ঢাকা, মঙ্গলবার   ১৯ নভেম্বর ২০১৯, || অগ্রাহায়ণ ৬ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

প্রাসাদ আর রাজধানী থেকে ষড়যন্ত্র এখন প্রান্তরে

মেজর জেনারেল মোহাম্মদ আলী শিকদার (অব.)

প্রকাশিত : ১০:৩১ ২৮ অক্টোবর ২০১৯

মেজর জেনারেল মোহাম্মদ আলী শিকদার (অব.)

মেজর জেনারেল মোহাম্মদ আলী শিকদার (অব.)

ক্ষমতার লোভ ও মোহে প্রাসাদ ষড়যন্ত্রের কথা সব সময় শুনে আসছি এবং ইতিহাসেও পড়েছি। সেই প্রাসাদ ষড়যন্ত্রের সীমানা ছিল রাজা বাদশার পরিবারের মধ্যে। তাতে সিংহাসনের মোহে ও লোভে পিতা পুত্রকে এবং পুত্র পিতাকে ক্ষমতাচ্যুতসহ হত্যা করতেও দ্বিধা বোধ করতেন না। গ্রীক পৌরানিক কাহিনী থেকে জানা যায়, জিউস দেবতাদের রাজা হয়েছিল তার পিতা ক্রোনাসকে হত্যা করে। আর ক্রোনাস তার পিতা ইউরেনাসকে ক্ষমতাচ্যুৎ করে দেবকুলের রাজা হয়েছিল। আধুনিক যুগে আমাদের এই উপমহাদেশে মোগল সম্রাট আওরঙ্গজেব তার অপর তিন ভাইয়ের মধ্যে দুই ভাইকে হত্যা, অপরজনকে বার্মায় বিতাড়ন এবং বৃদ্ধ পিতা শাহাজানকে বন্দী করে মোগল সাম্রাজ্যের সম্রাট হয়েছিলেন।

বৃদ্ধ সম্রাট শাজাহান ক্ষমতাচ্যুৎ হওয়ার পরেও ২০ বছর বেঁচে ছিলেন। আগ্রা দুর্গের ছোট একটি কক্ষের মধ্যে একমাত্র মেয়ে জাহানারা ব্যতিত আর কোনো মানুষের সঙ্গে তিনি দেখা সাক্ষাৎ বা কথা বলতে পারতেন না। ওই ছোট কক্ষের জানালা দিয়ে তাজমহলের দিকে তাকিয়ে তাকিয়ে ২০ বছর শুধুই দীর্ঘশ্বাস ফেলেছেন। এখনো দু’চারটা দেশ, যেখানে রাজতন্ত্র আছে সেখানেও প্রাসাদ ষড়যন্ত্রের কথা শোনা যায়, যদিও তার সবকিছু বাইরে আসে না। পরম ও অসীম শান্তির ধর্ম ইসলামী খেলাফতের একেবারে শুরুতে ক্ষমতার দ্বন্দ্ব ও সংঘাতে চারজনের মধ্যে তিনজন খলিফাকেই প্রতিপক্ষের হাতে নিহত হতে হয়। ক্ষমতার করিডোর থেকে দূরে বসে এসবের মর্মার্থ বুঝে ওঠার কোনো উপায় নেই। 

আধুনিক গণতান্ত্রিক যুগে ষড়যন্ত্রের স্বরূপ ও বিস্তৃতি, দুটোরই অনেক পরিবর্তন ঘটেছে। এ যুগে একই পরিবারের বা বিস্তৃত পরিবারের একাধিক বা অনেকজন সদস্য ক্ষমতার রাজনীতিতে যখন সক্রিয় থাকেন তখন নিজেদের দ্বন্দ্ব ও প্রতিযোগিতার দুর্বলতায় বাইরের লোক সুযোগ নিলে তার পরিণতি কখনো কখনো ভয়াবহ হয়। ঘরের ভেতরে উত্তরসূরী থাকা এক কথা, আর ক্ষমতার প্রতিদ্বন্দ্বী থাকা অন্য কথা। সিরাজউদ্দৌলা নাটকে একটি ডায়লগ আছে, যেখানে তিনি মীর জাফরকে উদ্দেশ্য করে বলছেন, ‘জনাব মীর জাফর আলী খান, আপনি শুধু আমার প্রধান সিপাহসালার নন, পরম আত্মীয়ও বটে।’ আত্মীয়তার বন্ধন, আবেক ও ভালোবাসা ক্ষমতার লোভের কাছে চিরকালই পরাজিত হয়েছে। 

বর্তমান সময়ে ক্ষমতাসীন দলের ভেতরে যে ষড়যন্ত্র দেখছি তার স্বরূপ এক রকম, আর বিরোধী দল যখন নিয়মতান্ত্রিক রাজনীতির পথ ছেড়ে ষড়যন্ত্রের পথ বেছে নেয়, তার স্বরূপ আবার হয় অন্য রকম। আবার বিশ্বায়নের যুগে এক রাষ্ট্রের স্বার্থ যখন অন্য রাষ্ট্রের ভৌগোলিক সীমানার মধ্যে ঢুকে যায়, অথবা অর্থনৈতিক, বাণিজ্যিক ও ভূ-রাজনৈতিক স্বার্থ রক্ষায় বৈশ্বিক শক্তিধর রাষ্ট্র যখন স্বল্পোন্নত ও উন্নয়নশীল দেশে পছন্দমত দল ও ব্যক্তিকে ক্ষমতায় দেখতে চায় তখন যে ষড়যন্ত্র হয় তার স্বরূপ হয় একেবারে ভিন্ন রকম। আমরা বাংলাদেশের মানুষ সব রকম ষড়যন্ত্র দেখেই অভ্যস্ত।

বর্তমানে বাংলাদেশের বড় একটি রাজনৈতিক পক্ষ, যাদের সঙ্গে একাত্তরের ঘাতক দল জামায়াত রয়েছে, তারা প্রায় ১২-১৩ বছর ক্ষমতার বাইরে থেকে নিয়মতান্ত্রিক রাজনীতিতে সুবিধা করতে না পেরে বহুমুখী ষড়যন্ত্রের পথ খুঁজছে, যা তাদের কর্মকাণ্ড দেখলেই বোঝা যায়। ষড়যন্ত্র ও রক্তপাতের রাজনীতি কখনো দেশের জন্য কল্যাণকর হয় না। তাতে বরং জননিরাপত্তা ও রাষ্ট্রের নিরাপত্তা হুমকির মধ্যে পড়ে। এদেশের বৃহত্তর মানুষ কখনোই কোনো ষড়যন্ত্রের সঙ্গে যুক্ত ছিল না। ষড়যন্ত্র ও কলুষমুক্ত একটি স্বচ্ছ রাজনীতি, রাষ্ট্র পরিচালনা দেখতে চায় মানুষ। 

বাংলাদেশের অভ্যন্তরে যে রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র, যার শুরু স্বাধীনতার অব্যবহিত পর, যার পরিণতিতে ১৯৭৫ সালে নিহত হলেন রাষ্ট্রের স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। এই ষড়যন্ত্র যত না সরকারের বিরুদ্ধে, তার চেয়ে অনেক বেশি ছিল বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র। পঁচাত্তরের ষড়যন্ত্রকারিরা এখনও প্রবল রাজনৈতিক শক্তি নিয়ে বিদ্যমান এবং তারা এতদিন বহুবিধ কারণে সুযোগ পেয়েছে এমন ছদ্মবেশ ধারণ করার, যাতে জনগণের একটা অংশ এবং তার সঙ্গে রাষ্ট্র ও সমাজের সকল সেক্টরেরও একটা অংশ ঠিক বুঝে উঠতে পারছে না কোনটা রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র, আর কোনটা সরকারের বিরুদ্ধাচরণ। 

তাই সেই পঁচাত্তর সাল থেকে রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে যারা ষড়যন্ত্র করছেন তাদের সঙ্গে অন্যপক্ষকে মিলিয়ে একই দাড়িপাল্লায় ওজন করছেন। মূল সমস্যাটি এখানে। তাই রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের স্বরূপটি নিয়ে প্রসঙ্গক্রমে একটু আলোচনা করতে হচ্ছে, যদিও বিভিন্ন আঙ্গিকে এ বিষয়ে পূর্বে বহু আলোচনা হয়েছে। পৃথিবীতে যতগুলো দেশ স্বাধীনতা যুদ্ধ বা সংগ্রামের মাধ্যমে স্বাধীনতা অর্জন করেছে, একেবারে ব্যতিক্রমহীনভাবে প্রত্যেকটি রাষ্ট্রই স্বাধীনতা যুদ্ধ বা সংগ্রামের সময় সর্বোচ্চ জাতিগত ঐক্যবদ্ধতার মধ্য দিয়ে যেসব রাষ্ট্রীয় মৌলিক দর্শন ও আদর্শ প্রতিষ্ঠা করেছে সেখান থেকে শত শত বছর পরেও তারা সরে আসেনি বা বিচ্যুত হয়নি। একটা রাষ্ট্রের পরিচয় শুধু ভৌগোলিক স্বাধীনতার মধ্য দিয়ে পাওয়া যায় না, তার আসল পরিচয় পাওয়া যায় ওই রাষ্ট্রের মৌলিক আদর্শের মধ্যে দিয়ে। 

একাত্তর সালে বাংলাদেশের মানুষ যত বড় ঐক্যবদ্ধতার জায়গায় পৌঁছেছিল, সেটা পূর্বে যেমন হয়নি, তেমনি আগামীতে আর কখনো হবে না। সেই ঐক্যবদ্ধতার জায়গা থেকে জাতির পিতার নেতৃত্বে এদেশের মানুষ ঠিক করে নিল বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য হবে ধর্ম নিরপেক্ষতা, বাঙালি জাতীয়তাবাদ, গণতন্ত্র ও সমাজতন্ত্র। এই বৈশিষ্ট্য না থাকলে মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশ বলতে যা বোঝায় সেটি থাকে না। পঁচাত্তরের পর ক্ষমতায় আসা প্রথম সামরিক আইন প্রশাসক সামরিক আদেশের মাধ্যমে শুধুমাত্র গণতন্ত্রের নামটা রেখে বাকি তিনটি মৌলিক আদর্শ বাতিল করে দিলেন। তবে গণতন্ত্র কেতাবে থাকলেও কার্যত তার কিছুই আর দেখা যায়নি।

অক্সফোর্ডের গ্র্যাজুয়েট এবং পরে বিখ্যাত প্রকাশ বেন ডুপরে তার লেখা ‘পলিটিক্যাল আইডিয়াস’ গ্রন্থের ৪৮ পৃষ্ঠায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিম কোর্টের একটা রায়ের কথা উল্লেখ করেছেন। তাতে দেখা যায় জাস্টিস হ্যারি এ. ব্লাকম্যান ১৯৯২ সালে একটা রায়ে উল্লেখে করেছেন, ধর্মনিরপেক্ষতার অনুপস্থিতি এবং তার সুযোগে রাজনীতিতে ধর্মের উপস্থিতি গণতন্ত্রের জন্য সবচেয়ে বড় হুমকি। তাই প্রথম সামরিক আইন প্রশাসক যা করলেন তাতে মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে অর্জিত বৈশিষ্ট্যের আর কিছুই থাকল না। তার ফলে পরাজিত ও প্রত্যাখাত পাকিস্তানের বৈশিষ্ট্যের সঙ্গে বাংলাদেশের আর কোনো পার্থক্য থাকল না। তাহলে ২৩ বছরের সংগ্রাম ও একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ, এর কিছু কি অবশিষ্ট থাকল? থাকল না। শিশু, নববধূ, গর্ভবতী নারীসহ জাতির পিতাকে স্বপরিবারে যারা হত্যা করলেন, তাদের বিচার করা যাবে না বলে আইন করা হলো এবং দূতাবাসে গুরুত্বপূর্ণ পদে চাকরি দিয়ে পুরস্কৃত করা হলো।

জাতির পিতাকে তারা স্বীকার করে না, তাঁর নামটি উচ্চারণে সামান্যতম শ্রদ্ধা দেখায় না। জাতির পিতার নাম মুছে ফেলার জন্য এমন কোনো কাজ নেই যা তারা করেনি। এতবড় জিঘাংসা কেন, কি জন্যে। যারা এই কাজ করছেন তাদের কোনো ক্ষতি তো শেখ মুজিব করেননি। তাহলে কি এটাই যে, পাকিস্তান ভেঙ্গে বাংলাদেশ সৃষ্টি করে শেখ মুজিব এদের কাছে বড় অপরাধ করেছেন। তারা হয়তো এটাই মনে করছেন। কিন্তু সে কথা সরাসরি না বলে বাংলাদেশ সৃষ্টির মহানায়কের বিরুদ্ধে এ রকমই জিঘাংসায় মত্ত হয়েছেন। 

সংক্ষেপে যে বিষয়গুলো উপরে উল্লেখ করলাম তা কি স্বাভাবিক রাজনীতি, নাকি রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র। পঁচাত্তরের পরে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় ট্র্যাজেডি হলো, যিনি উপরোক্ত কার্যকলাপগুলো শুরু করেছেন তাঁর অনুসারী রাজনৈতিক পক্ষ ও দল ওই একই চিন্তা-চেতনা ধারণা করা সত্ত্বেও নব্বই দশকের শুরুতে একবার এবং ২০০১-২০০৬ মেয়াদে পুনরায় আরেকবার ক্ষমতায় এসেছে। কিভাবে ক্ষমতায় এসেছে, ক্ষমতায় এসে কি করেছে, সেটা আরেক বড় ভিন্ন বিষয়। সেসব কথায় আজ যাব না। রাষ্ট্রের সব সমস্যার শেকড় রাজনৈতিক সংকট থেকে রাষ্ট্রকে বের করে আনতে হলে জনগণ, বিশেষ করে তরুণ প্রজন্মকে উপরোক্ত বিষয়গুলো নিয়ে গভীরভাবে ভাবতে হবে এবং এর থেকে বের হওয়ার জন্য ভূমিকা রাখতে হবে। ইতিমধ্যে তরুণ প্রজন্মের ভেতর সচেতনতা সৃষ্টি হয়েছে বলেই ওই রাজনীতির ধারক-বাহকপক্ষ এখন ভয়ানকভাবে কোণঠাসা হয়ে পড়েছে। নিয়মতান্ত্রিক পন্থায় রাজনীতি করে তারা আর সুবিধা করতে পারবে না বুঝেই বহুমুখী ষড়যন্ত্রে নেমেছে।

রাজধানীতে কিছু ষড়যন্ত্রের নমুনা গত কয়েক বছরে দেখা গেছে। ছাত্রদের নির্মোহ কোটা বিরোধী আন্দোলনের ভেতরে ঢুকে এদের অরাজকতার সৃষ্টি এবং সরকারকে বিপদে ফেলার চেষ্টা সকলের চোখে ধরা পড়েছে। যার প্রমাণ পাওয়া যায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বাসায় আক্রমণ, আগুন ও ভাঙচুরের মধ্য দিয়ে। এদের লক্ষ্য ছিল যে কোনোভাবে কিছু লাশ ফেলানো। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে লাশ ফেলার চেষ্টা তারা আগেও করেছে। এ বিষয়ে তাদের পক্ষের দু’জনের টেলিফোন সংলাপ ফাঁস হয়ে যাওয়ায় সেটি জানাজানিও হয়েছিল। এ বিষয়ে একটি মামলা এখন চলমান। তারপর ছাত্রদের নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের মতো একটা যৌক্তিক ক্যাম্পেইনের ভেতরে ঢুকে তারা ভায়োলেন্স সৃষ্টির মাধ্যমে পুলিশকে উত্তেজিত করতে চেয়েছিল যাতে বিপজ্জনক কিছু ঘটে যায়।

এই উদ্দেশ্যে সাধারণ মানুষকে উত্তেজিত করার জন্য কথিত একজন নায়িকাকে দিয়ে বিপজ্জনক মিথ্যা ভিডিও তৈরি করে সেটা ফেসবুকে ছড়িয়ে দেয়। কিন্তু নিরাপত্তা সংস্থাগুলো সতর্ক থাকায় সেবারও তারা ব্যর্থ হয়। তারা হয়তো বুঝতে পেরেছে রাজধানীর ওপর সকল রাষ্ট্রীয় সংস্থার অতিরিক্ত নজর থাকায় এখানে কিছু করা সম্ভব হবে না। তাই এখন ষড়যন্ত্রের সূত্রপাত করতে চাচ্ছে মফস্বল অঞ্চলে, যার একটা বড় রিহিয়ার্সেল হয়ে গেল, সপ্তাহখানেক আগে ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলায়। এ পর্যন্ত যতটুকু জানা গেছে তাতে প্রতীয়মান হয় ওই হিন্দু ধর্মাবলম্বী ছেলের ফেসবুক অত্যন্ত পরিকল্পিতভাবে হ্যাক করে একটা বিপজ্জনক পোস্ট ছেড়ে দিয়েছে ষড়যন্ত্রকারীরা। বর্তমান পরিস্থিতিতে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের একটা লোক ওই ধরনের সংবেদনশীল ধর্মীয় অবমাননাকর পোস্ট দিবে তা কি সম্ভব।

তারপর হ্যাকিং হওয়ার বিষয়টি বুঝতে পেরে সঙ্গে সঙ্গে থানায় এসে পুলিশকে জানিয়েছে। হ্যাকিংয়ের অভিযোগে পুলিশ দুইজনকে গ্রেফতারও করেছে। যার হ্যাকিং হওয়া ফেসবুকে বক্তব্যটি ছাপা হয়েছে তিনিসহ হ্যাকিংয়ের অভিযোগে আরও দুই যুবক, তিনজনকেই গ্রেফতার করা হয়েছে। দ্রুত তদন্ত এবং আইনগত কঠিন ব্যবস্থা নেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে প্রশাসন। তারপরেও তাণ্ডব কেন? পুলিশের ওপর অকস্মাৎ আক্রমণ কেন, যার পরিপ্রেক্ষিতে চারজন মানুষের অকাল মৃত্যু হলো। ফেসবুক হ্যাকিং, আপত্তিকর পোস্ট দেওয়া থেকে শুরু করে বাস, ট্রাক, লঞ্চ, ট্রলার, নৌকা ভাড়া করে সমগ্র ভোলা জেলা থেকে লোক এনে বোরহানউদ্দিন ঈদগাহ মাঠে জড় করা এবং পুলিশের ওপর অকস্মাৎ আক্রমণ ইত্যাদি যে প্রক্রিয়ায় সংগঠিত হয়েছে, তাতে বোঝাই যায় এর পেছনে রাজনৈতিক সংগঠনের পরিকল্পিত হাত রয়েছে।

কারা এটা করতে পারে এ প্রশ্নের উত্তরে মানুষের মুখে সর্ব প্রথম নাম আসছে জামায়াতের। দ্বিতীয়ত মানুষ বলাবলি করছে এর সঙ্গে ওই এলাকার বিএনপির সাবেক এমপিরও বড় ভূমিকা রয়েছে। ২৪ অক্টোবর মূলস্রোতের একটি বড় পত্রিকার প্রথম পৃষ্ঠায় শিবির নেতা মামুন ওরফে কলি, যুবদল নেতা আশরাফুল আলম খান ও ছাত্রদল নেতা হেলাল মুন্সির ছবিসহ খবর ছাপা হয়। তাতে দেখা যায়, এরা তিনজন পরবর্তীতে মন্দিরের ওপর আক্রমণে মারমুখী ভূমিকায় রয়েছে। এসব আলামত বলে দেয় ষড়যন্ত্রের ক্ষেত্র এখন রাজধানী থেকে মফস্বলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। ভোলা থেকে শুরু হলো। এরপর কোথায় হবে তা নিয়ে শঙ্কা থেকেই গেল।

লেখক : রাজনৈতিক ও নিরাপত্তা বিশ্লেষক
sikder52@gmail.com

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি