ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ১৯ মে ২০২২, || জ্যৈষ্ঠ ৪ ১৪২৯

বাংলাদেশের সঙ্গে আরও বেশি বাণিজ্য করতে পারলে খুশি ভারত

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ২২:৪০, ১৬ নভেম্বর ২০২১

বিক্রম কে দোরাইস্বামী। ফাইল ছবি

বিক্রম কে দোরাইস্বামী। ফাইল ছবি

ভারতীয় হাইকমিশনার বিক্রম কে দোরাইস্বামী বলেছেন, ভারত সহজ এবং আরও সরলীকৃত পদ্ধতির মাধ্যমে বাংলাদেশের সাথে আরও বেশি বাণিজ্য করতে পারলে খুব খুশি হবে।

মঙ্গলবার (১৬ নভেম্বর) এক সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, অবকাঠামো ও সুযোগ-সুবিধা উন্নয়নের মাধ্যমে স্থলবন্দর, রেলপথ এবং নদীপথ ব্যবহার করে আমরা দুদেশেন মধ্যে বাণিজ্য আরো অনেক সম্প্রসারণ করতে পারি।

রংপুর চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (আরসিসিআই) নগরীর আরসিসিআই মিলনায়তনে ‘বাংলাদেশ-ভারত দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য ও বাণিজ্য ইস্যু’ শীর্ষক উক্ত সভার আয়োজন করে।

সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ (এফবিসিসিআই)-এর সিনিয়র সহ-সভাপতি ও বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্সের সাবেক সভাপতি মোস্তফা আজাদ চৌধুরী বাবু।

আরসিসিআই সভাপতি মোস্তফা সোহরাব চৌধুরী টিটুর সভাপতিত্বে অনষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাজশাহীতে নিযুক্ত ভারতের সহকারী হাইকমিশনার সঞ্জীব কুমার ভাটি।

অনুষ্ঠানে মোস্তফা আজাদ চৌধুরী বাবু বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যের বিভিন্ন সমস্যা, সমস্যা ও প্রতিবন্ধকতা নিয়ে একটি মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন।

দিনাজপুর চেম্বারের সভাপতি রেজা হুমায়ুন ফারুক চৌধুরী শামীম, বুড়িমারী স্থলবন্দর আমদানিকারক-রপ্তানিকারক সমিতি এবং কাষ্টমস ক্লিয়াারিং অ্যান্ড ফরোয়াার্ডিং এজেন্টস অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মোঃ সায়েদুজ্জামান এবং সোনাহাট স্থলবন্দর আমদানিকারক-রপ্তানিকারক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যে নানা প্রতিবন্ধকতা তুলে ধরেন।

তারা বলেন, বাংলাদেশের প্রধান রপ্তানি পণ্যের ওপর ভারতীয় রাজ্য সরকারগুলোর আরোপিত শুল্ক ও অশুল্ক বাধার কারণে ভারতে বাংলাদেশে উৎপাদিত পণ্যের কাঙ্খিত রপ্তানি কার্যক্রম পরিচালনা করা সম্ভব হচ্ছে না।

তারা ভারতীয় হাইকমিশনারকে ট্রাক থেকে আমদানীকৃত পণ্য খালাসের সুবিধার্থে এবং রংপুর বিভাগের স্থলবন্দরগুলোতে ব্যবসার অনুকূল পরিবেশ তৈরি করতে ভারতীয় কাস্টমস অফিস সকাল ৭টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত খোলা রাখার অনুরোধ জানান।

ভারতীয় হাইকমিশনার ব্যবসায়ী নেতাদের উত্থাপিত সমস্যাগুলিকে জটিল বলে অভিহিত করে বলেন, ভারত-বাংলাদেশ বাণিজ্য নিয়ন্ত্রণকারী দুদেশের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য ব্যবস্থার সামগ্রিকতার ক্ষেত্রে কিছু সমস্যা রয়েছে।

"স্থল বন্দরগুলোতে অপর্যাপ্ত অবকাঠামো এবং সুবিধার কারণে এবং বাণিজ্য নিয়ন্ত্রণকারী নিয়ন্ত্রক বিধানের কারণে, আমাদের দুদেশের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য এখনও খুব সীমাবদ্ধ," তিনি বলেন।

আধুনিক অবকাঠামো, সুবিধা ও গুদাম সমৃদ্ধ বেনাপোল-পেট্রাপোল স্থলবন্দরের মাধ্যমে বর্তমানে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে অধিকাংশ বাণিজ্য হচ্ছে। ভারত দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য বাড়াতে অবকাঠামো, রাস্তা, গুদাম এবং অন্যান্য সুবিধার উন্নতির সাথে হিলি ও চ্যাংরাবান্ধা স্থলবন্দর সম্প্রসারণ করতে চায়।

যদিও আন্তর্জাতিক বাণিজ্য পরিচালনা ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের একটি কাজ, স্থলবন্দরগুলি সংশ্লিষ্ট রাজ্য সরকারগুলি দ্বারা পরিচালিত হয়।

তিনি বলেন, “আমরা এই দুটি স্থলবন্দর সম্প্রসারণ করতে চাই। এ দুটি স্থলবন্দর দিয়ে বাণিজ্যকে উৎসাহিত করা হয়। কিন্তু, এটি বর্তমানে তা ঘটছে না।” আরও স্থলবন্দর খোলার জন্য তিনি বাংলাদেশের সহযোগিতা কামনা ্ করেন।

বাংলাদেশ-ভুটান-ভারত-নেপাল মোটর ভেহিক্যালস এগ্রিমেন্ট (বিবিআইএন এমভিএ) ২০১৫ সালে স্বাক্ষরিত হলেও আমরা এখনও এর অপারেশন প্রোটোকলটি শেষ করতে পারিনি।

“ভারতীয় দিক থেকে কোনো সমস্যা নেই। আমরা যদি বিবিআইএন এমভিএ প্রোটোকল শেষ করতে পারি, তাহলে ভারতের চেয়ে বাংলাদেশ অনেক বেশি উপকৃত হবে,” তিনি বলেন।

দোরাইস্বামী আরো বলেন, আরও বাংলাদেশের পোশাককে স্বাগত জানাতে ভারত খুবই আগ্রহী।

এব্যাপারে ভারত ইতিমধ্যে একটি পারস্পরিক ব্যবস্থার প্রস্তাব দিয়েছে যার মাধ্যমে ভারত তুলা, ফাইবার এবং কাপড় ও কাাঁচামাল সরবরাহ করবে এবং বিনিময়ে, বাংলাদেশ ভারতকে প্রস্তুত পণ্য সরবরাহ করবে।

“এটি ভারতের বাজারে বাংলাদেশের বৃহত্তর প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করবে। বাংলাদেশ থেকে বিশেষ করে গার্মেন্টস এবং খাদ্যপণ্য আমদানি করতে আমরা খুবই আগ্রহী, ” তিনি বলেন।- বাসস

এসি

 


Ekushey Television Ltd.

© ২০২২ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি