ঢাকা, সোমবার   ০৪ জুলাই ২০২২

সমুদ্র ও সমুদ্রপথের ব্যবস্থাপনায় হাইড্রোগ্রাফিক সেবা বাড়ছে

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১০:০৮, ২১ জুন ২০২২

‘বিশ্ব হাইড্রোগ্রাফি দিবস’ ২১ জুন। সাগর-মহাসাগরবিষয়ক জ্ঞান বৃদ্ধিতে হাইড্রোগ্রাফির ভূমিকা তুলে ধরা এবং হাইড্রোগ্রাফি বিষয়ে জনসচেতনতার লক্ষ্যে দিবসটি উদযাপিত হয়। বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক হাইড্রোগ্রাফিক সংস্থা (আইএইচও) এর সক্রিয় সদস্য হিসেবে প্রতিবছর যথাযথ গুরুত্বের সাথে দিবসটি পালন করে। এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য, ‘জাতিসংঘের দশ বছর মেয়াদি মহাসমুদ্র পরিকল্পনায় হাইড্রোগ্রাফির অবদান।’

হাইড্রোগ্রাফি হলো সেই বিজ্ঞান যা সমুদ্র, সমুদ্র তলদেশ এবং তৎসংলগ্ন উপকূলীয় অঞ্চলের ভৌত বৈশিষ্ট্যাবলি পরিমাপ করে। তবে এটি শুধু নটিক্যাল চার্ট এবং প্রকাশনার মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়। এটি সমুদ্র ও সমুদ্র বিজ্ঞানের সব শাখা-প্রশাখার সঙ্গে জড়িত। সামুদ্রিক সম্পদের ব্যবহার, পরিবেশ সংরক্ষণ এবং ব্যবস্থাপনা, সমুদ্রসীমা নির্ধারণ, সামুদ্রিক পরিকল্পনা, সুনামি ও জলোচ্ছ্বাস মডেলিং, উপকূলীয় এলাকার ব্যবস্থাপনা, সামুদ্রিক পর্যটন এবং সমুদ্র প্রতিরক্ষা ইত্যাদি বিষয়ে হাইড্রোগ্রাফি বিশেষভাবে জড়িত। ফলে এর যথাযথ গুরুত্ব অনুধাবনের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে।

সমুদ্র ও সমুদ্রপথের ব্যবস্থাপনায় হাইড্রোগ্রাফিক সেবা বাড়ছে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ নৌবাহিনী। আন্তর্জাতিক হাইড্রোগ্রাফিক সংস্থার মান অনুযায়ী পেপার ও ইলেক্ট্রনিক নটিক্যাল চার্ট তৈরিতে সক্ষমতা ও সফলতা অর্জন করেছে বাংলাদেশ নৌবাহিনী। 

২০১০ সালে বাংলাদেশ নৌবাহিনী এবং যুক্তরাজ্য হাইড্রোগ্রাফি অফিসের (ইউকেএইচও) মধ্যে একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়। সমঝোতা চুক্তির আওতায় ইউকেএইচও আমাদের তথ্য-উপাত্ত ব্যবহার করে বাংলাদেশের সমুদ্র অঞ্চলের আন্তর্জাতিক সিরিজের পেপার চার্ট বিতরণ করছে যা দেশ-বিদেশের সব জাহাজে নিরাপদ নেভিগেশনের জন্য ব্যবহৃত হচ্ছে। ইতোমধ্যে বাংলাদেশ নৌবাহিনী ৯টি আন্তর্জাতিক সিরিজ পেপার চার্ট এবং ১১টি ইলেকট্রনিক নেভিগেশনাল চার্টসহ সমুদ্র অঞ্চলের সর্বমোট ৬৩টি নেভিগেশনাল চার্ট প্রকাশে দক্ষতার স্বাক্ষর রেখেছে।

বাংলাদেশ নৌবাহিনীর হাইড্রোগ্রাফিক সার্ভিস ছাড়াও বিআইডব্লিউটিএ, চট্টগ্রাম, মোংলা ও পায়রা বন্দর কর্তৃপক্ষের নিজস্ব হাইড্রোগ্রাফিক সংস্থা রয়েছে, যারা নিজ দায়িত্বপ্রাপ্ত এলাকায় হাইড্রোগ্রাফিক জরিপ কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকে। দেশের সব হাইড্রোগ্রাফিক অফিসের সঙ্গে বাংলাদেশ নৌবাহিনী হাইড্রোগ্রাফিক সার্ভিসের ঘনিষ্ঠ পেশাগত সম্পর্ক রয়েছে। নৌবাহিনীর হাইড্রোগ্রাফিক সার্ভিস ও দেশের অন্যান্য হাইড্রোগ্রাফিক জরিপ সংস্থাগুলো নিয়মিতভাবে তথ্য উপাত্ত আদান-প্রদান করে থাকে। এ ছাড়াও সার্ভে অব বাংলাদেশ, বাংলাদেশ ওশানোগ্রাফিক রিসার্চ ইনস্টিটিউট, স্পারসো, বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর এবং বাংলাদেশ ভূ-তাত্ত্বিক জরিপ অধিদপ্তরের মতো সরকারি সংস্থাগুলোকে সহযোগিতা প্রদান করে থাকে। এ ছাড়াও সামুদ্রিক গবেষণার জন্য দেশের বিশ্ববিদ্যালয় এবং গবেষণামূলক সংস্থাগুলোকেও নিয়মিত সহায়তা প্রদান করে থাকে।
এসএ/
 


Ekushey Television Ltd.

© ২০২২ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি