ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২১ অক্টোবর ২০২১, || কার্তিক ৫ ১৪২৮

চলে গেলেন পদার্থবিজ্ঞানী হারুন অর রশীদ

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১৯:১৮, ৯ অক্টোবর ২০২১

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বোস অধ্যাপক, খ্যাতিমান পদার্থবিজ্ঞানী ড. এ এম হারুন অর রশীদ (১৯৩৩-২০২১) আর নেই। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ইমেরিটাস অধ্যাপক ড. এ কে আজাদ চৌধুরী বলেন, বার্ধক্যজনিত কারণে আজ শনিবার (৯ অক্টোবর) সকালে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

১৯৫৩ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রথম শ্রেণিতে প্রথম হয়ে পদার্থবিজ্ঞানে বিএসসি এবং সমন্বিতভাবে সর্বোচ্চ নম্বরসহ ১৯৫৪ সালে এমএসসি ডিগ্রি লাভ করেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের সেরা ছাত্র হিসেবে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজা কালীনারায়ণ বৃত্তি লাভ করেন। ১৯৫৬ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞান বিভাগে শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন। অতপর যুক্তরাজ্য প্রদত্ত ওভারসিস বৃত্তি নিয়ে গ্লাসগো বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চতর শিক্ষালাভের জন্য গমন করেন। 

সেখানে প্রফেসর আর.জি. মুরহাউজ এবং প্রফেসর বি.এইচ. ব্রান্সডেন-এর তত্ত্বাবধানে ১৯৬০ সালে তিনি তাত্ত্বিক পদার্থবিজ্ঞানে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন। তিনি ঢাকায় আণবিক শক্তি কমিশন, পাকিস্তানের ইসলামাবাদ বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞান ইনস্টিটিউট ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপনা করেছেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৯৩ সালে নিয়মিত অধ্যাপকের পদ থেকে অবসর নেন। এর আগেই ড. রশীদ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অত্যন্ত সম্মানীয় বোস অধ্যাপক নিযুক্ত হন। ২০০৬ সালে তিনি ইউজিসি প্রফেসর নিযুক্ত হন।

এ ছাড়া তিনি বিভিন্ন সময়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট ও সিন্ডিকেটের সদস্য, বাংলা একাডেমির নির্বাহী কাউন্সিল, এশিয়াটিক সোসাইটি অব বাংলাদেশ, বাংলাদেশ সরকারের ন্যাশনাল কারিকুলাম কমিটি ও এক্সামিনেশন রিফর্মস কমিটি ইত্যাদি প্রতিষ্ঠানের সম্মানিত সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি বাংলাদেশের একমাত্র নাগরিক পর পর তিন দফা নোবেল প্রাইজ নমিনেশন কমিটির সদস্য (১৯৭২, ১৯৮৬, ১৯৯৩) হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

গবেষণায় পদার্থবিজ্ঞানে অশেষ অবদানের মধ্য দিয়ে বিজ্ঞান-ক্ষেত্রে বাংলাদেশকে তিনি যেমন গৌরবময় শিখরে উন্নীত করেছেন, দেশও তাঁকে উপযুক্ত স্বীকৃতি দিয়ে সম্মানিত করেছে একুশে পদক, রাষ্ট্রপতি পদক ও স্বাধীনতা পুরস্কারে। 

আরকে//


Ekushey Television Ltd.

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি