ঢাকা, শুক্রবার   ১৮ অক্টোবর ২০১৯, || কার্তিক ৩ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

নোবেলের সংবেদনশীল হওয়া উচিত ছিল : শ্রীকান্ত আচার্য

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১৪:৪৬ ৩ আগস্ট ২০১৯

‘সারেগামাপা’খ্যাত গায়ক নোবেলকে নিয়ে সমালোচনা এখন তুঙ্গে। দেশের সঙ্গীত অঙ্গন ও সোশ্যাল মিডিয়াতে নোবেলকে নিয়ে চলছে সমালোচনার ঝড়। অনেকটা বেকায়দায় পড়েগেছেন এই তারকা।

সম্প্রতি ইউটিউবভিত্তিক এক টক শোতে নোবেল জাতীয় সংগীত ও গীতিকার প্রিন্স মাহমুদের ‘বাংলাদেশ’ গানটি নিয়ে মন্তব্য করেছিলেন। যদিও নোবেল কথাটি বলার আগে বলে নিয়েছিলেন যে, এটি তার একান্ত ব্যক্তিগত মত। কিন্তু নোবেলকে নিয়ে সমালোচনা থামছেই না। এবার সেই সমালোচনার ঝড় গিয়ে আছড়ে পড়েছে পশ্চিমবঙ্গেও।

‘সারেগামাপা’র অন্যতম বিচারক শ্রীকান্ত আচার্যের কানে গিয়েও পৌঁছেছে বিষয়টি। তিনিও নোবেলের এমন অর্বাচীন মন্তব্যে অবাক হয়েছেন।

এ বিষয়ে শ্রীকান্ত আচার্য গণমাধ্যমকে বলেন, ‘ছেলেটা ভালো গায়। ‘সা রে গা মা পা’তে ওকে খুব কাছ থেকে দেখেছি। ও হঠাৎ করে এমন মন্তব্য কেনো করলো ঠিক বুঝে উঠতে পারছি না। রবীন্দ্রনাথকে নিয়ে কথা বলার আগে ওর আরও সংবেদনশীল হওয়া উচিত ছিল। হুটহাট মুখে যা আসে তা বলে দিলে তা নোবেলের জন্যই ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়াবে।’

শ্রীকান্ত আরও বলেন, ‘জেমসের গাওয়া প্রিন্স মাহমুদের লেখা ‘বাংলাদেশ’ গানটি আমারও পছন্দের। কিন্তু তাই বলে রবীন্দ্রনাথের ‘আমার সোনার বাংলা’কে ছোট করতে পারিনা। আমার মনে হয় নোবেল না বুঝে কথাগুলো বলেছেন। আমি তার মঙ্গল কামনা করি।’

প্রসঙ্গত, শ্রীকান্ত আচার্য ছাড়াও ‘সারেগামাপা’তে বিচার হিসেবে ছিলেন শান্তনু মৈত্র ও মোনালি ঠাকুর। আর উপস্থাপনায় ছিলেন অভিনেতা যীশু সেনগুপ্ত। তারা প্রত্যেকে নোবেলকে নিয়ে রিয়েলিটি শো মাতিয়ে তুলেছিলেন। যদিও প্রতিযোগিতার চূড়ান্ত ফলাফলে নোবেল যৌথভাবে তৃতীয় হন।

উল্লেখ্য, সেই সাক্ষাৎকারে নোবেল বলেছিলেন, ‘রবীন্দ্রনাথের লেখা জাতীয় সংগীত ‘আমার সোনার বাংলা’ যতটা না দেশকে প্রকাশ করে তার চেয়ে কয়েক হাজার গুণ বেশি প্রকাশ করেছে প্রিন্স মাহমুদের লেখা ‘বাংলাদেশ’ গানটি।’

এসএ/

 

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি