ঢাকা, সোমবার   ২২ জুলাই ২০১৯, || শ্রাবণ ৭ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

চেরী ব্লোসমস স্কুলে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন

প্রকাশিত : ২৩:৫৬ ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

যথাযথ ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করেছে চেরী ব্লোসমস ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এন্ড কলেজ।

বৃহস্পতিবার (২১ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর মিরপুরে সকালে শিশুদের নির্মিত শহীদ মিনারে ভাষা শহীদের প্রতি ফুলেল শ্রদ্ধা জানায় স্কুলের শিক্ষার্থীরা। এ সময় তারা একুশের চেতনায় দেশ গড়ার শপথ নেয়।

দিনব্যাপী নানান আয়োজনের মধ্যে ছিল বিকেলে চেরী ব্লোসমস ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এন্ড কলেজ ও সোনালি মিডিয়া ফোরামের উদ্যোগে `আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের গুরুত্ব শীর্ষক আলোচনা সভা। অনুষ্ঠানে শহীদদের আত্মার প্রতি শান্তি কামনা করে দোয়া করা হয়। 

আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল বায়েস খান। এতে প্রধান আলোচক ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা আলী হায়দার চৌধুরী বাবলু।

অনুষ্ঠানের প্রধান আলোচক মুক্তিযোদ্ধা আলী হায়দার চৌধুরী বাবলু বলেন, ‘ বাহান্ন’র ভাষা আন্দোলনের ভিত্তির উপর আমাদের স্বাধীনতা এসেছে। ভাষা আন্দোলনে বাঙালি রক্ত দিয়ে প্রমাণ করেছে যেকোনো অপশক্তিকে কীভাবে মোকাবেলা করতে হয়। আর এই ভাষা-সংগ্রামের আন্দোলনের মধ্য দিয়েই স্বাধীনতার স্বপ্নকে বাঙালির অস্তিত্বে জাগ্রত করেছিল স্বাধীনতার মহানায়ক ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান’।

১৯৯৯ সালে বাংলাকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের স্বীকৃতি আদায় করতে যে দু’জন বাঙালি অবদান রেখেছিলেন (সালাম ও রফিক) এই দু’জনের সঙ্গে মুক্তিযুদ্ধের সময় ভারতের দেরাদুনে এক সঙ্গে প্রশিক্ষণ নিয়েছিলাম। আমি তাদের তখন থেকেই ছিনি। তাদের রক্তে আদর্শে ঝলকানি দেখেছিলাম। পরবর্তী সময়ে তারা বাহান্ন ও একাত্তরের চেতনা বুকে ধারণ করেই বাংলা ভাষাকে জাতিসংঘের স্বীকৃতি আদায়ের জন্য জাতিসংঘে প্রস্তাব তুলেছিল। তাহলে বুঝতে হবে তারা কতখানি দেশপ্রেম ধারণ করলে এমন অবদান রাখতে পারে।

তিনি আরও বলেন, বাংলা অত্যন্ত সমৃদ্ধ একটি ভাষা। আমাদের ভাষাকে বিশ্ব দরবারে পৌঁছে দিতে ভাষার ইতিহাস ঐতিহ্য জানতে হবে। কেননা পৃথিবীতে একটি জাতি আছে যারা ভাষার জন্য রক্ত দিয়েছে। এই ভাষা অনন্য একটি ভাষা,রক্তের দামে কেনা। তাই আগামি প্রজন্মকে বাংলা ভাষার সঠিক ইতিহাস জানতে হবে তাহলেই বায়ান্ন ও একাত্তরের চেতনায় শাণিত হতে পারবে। কোন অপসংস্কৃতি যেন আমাদের ভাষা- মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে গ্রাস করতে না পারে সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। তাহলেই সালাম জব্বার রফিক সফিকের রক্ত বৃথা যাবে না।’

চেরী ব্লসমস ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এন্ড কলেজের প্রিন্সিপাল ও চেয়ারম্যান ড. সালেহা কাদের বলেন, অনেক ত্যাগের আর শহীদের রক্তের দামে কেনা আমাদের মায়ের ভাষা। আগামিতে যোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে হলে অবশ্যই শিশুদের ভাষা আন্দোলনের সঠিক ইতিহাস ও ঐতিহ্য আগামি প্রজন্মকে জানাতে হবে।

সেই সাথে একুশের চেতনা বুকে ধারণ করেই বাংলাকে বিশ্ব দরবারে পৌঁছে দিতে হবে। আমি সেই লক্ষে শিশুদেরকে স্কুলে পালাগান, পুঁথিপাঠ শেখাচ্ছি। যাতে করে শিশুর আবেগ অনুভূতির সঙ্গে বাংলা সংস্কৃতির পরিচয় ঘটে।’  

আক্তারুজ্জামান মোহাম্মদ মহসিনের সঞ্চালনায় বক্তব্য ভাষা দিবসের উপর আলোচনা করেন, কাজী আসজাদ হোসেন সাইমন, কাজী ইফতেখারুল আলম তারেক, কাজী মঞ্জুরুল আলম, আরিফ আলী,শাহাদাৎ হোসেন আশরাফ, মাসুম বিল্লাহ, ড. সালেহা কাদের, মুক্তিযোদ্ধা কামাল উদ্দিন প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, এ আর সোহেল, উৎপল মজুমদার, সুমন ইসলাম, তামজিদ হোসেন রাসেল, হুমায়ূন কবির প্রমুখ।

কেআই/

 

 

 

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি