ঢাকা, রবিবার   ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯, || অগ্রাহায়ণ ২৪ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

অতিরিক্ত সচিব জাকিরের জামিনের জিম্মাদার হলেন নির্যাতিত স্ত্রী

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১২:৩৭ ২ ডিসেম্বর ২০১৯

স্ত্রী নির্যাতনের মামলায় জামিন পেয়েছেন অতিরিক্ত সচিব ডা. জাকির হোসেন। গতকাল রোববার ঢাকা মহানগর হাকিম শাহিনুর রহমান এক হাজার টাকা মুচলেকায় স্ত্রী ডা. ফাতেমা জাহানের জিম্মায় জামিন মঞ্জুর করেন।

ডা. ফাতেমা আদালতে উপস্থিত হয়ে বিচারককে বলেন, আমাদের মধ্যে আপস-মীমাংসা হয়েছে। আমরা আবার সংসার করব। আমার স্বামীকে জামিন দিন। ডা. জাকির জামিন পেলে আমার কোনও আপত্তি নেই। পরে শুনানি শেষে বিচারক তার জামিন মঞ্জুর করেন।

মামলা করে জামিনের জিম্মাদার হওয়ার বিষয়ে ফাতেমা জাহান বারী গণমাধ্যমকে বলেন, তার বাবা-মা তাকে বিয়ে দিয়েছিলেন। তারা এখন অসুস্থ। তাদের অনুরোধে তিনি স্বামীকে একটি সুযোগ দিতে চান। সে জন্যই জিম্মাদার হয়েছেন।

ডা. ফাতেমা আরও বলেন, জাকিরকে তিনি ১৫-২০টি শর্ত দিয়েছেন। প্রতিটি শর্ত মেনে নেয়ায় তিনি জিম্মাদার হয়েছেন। তবে মামলা তিনি প্রত্যাহার করবেন না।

এর আগে স্বামীর নির্যাতনের পর শনিবার রাতে জাতীয় জরুরি সেবার হটলাইন ‘৯৯৯’ ফোন করেন ডা. ফাতেমা। এরপর রাত সাড়ে ৭টার দিকে পুলিশের একটি টিম বেইলি রোডের সুপিরিয়র সরকারি কোয়ার্টারে অভিযান চালিয়ে আহত অবস্থায় ডা. ফাতেমাকে উদ্ধার করে। সেখান থেকে পরে তাকে রাতেই ভর্তি করা হয় ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি)।

পরে ফাতেমা তার স্বামীর বিরুদ্ধে রমনা থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করলে ডা. জাকিরকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা রমনা থানার এসআই নিশাত জাহান বলেন, ডা. ফাতেমার অভিযোগের ব্যাপারে তার স্বামীর বক্তব্য রেকর্ড করা হয়েছে। এ ছাড়া মামলার এজাহারের বাইরে ফাতেমার আরও কোনও বক্তব্য রয়েছে কি-না তাও জানতে চাওয়া হয়। সব সাক্ষ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে তদন্ত চলছে। তদন্ত শেষে আদালতে চার্জশিট পেশ করা হবে।

নির্যাতনের শিকার জাকিরের স্ত্রী ফাতেমা জাহান বারী একজন চিকিৎসক। তিনি এক সময় পুলিশ হাসপাতালে কর্মরত ছিলেন। এখন স্বাস্থ্য অধিদফতরে রয়েছেন। আর ডা. জাকির বর্তমানে বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওএসডি) হিসেবে জনপ্রশাসনে মন্ত্রণালয়ে সংযুক্ত রয়েছেন। গত বছরের ১০ ডিসেম্বর তাদের বিয়ে হয়।

একে//

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি