ঢাকা, রবিবার   ১৩ জুন ২০২১, || জ্যৈষ্ঠ ২৯ ১৪২৮

আপামর জনতার জন্য নিজেকে বিপন্ন করে দেওয়া প্রাণ

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১১:০৯, ১৭ মে ২০২১

স্বৈরাচারবিরোধী তৎপরতার কারণে শেখ হাসিনাকে জনগণের থেকে দূরে সরিয়ে রাখার ষড়যন্ত্র হয়। ১৯৮৩ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি সামরিক সরকার তাকে আটক করে ১৫ দিন অন্তরীণ রাখে। ১৯৮৪ সালের ফেব্রুয়ারি এবং নভেম্বর মাসে তাকে দুবার গৃহবন্দি করা হয়। ১৯৮৫ সালের ২রা মার্চ তাকে আটক করে প্রায় ৩ মাস গৃহবন্দি করে রাখা হয়। ১৯৮৬ সালের ১৫ অক্টোবর থেকে তিনি ১৫ দিন গৃহবন্দি ছিলেন। ১৯৮৭ সালে ১১ নভেম্বর তাকে গ্রেফতার করে এক মাস অন্তরীণ রাখা হয়। ১৯৮৯ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি শেখ হাসিনা গ্রেফতার হয়ে গৃহবন্দি হন। ১৯৯০ সালে ২৭ নভেম্বর শেখ হাসিনাকে বঙ্গবন্ধু ভবনে অন্তরীণ করা হয়। এতো কিছুর করেও দমিয়ে রাখা যায়নি তাকে।

অদম্য নেত্রীকে বন্দি করেই থেমে থাকেনি তারা। গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের দুর্বার আন্দোলন আন্দোলন থামিয়ে দিতে গণতন্ত্রের মানসকন্যা শেখ হাসিনাকে অজস্রবার রাষ্ট্রীয় মদতে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে। ১৯৮৭ সালের ১০ নভেম্বর সচিবালয় ঘেরাও কর্মসূচি পালনকালে তাকে লক্ষ্য করে পুলিশ গুলিবর্ষণ করে। এসময় কয়েকজন নিহত হন। জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে তাকেসহ তার গাড়ি ক্রেন দিয়ে তুলে নেওয়ার চেষ্টা করা হয়েছে। ১৯৮৮ সালের ২৪ জানুয়ারি চট্টগ্রাম কোর্ট বিল্ডিংয়ের সামনে শেখ হাসিনাকে লক্ষ্য করে সরকারের পুলিশ বাহিনী লাঠিচার্জ ও গুলিবর্ষণ করে। এসময় ৩০ জন আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী শহীদ হন। লালদীঘি ময়দানে ভাষণদানকালে তাকে লক্ষ্য করে দুবার গুলি বর্ষণ করা হয়। জনসভা শেষে ফেরার পথে আবারও তার গাড়ি লক্ষ্য করে গুলি ছোড়া হয়। কিন্তু বঙ্গবন্ধুকন্যা ভয় পেয়ে পিছিয়ে যাননি। নিজের প্রাণের মায়া উপেক্ষা করে জনগণের ভোট ও ভাতের অধিকার ফিরিয়ে আনতে: গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের সংগ্রামে অটল থেকেছেন তিনি।

তার নেতৃত্বেই ১৯৯১ সালের জাতীয় নির্বাচনে অংশ নেয় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। ওই নির্বাচনে কোনও দল এককভাবে সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করেনি। স্বাধীনতাবিরোধী জামায়াতের সমর্থন নিয়ে সরকার গঠন করার নীতিগত সিদ্ধান্তের কারণে প্রধান বিরোধীদলের আসনে বসে আওয়ামী লীগ। পঞ্চম জাতীয় সংসদের বিরোধী দলের নেতা নির্বাচিত হন জননেত্রী শেখ হাসিনা। ক্ষমতার মোহে না ভুলে, শক্তিশালী গণতন্ত্রের লক্ষ্যে জনগণের জন্য কাজ করার ব্রত নিয়ে বঙ্গবন্ধুকন্যা থেকে যান রাজপথে। দেশের প্রধান বিরোধীদলীয় নেত্রী হওয়ার পরও শেখ হাসিনাকে হত্যার জন্য বারবার হামলা করা হয়েছে। ১৯৯১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর জাতীয় সংসদের উপ-নির্বাচন চলাকালে তাকে লক্ষ করে গুলিবর্ষণ করা হয়। ১৯৯৪ সালে ঈশ্বরদী রেল স্টেশনে তার কামরা লক্ষ্য করে অবিরাম গুলি ছোড়া হয়। তবুও মানুষের ভোট ও ভাতের অধিকার আদায়ে কখনও পিছপা হননি শেখ হাসিনা।

পরবর্তীতে ১৯৯৬ সালের ফ্রেব্রুয়ারিতে বিএনপির ভোটারবিহীন নির্বাচনের বিরুদ্ধে তিনি গণআন্দোলন গড়ে তোলেন। এই আন্দোলনের মুখে ৩০ মার্চ তৎকালীন খালেদা জিয়ার সরকার পদত্যাগে বাধ্য হয়। শেখ হাসিনার আপোষহীন কঠোর অবস্থানের কারণেই জনগণ ফের ভোটের অধিকার ফিরে পায় এবং সেবছরই জুন মাসে অনুষ্ঠিত সপ্তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তার নেতৃত্বে ১৪৬ আসনে জয় লাভ করে সরকার গঠন করে আওয়ামী লীগ। আবার শুরু হয় অগ্রযাত্রা। প্রধানমন্ত্রী হয়েই, দীর্ঘদিন ধরে অমীমাংসিত থাকা গঙ্গা-পদ্মা নদীর পানি বণ্টনে ৩০ বছর মেয়াদি চুক্তি করেন তিনি। পরের বছর পার্বত্য শান্তি চুক্তি সম্পাদিত করেন, ফলে কয়েক দশক ধরে চলমান চট্টগ্রামের পাহাড়ি অঞ্চলের উত্তেজনা প্রশমিত হয়। ১৯৯৮ সালের বন্যার সময় তার সরকার দুই কোটি বন্যাদুর্গত মানুষকে বিনামূল্যে খাদ্য প্রদান করে। এসব ঘটনার পরম্পরায় বিশ্ব গণতন্ত্রের শীর্ষ নেতাদের কাতারে উচ্চারিত হতে থাকে তার নাম। তবুও থেমে থাকেনি ষঢ়যন্ত্র। ২০০০ সালে ফের এক জনসভাকে কেন্দ্র করে তাকে হত্যার পরিকল্পনা করা হয়। বিএনপি-জামায়াত জঙ্গিদের নেতৃত্বে কোটালীপাড়ায় হেলিপ্যাডে এবং সেখানকার জনসভাস্থলে ৭৬ কেজি ও ৮৪ কেজি ওজনের দুটি বোমা পুঁতে রাখা হয়। ঘটনাস্থলে পৌঁছার পূর্বেই বোমাগুলো শনাক্ত হওয়ায় প্রাণে বেঁচে যান শেখ হাসিনা।

২০০১ সালের নির্বাচনে জনপ্রিয় ভোট বেশি পেয়েও, শুধু আসন সংখ্যা কম হওয়ায় সরকার গঠন করতে পারেনি আওয়ামী লীগ। আবারও বিরোধীদলীয় নেত্রী হন শেখ হাসিনা। এবার বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসের অভয়ারণ্যে পরিণত করে দেশকে। মন্ত্রিত্ব পান যুদ্ধপরাধীরা। হত্যা করা হয় শেখ হাসিনার আস্থাভাজন দুজন জনপ্রিয় সংসদ সদস্যকে। দেশজুড়ে ৬৪ জেলায় চালানো হয় বোমা হামলা। এমনকি ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ের সন্ত্রাসবিরোধী জনসভায় শেখ হাসিনাকে হত্যার জন্য এক ডজনেরও বেশি আর্জেস গ্রেনেড হামলা ও গুলি চালানো হয়। এই ঘটনায় নিহত হন ২২ জন। শেখ হাসিনা নিজেও আহত হন। কিন্তু যার বুকে জেগে থাকে বাংলাদেশ, তাকে থমকে দেওয়া সহজ নয়। গণতন্ত্রের অতন্দ্র প্রহরী হয়ে তিনি অনঢ় থাকলেন।
সূত্র : বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ওয়েবসাইট
এসএ/
 


Ekushey Television Ltd.

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি