ঢাকা, সোমবার   ২৭ মে ২০২৪

যবিপ্রবির ক্যাফেটেরিয়ার বেহাল দশা 

যশোর প্রতিনিধি

প্রকাশিত : ১১:৫৫, ১২ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | আপডেট: ১২:১৫, ১২ সেপ্টেম্বর ২০২৩

প্রতিষ্ঠার একযুগ পেরিয়ে গেলেও স্বাস্থ্যসম্মত খাওয়ার পরিবেশ গড়ে উঠেনি যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) কেন্দ্রীয় ক্যাফেটেরিয়ায়। মানসম্পন্ন খাবারের অভাব, অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে খাবার তৈরি, নিরাপদ খাবার পানি ও স্যানিটেশনের অভাব সহ নানান সমস্যায় জর্জরিত যবিপ্রবির একমাত্র ক্যাফেটেরিয়া।

শিক্ষার্থীরা একরকম স্বাস্থ্যঝুকি নিয়েই খাচ্ছে ক্যাফেটেরিয়ার অস্বাস্থ্যকর খাবার। এই বিষয়ে প্রশাসনের কাছে একাধিকবার অভিযোগ সহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও পত্র-পত্রিকায় লেখালেখি হলেও মেলেনি সমাধান। 

যবিপ্রবি ক্যাফেটেরিয়ায় সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, অস্বাস্থ্যকর ও স্যাঁতস্যাঁতে পরিবেশে কোন ধরণের সুরক্ষা ছাড়াই রান্না করছে ক্যাফেটেরিয়ায় কর্মীরা। রান্না ঘরের কোন খাবারই ঢাকা নেই, পাশাপাশি খাবার ও ময়দার খামির উপর ভনভন করে উড়ে বেড়াচ্ছে মাছি। রান্না ঘরের বেসিন একই পানিতে ধোঁয়া হচ্ছে তরকারি ও থালাবাসন। অন্যদিকে খাবার পানির ফিল্টারে ময়লা জমে কালো রং ধারণ করেছে। নেই হাত ধোয়ায় কোন জায়গা, টয়লেটের দুর্গন্ধে ওয়াশরুমের আশেপাশের যাওয়া দুষ্কর হয়ে দাঁড়িয়েছে। এছাড়াও ক্যাফেটেরিয়ায় নেই কোন নির্ধারিত মূল্য তালিকা, নেই পর্যাপ্ত টেবিল-চেয়ার, হাতেগোনা কয়েকটি বৈদ্যুতিক পাখা ছাড়া সবগুলোই নষ্ট। 

এ বিষয়ে রসায়ন বিভাগের স্নাতকোত্তরের শিক্ষার্থী রাশেদ খান জানান,"কেন্দ্রীয় ক্যাফেটেরিয়ার ওয়াশরুমের পরিচ্ছন্নতার ব্যাপারে অভিযোগ অনেক পুরোনো। ওয়াশরুমের বর্তমান কিছু স্থিরচিত্র আছে, সেগুলো ফেসবুক পেজ বা গ্রুপগুলোতে এক্সপোজ করতে রুচিতে বাঁধে৷ বেসিনের ট্যাপ নষ্ট, লাইট নষ্ট, পানি জমে থাকে। আর টয়লেটগুলো কখনো পরিষ্কার করা হয় না। ফলে টয়লেটের দুর্গন্ধ ক্যাফেটেরিয়ার মধ্যেও চলে আসে! ছাত্রছাত্রীরা যবিপ্রবির বিভিন্ন ফেসবুক গ্রুপে এ ব্যাপারে অভিযোগ তুলেছিলো। দুঃখজনক হলেও সত্যি, বিশ্ববিদ্যালয় কতৃপক্ষ থেকে কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি।"

 ফার্মেসী বিভাগের শিক্ষার্থী খালিদ সাইফুল্লাহ বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাফেটেরিয়ার খাবারের দাম ও মানের কথা চিন্তা করলে আমার কাছে ক্যাম্পাসের বাইরের হোটেলে খাবারের মান ও দাম দুটোই ভালো। এখানে খাবারের মূল্য তালিকা যেটা দেওয়া সেগুলো পাওয়া যায় না। এছাড়া বাইরে থেকে যদি একজন গেস্ট আসে, ফ্রেশ হওয়ার জন্য তাকে ক্যাফেটেরিয়ার ওয়াশরুমে যেতে দেওয়া যায় না। এত বাজে যে, কেউ গেলে বমি করে ফেলবে। এসব নিয়ে ক্যাফেটেরিয়া কর্তৃপক্ষ কখনো মাথা ঘামাই না, বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষও কোনো নজর দেয় না। আমরা চাই, খাবারের মান স্বাস্থ্য সম্মত হোক পাশাপাশি দামটাও ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে থাকুক এবং ওয়াশরুমের পরিবেশটা ভালো হোক।

এ বিষয়ে পুষ্টি ও খাদ্যপ্রযুক্তি বিভাগের অধ্যাপক ড. শিরিন নিগার বলেন, সাংবাদিকদের মাধ্যমে ক্যাফেটেরিয়ার খাবার তৈরি, পরিবেশন ও পরিবেশের যে ছবি ও ভিডিও দেখেছি সেসব খাবার খেলে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন রোগ যেমন পেটে ব্যথা, ডায়রিয়া, পেটে গ্যাস, মাথা ব্যথা, ফুড পয়জনিং, কিডনি অকেজো ও লিভারের জটিলতা এমনকি মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে খাবার তৈরি, খবার উন্মুক্ত রাখা ও মাছি বসার কারণে বিভিন্ন ধরনের জীবাণু যেমন বেসিলাস, ক্লোস্ট্রিডিয়াম বোটুলিনম, সাল্মোনেলা, ইকোলাই, লিস্টেরিয়া মনোসাইটোজিন, শিগেলা, নরোভাইরাস ও প্যারাসাইট বা পরজীবীসহ প্রভৃতি ব্যাকটেরিয়া ও ভাইরাস খাবারে বংশবিস্তার করে। এমনকি এটি সেন্ট্রাল নার্ভাস সিস্টেমকে ব্যহত করতে পারে।

এ বিষয়ে ম্যানেজার শাহিদুর ইসলাম বলেন, টয়লেট সংস্কার ও পরিষ্কারের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে মহাজন চিঠি দিয়েছে। চাইনিজ খাবারের মূল্যতালিকা থাকলেও সাধারণ খাবারের তালিকা না থাকাটা দুঃখজনক।  সাধারণ খাবারের মূল্যতালিকা সংযোজন ও পানির ফিল্টার লাগানোর জন্য মহাজনকে বলেছি। আর খাবার সবসময় ঢেকে রাখা সম্ভব নয়, তবুও আমরা চেষ্টা করছি খাবার ঢেকে রাখার ও স্বাস্থ্যকর পরিবেশ বজায় রাখার।

এ বিষয়ে যবিপ্রবি উপাচার্য জানান - শিক্ষার্থীরা এ বিষয়ে কখনো আমার কাছে অভিযোগ করেনি তবুও আমি বিভিন্ন সময়ে নিজে ক্যাফেটেরিয়া পরিদর্শন করে দেখেছি সেখানের অবস্থা খুবই খারাপ। এ বিষয়ে আমি দ্রুত পদক্ষেপ নিতে বলেছি - খুব শীঘ্রই ক্যাফেটেরিয়ার দায়িত্বে  যিনি রয়েছে তাকে সরানো হবে।  ক্যাফেটেরিয়াকে খুব দ্রুত আধুনিকায়ন করা হবে  এবং সেখানে যেন শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা একটি সুন্দর পরিবেশ পায় সে ব্যবস্থা নেওয়া হবে ৷

এসবি/ 


Ekushey Television Ltd.





© ২০২৪ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি