ঢাকা, শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:১৪:৩১

Ekushey Television Ltd.

রাজশাহীতে ওষুধ তৈরির রাসায়নিক পানে ৩ জনের মৃত্যু

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ০৭:১৯ পিএম, ১২ অক্টোবর ২০১৭ বৃহস্পতিবার | আপডেট: ০৪:২৩ পিএম, ১৩ অক্টোবর ২০১৭ শুক্রবার

রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে ওষুধ তৈরির কাজে ব্যবহৃত তরল রাসায়নিক পদার্থ পান করে তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। অসুস্থ্য হয়েছেন আরও সাতজন। এদের মধ্যে পাঁচজনকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

নিহত তিনজন হলেন, গোদাগাড়ী উপজেলার রিশিকুল ইউনিয়নের চব্বিশনগর ডাইংপাড়া গ্রামের মৃত তোফিজুল ইসলামের ছেলে বকুল হোসেন (৩৮) ও ইউসুফ আলীর ছেলে তোহিজুল ইসলাম (২৫), সিরাজুল ইসলামের ছেলে দুলাল (২৫)।

তারা সবাই রাজশাহী নগরের সপুরা বিসিক শিল্পনগরীর ‘টিম ফার্মাসিটিক্যাল’ নামের একটি ওষুধ কারখানার শ্রমিক বলে জানান গোদাগাড়ী থানার ওসি হিপজুর আলম মুন্সি।

ওসি জানান, মঙ্গলবার তারা কাজ থেকে ফেরার সময় ওই কারখানা থেকে বোতলে করে ওষধ তৈরিতে ব্যবহৃত রাসায়নিক পদার্থ নিয়ে যায়। যেটি বিভিন্ন ধরণের ওষধ তৈরির কাজে ব্যবহার করা হয়। রাতে তারা কোমল পানির সঙ্গে ওই রাসায়নিক পদার্থ মিশিয়ে পান করে। এর পর থেকে তারা একে একে সবাই অসুস্থ হয়ে পড়েন। বুধবার তারা কয়েক দফায় বমিও করে। রাতে তারা বেশি অসুস্থ্য হয়ে পড়লে বৃহস্পতিবার ভোরে আটজনকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। এদের মধ্যে দুইজনকে হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসকরা মৃত ঘোষণা করেন। অপর ছয়জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। দুপুর আড়াইটার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরেক জনের মৃত্যু হয়।

হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক জালাল উদ্দিন বলেন, বিষক্রিয়ায় তারা অসুস্থ্য হয়ে পড়েছেন। এদের মধ্যে হাসপাতালে পৌঁছার আগেই দুইজনের মৃত্যু হয়। আর একজন চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। কোন ধরণের বিষক্রিয়ায় তারা অসুস্থ্য হয়েছেন তা এখনো জানা যায়নি, তবে পরীক্ষা করার মাধ্যমে বিষয়টি জানা যাবে।

অসুস্থ্যদের পরিবারের সদস্যদের বরাত দিয়ে রিশিকুল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম বলেন, শরীরে এ্যানার্জি আনার জন্য এর আগেও তারা ওই রাসায়নিক পদার্থ সাদা পানির সঙ্গে মিশিয়ে পান করেছে। কিন্তু এবার তারা বোতলে ভরে চুরি করে ওই পদার্থ বাড়ি নিয়ে যায় এবং কোমল পানীয়তে মিশিয়ে পান করে।

অনেকের ধারণা কোমল পানীয়তে তরল রাসায়নিক পদার্থ মিশানোর কারণে বিষক্রিয়ার ঘটনা ঘটেছে।

এম/ডব্লিউএন

 

ফটো গ্যালারি



© ২০১৮ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি