ঢাকা, বুধবার   ২১ অক্টোবর ২০২০, || কার্তিক ৬ ১৪২৭

Ekushey Television Ltd.

পাবনায় চিকনাই নদীর উপর স্বেচ্ছাশ্রমে বাঁশের সেতু নির্মাণ

পাবনা প্রতিনিধি

প্রকাশিত : ১৮:২৪ ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০

পাবনায় চিকনাই নদীর উপর গ্রামবাসিদের স্বেচ্ছাশ্রমে নির্মিত হয়েছে ৫৫০ ফুট দৈর্ঘের একটি বাঁশের সেতু। জেলার চাটমোহর উপজেলার ডিবিগ্রাম ইউনিয়নের কাটাখালি কান্দিপাড়া এলাকায় চিকনাই নদীর উপর সেতুটি নির্মাণে এগিয়ে আসে এলাকার স্বেচ্ছাসেবীরা। এতে কেউ দিয়েছেন বাঁশ, কেউ বা টাকা। পুরো গ্রামবাসী প্রায় একমাসের স্বেচ্ছাশ্রমে নদীর ওপর তৈরি করলেন বাঁশের সেতু। সেতুটি তৈরির ফলে ১২টি গ্রামের লাখো মানুষের দীর্ঘদিনের দুর্ভোগ লাঘব হয়েছে।

পাবনার চাটমোহর উপজেলার এবং নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলার সিমান্ত এলাকায় কাটাখালি কান্দিপাড়া গ্রাম অবস্থিত। চিকনাই নদীর ওপারে আরেকটি গ্রামের নাম ‘খৈরাশ’। বর্ষাকাল এলেই খৈরাশ গ্রামটি চাটমোহর উপজেলা সদর থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। ওই গ্রামে প্রবেশের কোনো পাকা সড়ক নেই। কাটাখালি কান্দিপাড়া ও খৈরাশ গ্রামের আশেপাশেই রয়েছে নাটোর জেলার বড়াইগ্রাম উপজেলার জোনাইল ও চান্দাই ইউনিয়নের বেশ কয়েকটি গ্রাম।

এসব গ্রামের বাসিন্দাদের বেশিরভাগ যোগাযোগ চাটমোহর কেন্দ্রিক। ওই এলাকায় রয়েছে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতষ্ঠান, ব্যবসা ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান। কান্দিপাড়া (কাঠগড়া ব্রিজ) এলাকায় চিকনাই নদীর ওপর  কোনো সেতু না থাকায় জনদুর্ভোগের শিকার হয়ে থাকেন লক্ষাধিক মানুষ। বর্ষাকাল এলেই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ডিঙি নৌকায় নদী পারাপার হয়ে থাকেন সবাই। কৃষি প্রধান এলাকায় যানবাহনের অভাবে মাঠ থেকে ফসল আনা-নেয়া বা কেউ অসুস্থ হলে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিতে পারেন না। অসুস্থ রোগীদের পল্লী চিকিৎসকরাই একমাত্র ভরসা। দীর্ঘদিন ধরে এলাকাবাসী জনপ্র্রতিনিধিদের কাছে সেখানে একটি সেতু নির্মাণের দাবি জানিয়ে এলেও শুধু আশ্বাস ছাড়া কিছুই মেলেনি।

এমতাবস্থায় গত একমাস আগে জনদুর্ভোগের কথা চিন্তা করে এলাকার মানুষ বাঁশের সেতু নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়। স্বেচ্ছাশ্রমে এগিয়ে আসেন সরকারি চাকরিজীবী, শিক্ষক-শিক্ষার্থী থেকে শুরু করে গ্রামের সব শ্রেণী-পেশার মানুষ। বাদ যাননি নারীরাও। তারাও সাধ্যমতো সহযোগিতা করেন সেতু নির্মাণ কাজে।

কান্দিপাড়া গ্রামের প্রবীন ব্যক্তি রমজান আলী বলেন,‘ছোটবেলা থেকেই শুনে আসছি কাঠগড়া এলাকায় ব্রিজ নির্মাণ হবে। এভাবে কেটে গেছে বছরের পর বছর। কিন্তু ব্রিজ আর হলো না। কবে হবে, তাও জানি না।’ এলাকার এমপি, চেয়ারম্যান-মেম্বার থেকে শুরু করে অনেকের কাছেই গিয়েছি। কিন্তু একটা সেতু নির্মাণ হয়নি, শেষে আমরাই নিজেদের টাকা আর স্বেচ্ছাশ্রমে ৫৫০ ফুট দৈর্ঘ্যের সেতু বানিয়েছি। সেতুটি তৈরির ফলে ১২টি গ্রামের লক্ষাধিক মানুষের দীর্ঘদিনের দুর্ভোগ কিছুটা হলেও লাঘব হলো।

স্থানীয় ডিবিগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নবীর উদ্দিন মোল্লা জানান, কাঠগড়া এলাকায় একটি ব্রিজ নির্মাণের দাবিতে বহুবার বিভিন্ন দফতরে গিয়েছি। আমিও আশ্বাস ছাড়া কিছুই পাইনি।তবে এখনও চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

চাটমোহর উপজেলা প্রকৌশলী মো. রাজু আহম্মেদ জানান, এলাকা পরিদর্শন করে সেখানে একটি সেতু নির্মাণের জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে প্রকল্প প্রস্তাবনা দিয়েছি। প্রকল্প অনুমোদন হলে খুব শিগগিরই সেখানে সেতু নির্মাণ কাজ শুরু হবে।
কেআই/
 


New Bangla Dubbing TV Series Mu
New Bangla Dubbing TV Series Mu

© ২০২০ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি