ঢাকা, শনিবার, ২১ অক্টোবর, ২০১৭ ১১:০৩:৪৫

মেদ কমাতে অভ্যাস পরিবর্তন

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ০৫:২২ পিএম, ১৬ জুন ২০১৭ শুক্রবার

মেদ কমাতে ব্যায়াম কিংবা হাঁটার পাশাপাশি অভ্যাস পরিবর্তনও বাড়তি ওজন কমাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। ব্যায়ামাগার বা হেঁটে ফিরে আসার পর ফ্রিজ থেকে এক ঢোক কোমল পানীয় পান বা রাতে বেশি খাবার খাওয়া বা মধ্যরাতে জেগে থাকলে উচ্চ ক্যালরির নাস্তা খেলে বাড়তি ওজন নাও কমতে পারে।

এই ধরনের অভ্যাস পরিবর্তন করতে কয়েকটি বিষয়ের দিকে খেয়াল রাখা দরকার।

ফল সবজি রাখুন হাতের নাগালে

নানা রকমের ফল এবং সবজি সবসময়ই হাতের কাছে রাখুন। কারণ, স্বাস্থ্যকর নাস্তা হিসেবে ফলের তুলনা নেই। ভালোভাবে ধুয়ে এবং প্রয়োজনে কেটে বায়ুনিরোধক বাক্স বা প্যাকেটে ভরে ফল ফ্রিজে সংরক্ষণ করুন। এতে দীর্ঘদিন ভালো ও টাটকা থাকবে।

সালাদ

প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় সালাদ রাখা জরুরি। সালাদ খেলে অন্য খাবার কম খাওয়া হবে। ভাত, মাংস বা অতিরিক্ত চর্বিযুক্ত খাবার কম খেয়ে সালাদ বেশি খেলে তা স্বাস্থ্যের জন্যও ভালো ওজনও নিয়ন্ত্রণে রাখবে। তবে সালাদ তৈরির সময় অতিরিক্ত ড্রেসিং, মেয়োনেইজ বা ফ্লেইভার ব্যবহার না করে অলিভ অয়েল, টক দই ইত্যাদি ব্যবহার করা বেশি উপকারী।

মাপার অনুষঙ্গ

হাতের কাছেই পরিমাপ করার জন্য প্রয়োজনীয় কাপ, চামচ বা অন্যান্য অনুষঙ্গ রাখুন। এতে খাবার খাওয়ার পরিমাণ নির্দিষ্ট রাখতে সুবিধা হবে। অতিরিক্ত খেয়ে ফেলার ঝুঁকিও কমবে। ফলে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখার প্রক্রিয়া কিছুটা হলেও সহজ হবে।

ক্যালরি মুক্ত ফ্রিজ

কোমল পানীয়, কুকিস, আইসক্রিম, কেক বা মিষ্টি ইত্যাদি খাবারগুলো অনেকের ফ্রিজে বা কেবিনেটেই সংরক্ষণে থাকে। তবে এগুলো মোটেও স্বাস্থ্যকর নয় বরং ওজন বাড়ানোর পেছনে প্রধান কারণ হতে পারে এইসব ক্যালরিযুক্ত খাবার। তাই এগুলো ঘর থেকে দূর করুন দ্রুত।

ছোট প্লেটে খান

খাবার সময় সাধারণত প্লেট ভর্তি করে খাওয়া হয় বা পরিবেশন করা হয়। তাই প্লেটের আকার যদি ছোট হয় তাহলে তাতে খাবারও কম ধরবে এবং খাওয়াও হবে কম। তাই বেছে নিন ছোট আকারের প্লেট। সূত্র : ওয়েবেএমডি ডটকম।


 
 

© ২০১৭ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি