ঢাকা, বুধবার, ২৫ এপ্রিল, ২০১৮ ১৪:৫১:২৫

ফের পেছালো বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ

ফের পেছালো বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ

বাংলাদেশের প্রথম কৃত্রিম উপগ্রহ ‘বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট- ১’ মহাকাশে উৎক্ষেপণের তারিখ আবারও পেছানো হয়েছে। এবারের সম্ভাব্য তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে ৭ মে। আগামী ৪ মে মহাকাশের পথে ওড়ার কথা ছিল বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটটির।
চলতি বছরেই আসছে অ্যাপলের সস্তা আইফোন

অপেক্ষাকৃত কম মূল্যের নতুন আইফোন উন্মোচন করতে যাচ্ছে অ্যাপল। আর সেটি হতে পারে এ বছরই। নতুন আইফোন নিয়ে এমন ধারণাই প্রকাশ করেছেন কেজিআই সিকিউরিটিসের বিশ্লেষক মিং-চি কুয়ো।  কুয়ো তার প্রতিষ্ঠানের ‘ইনভেস্টর’স নোট’-এ এ ধারণা প্রকাশ করেছেন। তার হিসেবে রয়েছে, ৬.১ ইঞ্চি পর্দার সস্তা আইফোন উন্মোচন করতে পারে মার্কিন প্রযুক্তি জায়ান্ট প্রতিষ্ঠানটি। নতুন এ আইফোনের সম্ভাব্য মূল্য হবে ৫৫০ মার্কিন ডলার, যা প্রতিষ্ঠানটির ফ্ল্যাগশিপ মডেল আইফোন এক্স-এর প্রায় অর্ধেক। তিনি বলেন, নতুন ৬.১ ইঞ্চি আইফোন আসতে পারে দুইটি সংস্করণে। এর মধ্যে একটিতে ডুয়াল সিম সমর্থন থাকতে পারে। আর অন্যটি হতে পারে সাধারণ এক সিমের আইফোন-খবর প্রযুক্তি সাইট সিনেটের। এক্ষেত্রে সিঙ্গল সিম সংস্করণের দাম হতে পারে ৫৫০ থেকে ৬৫০ মার্কিন ডলার। আর ডুয়াল সিম সংস্করণের মূল্য হতে পারে ৬৫০ থেকে ৭৫০ মার্কিন ডলার। ৬.৫ ইঞ্চি পর্দার আইফোনের পাশাপাশি নতুন দুইটি আইফোন এক্স আনা হতে পারে বলেও জানিয়েছেন কুয়ো। এছাড়া আইফোন এসই২ বানাতেও কাজ করছে অ্যাপল এমন গুজবও রয়েছে। একে//  

নকল হোয়াটসঅ্যাপ থেকে সাবধান

নকল আর নকল সব ক্ষেত্রেই লক্ষ্য করা যায়। তাই বলে হোয়াটসঅ্যাপও নকল হবে। হ্যাঁ এমনটায় জানা গেলো এবার নকল হোয়াটসঅ্যাপ অনলাইনে পাওয়া যাচ্ছে। এই অ্যাপসটি ডাউনলোড করে ক্ষতির সম্মুখীন হতে পারেন আপনিও। তাই কোনো অ্যাপস ডাউনলোড করার আগে যাচাই করে নিশ্চিত হয়েই কেবল ডাউনলোড করতে পারেন। জানা গেছে, এরই মধ্যে হোয়াটসঅ্যাপ ডাউনলোড করতে গিয়ে ভুয়া অ্যাপসের ফাঁদে পা দিয়েছেন অনেকে। আর এতে ক্ষতির সম্মুখীনও হতে হয়েছে তাদের। দেখা গেছে ,অনেকেই যে অ্যাপটি ডাউনলোড করছেন, সেটি হোয়াটসঅ্যাপ নয় বরং একই ধরনের দেখটি ভিন্ন অ্যাপ। আর এতে ক্ষতিকর ভাইরাসসহ নানা প্রোগ্রাম আপনার ডিভাইসে চলে আসার আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। সম্প্রতি ১০ লাখেরও বেশি বার ভুয়া হোয়াটসঅ্যাপ ডাউনলোড করা হয়েছে, যা রীতিমতো উদ্বেগজনক। এ ব্যাপারে সম্প্রতি হোয়াটসঅ্যাপ জানায়, আসল হোয়াটসঅ্যাপ ১০০ কোটি বার ডাউনলোড করা হয়েছে। তবে হ্যাকারদের পাতা ফাঁদে পা দিয়ে প্রায় ১০ লাখ মানুষ ভুয়া অ্যাপের শিকার হয়েছেন। ওয়েবসাইটে পোস্ট করা তথ্য থেকে জানা গেছে, প্লে স্টোরে পাওয়া যাচ্ছে এসব ভুয়া হোয়াটস অ্যাপ। এগুলো পুরোপুরি আসল হোয়াটস অ্যাপের মতোই দেখতে। তবে ডাউনলোড করলেই ব্যবহারকারীদের পড়তে হবে বিপদে। তাই ডাউনলোডের আগে একটু ভালোভাবে দেখে নিতে বলছেন বিশেষজ্ঞরা। এসএইচ/

মঙ্গলে ‘মৌমাছি’ পাঠানোর পরিকল্পনা নাসার

মৌমাছির ব্যাপারে আমরা কল্পনাপ্রবণ হতে পারি। কিন্তু নাসা এই ব্যাপারে সিরিয়াস। আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম কিউরিওসিটি.কম জানাচ্ছে, মঙ্গল গ্রহে অভিযানকে আরো সহজ এবং বেশিমাত্রায় ফলদায়ী করতে ‘মৌমাছি’-দের কথাই ভাবছেন নাসা। সংস্থাটি যেসব মৌমাছি পাঠানোর কথা ভাবছেন সেগুলো জীবন্ত নয়। এরা সবই রোবট এবং ড্রোন। একটি রোভার থেকে এই ড্রোনগুলিকে ছেড়ে দেওয়া হবে মঙ্গলের পর্যাবরণে। পরে তারা ছড়িয়ে পড়বে লাল গ্রহের কোনায় কোনায়। এই ‘মৌমাছি’-দের নাম দেওয়া হয়েছে ‘মার্সবি’। প্রতিটি মার্সবি তার ভিতরে থাকা অসংখ্য ছোট ছোট সেন্সর দিয়ে মঙ্গলের পরিবেশ সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করবে। মূলত মঙ্গলের আবহাওয়া সম্পর্কে খুঁটিনাটি তথ্য সংগ্রহই হবে মার্সবি-দের উদ্দেশ্য। ইতিপূর্বে কিউরিওসিটি রোভার জানিয়েছিল, মঙ্গলে মিথেনের মতো গ্যাসের অস্তিত্ব রয়েছে। আপাতত মিথেনের সন্ধানই হবে মার্সবিদের কাজ। মিথেনের পরিমাণ সঠিক ভাবে জানা গেলেই বিজ্ঞানীরা মঙ্গলে প্রাণের অস্তিত্ব নিয়ে ভাবতে পারবেন, এমনটাই জানিয়েছে নাসা। সারাদিন উড়ে বেড়িয়ে মার্সবির দল সত্যিকারের মৌমাছির মতোই তাদের ‘মৌচাক’ রোভারে ফিরে আসবে। সেখানেই স্বয়ংক্রিয় পদ্ধতিতে তাদের রিচার্জ সম্পন্ন হবে বলেও জানিয়েছে নাসা। সূত্র: এবেলা   আর

নকল প্রযুক্তি পণ্য ঠেকাবে বিসিএস    

প্রযুক্তি পণ্য ক্রেতাদের সঠিক এবং মানসম্পন্ন প্রযুক্তি পণ্য কেনার নিশ্চয়তা দিতে বাজারে প্রচলিত নকল এবং গ্রে পণ্য বিপণন ঠেকাতে উদ্যোগ নেবে দেশের শীর্ষস্থানীয় প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলোর সংগঠন বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি (বিসিএস)। প্রয়োজনে প্রযুক্তি বাজারে মনিটরিং সেল গঠন করারও ঘোষণা দেন বিসিএস সভাপতি প্রকৌশলী সুব্রত সরকার।      গতকাল রবিবার বিসিএস ইনোভেশন সেন্টারে দেশি-বিদেশি প্রযু্ক্তি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের সঙ্গে `বিজনেস ডিসকাশন মিটিং` এ বিসিএস এর নবনির্বাচিত কার্যকরী কমিটির এক বৈঠকে এমন কথা বলেন সুব্রত সরকার। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন বিসিএস সভাপতি সুব্রত সরকার। অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন বিসিএস মহাসচিব মোশারফ হোসেন সুমন। দেশের বর্তমান প্রযুক্তি বাজারের পর্যালোচনা করে বক্তারা প্রযুক্তি ব্যবসার গুরুত্বপূর্ণ সমস্যাগুলো চিহ্নিত করে নিজেদের মতামত ব্যক্ত করেন। প্রযুক্তি পণ্য বিপণনে সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য (এমআরপি) নির্ধারণ, গ্রে, নকল এবং রিপাবলিশড পণ্য বিক্রি বন্ধ করতে বিসিএস এর নো অবজেকশন সার্টিফিকেট(এনওসি) প্রদান, এমআরপি ঠিক করতে পলিসি প্রণয়ন, সেলস এবং ক্রেডিট পলিসি নির্ধারণ, ওয়ারেন্টির ব্যাপারে সম্মিলিত সিদ্ধান্তর ব্যাপারে গুরুত্ব আরোপ করেন। বিসিএস কার্যকরী কমিটির সদস্যরা  এই সমস্যাগুলো সমাধানে আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করবেন বলে ঘোষণা দেন। একই সঙ্গে বিসিএস এর সদস্য বৃদ্ধিকরণ, বিসিএস এর শাখা অঞ্চলগুলোতে কার্যালয় পরিচালনা, আইসিটি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বারের পরামর্শক্রমে প্রোডাক্ট লাইন ঠিক করা, বিসিএস ওয়েব পোর্টালকে বড় আকারে চালু করে প্রযুক্তি পণ্যের মূল্য তালিকা প্রকাশসহ পণ্যের বিজ্ঞাপন, প্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠানগুলোর নিয়মিত ফান্ডিং এর ব্যাপারে মতামত ব্যক্ত করেন। আলোচনা সভায় বিসিএস সহ-সভাপতি ইউসুফ আলী শামীম, কোষাধ্যক্ষ জাবেদুর রহমান শাহীন, পরিচালক শাহিদ-উল-মুনির, মোস্তাফিজুর রহমান তুহিন এবং আছাব উল্লাহ খান জুয়েল উপস্থিত ছিলেন। শীর্ষস্থানীয় প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান এইচপি, ডেল, আসুস, লেনোভো, এমএসআই, গিগাবাইটসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারাও এসময় উপস্থিত ছিলেন। //এস এইচ এস//এসি  

‘পৃথিবীর মত লেক আছে মঙ্গলে’

মঙ্গল গ্রহে পৃথিবীর মত লেক এবং কাদার মত বস্তুর সন্ধান পেয়ছে বলে দাবি করেছে একদল গবেষক। তাদের দাবি, মঙ্গল গ্রহের কল্পিত গালে ক্রাটার এলাকায় তারা কিছু কর্দমাক্ত মাটি পেয়েছে যার আয়তন একটি কফি টেবিলের সমান। মাটি শুকিয়ে ফেটে গেলে যেমন দাগ হয় তেমন দাগ আছে এই কর্দমাক্ত মাটিতে। গবেষকরা আরো ধারণা করছেন যে, প্রায় সাড়ে তিন বিলিয়ন বছর আগে মঙ্গল গ্রহের এই জায়গায় পৃথিবির মত লেক ছিল। কোনো এক নাটকীয় পরিবর্তনে সেই লেক শুকিয়েই এই কাদার মত বস্তু সৃষ্টি হয়েছে। ক্যালিফোর্নিয়া ইন্সটিটিউট অব টেকনোলজি ইন পাসাডোনার একদল গবেষক এই সমীক্ষায় অংশ নেয়। গবেষক দলের প্রধান ভূবিজ্ঞানী ন্যাথেনিল স্টেইন বলেন, “আমাদের বিশ্বাস যে এই বস্তুগুলো মূলত শুকিয়ে যাওয়া কাদা। কাদার মত এই বস্তুর অবস্থা থেকে আমরা অনুমান করতে পারি যে, এখানে একসময় লেক ছিল এবং লেকগুলো পৃথিবীর মতই ছিল”। গবেষক দলের সদস্যরা এই গবেষণার জন্য বিভিন্ন যন্ত্রপাতি ব্যবহার করেন। এগুলোর মধ্যে নাসার কিউরিওসিটি বিভাগের মাস্টক্যাম ক্যামেরাও ছিল। আর চিল মার্স হ্যান্ড লেন্স ইমেজার, চেমক্যাম লেসার ইনডিউসড ব্রেকডাউন স্পেক্ট্রমিটার এবং আলফা-পার্টিকেল এক্স-রে স্পেক্ট্রোমিটার। স্টেইন আরো বলেন, “কর্দমাক্ত এই বস্তুগুলো খুবই আকর্ষণীয় কারণ এগুলো দিয়ে মঙ্গলগ্রহ সম্পর্কে আমাদের যে পূর্বের ধারণা তা সত্য হিসেবে প্রমাণিত হতে পারে। আমরা খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি সময়ে আসি। নাসার কিউরিওসিটি বিভাগ বহুদিন ধরে যে গবেষণা করে আসছে তাঁর একটি অধ্যায় মাত্র আমাদের এই গবেষণা”। গবেষণার ফলাফলের সাথে একমত পোষণ করেছেন নাসার বিজ্ঞানীরা। তবে তারা আরও অনুসন্ধান করবে বলেও জানিয়েছে।  

ডিজিটাল ডিভাইসের অতিরিক্ত ব্যবহার নষ্ট করে সম্পর্ক : গবেষণা

ডিজিটাল ডিভাইসের মাধ্যমে ভালোবাসার মানুষটিকে সারাক্ষণ কাছাকাছি রাখা গেলেও, এর অতিরিক্ত ব্যবহার রোমান্টিক সম্পর্ককে নষ্ট করে দেয় বলে মনে করেন ৬০ শতাংশ প্রেমিকযুগল। সাইবার নিরাপত্তা ও অতিরিক্ত ডিজিটাল ডিভাইসের ফলে সম্পর্ক ভেঙ্গে যায় বলে মনে করেন তারা। সম্প্রতি এক গবেষণায় এ চিত্র উঠে আসে। সাইবার নিরাপত্তা বিষয়ক প্রতিষ্ঠান কেসপারেস্কি এ গবেষণা কার্যক্রম পরিচালনা করেন। গবেষণায় দেখা যায়, ৫০ শতাংশ যুগলের যে কোনো একজন খাবার খাওয়া ও পরষ্পরের সঙ্গে কথোপথনকালেও ডিজিটাল ডিভাইস ব্যবহার করেন। অন্যদিকে একসঙ্গে বাস করা ৬০ শতাংশ দম্পত্তি বলেন, তারা ডিজিটাল ডিভাইসে অতিরিক্ত সময় ব্যয় করেন। গবেষণায় আরও দেখা যায়, প্রেমিকযুগল বা দম্পত্তি যখন একসঙ্গে থাকেন, তখন তারা পরষ্পরের সঙ্গে তাদের অনুভূতিগুলো সবসময় শেয়ার করেন। অন্যদিকে দুজনই চান যেন তারা কারও কাছ থেকে মনোযোগ অন্যদিকে সরিয়ে না নেয়। গবেষণায় ১৯ শতাংশ দম্পত্তি বলেন, তাদের যে কোনো একজনের ডিজিটাল ডিভাইস ম্যালওয়ার (ভাইরাস) দ্বারা আক্রান্ত হওয়ার পর তাদেরকে অর্থ গচ্ছা দিতে হয়। আর এর প্রভাব পড়ে সম্পর্কের উপর। প্রতি ১০ জনের ৮ জনই বলেন, তারা যখন পরষ্পর থেকে দূরে থাকেন, তখনও ডিজিটাল ডিভাইসের মাধ্যমে পরষ্পর সংযুক্ত থাকেন। অন্যদিকে ৫৩ শতাংশ যুগল বলেন, ডিজিটাল ডিভাইসের কারণে তাদের সম্পর্কের উন্নতি হয়েছে। গবেষণায় আরও দেখা গেছে, ডিজিটাল ডিভাইসের মাধ্যমে দূরবর্তী যোগাযোগর পর সরাসরি যোগযোগে কেউ যদি ডিজিটাল ডিভাইস ব্যবহার না করেন, তাহলে সেই সম্পর্ক আরও মধুর হয়। ১৮টি দেশের ১৮ হাজার মানুষের উপর এ গবেষণা পরিচালনা করা হয়। গবেষণা ওই সকল দম্পত্তি ও যুগলদের উপর করা হয়েছে, যাদের সম্পর্কের বয়স ৬ মাস ও তধোর্ধ। সূত্র: ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসএমজে/

মজার ভিডিওতে শরীর ভালো থাকে!

কোনো প্রাণি কিংবা মানুষ মজার কোনো কর্মকাণ্ড করছে আর আপনি সেই সব ভিডিও দেখে মজা পাচ্ছেন বা হাসছেন তাহলে অবশ্যই দিনে একবার হলেও এমন ভিডিও দেখুন। কারণ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এতে সাময়িক হলেও শান্তি আসে মনে। শরীরও সুস্থ থাকে। অনেকেই দিনের বেশিরভাগ ভাগ সময় ল্যাপটপ, কম্পিউটার কিংবা স্মার্টফোন হাতে নিয়ে ইন্টারনেট দুনিয়ায় ব্যস্ত থাকেন। এর মধ্যেই কিছুটা সময় বের করে মজার ভিডিও দেখে নিজেকে অনেক দিক দিয়ে সুস্থ রাখতে পারেন। ভিটামিন সি শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এটা সবারই জানা। কিন্তু অনেকেরই জানা নেই, জোরে জোরে হাসলেও শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে। গবেষকরা বলছেন, হাসি শরীরের প্রতিরোধ সেল তৈরিতে ভূমিকা রাখে। তাই শরীরে সংক্রমণের ঝুঁকি কমাতে বেশি বেশি করে মজার ভিডিও দেখুন। গবেষণায় দেখা গিয়েছে, হাসি মানসিক চাপ কমাতে সাহায্য করে। মজার ভিডিও দেখে আপনি হেসে যতটা মানসিক চাপ কমাতে পারবেন ঘণ্টার পর ঘণ্টা স্পা করেও তা সম্ভব নয়। যদি আপনি কোনো বিষয় নিয়ে চরম উৎকণ্ঠায় থাকেন তাহলে অনলাইনে একটার পর একটা মজার ভিডিও দেখুন। যখন আপনি হাসবেন, আপনার মস্তিষ্কে এক ধরনের সুখের অনুভূতিতে ভরে যাবে। এই অনুভূতি আপনার উৎকণ্ঠা কাটিয়ে দিতে পারবে। দুঃখের কোনো রোমান্টিক ছবি দেখে কিংবা অনেক দূর হাঁটার পরও যদি মনের হতাশা না কাটে তাহলে হাতের স্মার্টফোন কিংবা ল্যাপটপে অনলাইনে সবচেয়ে নতুন মজার কি ভিডিও আছে তা অনুসন্ধান করুন। এটা আপনার মুড পরিবর্তন করতে সাহায্য করবে। গবেষণায় দেখা গিয়েছে, হাসি ক্যালরি কমাতে সাহায্য করে। জগিং, সাইকেল চালানো কিংবা ব্যায়ামের মতো হাসিও ওজন ঝরাতে ভূমিকা রাখে। তাই বলে সারাদিন মজার ভিডিও দেখে সময় কাটাবেন না। হাসি শরীরের সব রক্তকণিকার মধ্যে ছড়িয়ে রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে। তার মানে আবার এটা নয়, হাসলে রক্তচাপের ওষুধ খেতে হবে না। তবে মজার ভিডিও দেখে হাসলে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণেও তা ভূমিকা রাখে। সেই সঙ্গে হার্টও ভালো থাকে। তথ্যসূত্র : হেলদিবিল্ডার্স।এসএইচ/`

বেতন-ভাতা বৃদ্ধিসহ  গ্রামীণফোনের কর্মীদের ৭ দফা

দেশের সবচেয়ে বড় মোবাইলফোন অপারেটর গ্রামীণফোনের কাছে সাত দফা দাবি জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠানটির কর্মীরা। গতকাল শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে ‘গ্রামীণফোন এমপ্লয়িজ ইউনিয়ন’ এর ব্যানারে সংবাদ সম্মেলন করে সাত দফা দাবি তুলে ধরেন গ্রামীণফোনের কর্মীরা। সংবাদ সম্মেলনে দাবিগুলো উত্থাপন করেন জিপিইইউর সাধারণ সম্পাদক মিয়া মো. শাফিকুর রহমান মাসুদ। তাদের দাবিগুলো হলো, জিপিপিসি বেতন বৃদ্ধির যে প্রস্তাবনা দিয়েছে, তা বাস্তবায়ন করা। গ্রামীণফোন পিপল কাউন্সিলের সাধারণ সম্পাদক জাহিদকে চাকরিতে পুনর্বহাল করে তার মানহানির ক্ষতিপূরণ দেওয়া। কমপ্লায়েন্স হেড তোফায়েল আউয়ালকে চাকরি থেকে অপসারণ করা। কর্মীদের সব ধরনের প্রজেক্ট বন্ধ করে চাকরির নিশ্চয়তা বিধান করা। কর্মীদের ভয়ভীতি প্রদর্শন বন্ধ করে কাজের সুষ্ঠু পরিবেশ ফিরিয়ে আনা। কর্মীদের যেসব সুযোগ-সুবিধা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে, সেসব চালু করা। ভাতা না দিয়ে কর্মীদের দিয়ে অতিরিক্ত কাজ না করানো এবং তাদের নিয়মিত ছুটি ভোগের ব্যবস্থা করা। কর্মীদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে গ্রামীণফোন কর্তৃপক্ষের গড়ে ৭ দশমিক ৮৫ শতাংশ বার্ষিক বেতন বৃদ্ধির প্রস্তাবও প্রত্যাখ্যান করা হয় সংবাদ সম্মেলনে। গ্রামীণফোন সূত্রে জানা গেছে, ইউনিয়নের কর্মীরা মূল বেতনের ২১ শতাংশ বেতন-ভাতা দাবি করেছেন। সংবাদ সম্মেলনে জিপিইইউর ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ফজলুল হক, বাংলালিংক এমপ্লয়িজ ইউনিয়নের সভাপতি গোলাম সোহাগ, আন্তর্জাতিক ট্রেড ইউনিয়ন ফেডারেশন ইউএনআই বিএলসির সমন্বয়ক মোস্তফা কামাল, জিপিইইউর সাংগঠনিক সম্পাদক মাতুজ আল কাদরী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। কর্মীদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে গ্রামীণফোন বলেছে, গ্রামীণফোন কর্মীদের স্বার্থ–সংশ্লিষ্ট বিষয়গুলো গুরুত্ব দিয়ে থাকে। দেশের আইনমতো প্রতিষ্ঠানের কর্মীদের অভ্যন্তরীণ বিষয়গুলো গ্রামীণফোন সমাধান করেছে। প্রতিষ্ঠানটি এও বলছে, যৌন হয়রানির বিষয়ে গ্রামীণফোন ‘জিরো টলারেন্স’ নীতিমালা মেনে চলে। আইন অনুযায়ী একজন ‌ব্যক্তির বিরুদ্ধে আনা অভিযোগগুলো গ্রামীণফোনের কর্মকর্তা এবং বাংলাদেশ লিগ্যাল এইড অ্যান্ড সার্ভিস ট্রাস্ট (ব্লাস্ট) ও বাংলাদেশ ন্যাশনাল ওম‌্যান লইয়ার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিএনডব্লিউএলএ)–এর মতো প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিদের নিয়ে গঠিত একটি স্বাধীন কমিটি নিবিড়ভাবে তদন্ত করে। গ্রামীণফোন হাইকোর্টের নির্দেশনা অনুসরণ করে নির্ধারিত পদ্ধতিতে ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। তবে এ বিষয়ে দুপক্ষেরই আইনগত দিক বিবেচনা করার সুযোগ আছে। বিষয়টির স্পর্শকাতরতা ও জড়িতদের গোপনীয়তা রক্ষার কথা বিবেচনা করে এ বিষয়ে বিস্তারিত মন্তব্য করা সমীচীন নয় বলে মনে করে। একে// এসএইচ/  

মোবাইলে ফ্রি অ্যাপ থেকে আয় হাজার হাজার ডলার

এক পয়সা খরচ ছাড়াই শুধু স্মার্টফোন ব্যবহার করে হাজার হাজার ডলার আয় করছেন যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রিটেনের কিছু তরুণ। তাদের এই আয়ের উৎস ‘এইচকিউ ট্রিভিয়া’ নামে একটি জনপ্রিয় মোবাইল অ্যাপলিকেশন। যুক্তরাষ্ট্র মাতানোর পর চলতি বছরের শুরুতে অ্যাপটি ব্রিটেনে আসে। বিনা পয়সার এই অ্যাপটি মূলত ১৫ মিনিটের লাইভ স্ট্রিম কুইজ শো প্রচার করে থাকে। এতে অংশ নিয়েই ব্যবহারকারীরা প্রতিদিন ২ ডলার থেকে শুরু করে হাজার হাজার ডলার পর্যন্ত আয়ের সুযোগ পান। ব্যাপক জনপ্রিয়তার কারণে এখন কুইজ শো`টির দর্শক সংখ্যা ছাড়িয়ে গেছে লাখ থেকে কোটিতে। সম্প্রতি তারা এযাবতকালের সবচেয়ে বড় জ্যাকপট নিয়ে হাজির হয়। সেখানে ৮৩ জন বিজয়ীর মধ্যে তিন লাখ ডলার ভাগ করে দেওয়া হয়েছে বলে দাবি করে তারা। মোবাইলের মাধ্যমে কুইজের মোট ১২টি প্রশ্নের সঠিক উত্তরের ভিত্তিতে দেওয়া হয় এই মোটা অংকের অর্থ পুরস্কার। শুধু তাই না ওই জ্যাকপট শো এর অতিথি উপস্থাপক হিসেবে ছিলেন দ্য রক-খ্যাত জনপ্রিয় রেসলার ও অভিনেতা ডোয়েন জনসন। ভিডিও শেয়ারিং অ্যাপ ভাইন এর সহ প্রতিষ্ঠাতা কলিন ক্রোল ও রুশ ইউসুপোভ এই অ্যাপ্লিকেশনটি তৈরি করেন। এ ব্যাপারে রুশ বলেন, আমরা চাই সবাই যেন সেই গৎবাঁধা টেলিভিশন কুইজ থেকে বেরিয়ে এসে নতুন কিছুর প্রতি আকৃষ্ট হয়। এ কারণে আমরা প্রতিটি অনুষ্ঠান এমনভাবে সাজাই যেন ব্যবহারকারীরা আমাদের সঙ্গে বেশি করে সম্পৃক্ত হতে পারে। এবং তারা যেন প্রতিদিন আমাদের ভিজিট করতে আগ্রহ পায়। তবে প্রশ্ন ওঠে, যে অ্যাপলিকেশনটির নাম দু`দিন আগেও কেউ জানতো না, সেটি কিভাবে রাতারাতি এতো বিপুল পরিমান অর্থ বিলিয়ে যাচ্ছে? এমনকি আলোচিত তারকাদেরও মঞ্চে আনছে কোনও বাড়তি বিজ্ঞাপন প্রচার না করেই! এ ব্যাপারে অ্যাপটির ব্রিটিশ সংস্করণের উপস্থাপক শ্যারন কারপেন্টার জানান, লাইভ স্ট্রিমিংয়ের ভিউয়ার হিট থেকেই তাদের এই আয় হয়। ‘সরাসরি সম্প্রচারিত বিষয়ের প্রতি ভিউয়ারদের আগ্রহ সব সময় বেশি থাকে। কারণ এখানে রাখ-ঢাকের কোনও সুযোগ নেই। যেকোনও সময় যেকোনও কিছু হতে পারে। সবাই জানতে চায় কুইজটার শেষ পর্যন্ত কি হয়। আর মোবাইলে ব্যবহার করায় মানুষ চলার পথেও আমাদের সঙ্গে যুক্ত হতে পারে। এভাবে এইচকিউ ট্রিভিয়া একদিন টেলিভিশন সম্প্রচারের জায়গা দখল করবে’ বলেন শ্যারন কারপেন্টার। তবে এই অ্যাপটি ঘিরে যে সমালোচনা হয়নি তা নয়। অনেকেই কুইজ জিততে না পেরে হ্যাশট্যাগ ডিলিট এইচকিউ নামে টুইটারে প্রচারণা চালিয়েছে। আবার অনেকেই এই কুইজের প্রতি তাদের আসক্তির কথা জানিয়েছে। তাদেরই একজন স্কট মেঙ্কে। তিনি জানান, গত বছরের অক্টোবরে অ্যাপটি ডাউনলোডের পর থেকে এমন কোনও দিন নেই যে তিনি এতে ঢু মারেননি। এ পর্যন্ত তিনি ১২ হাজার ৩০০ ডলার আয় করার দাবি করেছেন। তার কাছে দিন দিন যেন নেশায় পরিণত হয়েছে এইচকিউ ট্রিভিয়া। অর্থের পাশাপাশি বিভিন্ন আকর্ষণীয় পুরস্কারও দিয়ে থাকে এইচকিউ ট্রিভিয়া। জানা যায়, ভিউয়ার সংখ্যার পাশাপাশি এইচকিউ মূলত পরিচালিত হয় ফাউন্ডার্স ফান্ডের মতো বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠানের অর্থে এবং অ্যাপটির মাদার কোম্পানি ইন্টারমিডিয়া ল্যাবের লাভ্যাংশে।  তথ্যসূত্র: বিবিসি। একে// এসএইচ/

স্মার্টফোনে কোডিং শেখাবে যে অ্যাপ

স্মার্টফোনে কোডিং শেখাতে নতুন অ্যাপ উন্মোচন করেছে ইন্টারনেট জায়ান্ট গুগল। যারা কোডিং শুরু করতে চান তাদের সহায়তা করতেই আনা হয়েছে ‘গ্রাসহপার’ নামের অ্যাপটি। গুগলের পরীক্ষামূলক পণ্যের ওয়ার্কশপ ‘এরিয়া ১২০’ তে নতুন এই অ্যাপটি বানিয়েছে এক দল কোডার। গত বুধবার গুগল এক ব্লগ পোস্টে এ তথ্য জানিয়েছে। গুগল জানায়, কোডিং এক অপরিহার্য দক্ষতায় পরিণত হচ্ছে। তাই সবাই যাতে কোডিং শিখতে পারেন তা সম্ভব করতে গ্রাসহপার বানানো হয়েছে। প্রতিষ্ঠানটি বলছে, এটি বানিয়েছি যাতে আপনারা মজা নিয়ে এবং সহজে কোডিং শুরু করেন। গ্রাসহপারকে ফোনে এনেছি যাতে আপনি যাতায়াত বা লাইনে অপেক্ষার সময়টি শেখার কাজে লাগাতে পারেন। গ্রাহক চাইলে এখনি অ্যান্ড্রয়েড বা আইওএস স্মার্টফোনে অ্যাপটি ডাউনলোড করতে পারবেন। প্রযুক্তি সাইট টেকক্রাঞ্চের প্রতিবেদনে বলা হয়, কোডারদের মৌলিক বিষয়গুলো ও মূল ধারণাগুলোতে দক্ষ করাই এর লক্ষ্য, যাতে করে তারা তাদের কোডিং শিক্ষার পরবর্তী ধাপ নিতে পারে। নতুন এই অ্যাপটিতে কয়েকটি কোর্স রাখা হয়েছে। এর মধ্যে একটি ‘দ্য ফান্ডামেন্টালস’ যেখানে কোডার শিখতে পারবেন কোড কীভাবে কাজ করে। এ ছাড়া আরও দু’টি কোর্স রয়েছে গ্রাসহপারে। এর মধ্যে একটিতে শেখানো হবে ডি৩ লাইব্রেরি ব্যবহার করে কীভাবে কোনও আকৃতি আঁকা যায় এবং অন্যটিতে ডি৩ ব্যবহার করে আরও জটিল ফাংশান তৈরি করা শেখানো হবে। একে// এআর

© ২০১৮ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি