ঢাকা, সোমবার, ১৮ জুন, ২০১৮ ১০:০৯:০৬

হবিগঞ্জে বাস-সিএনজি সংঘর্ষে নিহত ২

হবিগঞ্জে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের দৌলতপুর নামক স্থানে যাত্রীবাহী একটি বাসের ধাক্কায় সিএনজি অটোরিকশার চালকসহ দুইজন নিহত হয়েছেন। আজ বুধবার ভোর ৫টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন, সিএনজি অটোরিকশার চালক ফরহাদ মিয়া (২৮)। তিনি উপজেলার শংকরপুর গ্রামের তুলা মিয়ার ছেলে। এবং একই গ্রামের বেলা মিয়ার ছেলে নূর আলী (৪০)। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, শায়েস্তাগঞ্জ থেকে গ্যাস নেওয়ার জন্য সিএনজি অটোরিকশাটি নিয়ে রওনা দিলে দৌলতপুর দয়াল ব্রিকসের কাছে সিএনজি অটোরিকশাটি পৌঁছলে সিলেটগামী শ্যামলী পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস তাদের ধাক্কা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই নিহত হন তারা দু’জন। এ দুর্ঘটনার সঙ্গে সঙ্গে স্থানীয়রা কিছু সময়ের জন্য মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে বলে জানিয়েছে পুলিশ। একে/

সিলেট মাতাবে জেমস, মমতাজ ও দলছুট

সিলেট মাতাবেন দেশের সংগীতাঙ্গনের জনপ্রিয় দুই শিল্পী জেমস ও মমতাজ। আজ রোববার বিকেল ৪টায় একই মঞ্চে গান গাইবেন তারা। যেখানে আরও গান পরিবেশন করবেন বাপ্পা মজুমদার (দলছুট)। সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে সিলেট জেলা স্টেডিয়ামে ‘অগ্রযাত্রায় দুর্বার বাংলাদেশ’ শীর্ষক এই কনসার্ট আয়োজন করা হয়েছে। আয়োজকেরা জানিয়েছেন, বর্তমান সরকারের বিভিন্ন উন্নয়নমুলক কর্মকান্ডকে মানুষের সামনে তুলে ধরার লক্ষে আয়োজন করা হয়েছে এই কনসার্ট। সিলেট শিল্পকলা একডেমির দলীয় নৃত্যসহ নানান পরিবেশনার পর এতে সংগীত পরিবেশন করবেন তারা। নওশিনের উপস্থাপনায় এবং আলমগীর হোসেনের প্রযোজনায় কনসার্টটি দেশ টিভিতে প্রচারিত হবে রবিবার বিকাল সাড়ে ৪টা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত। এসএ/  

দেখে আসতে পারেন হাসন রাজার স্মৃতি চিহ্ন

‘লোকে বলে বলেরে, ঘরবাড়ি ভালা না আমারকী ঘর বানাইমু আমি, শূন্যের-ই মাঝারভালা করি ঘর বানাইয়া, কয় দিন থাকমু আরঅায়না দিয়া চাইয় দেখি, পাকনা চুল আমার।’এ অমর সঙ্গীত রচয়িতার সম্পর্কে জানতে চাইলে যেতে পারেন সুনামগঞ্জে। আজ থেকে বহু বছর আগে সুনামগঞ্জের সুরমা নদীর ধারের এক রাজার জীবন আমূল পাল্টে দিয়েছিল স্বপ্ন-দর্শন। তার জীবন হয়ে উঠে সহজ সরল, মন হয়ে ওঠে প্রসারিত। ছেড়ে দেন রাজকীয় পোশাক। পড়তে শুরু করলেন সুফি পোশাক। সাধক রাজার স্মৃতিচিহ্ন এখনো অবশিষ্ট আছে সুনামেগঞ্জের আরফিন নগরে। সাদামাটা বাড়িতে তার শেষ স্মৃতিচিহ্ন সংরক্ষণের মাধ্যমে গড়ে তোলা হয়েছে জাদুঘর। কল্পনায় আপনি যেতে পারবেন উনবিংশ শতকে। ছোটখাটো সংগ্রহ শালায় রাজার আয়েসি জীবন থেকে শুরু করে সাধক জীবন পর্যন্ত। বাদক যন্ত্র থেকে রাজার জমিদারি ম্যাপ, রাজার খড়মসহ ব্যবহার্য জিনিসপত্র। ঘরের এবং ঘরের বাইরের সব সংগ্রহের পাশাপাশি অবস্থান পেয়েছে বিশিষ্টজনের সঙ্গে রাজার সাক্ষাৎ ও দর্শনার্থীদের ভ্রমণের বিশেষ কিছু ছবি। সিলেট শহরের একেবারে প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত এই মিউজিয়ামের নাম রাজা’স মিউজিয়াম। এটা শহরের জিন্দাবাজার এলাকায় অবস্থিত। সিলেট শহরের জিন্দাবাজারে হাসন রাজার বাসভবনটি বর্তমানে জাদুঘর হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। এখানে রাজা পরিবারের স্মৃতি সংরক্ষিত আছে। লোক সংস্কৃতি এবং ইতিহাসের ওপর গবেষণা কার্যক্রমকে এই জাদুঘর অনুপ্রানিত করে থাকে।জাদুঘরে দুটি গ্যালারি রয়েছে। প্রথম গ্যালারিটি প্রধান হলরুম। প্রধান হলরুমে চারটি শোকেসে হাসন রাজার ও তার পরিবারের ব্যবহৃত বিভিন্ন নিদর্শন সংরক্ষিত আছে। দ্বিতীয় গ্রালারিতে হাসন রাজার জীবনের ওপর লেখা বই আছে। কবির জীবন সম্পর্কে জানতে বইগুলি পড়তে পারেন যে কেউ। হাসন রাজার ছদ্মনাম অহিদুর রেজা। তিনি একজন মরমী কবি এবং বাউল শিল্পী।যেভাবে যাবেন-ঢাকা থেকে সড়ক পথ, রেল পথ ও আকাশ পথেও যেতে পারের হাসন রাজার শহরে। যদি ঢাকা থেকে সিলেট হয়ে সুনামগঞ্জ যান তাহলে প্রথমে সিলেট চলে যান তার পর বাসের জন্য যেতে হবে কুমারগাঁও বাসস্ট্যান্ডে। আর বাকি রাস্তা গাড়িতে করে যেতে পারেন। চাইলে শাহজালাল (রহ.) মাজার গেটের পাশ থেকে যেতে পারবেন সুনামগঞ্জ শহরে। অথবা সরাসরি ঢাকা থেকে সুনামগঞ্জ। ব্যক্তিগত গাড়িতে যেতে চাইলেও যেতে পারেন। যাতায়াতের জন্য রাস্তা বেশ ভালো। বাসে গেলে সময় লাগবে প্রায় দুই ঘণ্টা, আর কারে যেতে লাগবে প্রায় ১ ঘণ্টার মতো। শহরের নতুন বাসস্ট্যান্ড এলাকায় নামিয়ে দিলে রিকশা কিংবা বিদ্যুৎ চালিত অটোরিকশা মিলবে সহজেই। শহরের অন্য যেকোনো জায়গায় যেতেও মিলবে এসব যানবাহন। ঢাকার মালিবাগ রেলগেট, রাজারবাগ, আরামবাগ, সায়েদাবাদ, পান্থপথ, সায়েদাবাদ থেকে সকাল ৬:৩০টা থেকে রাত ১১:৩০টা পর্যন্ত সিলেটের উদ্দেশ্যে বাস ছেড়ে যায়। ঢাকা কমলাপুর রেল স্টেশন থেকে প্রতিদিনই ট্রেন যাতায়াত করে । ভ্রমণের জন্য রাতের ট্রেনে উঠাই ভালো। অথবা ঢাকা থেকে বিমান যোগেও যেতে পারেন। আর সিলেট থেকে রিকশা অথবা সিএনজি অটোরিকশায় চড়ে আপনি যেতে পারেন জাদুঘরে।থাকার ব্যবস্থা-সার্কিট হাউস বা সরকারি ডাকবাংলো ছাড়াও সিলেটের মাজার রোড, আম্বরখানা এবং জিন্দাবাজারসহ বিভিন্ন এলাকায় প্রায় এক হাজার টাকার মধ্যেই থাকার জন্য ভালোমানের হোটেল পেয়ে যাবেন। খাবার সুবিধা-যেই হোটেলে থাকবেন তার কাছাকাটি খবার হোটেল পেয়ে যাবেন আর জাদুঘরের কাছে কিছু দোকানে কফি, স্ন্যাক্স জাতীয় খাবার বিক্রি করা হয়। তাজা মাছের স্বাদ নিয়ে খেতে চাইলে চলে যান নদীর পাড়ের হোটেলে। রিকশা অথবা অটোরিকশা যোগে অল্প সময়ের মধ্যেই যেতে পারেন নদীর পাড়ে। এসএইচ/

কোরআনের উদ্ধৃতি দিয়ে ছাত্রদের বোঝালেন জাফর ইকবাল

দীর্ঘ ১১ দিন রাজধানীর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে বুধবার সিলেটে ফিরেছেন বিশিষ্ট লেখক ও শিক্ষাবিদ ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল। তাকে বরণ করে নিতে বিকেলে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের মুক্তমঞ্চে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা ‘সাধাসিধে কথা’ শীর্ষক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। অনুষ্ঠানে ছাত্র-শিক্ষকসহ মহান আল্লাহর কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন ড. জাফর ইকবাল। তিনি বলেন, “আমাকে নাস্তিক বলা হয়। অথচ পবিত্র কুরআনের প্রথম লাইন থেকে শেষ লাইন আমি ভালোবেসে গভীরভাবে পড়েছি। আমার মনে হয় অন্য কেউ সেভাবে পড়েছেন কিনা। আল্লাহ আমাকে বাঁচিয়েছেন। নিশ্চয় তিনি আমাকে দিয়ে ভালো কিছু করাতে চান। তিনি আমার প্রতি মায়া করেছেন।” জাফর ইকবাল বলেন, “হামলাকারীদের আমি ক্ষমা করে দিয়েছি। তাদের প্রতি আমার কোন ক্ষোভ নেই। যারা আমার জন্য রাস্তায় আন্দোলন করেছেন, আমার জন্য দোয়া করেছেন, তাদের সবার প্রতি আমার শুভকামনা রইলো।” পবিত্র কোরআনের আয়াত উদ্ধৃতি দিয়ে হামলাকারী ফয়জুল হাসানসহ বিপথে যাওয়া তরুণদে উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, “তুমি যদি একটা মানুষকে হত্যা করো তবে সমগ্র মানবজাতিকে হত্যা করলে। কুরআন শরিফে এই মহান বাণী রয়েছে। তোমরা যদি একটা মানবজাতিকে বাঁচাও তবে সমগ্র মানবজাতিকে বাঁচালে। যারা ছুরিকাঘাতের পর আমাকে এখান থেকে তুলে হাসপাতালে পাঠিয়েছ তারা শুধুই আমাকে বাঁচাওনি সমগ্র মানবজাতিকে বাঁচিয়েছ।” তিনি আরো বলেন, “যে যুবক আমার ওপর হামলা করেছে তার জন্য আমার কষ্ট হয়, মায়া হয়। কারণ সে বিভ্রান্তির পথে রয়েছে।” হামলাকারীর উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, “আমাকে মেরে বেহেশতে যেতে চেয়েছিলে। তোমাকে যে মারতে পাঠিয়েছে, তার ছেলে-মেয়েরা হয়তো লেখাপড়া করছে। আর তোমার অবস্থা কী? দেখ তোমার বাবা-মা ও স্বজনরা রিমান্ডে। হামলাকারীর দলের কেউ হয়তো এখানে দাঁড়িয়ে আমরা কথা শুনছে। আমি তাদের বলি, তোমাদের কোনো কিছু জানার বা বোঝার থাকলে আমার সাথে দেখা করো। কথা বল ” অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. ফরিদ উদ্দিন আহমদ, জাফর ইকবালের স্ত্রী ড. ইয়াসমীন হক, সাংবাদিক ও কলামিস্ট আবেদ খান, বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ ইলিয়াস উদ্দিন বিশ্বাস এবং কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং (সিএসই) বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক মো. রেজা সেলিমসহ । উল্লেখ্য, গত ৩ মার্চ বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে একটি অনুষ্ঠান চলাকালে ড. মুহম্মদ জাফর ইকবালের ওপর হামলা চালায় ফয়জুর রহমান নামে এক যুবক। জাফর ইকবালকে উদ্ধার করে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে অস্ত্রোপচার শেষে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাতেই তাকে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে করে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। আর/টিকে

জাফর ইকবালের ওপর হামলার প্রতিবাদে চুয়েটে মানববন্ধন

বিশিষ্ট লেখক ও শিক্ষাবিদ অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ জাফর ইকবালের ওপর বর্বরোচিত সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছে চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট) শিক্ষক সমিতি। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে পুরকৌশল ভবনের সামনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধনে চুয়েটের ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলমসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও কর্মকর্তা-কর্মচারীগণ অংশগ্রহণ করেন। এতে সভাপতিত্ব করেন শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. মোঃ আব্দুর রহমান ভূঁইয়া। শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ মশিউল হকের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আব্দুর রশীদ। এতে চুয়েটের মানববন্ধনে অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম বলেন, অধ্যাপক ড. জাফর ইকবালের ওপর হামলায় সমগ্র শিক্ষক সমাজ অপমানিত হয়েছেন। একজন শিক্ষকের ওপর এমন বর্বরোচিত আক্রমণ কখনো মেনে নেওয়া যায় না। এটি আমাদের জাতির বিবেকের উপর হামলা। মুক্তবুদ্ধি চর্চার উপর প্রতিক্রিয়াশীলদের হামলা। এ ধরণের অশুভ প্রতিক্রিয়া কোনভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। এমজে/

সিলেটে দুপক্ষের সংঘর্ষ-গোলাগুলিতে নিহত ২

সিলেটের দক্ষিণ সুরমা উপজেলার বরইকান্দি এলাকার ৩ নম্বর রোড ও ১০ নম্বর রোডের লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে দুজন নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে এ সংঘর্ষ ও গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। এতে আহত হয়েছেন অন্তত ১৫ জন। তাদের মধ্যে বেশ কয়েকজন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। আহতদের সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও আশপাশের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, সোমবার রাতে ১০ নম্বর রোডে গিয়ে কোম্পানিগঞ্জ উপজেলার টেলিখাল ইউপির চেয়ারম্যান আলফু মিয়ার লোকজনের ওপর হামলা চালায় বরইকান্দি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ৩ নম্বর রোডের বাসিন্দা গৌছ মিয়ার লোকজন। এতে পাঁচজন আহত হয়। এ ঘটনার জের ধরে মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে মাইকে ঘোষণা দিয়ে ৩ নম্বর রোডে গিয়ে গৌছ মিয়ার লোকজনের ওপর হামলা চালায় আলফু মিয়ার লোকজন। এ সময় তাদের সঙ্গে দেশীয় অস্ত্র ও আগ্নেয়াস্ত্র ছিল। এ সংঘর্ষে বাবুল মিয়া ও মাসুক মিয়া নামের দুজন গুলিবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যান। নিহত দুজনই গৌছ মিয়ার ভাগ্নে বলে জানা গেছে। সিলেট মহানগর পুলিশের মুখপাত্র অতিরিক্ত উপ-কমিশনার আবদুল ওয়াহাক মিঞা বলেন, সংঘর্ষে দুজন গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হয়েছেন। পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছে। ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এসএইচ/

জাফর ইকবালকে দেখতে সিলেটের পথে শিক্ষামন্ত্রী

লেখক ও শিক্ষাবিদ ড. মুহাম্মদ জাফর ইকবালকে দেখতে সিলেটের পথে রওয়ানা হয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। আজ শনিবার বিকেলে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবি) অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবালকে ছুরিকাঘাতে আহত করে এক তরুণ। ঘটনার খবর ছড়িয়ে পড়ার পরই সব ধরণের কর্মসূচি বাদ দিয়ে সিলেটের পথে রওয়ানা হন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। তার ব্যক্তিগত সহকারী বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বর্তমানে সিলেটের ওসমানী মেডিকেল হাসপাতালের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছেন। এর আগে শনিবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে শাবি ক্যাম্পাসে ড. মুহম্মদ জাফর ইকবালকে ছুরিকাঘাতে আহত করে এক তরুণ। ঘটনার পরপরই তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। ড. জাফর ইকবালের ব্যক্তিগত সহকারী জয়নাল আবেদীন জানান, এ মুহূর্তে তিনি সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের একজন ইন্টার্ন চিকিৎসক জানান, জাফর ইকবালকে নিউরোলজি বিভাগে ভর্তি করা হয়েছে। তিনি সহযোগী অধ্যাপক ডাক্তার রাশেদুন্নবীর অধীনে চিকিৎসাধীন আছেন। এমজে/

সিটিস্ক্যান করা হচ্ছে জাফর ইকবালের

বিশিষ্ট লেখক এবং শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবালের সিটিস্ক্যান করা হচ্ছে। সিলেট এম এ জি ওসমানী হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, আঘাতে কী পরিমাণ জায়গায় জখম হয়েছে তা জানতেই সিটিস্ক্যান করা হচ্ছে। শনিবার বিকালে ক্যাম্পাসের মুক্তমঞ্চে জাফর ইকবাল হামলার শিকার হন। এ হামলার পর রক্তাক্ত অবস্থায় ড. মুহম্মদ জাফর ইকবালকে ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ক্যাম্পাসের মুক্তমঞ্চে ইলেট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে ফেস্টিভ্যাল চলছিল। এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন অধ্যাপক জাফর ইকবাল; সেখানেই তার উপর হামলা হয়। ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান বলেন, “বিকাল ৫টায় মঞ্চে ওঠার সময় পেছন থেকে ছুরি দিয়ে মাথায় আঘাত করা হয়।” টিকে/টিকে

বনাঞ্চল কমে যাওয়ায় বিপন্ন হচ্ছে প্রাণী

বিশ্ব বন্যপ্রাণী দিবস আজ ৩ মার্চ। বন্যপ্রাণীকে তাদের নিরাপদ আশ্রয়স্থল ফিরিয়ে দেয়ার আহ্বান নিয়ে মৌলভীবাজারে পালিত হচ্ছে বিশ্ব বন্যপ্রাণী দিবস। দিবসটিকে সামনে রেখে শ্রীমঙ্গলের বাংলাদেশ বণ্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশন আজ লাউয়াছড়া বনে অবমুক্ত করবে বেশ কিছু বন্যপ্রাণী। এ ছাড়া আরও কয়েকটি সংগঠনও বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে দিবসটি পালন করবে বলে জানা গেছে। দেশের বন্যপ্রাণী বিচরণকারী এলাকার মধ্যে একটি হচ্ছে মৌলভীবাজার। একসময় মৌলভীবাজার জেলা ছিল ঘন বনাঞ্চলে ভরা। যে কারণে এ জেলায় আবাসস্থল ছিল প্রচুর বন্যপ্রাণীর। কিন্তু সময়ের আবর্তে বনাঞ্চল কমে যাওয়ায় এবং বনাঞ্চলে আবৃত হাজার হাজার একর সরকারি খাস ভূমি দখল করে বাড়িঘর নির্মাণ এবং আনারস, লেবু ও পান বাগান করাসহ বিভিন্নভাবে জঙ্গল উজাড় করে প্রকৃতি পরিবর্তন করার ফলে এ জেলার বন্যপ্রাণীরা আজ বিলুপ্তির পথে। বিলুপ্তির অবশিষ্টাংশ লাউয়াছড়া বন কিছু বন্যপ্রাণীর শেষ আশ্রয়স্থল হলেও লাউয়াছড়ার ভেতর দিয়ে যাওয়া রেললাইন, সড়ক, বৈদ্যুতিক লাইন, লেবু বাগান ও বাড়িঘর নির্মাণসহ নানা কারণে এখানেও বন্যপ্রাণীগুলো বসবাস করছে ঝুঁকির মধ্যে। ফলে মারা পড়ছে অসংখ্য বন্যপ্রাণী। এ ছাড়া এ জেলায় বন্যপ্রাণীর বিচরণ ক্ষেত্র হিসেবে পরিচিত ছিল সীমান্তবর্তী কমলগঞ্জের পশ্চিম ভানুগাছ বন, আদমপুর বন বিট, কুরমা বন বিট, কালাছড়া বন বিট, কুলাউড়ার মনছড়া বন বিট, বড়লেখার মাধবকুণ্ড পাতারিয়া বনাঞ্চল, মৌলভীবাজার সদরের বর্ষিজোড়া বন, জুড়ির সাগরনাল ও শ্রীমঙ্গল সাতগাঁও বন বিটসহ আরো কয়েকটি বন। অপরদিকে লাউয়াছড়া বন এটি শত বছরের জীববৈচিত্র্য সমৃদ্ধ একটি বন। যার ভেতর দিয়ে গেছে রেললাইন। এ লাইন দিয়ে প্রতিদিন ১০ থেকে ১৫টি ট্রেন অতিক্রম করে। একই সঙ্গে এর ভেতর দিয়ে পাকা সড়কে গাড়ি চাপায় এবং বিদ্যুৎ লাইনে লেগে প্রাণ হারায় বাঘ, হরিণ, সাপ, বানর, উল্লুকসহ বিভিন্ন পশুপাখি। বনের ভেতরে রয়েছে পর্যাপ্ত জলাধারের অভাবও। অন্যদিকে ঝোপঝাড় কেটে ফেলায় ওই সব এলাকায় বসবাসকারী বন্যপ্রাণী গ্রামের ভেতর এদিক-ওদিক ছোটাছুটি করতে গিয়ে মানুষের হাতে কখনো মারা পড়ে, কখনো বন্দি হয়। বিভিন্ন সময় লাউয়াছড়া বনেরও কিছু প্রাণী লোকালয়ে ছুঠে গিয়ে ধরা পড়ে মানুষের হাতে। এই প্রাণীগুলোকে উদ্ধার করে আবার বনে অবমুক্ত করা হয়। এ ব্যাপারে বাংলাদেশ বন্যপ্রাণী ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের বিভাগীয় কর্মকর্তা মিহির কান্তি দে জানান, এই বনের জীববৈচিত্র্য ধরে রাখতে তারা প্রাণান্তকর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। ইতোমধ্যে তারা লাউয়াছড়ার সীমানা নির্ধারণ করে ফিলার স্থাপন ও বনের ভেতরে স্থাপিত অবৈধ লেবু বাগান উচ্ছেদ করেছেন। বেশ কিছু গাছ চোরকে ধরে মামলাও দিয়েছেন। সহকারী বন সংরক্ষক তবিবুর রহমান জানান, লাউয়াছড়ার বন্যপ্রাণী ও পশুপাখির সংখ্যা বেড়েছে। গাছপালা উজাড় কম হচ্ছে বলেই তা সম্ভব হচ্ছে। তবে বনের পরিধি বাড়ানো দরকার। স্থানীয় রাজনৈতিক নেতা ও সরকারের ঊর্ধ্বতন মহলের হস্তক্ষেপে বনের ভেতর বসবাসকারীদের স্থানান্তরিত করতে হবে। উল্লেখ্য, ২০১৩ সালের ২০ ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিত জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৬৮ তম অধিবেশনে থাইল্যান্ড আন্তৰ্জাতিক বিলুপ্তপ্ৰায় বন্যপ্রাণী এবং উদ্ভিদের বাণিজ্য সম্মেলনে ৩ মার্চকে, বিশ্ব বন্যপ্রাণী দিবস হিসেবে ঘোষণা করার আহ্বান জানায়। বিশ্বের বন্যপ্রাণী এবং উদ্ভিদকূলের প্রতি গণসচেতনতা বৃদ্ধি করা এই দিবসের মূল লক্ষ্য।জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে উত্থাপিত বিবরণীতে, বন্যপ্ৰাণীদের অপরিহার্য মূল্য এবং বিভিন্ন অবদানের কথা পুনর্ব্যক্ত করা হয়; যেমন- পরিবেশগত, জিনতাত্ত্বিক, সামাজিক, অৰ্থনৈতিক, বৈজ্ঞানিক, শিক্ষাবিষয়ক, সাংস্কৃতিক, বিনোদনমূলক এবং নান্দনিক বিষয়ের সাথে যুগসই উন্নয়ন এবং মানবকল্যাণের দিকে গুরুত্ব আরোপ করা হয়।২০১৩ সালের ৩ থেকে ১৪ মার্চে থাইল্যান্ডের ব্যাংককে অনুষ্ঠিত আন্তৰ্জাতিক বিলুপ্তপ্ৰায় বন্যপ্রাণী এবং উদ্ভিদের বাণিজ্য সম্মেলনের (CITES) ১৬তম সভায়, বিশেষ রেজ্যুলেশন কনফ. ১৬.১-এর মাধ্যমে জাতিসংঘের সাধারণ সভায় ৩ মার্চকে, বিশ্ব বন্যপ্রাণী দিবস হিসেবে ঘোষণা করার হয়। এসএ/  

আরফিন টিলায় মিলল আরও ২ লাশ

সিলেটের কোম্পানীগঞ্জের শাহ আরফিন টিলায় পাথর তোলার সময় পাড় ধসে ৩ শ্রমিক নিহত হয়েছেন। বুধবার সন্ধ্যায় উপজেলার আরফিন টিলায় বশর মিয়ার কোয়ারিতে এ দুর্ঘটনা ঘটে। ঘটনার পরপরই স্থানীয়রা কাঁচা মিয়া নামে এক শ্রমিকের লাশ উদ্ধার করে। কিন্তু আফাজ উদ্দিন (৪৩) ও জহির মিয়া নামে আরও দুইজন নিখোঁজ ছিলেন। অবশেষে বৃহস্পতিবার সকালে ফায়ার সার্ভিসের একটি দল তাদের দুইজনের লাশ উদ্ধার করে। নিহত সকলের বাড়ি সুনামগঞ্জের বিভিন্ন উপজেলায় বলে জানা গেছে। খবরের সত্যতা নিশ্চিত করে কোম্পানীগঞ্জ থানার ওসি শফিকুর রহমান খান জানান, বুধবার বিকেলে বশর মিয়ার কোয়ারিতে পাথর তোলার সময় পাড় ধসের ঘটনা ঘটে। শাহ আরফিন টিলায় প্রায় ৭০ ফুট গভীর গর্ত করে অবৈধভাবে পাথর তোলার সময় এ ধস নামে। এতে কয়েকজন শ্রমিক চাপা পড়েন। ঘটনার পরপরই স্থানীয়রা কাঁচা মিয়া নামে এক শ্রমিকের লাশ উদ্ধার করে। কিন্তু নিখোঁজ আফাজ উদ্দিন (৪৩) ও জহির মিয়া নামের দুই শ্রমিকের লাশ বৃহস্পতিবার সকালে ফায়ার সার্ভিসের একটি দল গিয়ে উদ্ধার করে। এ নিয়ে গত এক সপ্তাহে কোম্পানীগঞ্জে অবৈধভাবে পাথর তোলতে গিয়ে আটজন নিহত হলেন। একে// এআর

সিলেটে আবারো কোয়ারিতে ধস, শ্রমিকের মৃত্যু

সিলেটের কোম্পানীগঞ্জে আবারো পাথর তোলার সময় পাড় ধসে এক শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। বুধবার সন্ধ্যায় উপজেলার শারপিন টিলায় বশর মিয়ার কোয়ারিতে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত শ্রমিকের নাম কাচা মিয়া। তিনি দক্ষিণ সুনামগঞ্জের নজির মিয়ার ছেলে। খবরের সত্যতা নিশ্চিত করে কোম্পানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) দিলীপ কান্তি নাথ বলেন, বশর মিয়ার কোয়ারিতে পাথর তোলার সময় পাড় ধসের ঘটনা ঘটে। এতে কাচা মিয়া নামে এক শ্রমিক নিহত হয়েছেন। রাত ৯টার দিকে তার লাশ থানায় নেওয়া হয়। ওই কোয়ারিতে পুলিশের অভিযান চলছে বলেও জানান তিনি। ওসি জানান, এর আগেও বশর মিয়ার কোয়ারিতে পাড় ধসের ঘটনা ঘটেছে। তার বিরুদ্ধে কোম্পানীগঞ্জ থানায় একাধিক মামলা রয়েছে। উল্লেখ্য, সিলেটে ২০১৭ সাল থেকে চলতি বছরের ২৭ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত কোয়ারির পাড় ধসের ঘটনায় নিহত হয়েছেন ৪৪ জন শ্রমিক। জেলা প্রশাসন, পুলিশ আর পরিবেশ অধিদফতরের তদারকি না থাকায় বারবার পাথর কোয়ারিতে মৃত্যুর ঘটনা ঘটছে বলে দাবি পরিবেশবাদীদের।   আর

রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে অকেজো মৌলভীবাজারের দুই শিশুপার্ক

মৌলভীবাজারে দু’টি শিশুপার্ক থাকলেও রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে তা শিশুদের জন্য কোনো কাজে আসছে না। জেলার চার লক্ষাধিক শিশুর জন্য ৬ বছর আগে জেলা প্রশাসক শিশুপার্ক ও পৌরপার্ক প্রতিষ্ঠা করলেও এখন পার্ক দু’টির অংশ বিশেষ ব্যবহৃত হচ্ছে যানবাহন পার্কিংয়ে। তবে, পার্ক দু’টি দ্রুত সংস্কারের কথা জানিয়েছে জেলা প্রশাসন। জঙ্গলের ভেতর দোলনা দুলছে মনে হলেও আসলে এটি শিশু পার্ক। প্রায় ৬ বছর আগে মৌলভীবাজারে পর্যটন কর্পোরেশনের পরিত্যক্ত রেষ্ট হাউজ ক্যাম্পাসে সাড়ে ৩ একর জমিতে উদ্বোধন করা হয় জেলা প্রশাসক শিশু পার্ক। কিন্তু, পরিচর্যার অভাবে পার্কটি ঝোপঝাড়ে পরিণত হয়েছে।অন্যদিকে, মৌলভীবাজার পৌরসভার সামনে শিশুদের জন্য পৌরকর্তৃপক্ষ পার্ক স্থাপন করলেও পরে তা শাহ মোস্তফা রোডের বেড়িবাঁধে রুপান্তরিত হয়। পার্কটি বর্তমানে যানবাহনের অবৈধ পার্কিংয়ের স্থান হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। জেলার শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা বলছেন, পার্কের জায়গা দখলমুক্ত করতে জরুরি উদ্যোগ প্রয়োজন।দ্রুত পার্ক দু’টি সংস্কারের আশ্বাস দিয়েছে জেলা প্রশাসন।

ওয়াজ মাহফিলে সংঘর্ষে মাদ্রসা ছাত্র নিহত [ভিডিও]

সিলেটের ওয়াজ মাহফিলে বক্তব্যকে কেন্দ্র করে মাদ্রাসা ছাত্র ও এলাকাবাসীর মধ্যে সংঘর্ষে একজন নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় বিক্ষুব্ধ ছাত্ররা চার গ্রামের প্রায় অর্ধশত বাড়িতে আগুন দেয়। সোমবার রাতে জেলার জৈন্তাপুরের কাঠালবাড়িতে এঘটনা ঘটে। ওয়াজ চলার সময় এক বক্তার বক্তব্যকে কেন্দ্র করে ওই শিক্ষক ও তার সঙ্গে থাকা ছাত্রদের মারধোর করে এলাকাবাসী। এতে মাদ্রাসা ছাত্র মোজাম্মিল নিহত হন। ঘটনা তদন্তে প্রশাসনের পক্ষ থেকে দুটি পৃথক তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কাঠালবাড়িতে ওয়াজমাহফিলে অতিথি হয়ে যান হরিপুর মাদ্রাসার এক শিক্ষক। ওয়াজ চলার সময় এক বক্তার বক্তব্যকে কেন্দ্র করে ওই শিক্ষক ও তার সঙ্গে থাকা ছাত্রদের মারধোর করে এলাকাবাসী। এতে মাদ্রাসা ছাত্র মোজাম্মিল নিহত হন। আহত হন বেশ কয়েকজন। খবর পেয়ে হরিপুর ও দরবস্ত মাদ্রাসার ছাত্ররা ঘটনাস্থলে যেয়ে ভাংচুর করে। এ সময় তারা কাঠাবাড়িসহ তিনটি গ্রামের অর্ধশত বাড়িতে আগুন দেয়। পরে পুলিশ ও র‌্যাব পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। আহতদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ঘটনার পর থেকেই এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। সংঘর্ষে দোষিদের চিহিৃত করে তাদের শাস্তি নিশ্চিত করার দাবি জানিয়েছেন ভুক্তভোগীরা।    

ওয়াজ মাহফিলে সংঘর্ষে নিহত ১, আহত ৫০

সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলার বাংলাবাজার আমবাড়িতে ওয়াজ মাহফিলে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে মোজাম্মেল হোসেন নামে এক মাদ্রাসা ছাত্র নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন অন্তত ৫০ জন। গতকাল সোমবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে সংঘর্ষের এ ঘটনা ঘটে। নিহত মোজাম্মেল হোসেন উপজেলার হরিপুর মাদ্রাসার ছাত্র ছিলেন বলে জানা গেছে। জৈন্তাপুর থানার ওসি খান মো. ময়নুল জাকির জানান, আমবাড়িতে সোমবার রাতে একটি ওয়াজ মাহফিলের আয়োজন করে সুন্নি মতাদর্শের লোকজন। এক পর্যায়ে ওয়াজকে কেন্দ্র করে ওই সমাবেশের মধ্যে ওয়াহাবি মতাদর্শের লোকদের সঙ্গে সুন্নি মতাদর্শের লোকদের সংঘর্ষে আহত হয়ে ঘটনাস্থলেই নিহত হয় ওই ছাত্র। প্রায় চার ঘণ্টা ধরে এ সংঘর্ষ চলে। তবে পুলিশ আহতদের পরিচয় জানাতে পারেনি ওসি। একে// এআর

সেতু ভেঙে ট্রাক খাদে, নিহত ২

সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলায় বেইলি ব্রিজ ভেঙে একটি পণ্যবাহী ট্রাক খাদে পড়ে ২ জন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও একজন। শনিবার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত ২ জনের মধ্যে একজনের পরিচয় পাওয়া গেছে। তাঁর নাম আবুল হোসেন (২৫)। তাঁর বাড়ি ছাতক উপজেলার মোল্লাপাড়ায়। এ ছাড়া আহত একজনকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ছাতক থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আতিকুর রহমান জানান, সিলেট থেকে পণ্যবাহী একটি ট্রাক দোয়ারাবাজার আসার পথে রাত একটার দিকে দোয়ারাবাজার সড়কের লক্ষ্মীবাওর এলাকায় বেইলি সেতুটি ভেঙে খাদে পড়ে যায় ট্রাকটি। ট্রাকটিতে তিনজন ছিলেন। এতে ঘটনাস্থলেই ট্রাকের চালক ও সহকারী নিহত হন। একে// এআর

হবিগঞ্জে ছুরিকাঘাতে যুবক নিহত

হবিগঞ্জ শহরের কামড়াপুরে পাওনা টাকা নিয়ে বিরোধের জের ধরে ছুরিকাঘাতে রাসেল মিয়া (২৫) নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে স্থানীয় সূত্র। গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত রাসেল বানিয়াচং উপজেলার নয়াপাথারিয়া গ্রামের বাসিন্দা মৃত লাল মিয়ার ছেলে বলে জানা গেছে। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, পাওনা টাকা নিয়ে রাসেল এবং সোহাগের মধ্যে কিছুদিন ধরে বিরোধ চলছিল। গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় শহরের কামড়াপুরে খোয়াই নদীর এমএ রব ব্রিজ এলাকায় বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়ার এক পর্যায়ে তারা উত্তেজিত হয়ে একে অপরকে ছুরিকাঘাত করেন। এতে উভয়েই গুরুতর আহত হলে তাৎক্ষণিকভাবে স্থানীয় লোকজন এগিয়ে তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাতে রাসেল মিয়া মারা যান। হবিগঞ্জ সদর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. ইয়াছিনুল হক জানান, রাসেল এবং আহত সোহাগ দুজনই মাদকাসক্ত। তাদের মধ্যে লেনদেন বা অন্য কিছু নিয়ে হয়তো বিরোধ চলছিল। আর এর জের ধরেই এ হত্যাকাণ্ড ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে মনে হচ্ছে। তবে প্রকৃত কারণ অনুসন্ধানে চেষ্টা চলছে। এছাড়া আহত সোহাগের বিরুদ্ধে সদর থানায় ২/৩টা মামলা রয়েছে বলে জানান ইয়াছিনুল হক। একে/

একুশের আলপনায় সড়ক রাঙালো র্অধশত অটিস্টিক শিশু

অনাথ ও অটিস্টিক শিশুরা সমাজের বোঝা নয়, বরং তারাও এদেশের নাগরিক, সমাজের অংশ এবং সম্পদ। আলপনায় সড়ক রঙিন করে সিলেটে প্রতিভার স্বাক্ষর রেখেছে এমন র্অধশত অটিস্টিক শিশু। মহান একুশে ফেব্রুয়ারি উপলক্ষে সিলেটের বাগবাড়ি সমাজকল্যাণ কমপ্লেক্সের ভিতরে প্রায় এক কিলোমিটার পাকা রাস্তাজুড়ে আলপনায় রঙিন করে দিয়েছে এসব শিশুরা। অনাথ ও অটিস্টিক শিশুদের উদ্যমী এই কর্মকাণ্ডকে উৎসাহ দিতে এই কাজে অর্থায়ন করেন সিলেটের জেলা প্রশাসক মো. রাহাত আনোয়ার। সিলেট জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ে ইনক্লুসিভ স্কুলে অধ্যয়নরত ৪০ জন অনাথ ছাত্র এবং সিলেট আর্ট  এন্ড অটিস্টিক স্কুলের ১০ জনসহ মোট ৫০ জন ছাত্র এ আলপনা আঁকায় অংশ নেয়। আলপনা  আঁকার সার্বিক  দিক  নির্দেশনায় ছিলেন সিলেট আর্ট এন্ড অটিস্টিক স্কুলে সদস্য সচিব তুলি শিল্পী ইসমাইল গনি হিমন। মঙ্গলবার বিকেলে এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন সিলেটের জেলা প্রশাসক রাহাত আনোয়ার। এ সময় তিনি আলপনা আঁকা পুরো রাস্তাটি ঘুরে দেখেন এবং আলপনা আঁকার সাথে সম্পৃক্ত অনাথ ও অটিস্টিক শিশুদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন সিলেট বিভাগ সমাজসেবা কার্যালয়ের পরিচালক সৈয়দা ফেরদৌস আক্তার, সিলেটের  অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. শহিদুল ইসলাম, সিলেট  জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের  উপ-পরচিালক নিবাস  রঞ্জন দাস। কেআই/টিকে

সিলেটে ১২ দিনব্যাপী নাট্যোৎসব শুরু বৃহস্পতিবার

সম্মিলিত নাট্য পরিষদ সিলেট শাখার আয়োজনে ১২ দিনব্যাপী নাট্যোৎসব শুরু হবে আগামীকাল বৃহস্পতিবার থেকে। নগরীর রিকাবীবাজারস্থ কবি নজরুল অডিটোরিয়াম মুক্তমঞ্চে বিকেল ৫টায় নাট্য প্রদর্শনীর উদ্বোধন করবেন স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শব্দ সৈনিক ও সংগীত পরিচালক, একুশে পদকপ্রাপ্ত গুণী ব্যক্তিত্ব সুজেয় শ্যাম। উদ্বোধন অনুষ্ঠানে নাট্য পরিষদ গুণীজন সম্মাননা প্রদান করা হবে। সম্মাননা পাবেন নাট্যাঙ্গনের বিশেষ অবদানের জন্য (মরণোত্তর) মোমিন উদ্দিন ভূঁইয়া (সুরুজ), সাংস্কৃতিক অঙ্গনে বিশেষ অবদানের জন্য প্রবীণ সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব থোকচোম অনিল কিষণ সিংহ। সিলেট সিটি কর্পোরেশনের সহযোগিতায় নাট্য প্রদর্শনী আগামী ৫ মার্চ পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে। প্রতিদিন সন্ধ্যা ৭টায় কবি নজরুল অডিটোরিয়াম মঞ্চে সিলেটের নাট্যমোদী দর্শকরা হল কাউন্টার থেকে প্রবেশপত্র সংগ্রহ করে নাটক দেখতে পারবেন। উদ্বোধনী দিন নবশিখা নাট্যদলের প্রযোজনায় ‘কবর’, ২৩ ফেব্রুয়ারি কথাকলি সিলেট প্রযোজনায় ‘দুর্ব্বিনশাহ’, ২৪ ফেব্রুয়ারি নাট্যমঞ্চ সিলেট প্রযোজনায় ‘বধ্যভূমিতে শেষদৃশ্য’, ২৫ ফেব্রুয়ারি নান্দিক নাট্যদল, সিলেট প্রযোজনায় ‘হাসন রাজা’, ২৬ ফেব্রুয়ারি নাট্যালোক সিলেট (সুরমা) প্রযোজনায় ‘মুল্লুক’, ২৭ ফেব্রুয়ারি থিয়েটার বাংলা, সিলেট প্রযোজনা ‘এই রোদ এই বৃষ্টি’, ২৮ ফেব্রুয়ারি থিয়েটার মুরারিচাঁদ প্রযোজনায় ‘রঙমহাল’, ১ মার্চ নাট্যনিকেতন সিলেট এর প্রযোজনায় ‘ভূমিকন্যা’, ২ মার্চ নাট্যালোক সিলেট (আম্বরখানা) প্রযোজনায় ‘এখন দুঃসময়’, ৩ মার্চ লিটল থিয়েটার, সিলেট প্রযোজনায় ‘ভাইবে রাধারমণ’, ৪ মার্চ দিগন্ত থিয়েটার সিলেট প্রযোজনায় ‘পেজগী’নাটক মঞ্চস্থ হবে। উৎসবের শেষ দিন ৫ মার্চ মঞ্চস্থ হবে দর্পণ থিয়েটার সিলেট প্রযোজনায় ‘হট্টমালার ওপারে’।   আর

হবিগঞ্জে বিএনপির ২০ নেতা-কর্মী গুলিবিদ্ধ

দুর্নীতি মামলায় দণ্ডিত দলীয় চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে হবিগঞ্জে বিএনপির বিক্ষোভ পুলিশ গুলি ছোঁড়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এতে বিএনপির ২০ নেতা–কর্মী গুলিবিদ্ধ হয়েছেন বলে দাবি করেছে জেলা বিএনপি। হবিগঞ্জ বিএনপির নেতাকর্মীদের দাবি, জেলা বিএনপি কার্যালয় থেকে বেলা ১১ টার দিকে মিছিল নিয়ে বের হয়ে মিছিলটি শহরের শায়েস্তানগর এলাকায় পৌঁছালে পুলিশ তাঁদের বাধা দেয়। এ নিয়ে পুলিশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে হবিগঞ্জ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র জিকে গউছের বাগ্‌বিতণ্ডা হয়। এ সময় পুলিশ জিকে গউছকে লাঞ্ছিত করলে উপস্থিত নেতাকর্মীরা উত্তেজিত হয়ে পড়েন। উত্তেজিত কর্মীদের ওপর পুলিশ উপর শটগানের গুলি ছোড়ে। এতে ২০ জন গুলিবিদ্ধ হন। মেয়র জিকে গউছ দাবি করেন, পুলিশ তাঁর গায়ে হাত তোলা ছাড়াও বিনা উসকানিতে তাঁদের মিছিলে অতর্কিতভাবে গুলি চালিয়েছে। হবিগঞ্জ অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আয়াতুন্নবী জানান, পুলিশ অহেতুক হামলা চালায়নি। পুলিশকে উদ্দেশ্য করে বিএনপি নেতাকর্মীরাই প্রথমে হামলা চালায়। পরে আত্মরক্ষার্থে পুলিশ গুলি ছুড়েছে। একে// এআর

সিলেটের মাঠে বিশেষ কয়েনে টস

সিলেটের মাটিতে টাইগারদের প্রথম ম্যাচকে স্মরণীয় করে রাখতে এই প্রথম বারের মতো আনা হয় বিশেষ কয়েন। সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে এ পর্যন্ত ৬টি আন্তর্জাতিক ম্যাচ অনুষ্ঠিত হলেও একটিতেও খেলেনি টাইগাররা। তাই শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে শেষ টি-২০ ম্যাচকে স্মরণীয় করে রাখতে বিশেষ কয়েনের মাধ্যমে টসের ব্যবস্থা করা হয়। বিশেষ ওই কয়েনে বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কা দলের লোগো ব্যবহার করা হয়েছে। বিশেষ ওই কয়েনটি দেখতে অনেকটা সোনালী রংয়ের। রোববার বিকেল সাড়ে ৪টায় এই বিশেষ কয়েনের মাধ্যমে টস দেন বাংলাদেশের অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ ও শ্রীলংকার দলপতি দিনেশ চান্ডিমাল। বিশেষ কয়েনে ভাগ্যও যায় বাংলাদেশের অনুকূলে। শুধু তাই নয়, এই বিশেষ কয়েনে টসে জিতে ইতিহাসে প্রথমবারের মতো নাম লেখান মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। উল্লেখ্য, ২০১৪ সালের টি-২০ বিশ্বকাপের গ্রু পর্বের ম্যাচ দিয়ে ক্রিকেট জগতে পথচলা শুরু হয় সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেঠ স্টেডিয়ামের। ওই বিশ্বকাপে ছয়টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়েছিলো সেখানে। এরপর এই ভেন্যুতে আর কোন আন্তর্জাতিক ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়নি। প্রায় ৪ বছর পর আবারও সিলেটের মাটিতে অনুষ্ঠিত হয়েছে আন্তর্জাতিক ম্যাচ। আর এই ম্যাচেই অভিষেক হলো বাংলাদেশ দলের। দর্শকছাড়াও আয়োজকদের মধ্যে ছিল ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা। তাই এ ম্যাচকে স্মরণীয় করে রাখতে বেশ কিছু উদ্যোগ নেয় সিলেট বিভাগীয় জেলা ক্রীড়া সংস্থা। এর মধ্যে বিশেষ কয়েন দিয়ে টসের ব্যবস্থা করা হয় বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক ও সিলেট বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল। এদিকে কয়েনটি সংরক্ষণ করা হবে বলেও তিনি সাংবাদিকদের জানান। শফিউল আলম বলেন, বিশেষ এ কয়েনে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) ও শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট (এসএলসি)-এর লোগো ব্যবহার করা হয়েছে। এছাড়া এ ম্যাচের খেলোয়াড়দের জন্য দুই দলের অধিনায়কের হাতে স্মারক তুলে দেন তিনি। এমএইচ/ এমজে

© ২০১৮ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি