Ekushey Television Ltd.

কৃমি দূর করতে ঘরোয়া ৮ উপায়

প্রকাশিত : ১৫:৩৭ ১৬ মার্চ ২০১৯

কৃমির সমস্যায় কম-বেশি প্রায় সবাইকেই ভুগতে হয়েছে। একাধিক গবেষণায় জানা গেছে, প্রায় ৮৫ শতাংশ মানুষের পেটেই কৃমি থাকে। তাই বলে এটিকে সাধারণ সমস্যা বলে অবহেলা করলেই মারাত্মক ফল হতে পারে। কারণ শরীরে কৃমির মাত্রা বৃদ্ধি পেলেই খিদে না পাওয়া, মাড়ি থেকে রক্ত পড়া, অল্পেই ক্লান্ত হয়ে পড়ার মতো বেশ কিছু সমস্যা লক্ষ্য করা যায়। মার্কিন চিকিৎসক আব্রাম বের-এর মতে, খাদ্যাভ্যাসে পরিবর্তন ও নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে কৃমির সমস্যা নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব। বেশ কিছু ঘরোয়া উপায়েও কৃমির হাত থেকে রেহাই পাওয়া যেতে পারে। আসুন সেগুলো সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক-

রসুন

কাঁচা রসুনে প্রায় ২০ ধরনের ব্যাকটেরিয়া এবং ৬০ ধরনের ফাংগাস মেরে ফেলার ক্ষমতা রয়েছে। পুষ্টিবিদদের মতে, রসুন একটি অ্যান্টি-প্যারাসাইটিক (পরজীবী নাশক) খাবার যা কৃমি দূর করতে সাহায্য করে। কাঁচা রসুনে থাকা অ্যামাইনো অ্যাসিড পেটের কৃমি মেরে ফেলে। তাই রোজ সকালে খালি পেটে ২ কোয়া রসুন খেতে পারলে উপকার পাবেন।

শশার বীজ

কৃমির সমস্যা নিয়ন্ত্রণে আনতে শশার বীজ অত্যন্ত কার্যকরী একটি উপাদান। শশার বীজ শুকিয়ে, গুঁড়া করে রোজ ১ চামচ করে খেতে পারলে দ্রুত উপকার পাবেন।

লবঙ্গ

কৃমির সমস্যায় রোজ ২টি করে লবঙ্গ খান। এর অ্যান্টি মাইক্রোবিয়াল (অণুজীব নাশক) উপাদান কৃমি মেরে ফেলে।

মিষ্টি কুমড়ার বীজ

দুই চামচ মিষ্টি কুমড়ার বীজের গুঁড়া ৩ কাপ পানি দিয়ে আধ ঘণ্টা সিদ্ধ করুন। ওই পানি সকালে খালি পেটে এক সপ্তাহ খান। উপকার পাবেন। এ ছাড়া ১ চামচ মিষ্টি কুমড়ার বীজের গুঁড়ার সঙ্গে এক চামচ মধু মিশিয়েও খেতে পারেন। কৃমির সমস্যায় দ্রুত উপকার পাবেন।

গাজর

কৃমির সমস্যা দূর করতে রোজ সকালে খালি পেটে একটি করে গাজর খান। গাজরে থাকা ভিটামিন এ, সি, বিটা ক্যারোটিন এবং জিঙ্ক শরীরে কৃমি প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তোলে।

হলুদ

কাঁচা হলুদ অ্যান্টিবায়োটিকের কাজ করে। কৃমির সমস্যা নিয়ন্ত্রণে এটি খুবই কার্যকরী একটি উপাদান। আধা কাপ উষ্ণ পানিতে সামান্য হলুদ গুঁড়া এবং লবণ মিশিয়ে খান। এই মিশ্রণ ৫ দিন পর পর খেতে পারলে দ্রুত উপকার পাবেন।

অ্যাপল সিডার ভিনিগার

খাওয়ার আধা ঘণ্টা আগে অ্যাপল সিডার ভিনিগার খেতে পারলে তা পেটে অ্যাসিডের পরিমাণ বাড়াতে সাহায্য করে। ওই অ্যাসিডে শরীরে প্যারাসাইট (পরজীবী) ও ক্ষতিকর জীবাণুর লার্ভা মারতে সাহায্য করে।

আনারস

আনারসের ব্রোমেলিন এনজাইম শরীরে বাসা বাঁধা প্যারাসাইট বা পরজীবী মারতে সাহায্য করে। একাধিক গবেষণায় দেখা গেছে, পর পর তিন-চার দিন শুধু আনারস খেয়ে থাকতে পারলে কৃমির সমস্যা সম্পূর্ণ সারানো সম্ভব।

উল্লেখিত উপায়গুলো আধুনিক চিকিত্সাশাস্ত্রে পরীক্ষিত নয়। এগুলো দীর্ঘদিন ধরে ব্যবহৃত ঘরোয়া টোটকা মাত্র যা আপনার এই সমস্যা সাময়িকভাবে কমাতে পারে। তবে খাদ্যাভ্যাসে পরিবর্তন ও নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে কৃমির সমস্যা নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব।

সূত্র: জি নিউজ

একে//

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি