ঢাকা, রবিবার   ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯, || অগ্রাহায়ণ ২৪ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

ছেলেধরা সন্দেহে হত্যা ফৌজদারি অপরাধ: পুলিশ

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ২৩:০২ ২০ জুলাই ২০১৯ | আপডেট: ২৩:০৮ ২০ জুলাই ২০১৯

ছেলে ধরা সন্দেহে গণপিটুনিতে হত্যা ফৌজদারী অপরাধ উল্লেখ করে পুলিশ সদর দফতর আইন নিজের হাতে তুলে না নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে।

আজ শনিবার বিকেলে পুলিশ সদর দফতর থেকে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বার্তায় এই আহ্বান জানানো হয়। পুলিশ সদর দফতরের এই বার্তায় বলা হয়, ছেলে ধরা সন্দেহে গণপিটুনিতে হত্যা ফৌজদারী অপরাধ। আইন নিজের হাতে তুলে নিবেন না।

সম্প্রতি দেশের কয়েকটি স্থানে ছেলেধরা সন্দেহে গণপিটুনির ঘটনার প্রেক্ষিতে পুলিশ সদর দফতর এই বার্তা পাঠিয়েছে। 
শনিবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে উত্তর বাড্ডার সরকারি প্রথমিক বিদ্যালয়ের সামনে শিশু চোর সন্দেহে তসলিমা বেগম রেনু (৪২) নামে এক নারীকে পিটিয়ে আহত করে স্থানীয়রা।

তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ওই নারীকে মৃত ঘোষণা করেন বলে বাড্ডা থানার পরিদর্শক (অপারেশন) ইয়াছিন গাজী জানান।

তিনি বলেন, প্রথমদিকে কালো বোরকা পরা এই নারীর পরিচয় পাওয়া যাচ্ছিল না। পরে তার এক স্বজন এসে পরিচয় নিশ্চিত করেন।

ওই স্বজন জানিয়েছেন, রেনুর দুই ছেলে-মেয়ে। মহাখালী এলাকায় থাকে। দুই বছর আগে স্বামী তসলিম হোসেনের সাথে তালাক হয়ে গেছে। দুই সন্তানের মধ্যে মেয়েটা তার কাছে থাকে। তার সন্তানদের স্কুলে ভর্তির ব্যাপারে খোঁজ নিতে স্কুলে গিয়েছিলেন বলে তার বোনের ছেলে নাসির উদ্দিন টিটো জানিয়েছন।

তসলিমার গ্রামের বাড়ি লক্মীপুরের রায়পুরে বলে জানান পুলিশ কর্মকর্তা ইয়াছিন। এই ঘটনায় তসলিমার ভাগ্নে টিটো কারও নাম উল্লেখ না করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

এই প্রেক্ষাপটে রাতে পুলিশ সদরদপ্তর থেকে পাঠানো বিবৃতিতে বলা হয়, “ছেলেধরা সন্দেহে গণপিটুনিতে হত্যা ফৌজদারি অপরাধ। আইন নিজের হাতে তুলে নিবেন না।”

আরকে/

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি