ঢাকা, শুক্রবার   ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩

গরমে ভাইরাস জ্বর : লক্ষণ, প্রতিকার ও চিকিৎসা

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১৫:০৬, ২০ জুন ২০১৮

খানিক বিরতি দিয়ে বৃষ্টি হলেও গরম কমেনি। বেশ কিছুদিন ধরে রাজধানীসহ সারাদেশে তাপমাত্রা বেড়েছে। এর সঙ্গে সঙ্গে দেখা দিয়েছে ভাইরাস জ্বর, হিটস্ট্রোকসহ বিভিন্ন রোগ। রোজ হাজার-হাজার মানুষ গরমজনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভিড় করছেন। আক্রান্তদের কাউকে হাসপাতালে ভর্তি করা হচ্ছে।

আবহাওয়া পরিবর্তন ও প্রচন্ড গরমের কারণে ভাইরাসজড়িত জ্বরে আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা বাড়ছে। এ থেকে মুক্তি পেতে প্রয়োজন বাড়তি সর্তকতা আর আক্রান্তদের জন্য দরকার সঠিক চিকিৎসা গ্রহণ করা। ভাইরাস জ্বরে এন্টেবায়োটিক ওষুধ গ্রহণ করার দরকার নেই। এমনটিই জানিয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় মেডিসিন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ। সম্প্রতি একুশে টিভি অনলাইন পাঠকদের জন্য ভাইরাস জ্বর নিয়ে দেওয়া টিপসে এসব কথা বলেন তিনি। তাঁর সঙ্গে কথা বলে লিখেছেন একুশে টিভি অনলাইন প্রতিবেদক তবিবুর রহমান।

একুশে টিভি অনলাইন : ভাইরাস জ্বর কি ?

ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ : ভাইরাস জ্বর একটি সাধারণ স্বাস্থ্য সমস্যা। ডেঙ্গু, জন্ডিসসহ নানা কারণে ভাইরাস জ্বর হতে পারে। ভাইরাসজড়িত কারণে মানুষ ভাইরাস জ্বরে আক্রান্ত। আবহাওয়া পরিবর্তন ও প্রচন্ড গরমে এর প্রবণতা বৃদ্ধি পেতে থাকে।

 একুশে টিভি অনলাইন : ভাইরাস জ্বরের লক্ষণগুলো কি কি ?

ডা.এবিএম আব্দুল্লাহ : সাধারণত ভাইরাস আক্রমণের দুই থেকে সাত দিন পর এই জ্বর হয়। এই জ্বর হলে শীত শীত ভাব, মাথা ব্যথা, শরীরে ও গিরায় ব্যথা, খাওয়ার অরুচি, ক্লান্তি, দুর্বলতা, নাক দিয়ে পানি পড়া, চোখ দিয়ে পানি পড়া, চোখ লাল হওয়া, সারা শরীরে চুলকানি, অস্থিরতা ও ঘুম কম হওয়ার মতো লক্ষণগুলো দেখা দিতে পারে।

একুশে টিভি অনলাইন : ভাইরাস জ্বর প্রতিকারে করণীয় কি ?

ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ : ভাইরাস জ্বর সাধারণত তেমন কোনো ভয়াবহ রোগ নয়। তাই ভাইরাস জ্বর হলে দুশ্চিন্তার কোনো কারণ নেই। এ জ্বরের জন্য কোনো অ্যান্টিবায়োটিক জরুরি নয়। জ্বরের জন্য প্যারাসিটামল খেলেই হয়। সেই সঙ্গে পর্যাপ্ত পরিমাণে বিশ্রাম প্রয়োজন। ভাইরাস জ্বর হলে খাবারের বিষয়ে সচেতন হতে হবে। খাবারের মধ্যে ভিটামিন সি ও জিঙ্কযুক্ত খাবার প্রাধান্য দিতে হবে। সাবধানে চলাফেলা করতে হবে। গরম এড়িয়ে চলতে হবে। পরিশ্রমের কারণে শরীরে ঘাম দেখা দিলে অবশ্যই পরিস্কার করতে হবে। যারা কর্মসংস্থানের কারণে অধিকাংশ সময় অফিসের বাহিরে থাকতে হয় তারা অবশ্যই ছাতা ব্যবহার করবে।

পোষাক হতে হবে অবশ্যই আরামদায়ক ও ঢিলেঢলা। যাতে খুব সহজে শরীরের ঘাম বের হয়ে যায়। বিশেষ করে যারা শ্রমিক, বাচ্চা এবং বয়স্কদের বাড়তি সর্তক থাকতে হবে। এছাড়া রাস্তার খোলা খাবার পরিত্যাগ করে হবে সঙ্গে সঙ্গে সম্ভব হলে বাড়িতে তৈরি খাবার গ্রহণ করতে হবে। তবে যারা ভাইরাস জ্বরে আক্রান্ত হবে তাদের অবশ্যই কিছুক্ষণ পর পর শরীর পাতলা গামছা বা কাপড় দিয়ে স্পঞ্জ করতে হবে ও মাথায় পানি দিতে হবে। শরীর গরম হলেই থার্মোমিটার দিয়ে তাপমাত্রা মেপে ওষুধ খেতে হবে। জ্বর আক্রান্ত স্থায়িত্বকাল ৪-৫ দিন। তবে জ্বরের তীব্রতা বাড়লে অবশ্যই ডাক্তারের পরার্মশ নিতে হবে।

একুশে টিভি অনলাইন : সম্প্রতি ভাইরাস জ্বরের আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। কেন এমনটি হচ্ছে ?

ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ : মূলত ঋতু পরিবর্তনের সঙ্গে আবহাওয়ারও বেশ কিছু পরিবর্তন হয়। এ পরিবর্তনে রোগ সৃষ্টিকারী বিভিন্ন জীবাণুর বংশবৃদ্ধি ও মানবদেহে রোগ সৃষ্টিতে ভিন্ন মাত্রা যোগ হয়। অতিরিক্ত গরম, বাতাসের আর্দ্রতা, ধুলাবালি ও পরিবেশ শরীরের জন্য অনুকূল নয়। যে কারণে আমাদের দেহ বিভিন্ন ধরনের ভাইরাস জন্ম  নেয়। শরীরে ভাইরাস দেখা দেওয়ার এক সপ্তহের মধ্য ভাইরাস জ্বর দেখা দেয়।

একুশে টিভি অনলাইন : ভাইরাস জ্বরে আক্রান্ত ব্যক্তি খাবারের তালিকায় কি কি খাবার রাখা ভালো ?

ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ : খাবারের তালিকায় অবশ্যই মৌসুমী ফল রাখতে হবে। যেমন- আনরস, আম কলা, খোসাযুক্ত ফলা খাদ্য তালিকায় রাখা ভাল। তরল জাতীয় খাবার যেমন, স্যুপ, ফলের শরবত, স্যালাইন, লেবুর শরবত, ডাবের পানি খেতে হবে। পাশাপাশি প্রচুর পানি পান করতে হবে। রোগীকে সব সময় মশারির নিচে রাখতে হবে। গলা ব্যথা থাকলে কুসুম গরম পানি খেতে হবে।

একুশে টিভি অনলাইন : আপনার মূল্যবান সময় দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ।

ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ : একুশে পরিবারকেও ধন্যবাদ।

/ এআর /


Ekushey Television Ltd.

© ২০২৩ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি