ঢাকা, মঙ্গলবার   ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২

রোগ প্রতিরোধী উচ্চ ফলনশীল সরিষার পাঁচটি জাত উদ্ভাবন (ভিডিও)

ময়মনসিংহ বিভাগীয় প্রতিনিধি

প্রকাশিত : ১২:৪৬, ১৭ জুলাই ২০২২

মাত্র ৫ বছরের গবেষণায় রোগ প্রতিরোধী এবং উচ্চ ফলনশীল সরিষার পাঁচটি জাত উদ্ভাবনে সফলতা পেয়েছেন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক। উদ্ভাবিত সরিষা আবাদে চাষীরা দ্বিগুণ ফলন পাবেন। ভোজ্য তেলের চাহিদা মেটাতে কৃষক পর্যায়ে এ জাত ছড়িয়ে দেয়ার কথা জানিয়েছেন কৃষি বিভাগ।

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের কৌলিতত্ত্ব ও উদ্ভিদ প্রজনন বিভাগের অধ্যাপক ড. আরিফ হাসান খান রবিনের নেতৃত্বে একদল নবীন গবেষক ২০১৭ সালে শুরু করেন সরিষার জাত উদ্ভাবনে গবেষণা। মাত্র ৫ বছরে রোগ প্রতিরোধী এবং উচ্চ ফলনশীল নতুন পাঁচটি জাত উদ্ভাবনে সফলতা পান তারা।

প্রধান গবেষক জানান, উদ্ভাবিত জাতগুলোর গড় ফলন হবে প্রতি হেক্টরে আড়াই টন। যা প্রচলিত জাতের চেয়ে দ্বিগুণ।

বাকৃবি কৌলিতত্ত্ব ও উদ্ভিদ প্রজনন বিভাগের প্রফেসর ড. আরিফ হাসান খান রবিন বলেন, “আমরা যে জাতগুলো উদ্ভাবিত করেছি এ জাতগুলো চাষ করলে কৃষকরা প্রতি হেক্টরে ২ টন থেকে আড়াই টন পর্যন্ত ফলন পাবেন বলে মনে করি।”

গবেষণায় আর্থিক সহায়তা করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা কেন্দ্র ও শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এই গবেষণা অনুপ্রেরণা যোগাবে, বলছেন গবেষক দলের নবীন বিজ্ঞানীরা।

তারা বলেন, “এটি যুগান্তকারি একটি গবেষণা। নতুন গবেষক হিসেবে আশা করি, স্যারের এই সাফল্য আমাদের ভবিষ্যৎ জীবনে অনুপ্রেরণা যোগাবে।”

অন্য গবেষকরাও বলছেন, উদ্ভাবিত নতুন জাত কৃষিতে যুগান্তকারী ভূমিকা রাখবে।

বাকৃবি কৌলিতত্ত্ব ও উদ্ভিদ প্রজনন বিভাগের প্রভাষক নাইমা সুলতানা বলেন, “কৃষক একই খরচে প্রায় দ্বিগুণেরও বেশি ফলন পাচ্ছেন। তো কৃষির ক্ষেত্রে এটা যুগান্তকারি বিপ্লব আনবে বলে মনে করছি।”

উচ্চ ফলনশীল এই জাত শিগগিরই কৃষক পর্যায়ে ছড়িয়ে দেয়ার কথা জানায় কৃষি বিভাগ।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মতিউজ্জামান বলেন, “কৃষক পর্যায়ে এই জাতগুলো উপযোগী হলে দেশের ভোজ্যতেলের চাহিদা অনেকাংশে মেটানো সম্ভব হবে।”

কৃষি বিভাগ ও বিএডিসি’র মাধ্যমে নতুন জাতের এই বীজ আগামী অক্টোবরে কৃষকদের হাতে তুলে দেয়ার লক্ষ্যে কাজ করছেন সংশ্লিষ্ট গবেষকরা।

এএইচ


Ekushey Television Ltd.

© ২০২২ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি