ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, || আশ্বিন ৪ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

কৃত্রিম মোটাতাজা গরু চেনার উপায় ও স্বাস্থ্যঝুঁকি

প্রকাশিত : ১৬:০২ ১৩ আগস্ট ২০১৮ | আপডেট: ১৬:০০ ১৬ আগস্ট ২০১৮

সামনের পবিত্র ঈদুল আজহা। এই ঈদের প্রধান আকর্ষণ হল কোরবানি। কোরবানি উপলক্ষে ইতোমধ্যে দেশের বিভিন্ন স্থানে বসেছে পশুর হাট। প্রস্তুত রাজধানীর পশুরহাটগুলো। ইতোমধ্যে দেশের বিভিন্ন স্থানে গরু, মহিষ, ছাগল, ভেড়া, দুম্বা বেচাকেনায় ধুম পড়েছে। অনেকে রাজধানীর হাটগুলোয় গবাদিপশু নিয়ে আসার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

আমাদের দেশে কোরবানিতে প্রধান্য পায় গরু। গরু দিয়েই কোরবানির চাহিদা মিটে থাকে। এই সুযোগে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী গো খাদ্যের সঙ্গে মোটাতাজাকরণ সামগ্রী মিশিয়ে খাইয়ে গরু ফুলিয়ে ফাপিয়ে বড় করে তোলো। তারা বাড়তি মুনাফার আশায় অল্পদিনের মধ্যে গরু মোটাতাজা করতে গো-খাদ্যের সঙ্গে বিভিন্ন ধরনের ট্যাবলেট ব্যবহার করে। মাংসপেশিতে প্রয়োগ করে নিষিদ্ধ ইনজেকশন, যা গরু ও জনস্বাস্থ্য উভয়ের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর।

এবিষয় জানতে চাইলে প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের মহাপরিচালক (ডিজি) ডাঃ হীরেশ রঞ্জন ভৌমিক একুশে টিভি অনলাইনকে বলেন, এবার কোরবানি দেওয়ার জন্য ১ কোটি ১৫ লাখ ৮৯ হাজার গবাদিপশু তৈরি রয়েছে। যা গত বছরের তুলনায় ৫ শতাংশ বেশি। তিনি বলেন, আমাদের দেশের চাহিদা অনুযায়ী যদি গবাদিপশু প্রস্তুত করতে পারি তাহলে কৃত্রিম উপায়ে গরু মোটাতাজা করার প্রয়োজন হবে না। গো-খাদ্যে স্টেরয়েড ও রাসায়নিক মেশানো প্রতিরোধে আসন্ন ঈদে সব পশুর হাটে প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের ভেটেরিনারি মেডিকেল টিম মনিটর করবে। তিনি জানান, ঈদকে সামনে রেখে অসাধু উপায়ে কেউ যাতে গরু হৃষ্টপুষ্ট করতে স্টেরয়েড মেশাতে না পারে সেজন্য মনিটরিংয়ের পাশাপাশি আইন ও বিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

কৃত্রিমভাবে মোটাতাজা করণ গুরু বিভাবে চেনা যাবে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, কৃত্রিমভাবে গরুর মাংসপেশিতে ভারতীয় ডেক্সামেথাসন ইনজেকশন প্রয়োগ করা হয় এবং খাওয়ানো হয় স্টেরয়েড গ্রুপের বিভিন্ন ট্যাবলেট। গরুর প্রস্রাব বন্ধ হয়ে যায় এ ট্যাবলেট খাওয়ালে। এর ফলে শরীরে পানি জমতে শুরু করে। ফলে গরু মোটাতাজা দেখায়। এ গরু নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে জবাই না করলে মারা যেতে পারে অথবা এর গোশত কমতে পারে। এমন গরুর গোশত খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য খুবই ক্ষতিকর। এসব ওষুধ তীব্র তাপেও নষ্ট হয় না। ফলে মানবদেহে দীর্ঘমেয়াদি প্রভাব ফেলে। এ ধরনের গরুর গোশত খেলে মানুষের কিডনি, লিভারসহ বিভিন্ন অঙ্গ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এমনকি ক্যান্সার পর্যন্ত হতে পারে।

তিনি জানান, স্টেরয়েড গ্রুপের ট্যাবলেট খাওয়ানো বা ডেক্সামেথাসন জাতীয় ইনজেকশন দেওয়া গরু খুব শান্ত হয়। ঠিকমতো চলাফেরা করতে পারে না। গরুর ঊরু অনেক বেশি মাংসল মনে হয়। অতিরিক্ত হরমোনের কারণে পুরো শরীরে পানি জমে মোটা দেখায়। আঙুল দিয়ে গরুর শরীরে চাপ দিলে দেবে গিয়ে গর্ত হয়ে যায়। গরুর শ্বাস-প্রশ্বাস দেখেও গরুকে ট্যাবলেট খাওয়ানো হয়েছে কি না তা নিশ্চিত হওয়া সম্ভব। ট্যাবলেট খাওয়ানো হলে গরু দ্রুত শ্বাস-প্রশ্বাস ফেলে। গরুকে খুব ক্লান্ত দেখা যায় আর সারাক্ষণ হাঁপাতে থাকে। গরুর মুখে অতিরিক্ত লালা বা ফেনা লেগে থাকাও কৃত্রিম উপায়ে গরুকে মোটা করার আরেকটি লক্ষণ।

 প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের মহাপরিচালক (ডিজি) ডাঃ হীরেশ রঞ্জন ভৌমিক আরও জানান, গত বছর মোটাতাজা করা গরুর প্রতি মানুষের ঝোঁক কম ছিল। এবার প্রাণিসম্পদ বিভাগ ও গোয়েন্দা সংস্থার কর্মীদের নজরদারির কারণে গরু মোটাতাজাকরণ কম হয়েছে। খামারিরা অনেকে বিজ্ঞানসম্মত উপায়ে গরু মোটাতাজা করেছেন। তিনি আরও বলেন, গরু মোটাতাজাকরণের ক্ষেত্রে খামারি ও সাধারণ মানুষকে সচেতন করা হয়েছে।

কৃত্রিমভাবে মোটাতাজা করা গরুর মাংস মানবশরীরে কি প্রভাব ফেলে জানতে চাইলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিসিন অনুষদের ডীন অধ্যাপক ডা. এবিএম আবদুল্লাহ একুশে টিভি অনলাইনকে বলেন, ক্ষতিকারক ওষুধ খাওয়ানো হলে গরুর মাংস রান্নার পরও তার অবশেষ রয়ে যায়। ফলে ওষুধের অবশেষ অংশ মানবদেহে জমা হওয়ায় মানুষের বিপাক ক্রিয়া কমে যায়। ক্ষতিকারক ওষুধ ব্যবহার করে মোটাতাজা করা গরুর মাংস খেলে মানুষের কিডনি, লিভারসহ বিভিন্ন অঙ্গ ক্ষতিগ্রস্ত ও রোগ দেখা দেওয়ার আশঙ্কা থাকে। এছাড়া যাদের রক্তচাপ ও রক্তে সুগারের মাত্রা বিপদসীমার কাছাকাছি, তাদেরও স্বাস্থ্যঝুঁকি বেড়ে যায়। ক্ষতিকর ওষুধ ব্যবহার করে মোটাতাজা করা গরু বয়সের তুলনায় অস্বাভাবিক মোটা হয়। এ ধরনের গরু ভালো করে হাঁটতে পারে না, ঝিমায়। এগুলো খেলে নিজেদের স্বাস্থ্য নানা ধরনের সমস্যা দেখা দেয়।

টিআর/ এআর

 

 

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি