ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ১৪ নভেম্বর ২০১৯, || কার্তিক ৩০ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

ফাহমিদা নবীর সুরে কণ্ঠ দিলেন আবদুল হাদী

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১২:৫৭ ১৭ অক্টোবর ২০১৯

বরেণ্য কণ্ঠশিল্পী সৈয়দ আবদুল হাদী। ‘এমনও তো প্রেম হয়’, ‘চলে যায় যদি কেউ বাধন ছিরে’ এর মত বিখ্যাত গানের এই শিল্পী এবারই প্রথম কণ্ঠ দিলেন ফাহমিদা নবীর সুরে। গানের শিরোনাম ‘আমি কেমন করে ভুলি’। গানটির সঙ্গীতায়োজন করেছেন পঞ্চম। ‘জীবনের জয়গান’ শিরোনামে দেশের গানের সিরিজের জন্য ইতিমধ্যে গানটি রেকর্ড করা হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে আবদুল হাদী বলেন, ‘ফাহমিদা শুধু ভালো শিল্পী নয়, ভালো একজন সুরকারও। ‘আমি কেমন করে ভুলি’ গানটি রেকর্ড করার আগ পর্যন্ত অনুমান করতে পারিনি, সে এত চমৎকার সুর করতে পারে, তারচেয়ে বড় কথা, আমার যে ধরনের সুর ভালো লাগে এবং কণ্ঠের জন্য মানানসই, ঠিক সেটাই সুরের মধ্য দিয়ে তুলে ধরতে চেয়েছে ফাহমিদা। তার এই প্রচেষ্টাই আমাকে বেশি মুগ্ধ করেছে। গান গাওয়ার পর একধরনের ভালো লাগায় মনটা ছেয়ে গেছে। আমার বিশ্বাস, শ্রোতাদেরও গানটি ভালো লাগবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘যখন শুনলাম দেশের গানের একটি সিরিজে সুরকার হিসেবে ফাহমিদা নবী কাজ করছে এবং সেই সিরিজের জন্য আমার একটি গান করতে চায়, তখন ভীষণ ভালো লেগেছিল। তার সুরে দেশের গানের একটি সিরিজ তৈরি হচ্ছে- এটা বড় একটি বিষয়। আমার গানটি রেকর্ড করতে গিয়ে উপলব্ধি করেছি, দেশের গানের সিরিজে তৈরি চ্যালেঞ্জিং কাজটি দারুণভাবে করছে ফাহমিদা। এটি তার ক্যারিয়ারের অন্যতম কাজ হবে বলে আমার ধারণা।’

এ প্রসঙ্গে ফাহমিদা নবী বলেন, ‘সৈয়দ আবদুল হাদীর মতো বড় মাপের একজন শিল্পী আমার সুরে গান করেছেন- এটা ভাবতেই অন্যরকম এক ভালো লাগায় মন ভরে যায়। স্টুডিওতে তিনি যখন গান রেকর্ড করছিলেন, তখন আবেগে কেঁদে ফেলেছিলাম। কারণ তার গায়কীতে আমি আমার বাবা মাহমুদুন্নবীর ভালোবাসার পরশ খুঁজে পেয়েছিলাম। গান রেকর্ডিংয়ের সেই মুহূর্তটা সত্যি কখনও ভুলে যাওয়ার নয়।’

ফাহমিদা আরও বলেন, ‘১৫টি দেশের গানের সুর করে তা সিরিজ আকারে প্রকাশ করা চ্যালেঞ্জিং একটি বিষয়। কিন্তু অনেকে পাশে ছিলেন বলে সেই চ্যালেঞ্জ নিতে পেরেছি। সৈয়দ আবদুল হাদী, রফিকুল আলম, সামিনা চৌধুরী, বাপ্পা মজুমদারের মতো জনপ্রিয় এবং এ সময়ের তরুণ শিল্পীদের জন্য গানের সুর করতে পেরে নিজেকে ধন্য মনে হয়েছে।’

এসএ/

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি