ঢাকা, বুধবার   ১৩ নভেম্বর ২০১৯, || কার্তিক ২৯ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

পদ বাড়ছে ১৭ হাজার

ঢেলে সাজানো হচ্ছে প্রাণিসম্পদ বিভাগ

প্রকাশিত : ১৭:২৬ ৩০ জুলাই ২০১৮ | আপডেট: ১১:৪৬ ১ আগস্ট ২০১৮

দেশের মানুষের আমিষের চাহিদা মেটাতে এবং পুষ্টির অভাব দূর করার উদ্যোগ নিচ্ছে সরকার। জনবল সংকটে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ে যে স্থবিরতা সৃষ্টি হয়েছে তা শিগগিরেই দূর হচ্ছে।

প্রযুক্তির আধুনিকায়ন, কৃত্রিম প্রজনন কার্যক্রম ইনস্টিটিউট অব লাইভস্টক সাইন্স অ্যান্ড টেকনোলোজি স্থাপন, হ্যাচারিসহ নানা ধরনের প্রকল্প হাতে নিয়েছে সরকার। এসব কাজ দক্ষতার সঙ্গে পরিচালনা করতে ঢেলে সাজানো হচ্ছে মন্ত্রণালয়। বাড়ানো হচ্ছে প্রাণিসম্পদ অধিদফতরে ১৬ হাজার ৯৭৯টি পদ।

এমন একটি খসড়া প্রস্তাবনা একনেক সভায় অনুমোদনের জন্য পাঠানো হয়েছে। এসব পদ অনুমোদন লাভের পর সৃষ্ট পদে লোক নিয়োগ করা হবে। নতুন জনবল কাঠামোয় ৭ হাজার ৫৭২টি কর্মকর্তার পদ এবং ১৮ হাজার ৮৬৯টি কর্মচারীর পদসহ মোট ২৬ হাজার ৪৪১টি পদ সৃজনের প্রস্তাব করা হয়েছে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণলয় সূত্র জানা গেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে প্রাণিসম্পদ অধিদফতরে মোট ১ হাজার ৬৯৫ জন কর্মকর্তা এবং ৭ হাজার ৭৬৭ জন কর্মচারীসহ মোট পদের সংখ্যা ৯ হাজার ৪৬২টি । তবে নতুন পদ বাড়লে একদিনে নতুন কিছু মানষের কর্মসংস্থান হবে। অন্যদিনে মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তরের অনেক পদ শূন্য হবে। প্রাণী সম্পদ অধিদপ্তর আর সমৃদ্ধি হবে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, আমাদের দেশের মতো জনবহুল রাষ্ট্রে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ একটি গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়। এখানে যে পরিমাণের জনবল প্রয়োজন সে পরিমাণে নেই। শুধুমাত্র জনবলের কারণে অনেক উন্নয়নমুলক কর্মকান্ড ব্যহত হচ্ছে। তবে নতুন জনবল নেওয়া কথায় একটু হলেও আশার আলো দেখছে সংশ্লিষ্টরা।

সূত্র জানায়, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের ১২টি প্রথম শ্রেণির, ১৪টি দ্বিতীয় শ্রেণির, ১১টি তৃতীয় শ্রেনির এবং ১১টি চতুর্থ শ্রেণিসহ মোট শূন্যপদের সংখ্যা ৪৮টি । এসব ১ম শ্রেণির ১২টি পদের মধ্যে ১০টি পদ জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের নিয়ন্ত্রণাধীন। অবশিষ্ট ৩৮টি শূন্যপদ নিয়োগ ও পদোন্নতির মাধ্যমে পূরণের কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। মৎস্য অধিদফতরের ক্যাডার পদে শূন্য পদের সংখ্যা ৬৭০টি । গত ৩৬তম বিসিএসে ৪৮ জন, ৩৭তম বিসিএসে ৮৩ জন এবং ৩৮তম বিসিএস মাধ্যমে ২০জন সর্বমোট ১৫১ জন কর্মকর্তার নিয়োগ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

এছাড়া ৩৯তম বিসিএসের মাধ্যমে নিয়োগের জন্য ৩৪৪টি পদের চাহিদা জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। নন-ক্যাডার ১৫৬টি পদ এবং দ্বিতীয় শ্রেণীর ২৯৩টি পদ শূন্য রয়েছে। নন-ক্যাডার শূন্যপদ পূরণের প্রস্তাব জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। বাংলাদেশ মৎস্য উন্নয়ন কর্পোরেশনের বিদ্যমান জনবল কাঠামোয় ৭৩১টি পদের মধ্যে ২৫৬ জন কর্মরত আছেন এবং ৪৭৫টি পদ শূণ্য রয়েছে। এর মধ্যে ১৮টি ক্যাটাগারিতে ৫৩ জনের নিয়োগ কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব রইছউল আলম মণ্ডল একুশে টিভি অনলাইনকে বলেন, প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর আধুনিকায়ণ ও জনবল নিয়োগের জন্য একটি খসড়া প্রস্তাবনা প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর থেকে পাঠানো হয়েছে এটি বর্তমানে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। এছাড়া বর্তমান অর্গানোগ্রাম অনুযায়ী কর্মচারীদের শূন্যপদ পূরণে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় এবং এর আওতাধীন অধিদফতর/দফতর/সংস্থায় নিয়োগ কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে।

সূত্রে জানান, বাংলাদশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের সাংগঠনিক কাঠামোভুক্ত অনুমোদিত মোট পদের সংখ্যা ৪৫৭টি (গ্রেড-৩-গ্রেড২০)। এর মধ্যে পূরণকৃত পদের সংখ্যা ৩৫৭টি। অবশিষ্ট ১০০টি শূন্য পদ পূরণের প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে। মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের অনুমোদিত অর্গানোগ্রাম অনুযায়ী কর্মচারীদের শূন্যপদ পূরণের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা বলেন, বর্তমানে মন্ত্রণালয়ে অনেক শুন্য পদ রয়েছে। কিন্তু যথাসময় নিয়োগ না হাওয়ার কারণে মাঠ পর্যায়ে কাজ করতে গিয়ে অনেক সমস্যায় পড়তে হয়। নিয়োগেও অনেক ধীর গীতি রয়েছে।

তিনি বলেন, ২০১৭-২০১৮ অর্থ বছরে ৭০ হাজার ৪৮৯.২৭ হেক্টর জলাশয়ে ২৭৯.৮৮টন মাছের পোনা অবমুক্ত করা হয়েছে যার উল্লেখযোগ্য অংশ বর্ষা প্লাবিত ধানক্ষেত/ প্লাবনভূমি। এই প্রকল্পের আওতায় ৬০টি জেলায় ৪৫৫টি উপজেলায় বর্ষাপ্লাবিত ধানক্ষেত/প্লাবনভূমিসহ প্রাতিষ্ঠানিক ও অন্যান্য জলাশয়ে মাছের পোনা অবমুক্ত করা হয়। কিন্তু মাঠ জনবল সংকটের কারণে মানুষের তেমন কোন সহায়তা করা সম্ভব হয়নি।বড় এই প্রস্তবনার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন প্রস্তাবনাটি অনুমোদন। এদিকে জনবল বাড়বে অন্যদিকে দেশ উন্নয়নে আমরা অবদান রাখতে পারবো।

 

টিআর/ এআর

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি