই দেশ নানাভাবে কাজ করছে। আঞ্চলিক যোগাযোগ বাড়ানোর জন্য আজ আমরা নতুন কিছু প্রস্তাব রেখেছি। ভারত সেগুলো ইতিবাচক ভাবে নিয়েছে। এই প্রস্তাবে ঢাকা-চেন্নাই-কলম্বো বিমান চলাচল, চট্টগ্রাম-কলকাতা-কলম্বো জাহাজ চলাচল, পঞ্চগড়-শিলিগুড়ি রেল যোগাযোগ, ভারতীয় ভূখণ্ডের ওপর দিয়ে ভুটানের সঙ্গে ইন্টারনেট যোগাযোগ, বাংলাদেশের নাকুগাঁও স্থলবন্দর থেকে ভারতের ডলু হয়ে ভুটানের গাইলেফুং স্থলবন্দরের সঙ্গে বাণিজ্য যোগাযোগের কথা রয়েছে। সুষমা স্বরাজ বলেন, প্রতিবেশীদের মধ্যে অবশ্যই সহযোগিতার সম্পর্ক থাকা উচিৎ। দুই দেশের বন্ধুতের কারণেই আমরা সমঝোতায় পৌঁছাতে পেরেছি। তিনি বলেন, বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ককে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিচ্ছে তার দেশ। যত ক্ষেত্রে মানুষে মানুষে সহযোগিতা সম্ভব, তার সবগুলোতেই আমাদের সহযোগিতা বিস্তৃত হয়েছে। ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ভারত বাংলাদেশকে ৬৬০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ দিচ্ছে। বাংলাদেশে বিদ্যুৎ প্রয়োজন তাই অদূর ভবিষ্যতে এই পরিমাণ বাড়িয়ে দ্বিগুণ করা হবে। তিনি বলেন, ভুটানের সুযোগ রেখেই বাংলাদেশ, নেপাল ও ভারত বিবিআইএন মোটরযান চুক্তি বাস্তবায়ন করবে। ২০১৫ সালের জুনে বাংলাদেশ, ভুটান, ভারত ও নেপালের মধ্যে সড়ক পথে যাত্রীবাহী, ব্যক্তিগত ও পণ্যবাহী যান চলাচলে মটরযান চুক্তি হয়। ভুটান পরে জানায়, অভ্যন্তরীণ পরিস্থিতির কারণে আপাতত তাদের পক্ষে বিবিআইএনে থাকা সম্ভব হচ্ছে না।       আর
মিয়ানমারকে রোহিঙ্গাদের ফেরত নিতেই হবে : সুষমা

সেনাবাহিনীর নির্যাতন থেকে বাঁচতে রাখাইন থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের অবশ্যই ফেরত নিতে হবে মিয়ানমারকে। রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফেরত যাওয়াতেই সমাধান দেখছে ভারতও। রবিবার সন্ধ্যায় গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠকে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ এ সব কথা বলেন। রবিবার সকালে ঢাকায় আসার পর সোনারগাঁওয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর এ এইচ মাহমুদ আলীর সঙ্গে যৌথ পরামর্শক কমিশনের (জেসিসি) বৈঠক করেন সুষমা। বৈঠক শেষে সন্ধ্যায় গণভবনে যান তিনি। বৈঠকের পর প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে উদ্ধৃত করে গণমাধ্যমকে বলেন, মিয়ানমারকে অবশ্যই রোহিঙ্গা নাগরিকদের ফেরত নিতে হবে।

নারীদের বিনামূল্যে ২০লাখ ‘অপরাজিতা’ সিম দিচ্ছে টেলিটক

নারীর ক্ষমতায়ন ও তাদের জীবনযাত্রার মানোন্নয়নে বিনামূল্যে ২০ লাখ ‘অপরাজিতা’ সিম বিতরণ করছে রাষ্ট্রায়ত্ত মোবাইল ফোন অপারেটর টেলিটক। একজন নারী সর্বোচ্চ ২টি সিম সংগ্রহ করতে পারবেন। ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম আজ রোববার সচিবালয়ে এই সিম বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন। উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, “এই সিমে সুলভ মূল্যে কল ও ইন্টারনেট সেবা পাওয়া যাবে। ‘অপরাজিতা’ সিম দেশের নারীদের সামাজিক ও অর্থনৈতিক অবস্থান উন্নয়নে সুদূর প্রসারী ভূমিকা রাখবে বলে আশা করি।” ‘অপরাজিতা’ সিমে অত্যন্ত সুলভ মূল্যে কল, ইন্টারনেট সেবা পাওয়া যাবে জানিয়ে তারানা হালিম বলেন, “এর ফলে ইন্টারনেট প্রবেশাধিকারে জেন্ডার বৈষম্য বহুলাংশে কমবে এবং বাংলাদেশের এসডিজি লক্ষ্যমাত্রা-৫ (জেন্ডার সমতা অর্জন এবং নারী ও মেয়ের ক্ষমতায়ন করা) পূরণে সক্ষম হবে।” ‘স্টার্ট আপ বোনাস’ হিসেবে একজন অপরাজিতা গ্রাহক সিমের সঙ্গে ১০ টাকার টক টাইম পাবেন, যা তিন মাস বহাল থাকবে। সেই সঙ্গে এক জিবি ডেটা, ১০ মিনিট টেলিটক থেকে টেলিটকে এবং টেলিটক থেকে অন্য অপারেটরে ৫ মিনিট বিনা পয়সায় কথা বলার সুযোগ পাবেন, যা ব্যবহার করতে হবে অ্যাক্টিভেশনের পর প্রথম সাত দিনের মধ্যে। ‘অপরাজিতা’ গ্রাহক সাত দিন মেয়াদে ৮ টাকায় এক জিবি ডেটা এবং ১৪ টাকায় দুই জিবি ডেটার ইন্টারনেট প্যাকেজ ব্যবহারের সুযাগ পাবেন। সিম অ্যাক্টিভেশনের পর তিন মাস যতবার খুশি এই প্যাকেজ তিনি উপভোগ করতে পারবেন। টেলিটকের নারী গ্রাহকদের মধ্যে যারা অন্য সিম ব্যবহার করছেন তারাও ’অপরাজিতা‘য় মাইগ্রেট করতে পারবেন বলে অনুষ্ঠানে জানানো হয়। আজ রোববার থেকেই সারা দেশে টেলিটকের গ্রাহক সেবা কেন্দ্র এবং নির্ধারিত রিটেইল পয়েন্টে এ সিম পাওয়া যাবে। টেলিটকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাজী মো. গোলাম কুদ্দুসসহ জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তারা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।   এমআর

হলফনামা বাতিলের প্রস্তাব অনভিপ্রেত: সুজন

নির্বাচনের সময় প্রার্থীর হলফনামা দেওয়ার প্রক্রিয়া বাতিল চেয়ে একটি দল যে অভিমত প্রকাশ করেছে তা হতাশাজনক ও অনভিপ্রেত বলে মন্তব্য করেছে সুশাসনের জন্য নাগরিক(সুজন)। রোববার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এমন মত আসে সুজন নেতাদের কাছ থেকে। সুজন সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার বলেন, এ প্রস্তাব ভোটারদের বাক স্বাধীনতা ও মৌলিক অধিকারের পরিপন্থী। গত ৮ অক্টোবর নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে সংলাপের সময় হলফনামা দেওয়ার প্রক্রিয়া বাতিলের সুপারিশ করে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ)। বদিউল আলম মজুমদার বলেন, এ দাবি (হলফনামা বাতিলের) গণতন্ত্র প্রাতিষ্ঠানিক করণের অন্তরায় এবং দেশে রাজনৈতিক অঙ্গনে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা প্রতিষ্ঠার জন্য অশনিসংকেত। বদিউল আলম জানান, উচ্চ আদালতের নির্দেশেই এই বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত করেছে নির্বাচন কমিশন। তাই তা বাতিলের ক্ষমতা প্রতিষ্ঠানটির হাতে নেই। নির্বাচনী প্রক্রিয়াকে পরিচ্চন্ন করতে হলফনামার ছকের পরিবর্তন, হলনামার তথ্য যাচাই-বাছাই, অনলাইনে জমা দেওয়ার ব্যবস্থা, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনেও হলফনামার বিধান যুক্ত করাসহ ছয় দফা প্রস্তাব দেওয়া হয় সুজনের পক্ষ থেকে। আরকে//  

উল্টোপথে বাস নেওয়া শিক্ষার্থীরা দেশকে উল্টোপথে নেবে : সেতুমন্ত্রী

যেসব শিক্ষার্থী সড়কে উল্টোপথে বাস নিতে চালককে বাধ্য করে, তারা দেশকে সঠিক পথে নিতে পারবে না। ওই সব শিক্ষার্থীরা দেশকেও উল্টোপথে নেবে বলে মন্তব্য করেছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। রবিবার দুপুরে রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস উপলক্ষে এক সেমিনারে এসব কথা বলেন তিনি। বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথোরিটি (বিআরটিএ) এই সেমিনারের আয়োজন করে। ওবায়দুল কাদের বলেন, শিক্ষার্থী তাদের বাস সড়কে উল্টোপথে বাস নিতে চালককে বাধ্য করে এটা অত্যন্ত দুঃখের বিষয়, লজ্জার বিষয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তাদের তাগিদ দিয়েও এই খারাপ প্র্যাকটিস বন্ধ করতে পারেননি। তিনি বলেন, ড্রাইভার যদি না শোনে,  তাকে কোথাও নিয়ে আটকে রাখে, তাকে মারধর করে। এটাই কি ইউনিভার্সিটির শিক্ষা? মন্ত্রী বলেন, এই শিক্ষার কোনো প্রয়োজন নেই যারা উল্টোপথে গাড়ি চালাতে ড্রাইভারকে যারা বাধ্য করে।  এ ধরনের শিক্ষার্থী যদি বাংলাদেশের নেতা হয়, তারা দেশকেও উল্টোপথে নেবে। সেতুমন্ত্রী বলেন, দুর্ঘটনা প্রতিরোধে ও সুশৃঙ্খল সড়কের জন্য সবাইকে সচেতন হতে হবে। সড়ক নিরাপদের কাজ একা সরকার পারবে না, একা ইলিয়াস কাঞ্চন পারবেন না, একা ওবায়দুল কাদেরও পারবেন না। এজন্য সবার সহযোগিতা দরকার, সবার মানসিকতা পরিবর্তন করতে হবে।   আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, দেশে কিছু অসাধারণ নেতা আছেন, মানুষ আছেন যারা সড়কে নিয়ম মানতে চান না। ফুটওভার ব্রিজ থাকলেও হামাগুড়ি দিয়ে ডিভাইডার পার হন। ফ্লাইওভারেও তাদেরকে দৌঁড়ে ডিভাইডার দিয়ে পার হতে দেখা যায়। এ অবস্থায় দুর্ঘটনা ঘটলে এর জন্য কি চালককে দোষারোপ করা যায়? তিনি বলেন, আমাদের বাঁচতে হলে, ভবিষ্যত প্রজন্মকে নিরাপদ রাখতে হলে রাস্তা নিরাপদ করতেই হবে। আমরা অবশ্যই পারবো, তবে এজন্য সবার মানসিকতা পরিবর্তন করতে হবে। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিআরট ‘র চেয়ারম্যান মশিউর রহমান। বক্তব্য রাখেন, ‘নিরাপদ সড়ক চাই’ এর সভাপতি চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন, সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য মনিরুল ইসলাম এমপি, সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সাবেক সচিব এম. এন. সিদ্দিক, সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব নজরুল ইসলাম প্রমুখ।   আর    

দুদকের সিদ্ধান্ত দুদকই নেবে: ইকবাল মাহমুদ

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) কমিশনের চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ বলেছেন, দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) একটি স্বাধীন প্রতিষ্ঠান। তাই প্রধান বিচারপতি বা অন্য কোনো ব্যক্তির বিরুদ্ধে তদন্ত করার সিদ্ধান্ত দুদক নিজেদের মতো করেই নেবে। রোববার নিজ কার্যালয়ে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ইকবাল মাহমুদ এসব কথা বলেন । প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার (এস কে) সিনহার বিরুদ্ধে উঠা অভিযোগগুলো নিয়ে দুর্নীতি দমন কমিশন- দুদক তদন্ত করবে কি না, এমন প্রশ্নে জবাবে স্পষ্ট করে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি তিনি। তবে সিদ্ধান্ত হলে সবাই জানবে বলে জানান ইকবাল মাহমুদ।  

দুর্ঘটনা রোধে সবাইকে সচেতন হতে হবে : সেতুমন্ত্রী

দুর্ঘটনা প্রতিরোধে ও সুশৃঙ্খল সড়কের জন্য সবাইকে সচেতন হতে হবে বলে জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, সড়ক নিরাপদের কাজ একা সরকার পারবে না, একা ইলিয়াস কাঞ্চন পারবেন না, একা ওবায়দুল কাদেরও পারবেন না। এজন্য সবার সহযোগিতা দরকার, সবার মানসিকতা পরিবর্তন করতে হবে।   রবিবার দুপুরে রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস উপলক্ষে এক সেমিনারে এসব কথা বলেন তিনি। বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথোরিটি (বিআরটিএ) এই সেমিনারের আয়োজন করে। ওবায়দুল কাদের বলেন, দেশে কিছু অসাধারণ নেতা আছেন, মানুষ আছেন যারা সড়কে নিয়ম মানতে চান না। ফুটওভার ব্রিজ থাকলেও হামাগুড়ি দিয়ে ডিভাইডার পার হন। ফ্লাইওভারেও তাদেরকে দৌঁড়ে ডিভাইডার দিয়ে পার হতে দেখা যায়। এ অবস্থায় দুর্ঘটনা ঘটলে এর জন্য কি চালককে দোষারোপ করা যায়? আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, আমাদের বাঁচতে হলে, ভবিষ্যত প্রজন্মকে নিরাপদ রাখতে হলে রাস্তা নিরাপদ করতেই হবে। আমরা অবশ্যই পারবো, তবে এজন্য সবার মানসিকতা পরিবর্তন করতে হবে। ওবায়দুল কাদের বলেন, বিভিন্ন জনপ্রতিনিধিরা এলাকায় হেলমেট ছাড়া গাড়ি চালান। জনপ্রতিনিধিদের সংবর্ধনা দিতে শত শত মানুষ হেলমেট ছাড়া গাড়ির মহড়া করে। এতে যানজট হয়, মানুষ ভোগান্তিতে পড়ে। নিজের নিয়ম মেনে না চলায় দুর্ঘটনার সম্মুখীন হয়। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিআরটিএ ‘র চেয়ারম্যান মশিউর রহমান। বক্তব্য রাখেন, ‘নিরাপদ সড়ক চাই’ এর সভাপতি চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন, সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য মনিরুল ইসলাম এমপি, সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সাবেক সচিব এম. এন. সিদ্দিক, সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব নজরুল ইসলাম প্রমুখ।   আর / এআর    

কাল আবারও বাজারে আসবে ইলিশ

দীর্ঘ ২২ দিনের (১-২২অক্টোবর) মা-ইলিশ সংরক্ষণ মৌসুম শেষ হচ্ছে আজ রোববার রাত ১২টায়। ২২ দিন বন্ধ থাকার পর আজ রাত ১২ টা থেকে নদীতে মাছ ধরবেন জেলেরা। এ জন্য তারা নদীর তীরে জাল ও সরঞ্জাম গোছানোর কাজ করছেন। এবার ইলিশ ধরা নিষিদ্ধের সময়ে ২৫ জেলায় ৩ লাখ ৮৪ হাজার ৪৬২টি জেলে পরিবারকে ভিজিএফ কর্মসূচির আওতায় ২০ কেজি করে চাল দিয়েছে সরকার। মা ইলিশ সংরক্ষণ অভিযান উপলক্ষে নানা ধরনের কর্মসূচি হাতে নেয় মৎস্য অধিদফতর। মৎস্য কর্মকর্তারা জানান, এবারের মা-ইলিশ সংরক্ষণ মৌসুম ৯০ ভাগ সফল হয়েছে। কিছু সমস্যার কারণে ১০ ভাগ সফল হয়নি। তবে জেলেরা অগের চেয়ে অনেক সচেতন হয়েছেন। ভোলা: জেলা প্রশাসকের কার্যালয় সূত্র জানায়, মা ইলিশ সংরক্ষণের সময় বিভিন্ন অভিযান পরিচালনা করা হয়। জেলেদের মধ্যে চাল বিতরণ করা শেষ হয় আজ। সদর উপজেলায় তিনটি নদীতে যারা মাছ ধরতে নেমেছিলেন তাদের ৭৫ ভাগ জেলেকে আটক করা হয়। রোববার পর্যন্ত মোট ৪৫২টি অভিযান চালিয়েছে মৎস্য কর্মকর্তা, ম্যাজিস্ট্রেট, কোস্টগার্ড ও পুলিশ। এসব অভিযানে প্রায় ৪৫৫ জন জেলেকে আটক করা হয়েছে। মামলা হয়েছে ১২৭টি, ভ্রাম্যমাণ আদালত বসেছে ১৮৫টি, জেল হয়েছে ১৮০ জনের। জরিমানা করা হয়েছে মোট ৬ লাখ ৫৯ হাজার ৫০০ টাকার। ২২ দিনের অভিযানে ৩ হাজার ১১৪ কেজি ইলিশ, ৩৩টি ট্রলার ও ৭ লাখ ৭৭ হাজার ৬০০ মিটার জাল জব্দ হয়েছে। আরও বলেন, এ বছর জেলেরা সচেতন হওয়ার কারণে অভিযান ৯০-৯২ ভাগ সফল হয়েছে বলে জানান জেলা মৎস্য কর্মকর্তারা। চাঁদপুর: ইলিশ রক্ষায় গঠিত জেলা-উপজেলা টাস্কফোর্স পদ্মা-মেঘনায় ১০০টি অভিযান পরিচালনা করে ১১৮ জন জেলেকে আটক করে। এর মধ্যে ১৪৩টি ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে ৯০ জন জেলেকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেওয়া হয়। বাকি ২৮ জন জেলের কাছ থেকে ১ লাখ ১৩ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়। জব্দ করা হয় ৭ লাখ ৬৪ হাজার ৯০০ মিটার কারেন্ট জাল ও ২ হাজার ৪০০ কেজি ইলিশ। মামলা দায়ের করা হয়েছে ১০৭টি। নিষেধাজ্ঞার ২২ দিনের জন্য বিশেষ খাদ্য সহায়তা কর্মসূচির আওতায় ৩৬ হাজার ৫৭৫জন জেলেকে ২০ কেজি করে চাল দেওয়া কার্যক্রম এখনো চলমান রয়েছে। এ ছাড়া বিকল্প কর্মসংস্থান হিসেবে ৯৬০জন জেলেকে পশু পালনের জন্য ছাগল ও সেলাই মেশিন দেওয়া হয়।   আর / এআর

রাজনীতির লোককে নির্বাচন পর্যবেক্ষক না করার আহবান সিইসির

রাজনীতি সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা যেন নির্বাচন পর্যবেক্ষক হতে না পারেন সে বিষয়ে সতর্ক থাকতে পর্যবেক্ষক সংস্থার প্রতিনিধিদের আহবান জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা। আজ রোববার আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনে পর্যবেক্ষক সংস্থার প্রতিনিধিদের সঙ্গে মতবিনিময়ের শুরুতে এ আহবান জানান তিনি। বিভিন্ন পর্যবেক্ষক সংস্থার অন্তত ২৫ জন প্রতিনিধি এই আলোচনায় অংশ নিচ্ছেন। বৈঠকের সূচনা বক্তব্যে পর্যবেক্ষকদের উদ্দেশ্যে সিইসি কে এম নূরুল হুদা বলেন, “রাজনৈতিক কোনো ব্যক্তি যেন নির্বাচন পর‌্যবেক্ষক হিসেবে নিয়োগ না পায়, সে বিষয়ে আপনাদের সতর্ক দৃষ্টি রাখতে হবে।” পক্ষপাতহীন ও নিরপেক্ষভাবে দায়িত্ব পালনের জন্য পর‌্যবেক্ষকদের আহবান জানান এবং তাদের দায়িত্ব পালনকালে সামগ্রিকভাবে ভোট কার্যক্রম যেন বাধাগ্রস্ত না হয় সে দিকে লক্ষ্য রাখতে অনুরোধ করেন। সিইসি বলেন, “আমরা আপনাদের পরামর্শ নিচ্ছি। যাদেরকে নির্বাচনী দায়িত্ব পালনে মাঠে পাঠাবেন, তাদেরকে প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ দেবেন বলে আশা করি।” রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে মতবিনিময়ে নির্বাচন পর্যবেক্ষদের ভূমিকা নিয়ে কথা হয়েছে এবং পর্যবেক্ষকরা যাতে সঠিকভাবে তাদের দায়িত্ব পালন করতে পারেন, সে বিষয়ে রাজনৈতিক দলগুলোর প্রতিনিধিরা বিভিন্ন পরামর্শ দিয়েছেন বলে জানান সিইসি। তিনি বলেন, “আপনারা নির্বাচন চলাকালে মাঠে ময়দানে বিচরণ করবেন, সঠিক সংবাদ সংগ্রহের সুযোগ পাবেন।  আপনাদের পরামর্শ আমরা গুরুত্ব সহকারে গ্রহণ করব এবং বিবেচনা করব।”   একাদশ সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে আইন সংস্কার, আসন সীমানা পুনঃনির্ধারণসহ ঘোষিত রোডম্যাপ নিয়ে কে এম নূরুল হুদা নেতৃত্বাধীন নির্বাচন কমিশন রাজনৈতিক দলসহ অংশীজনদের সঙ্গে ধারাবাহিক এই সংলাপ করছে। আগামীকাল সোমবার নারী নেত্রী এবং মঙ্গলবার নির্বাচন বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে মতবিনিময়ের কথা রয়েছে ইসির।   এমআর / এআর

৫ দফা বাস্তবায়নের আহবান প্রধানমন্ত্রীর

রোহিঙ্গা সংকটের অবসানে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে পাঁচ দফা প্রস্তাব তুলে ধরেছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা । সেই প্রস্তাব যাতে বাস্তবায়িত হয় সেজন্য জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসের সমর্থন চেয়েছেন শেখ হাসিনা। জাতিসংঘের মহাসচিব শনিবার রাতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ফোন করলে তিনি এই আহ্বান জানান। তারা রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে প্রায় ২০ মিনিট কথা বলেছেন বলে গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম। গত ২১ সেপ্টেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে সাধারণ পরিষদের ৭২তম অধিবেশনে ভাষণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রোহিঙ্গাদের রক্ষায় ৫ দফা প্রস্তাব তুলে ধরেন। প্রস্তাবগুলো হলো : অনতিবিলম্বে এবং চিরতরে মিয়ানমারে সহিংসতা ও `জাতিগত নিধন` নিঃশর্তে বন্ধ করা; অনতিবিলম্বে মিয়ানমারে জাতিসংঘের মহাসচিবের নিজস্ব একটি অনুসন্ধানী দল প্রেরণ করা; জাতি-ধর্ম নির্বিশেষে সব সাধারণ নাগরিকের নিরাপত্তা বিধান করা এবং এ লক্ষ্যে মিয়ানমারের অভ্যন্তরে জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে সুরক্ষা বলয় গড়ে তোলা; রাখাইন রাজ্য থেকে জোরপূর্বক বিতাড়িত সব রোহিঙ্গাকে মিয়ানমারে তাদের নিজ ঘরবাড়িতে প্রত্যাবর্তন ও পুনর্বাসন নিশ্চিত করা এবং কফি আনান কমিশনের সুপারিশমালার নিঃশর্ত, পূর্ণ এবং দ্রুত বাস্তবায়ন নিশ্চিত করা। ইহসানুল করিম জানান, রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে কথা বলতে ফোন করায় জাতিসংঘ মহাসচিবকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। এ ব্যাপারে তিনি জাতিসংঘ মহাসচিবের সহযোগিতা চেয়েছেন এবং সংকটের স্থায়ী সমাধান না হওয়া পর্যন্ত তৎপর থাকার আহ্বান জানিয়েছেন। শেখ হাসিনা বলেন, বল প্রয়োগ করে বিতাড়িত করা রোহিঙ্গাদের শান্তিপূর্ণ উপায়ে ফেরত পাঠাতে বাংলাদেশ মিয়ানমারের সঙ্গে ইতিমধ্যে দ্বিপক্ষীয় আলোচনা শুরু করেছে। গুতেরেসকে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আপনি খুব ভালোভাবে জানেন যে, সমস্যার মূল মিয়ানমারে এবং সেখানেই এই সংকটের সমাধান পাওয়া যাবে।’ রোহিঙ্গা সংকটের সর্বশেষ পরিস্থিতি সম্পর্কে তাকে (গুতেরেস) অবহিত করতে পররাষ্ট্রমন্ত্রী শিগগিরই নিউ ইয়র্ক সফর করবেন বলে জানান প্রধানমন্ত্রী। ‘রোহিঙ্গা সংকটের একটি সমাধান খুঁজতে আমরা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকেও মিয়ানমারে পাঠাচ্ছি,’ জাতিসংঘ মহাসচিবকে বলেন তিনি। শেখ হাসিনা আরও বলেন, বাংলাদেশ অভিমুখে রোহিঙ্গাদের স্রোত এখনও অব্যাহত রয়েছে এবং মিয়ানমারে তাদের প্রতি সহিংসতা এখনও বন্ধ হয়নি। ‘জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত মিয়ানমার নাগরিকের সংখ্যা ইতোমধ্যে ছয় লাখ ছাড়িয়েছে, যাতে সব মিলিয়ে তাদের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১০ লাখে,’ বলেন তিনি। শেখ হাসিনা বলেন, ‘তার সরকার মানবিক দিক বিবেচনা করে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়েছে। বাংলাদেশ সরকার ও এদেশের জনগণ জাতিসংঘের সব সংস্থার সহযোগিতা নিয়ে সংকট মোকাবেলা করছে। বাংলাদেশ সরকারের তত্ত্বাবধানে আইওএম, ইউএনএইচসিআর, ইউনিসেফ, ডব্লিউএফপি, ডব্লিউএইচও, এফএও, ইউএন ওমেন, ইউএনডিপি ও অন্যান্য জাতিসংঘ সংস্থা তাদের জরুরি মানবিক সহায়তা দিচ্ছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী।   এসএ / এআর

সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে আস্থা রাখুন আ. লীগে : জয়

বাংলাদেশকে উন্নত দেশের কাতারে নিতে আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় রাখার আহবান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীপুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়। আজ শনিবার সাভারে শেখ হাসিনা যুব প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশন (সিআরআই) আয়োজিত ‘জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড’ প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি এ আহবান জানান। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার তথ্য-প্রযুক্তিবিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় অনুষ্ঠানে নবীন তথ্য প্রযুক্তি উদ্যোক্তাদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করেন। অনুষ্ঠানে দেওয়া বক্তব্যে তিনি একটি দেশের উন্নয়নের জন্য সরকারের ধারাবাহিকতা রক্ষার উপর জোর দিয়ে মালয়েশিয়ার উদাহরণ টানেন। জয় বলেন, বাংলাদেশে আওয়ামী লীগ এবার টানা আট বছর ক্ষমতায়। সর্বমোট (স্বাধীনতার পর) ১৬ বছর। আওয়ামী লীগ কেবল আট বছর ক্ষমতায়, তাতেই দেশের কী পরিমাণ উন্নতি, দেখুন।

সুষমা আসছেন সোমবার

ঢাকা সফরে আসছেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ। তার দুই দিনের সফরে বাংলাদেশের উন্নয়ন প্রকল্পে বড় ধরনের অর্থায়নের পরিকল্পনা করছে ভারত। টাইমস অব ইন্ডিয়ার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সুষমার সফরকালে দিল্লির অর্থায়নে বাংলাদেশে ১৫টি প্রকল্পের কার্যক্রম শুরু হতে পারে বলে জানা গেছে। সম্প্রতিক সময়ে  বাংলাদেশ সফর করেছেন ভারতের অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি। ওই সফরের সময় তিনি ৪৫০ কোটি ডলারের ঋণচুক্তিতে স্বাক্ষর করেছেন। এক মাসের কম সময়ের মধ্যে দ্বিতয়ি শীর্ষ স্থানীয় মন্ত্রী হিসেবে সোমবার ঢাকা সফরে আসছেন সুষমা। ভারতীয় কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে টাইমস অব ইন্ডিয়া জানিয়েছে, সুষমার সফরে ভারতের মোদি সরকার ১৫টি বাংলাদেশি প্রকল্পে অর্থায়নের সিদ্ধান্ত জানাতে পারে। সুষমা তার দুইদিনের সফরে ওই প্রকল্পগুলো উদ্বোধন করবেন বলে জানা গেছে। মিয়ানমারের রাখাইনে নৃশংসতার শিকার হয়ে পালিয়ে আসা কয়েক লাখ রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দিতে গিয়ে বাংলাদেশ যখন হিমশিম খাচ্ছে, ঠিক সেই সময়েই সুষমার এই সফর। টাইমস অব ইন্ডিয়া লিখেছে,সীমান্ত পার হয়ে রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে প্রবেশ ঠেকাতে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিতে সুষমাকে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে চাপ দেওয়া হতে পারে। ২০১৫ সালের জুনে নরেন্দ্র মোদির ঢাকা সফরের সময় এবং ২০১৭ সালের এপ্রিলে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফরের সময় যেসব সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছিল তা বাস্তবায়নের অগ্রগতি কতটুকু তা রিভিউ করবে ভারত-বাংলাদেশ জয়েন্ট কমিশন।  এতে সভাপতিত্ব করবেন দুই দেশের সভাপতি। ঢাকার তরফ থেকে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকের প্রস্তুতি নেওয়ার কথা জানা গেছে। চতুর্থ যৌথ কনসালটেটিভ কমিশনের বৈঠকে যোগ দিতে সুষমা স্বরাজ দু’দিনের সফরে ২২ অক্টোবর ঢাকা আসবেন। আজ ভারতের সঙ্গে বিভিন্ন বিষয়ে সম্পৃক্ত মন্ত্রণালয়গুলোর মতামত চাওয়া হয়েছে এবং আলোচ্যসূচি নির্ধারণের বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। / কে আই / এআর

চিকিৎসার জন্য লন্ডনে গেছেন রাষ্ট্রপতি

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ চোখের চিকিৎসা করাতে ও স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য আট দিনের সফরে যুক্তরাজ্যে গেছেন । শনিবার (২১ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ১০টায় বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ভিভিআইপি ফ্লাইটে  তিনি লন্ডনের উদ্দেশ্যে যাত্রা করেন।  আগামী ২৯ অক্টোবর তাঁর দেশে ফেরার কথা রয়েছে। রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিব জয়নাল আবেদিন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। লন্ডনের মুরফিল্ড আই হসপিটালে চোখের চিকিৎসা এবং বুপা ক্রমওয়েল হসপিটালে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করাবেন রাষ্ট্রপতি। ৭৪ বছর বয়সী আবদুল হামিদ দীর্ঘদিন ধরে গ্লুকোমায় ভুগছেন। এর আগেও গত এপ্রিলে ৭৪ বছর বয়স্ক আবদুল হামিদ স্বাস্থ্য পরীক্ষা করাতে লন্ডন গিয়েছিলেন। / এম / এআর

© ২০১৭ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি